মরহুম এমপি মাওলানা ওবায়দুল হক : যে স্মৃতি প্রেরণার! ….শাহ মমশাদ আহমদ

প্রকাশিত: ১১:২৪ পূর্বাহ্ণ, আগস্ট ২৩, ২০২০

স্বাধীনতার পর ইসলামী দল সমুহের জোটের প্রতীকে নির্বাচিত একমাত্র কওমী আলেম আল্লামা ওবায়দুল হক উজীরপুরী রহঃ, ইসলামী ঐক্যজোটের মিনার প্রতীকে ১৯৯১ সালে জকিগঞ্জ কানাইঘাট এলাকা হতে নির্বাচিত হয়েছিলেন, তিনি ছিলেন বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের নায়েবে আমীর।

যুগশ্রেষ্ঠ হাদীস বিশারদ আল্লামা আনোয়ার শাহ কাশ্মীরির (রহঃ) খাছ শাগরেদ আল্লামা রিয়াসাত আলী চৌঘরী (রহ) এর স্নেহ ধন্য -হযরত আল্লামা ওবায়দুল হক রহঃ নিজ কর্মে প্রিয় শায়খের প্রতিচ্ছবি ছিলেন। মুলত তিনি দারাস তাদরীসওয়াজ নাসিহাতে ব্যস্ত ছিলেন,রাজনৈতিক সচেতন থাকলেও কোন রাজনৈতিক দলে সম্পৃক্ত ছিলেন না।

১৯৯১সালে গঠিত হল ইসলামী ঐক্যজোট,প্রিন্সিপাল আল্লামা হাবীবুর রহমানের (রহঃ) প্রচেষ্টায় শায়খুল হাদীস আল্লামা আজীজুল হক রহঃ এর নির্দেশে বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের মাধ্যমে ইসলামী ঐক্যজোটে সম্পৃক্ত হলেন।

ইসলামী ঐক্যজোটের অন্তর্ভুক্ত দল সমুহের মধ্যে ছিল,জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম, বাংলাদেশ খেলাফত মজলিস,ইসলামী শাসনতন্ত্র আন্দোলন, সিলেটের ফুলতলী সাহেবের আল ইসলাহ।

নির্বাচনে ইসলামী ঐক্যজোট পঞ্চাশের অধিক প্রার্থী দেয়,জোটের প্রতিক মিনার ও জমিয়তের প্রার্থীগণ নিজস্ব দলীয় প্রতিক খাজুর গাছ মার্কায় নির্বাচন করেন,কিন্তু সবাইকে তাক লাগিয়ে রাজনীতি থেকে দুরে থাকা আল্লামা ওবায়দুল হক (রহঃ) বিপুল ভোটে বিজয়ী হন।
স্বাধীনতার পর কওমী অঙ্গনের আর কোন আলেমই নিজ দল/জোটের প্রতীকে সংসদ সদস্য হতে পারেন নি, কেউ কেউ ধানের শীষ বা লাঙ্গল মার্কায় নির্বাচিত হয়েছেন,একমাত্র উজীরপুরী রহঃ এক্ষেত্রে ব্যতিক্রম।

সাদামাঠা চালচলনে অভ্যস্ত,সুন্নাহ পাগল এ মানুষটিই হয়ে যান জনগণের নেতা, এম,পি হলেও ব্যক্তিগত চালচলনে ছিলনা কোন ব্যবধান, হাস্যজ্বল চেহারার পাগড়ি পরিহিত মাটির মানুষটি সত্যিকার অর্থেই ছিলেন মাঠি মানুষের নেতা।

তিনি সংসদ সদস্য থাকাকালীন বয়সে তরুন হলেও আমি ছিলাম তাঁর প্রেস সচিব। উস্তাদে মুহতারাম প্রিন্সিপাল আল্লামা হাবীবুর রাহমান (রহঃ) আমাকে এ কাজে সম্পৃক্ত করে দেন। এ ছাড়া হযরত এম পি সাহেব রঃ ছিলেন আমার আব্বাজান রহঃ এর সহপাঠী,আমাকে নিজের সন্তানের মত মুহাব্বাত করতেন। অনেকটা কাছ থেকে এমহান মানুষটির কাজকর্ম, দ্বীনী খেদমাত দেখার সুযোগ হয়েছে,সে প্রেরনাময় স্মৃতির যৎকিঞ্চিত তুলে ধরছি।

