নারায়ণগঞ্জে মসজিদে বিস্ফোরণের ঘটনায় জমিয়ত মহাসচিবের শোক: দায়ীদের কঠোর শাস্তি দাবি

প্রকাশিত: ৫:৪৫ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৯, ২০২০

নারায়ণগঞ্জে মসজিদে বিস্ফোরণের ঘটনায় জমিয়ত মহাসচিবের শোক: দায়ীদের কঠোর শাস্তি দাবি

সিলেট রিপোর্ট:


জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ’র মহাসচিব আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমী নারায়ণগঞ্জের বায়তুস সালাত জামে মসজিদে বিস্ফোরণে ব্যাপক হতাহতের ঘটনায় গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন। তিনি এই বিয়োগান্তক ঘটনায় শাহাদতবরণকারীদের মাগফিরাত এবং আহতদের দ্রুত আরোগ্য লাভের জন্য দোয়া করেন।

শনিবার (৫ সেপ্টেম্বর) গণমাধ্যমে প্রেরিত এক বার্তায় জমিয়ত মহাসচিব বলেন, মর্মান্তিক এ দুর্ঘটনায় শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত ১৪ জনের শহীদ হওয়ার খবর আমরা পেয়েছি এবং গুরুতর অগ্নিদগ্ধ হয়ে আরো ২২ জনের বেশি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকার কথা জেনেছি। এই মর্মান্তিক ঘটনায় পুরো জাতির সাথে জমিয়তের উলামায়ে ইসলামের নেতাকর্মীরাও স্তব্ধ ও শোকাহত।

আল্লামা কাসেমী নারায়ণগঞ্জ ও ঢাকার জমিয়ত, যুব জমিয়ত ও ছাত্র জমিয়তের নেতাকর্মীদেরকে সাধ্যমতো ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান জানিয়ে বলেন, অনেক আহতের রক্তের ও চিকিৎসা খরচ দরকার। অনেক পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তি এ ঘটনায় হতাহত হয়েছেন। তাদের সকলের পাশে যার যার সাধ্যমতো সহযোগিতা ও ভালবাসা নিয়ে দাঁড়াতে হবে।

জমিয়ত মহাসচিব ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি শান্ত্বনা প্রকাশ করে বলেন, বিস্ফোরণে মসজিদে নামাযরত মুসল্লীদের মধ্যে যারা নিহত হয়েছেন, তারা শরীয়তের আলোকে শহীদি মর্যাদায় ভূষিত হবেন। আমরা পূর্ণ আশাবাদি, দয়াময় আল্লাহ রাব্বুল আলামীন তাদের জীবনের সকল ভুলত্রুটি ক্ষমা করে পরকালীন জীবনকে পরম শান্তিময় করবেন। আর এ ঘটনায় যারা আহত হয়ে দু:খ-কষ্টের মুখে পড়েছেন, মহান আল্লাহ তাদেরকেও ইহকাল ও পরকালে এর উত্তম বিনিময় দান করেবেন, ইনশাআল্লাহ।

বার্তায় আল্লামা কাসেমী আরো বলেন, নারায়ণগঞ্জের ঘটনাস্থল বায়তুস সালাত জামে মসজিদটি বিস্ফোরণে ধ্বংস্তুপে পরিণত হওয়ার মূল কারণ তিতাসের গ্যাসের লাইনের লিকেজ। লিকেজ থেকে গ্যাস বের হয়ে শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত বদ্ধ মসজিদটি আগে থেকেই একটি গ্যাস চেম্বারে পরিণত হয়েছিল

তিনি বলেন, স্থানীয়ভাবে আমরা খবর নিয়ে জানতে পেরেছি, মসজিদের নিচ দিয়ে যাওয়া গ্যাসের লাইনে লিকেজের কথা তিতাসকে বহুবার মুসল্লীদের তরফ থেকে জানানো হলেও সংস্থাটি কোনরূপ ব্যবস্থা গ্রহণ না করে মানবতাবিরোধী কাজ করেছে। মুসল্লীরা প্রায়ই মসজিদের ভিতরে গ্যাসের গন্ধ পেতেন এবং অনেকে আতংকে থাকতেন। আমরা প্রশাসনের প্রতি জোর দাবি জানচ্ছি, ঘটনার নিরপেক্ষ তদন্ত করতে হবে এবং তিতাসের দায়িত্ব অবহেলার জন্য সংস্থাটির কাছ থেকে উপযুক্ত ক্ষতিপুরণ আদায় এবং দায়িত্বে অবহেলায় জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক কঠোর শাস্তি দিতে হবে।

তিনি প্রশাসনের প্রতি অবিলম্বে ক্ষতিগ্রস্তদের ক্ষতিপুরণ প্রদান এবং আহতদের দ্রুত উন্নত চিকিৎসার ব্যবস্থা নিতে জোর দাবি জানান।

এই সংবাদটি 39 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com