#তৎকালীন সংসদ সদস্য মকসুদ ইবনে আজীজ লামা অসুস্থ,হুজুর আমাকে সাথে নিয়ে ওসমানী মেডিক্যালের দিকে রওয়ানা দিলেন,রিক্সায় বসেই রিক্সা ড্রাইবারের হালপুরসী করা ছিল তার অভ্যাস,ড্রাইভার তার বাড়ী জকিগঞ্জ বলে জানাল,মেয়েটি এস এস সি পাশ,একটি চাকরির সুযোগ থাকলেও স্থানীয় এম,পির স্বাক্ষর লাগে, এম,পি সাহেব রঃ বললেন,দরখাস্ত কি লিখিয়েছ?জ্বি হুজুর,আমার সাথেই আছে,হুজুর বললেন,দরখাস্ত বের কর,এখনই স্বাক্ষর দিয়ে দিবো, ড্রাইভার ভাইটি হতভম্ব, ফেল ফেল চোখে তাকাচ্ছিল,সকাল বেলা, ভীর ছিলনা,মদন মোহন কলেজের সামনে হুজুর আর আমি রিক্সার পাশে দাড়ালাম, ড্রাইভার সিটের নীচ থেকে আবেদন পত্র বের করে দিলেন,হুজুর ব্যাগ থেকে সিল বের করে স্বাক্ষর করে সিল মেরে দিলেন,আনন্দে ড্রাইভার ভাইটির কান্না এখন ও আমার চোখে ভাসছে।

#নির্ধারিত সময়ে প্রোগ্রামে উপস্তিত হওয়া ছিল হুজুরের অভ্যাস,সোলেমান হলে একটি আলোচনা সভা,তিনি প্রধান অতিথি, যথাসময়ে আমাকে নিয়ে উপস্থিত হলেন,আয়োজকরা ও অনুপস্থিত, আমাকে শান্ত করার জন্য হুজুর বললেন,চল দরগাহের ইমাম সাহেব কে অনেকদিন যাবত দেখিনি,দেখে আসি,ইমাম সাহেব হুজুরের হুজরায় অনেক মানুষের ভীড়,এম,পি সাহেব বাহিরে দাড়িয়ে, ইমাম সাহেবের খাদেম ভীতরে নিয়ে গেলেন, ইমাম সাহেব হুজুর তো কত আল্লাহ ওয়ালা ছিলেন,আমাদের সকলের জানা,এম,পি সাহেব কে বললেন, আপনি তো সিয়াসি সরদার, হুজুর বললেন,আমার জন্য দোয়া করুন,ইমাম সাহেব হাত উঠিয়ে দোয়া করলেন,উপস্থিত সকলেই শরিক হলাম,বিদায় মুহুর্তে এম,পি সাহেব কে নগদ কিছু টাকা হাদিয়া দিলেন,আমাকে ও দিলেন,এটা ইমাম সাহেব হুজুরের (রহঃ) নিত্য অভ্যাস ছিল।
একঘন্টা পর এসে দেখলাম এখন ও প্রস্তুতি চলছে,হুজুর সামান্য পরিমাণ রাগ না করে সাহিত্য সংসদের অফিসে বসলেন,
কিছু লোক জমায়েত হওয়ার পর বক্তব্য দিলেন,হাস্য মুখে সময়ের গুরুত্বের উপর সংক্ষিপ্ত আলোচনা করলেন।
ফেরার সময় আমাকে বললেন, আমাদের দেশের নিয়ম অনুযায়ী ওরা দেরী করেছে,আমি আমার নিয়ম অনুযায়ী সঠিক সময়ে এসেছি,এতে রাগ করার কি আছে?

#নির্বাচনে বিজয়ী হওওয়ার পর জনসমাবেশে বললেন,আমার প্রতিদ্বন্দ্বী ভাইয়েরাও বিজয়ী হয়েছেন,আমি সামান্য নম্বর পেয়ে প্রথম হয়েছি,ওনারা দ্বিতীয়, তৃতীয় হয়েছেন,বিজয় মিছিল হলে সকলকে নিয়ে হবে,একথা বলে বিজয় মিছিল না করার নির্দেশ দিলেন।

#তিনি জাতীয় সংসদে সর্বপ্রথম সিলেট বিভাগের দাবী উত্থাপন করেন,স্পিকার তাকে বসার কথা বললে তিনি বজ্রকন্ঠে বললেন,আমি এককোঠি সিলেটবাসীর পক্ষ হতে দাড়িয়েছি,মাননীয় স্পিকার, আমাকে বসার কথা বলবেন না,স্পীকার সময় দিতে বাধ্য হলেন।

#জাতীয় সংসদের বিশেষ অধিবেশনে চলছে,দ্বাদশ সংশোধনীর মাধ্যমে সংসদীয় সরকার ব্যবস্থা প্রতিষ্টিত হল,সে দিন তিনি ওলামায়ে দেওবন্দের এক সফল উত্তরসুরী হিসেবে সাহসী কন্ঠে বললেন,মানব রচিত যে সংবিধান বার বার সংশোধন করতে হয়,এর মাধ্যমে জাতির ভাগ্যের পরিবর্তন হবেনা,জাতির ভাগ্যের পরিবর্তন হতে পারে একমাত্র সে সংবিধানের মাধ্যমে যার শুরুতে বলা হয়েছে লা রাইবা ফিহি , কুরআন কারিম ই এমন সংবিধান যার কোন সংশোধন করতে হয়না,
ইসলামী রাষ্ট্র ব্যবস্থার পক্ষে এমন তাৎপর্য পুর্ন বক্তব্য আর শুনা যায়নি।

#একজন সংসদ সদস্য হওয়া সত্বেও প্রচার বিমুখ ছিলেন, প্র‍য়োজন ছাড়া সামাজিকও দ্বীনী কর্মসুচীর সংবাদ ও ছবি প্রচারে বিমুখ থাকলেন, অনেক সময় বলতেন,আমরা আলেমগণ ইসলামের খেদমত করছিনা,ইসলামই আমাদের খেদমত করছে।

#নাস্তিক মুর্তাদ বিরুধী আন্দোলনের সুচনায় একমাসের অধিক সময় কারাগারে ছিলাম, মহাব্যস্ততা থাকার পরও হুজুর আমাদের তিন দিন দেখতে গেলেন,শেষ দিন বললাম,হুজুর, এত কষ্ট করে আমাদের বারবার দেখতে আসার কি দরকার?, আপনাদের দোয়ায় আমরা ভালই আছি,হুজুর মজা করে বললেন,আমি একজন আলেম, উস্তাদ আর সাধারণ মুসলমান হিসেবে ঈমানী দায়িত্ব পালনে তোমাদের তিন দিন দেখেছি,এম,পি হিসাবে তোমাদের দেখতে এসে মুক্ত করে নিয়ে যাবো। আলহামদুলিল্লাহ সপ্তাহ খানেকের মধ্যেই আমরা কারাগার থেকে মুক্তি পাই।

আল্লামা ওবায়দুল হক রহঃ আমাদের মাঝে নেই, কিন্তু তার রাজনৈতিক, সামাজিক, দ্বীনি খেদমতের ধারা আদর্শ আমাদের যুগ যুগ প্রেরনা যুগাবে,হযরতের সুযোগ্য নাতি স্নেহ ভাজন মুফতি সালাতুর রাহমান মাহবুব তার স্মরণে বহুবিধ কর্মসূচি হাতে নিয়েছেন,মানবতার সেবায় ওবায়েদ ফাউন্ডেশন ব্যাপক কাজ করছে,আল্লামা ওবায়দুল হক রহঃ মাদরাসাও সুপ্রতিষ্ঠিত হওয়ার পথে।
আল্লাহ তাকে জান্নাতের উচু মাকাম দান করুন।

লেখক-
মুহাদ্দিস, কাজির বাজার মাদরাসা, সিলেট।

এই সংবাদটি 379 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com