রাষ্ট্রীয় পর্যায়ের জুলুম ও দুর্নীতি বিষয়ে চুপচাপ থাকলাম, এটা কখনোই নবীর উত্তরসুরীগণের কাজ নয়: আল্লামা উবায়দুল্লাহ ফারুক

প্রকাশিত: ১২:৩৩ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ২৯, ২০২০

রাষ্ট্রীয় পর্যায়ের জুলুম ও দুর্নীতি বিষয়ে চুপচাপ থাকলাম, এটা কখনোই নবীর উত্তরসুরীগণের কাজ নয়: আল্লামা উবায়দুল্লাহ ফারুক

সিলেট রিপোর্ট :

জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ’র সহসভাপতি ও জামিয়া মাদানিয়া বারিধারার শায়খুল হাদীস আল্লামা উবায়দুল্লাহ ফারুক বলেছেন, উলামায়ে কেরামদের অনেকে ফিকরে দারুল উলূম দেওবন্দ বা দেওবন্দী দর্শনের কথা গৌরবের সাথে বলে থাকেন। ফিকরে দারুল উলূম দেওবন্দে ইলমে নববীর শিক্ষাদান, খানকা পরিচালনা, দাওয়াত ও তাবলীগের পাশাপাশি অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ দর্শন হল- রাষ্ট্রীয় পর্যায়ে ইসলামী নিজাম প্রতিষ্ঠার সংগ্রাম করা। কিন্তু হতাশাজনক দিক হচ্ছে, আমাদের অনেকে ফিকরে দারুল উলূমের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ এই দিক তথা রাষ্ট্রীয় পর্যায়ে ইসলামী নেজাম প্রতিষ্ঠার সংগ্রাম তথা ইসলামী রাজনীতি থেকে সরে পড়েছি। অথচ রাষ্ট্রীয় পর্যায়ের দুর্নীতি, অনিয়ম ও জুলুম বন্ধ করা না হলে এক সময় সেটা সমগ্র সমাজ ব্যবস্থাকেই গ্রাস করে ছাড়বে, এটা আমরা কেউ ভাবছি না। ব্যক্তিগত ও সামাজিক পর্যায়ে যেমন আমরা জুলুম-অত্যাচার রোধ করে ইনসাফ ও সুবিচার প্রতিষ্ঠার কথা বলি এবং মানুষকে দাওয়াত দেই, তেমনি রাষ্ট্রীয় পর্যায় থেকে জুলুম বন্ধ করা এবং ইনসাফ ও সুবিচার প্রতিষ্ঠার দাওয়াত ও সংগ্রাম করা অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। এই গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব থেকে সরে আসলে কখনোই এই দাবি করা যাবে না যে, আমরা দেওবন্দী মাসলাকের উপর আছি। ব্যক্তি পর্যায়ে মানুষকে সৎপথে আসার আহ্বান জানালাম, রাষ্ট্রীয় ও জাতীয় পর্যায়ের জুলুম ও দুর্নীতি বিষয়ে চুপচাপ থাকলাম, এটা কখনোই ওয়ারাসুল আম্বিয়া তথা নবীর উত্তরসুরীগণের কাজ নয়।
রাজধানীর অন্যতম দ্বীনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান জামিয়া মাদানিয়া বারিধারায় শনিবার (২৬ ডিসেম্বর) রাহবারে মিল্লাত আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমী (রাহ.)এর জীবন ও চিন্তাধারা শীর্ষক আলোচনা ও দোয়া মাহফিলের সমাপনী বক্তব্যে আল্লামা উবায়দুল্লাহ ফারুক এসব কথা বলেন।
বিকেল সাড়ে ৪টা থেকে মাগরীব পর্যন্ত এবং বাদ মাগরীব থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত দুই অধিবেশনে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় রাহবারে মিল্লাত আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমী (রাহ.)এর উপর স্মৃতিচারণমূলক ও উলামায়ে কেরামের প্রতি দিক-নির্দেশনামূলক বক্তব্য রাখেন শীর্ষস্থানীয় উলামায়ে কেরাম।
সমাপনী বক্তব্যে আল্লামা উবায়দুল্লাহ ফারুক বলেন, আজকের সভায় বিশিষ্ট উলামায়ে কেরাম হযরত কাসেমী সাহেব (রাহ.)এর জীবনের বিভিন্ন দিক নিয়ে বিস্তর আলোচনা করেছেন। এটা তো শিরোনাম আর বিষয়বস্তুর উপর সংক্ষিপ্ত আলোচনা। কিন্তু এসব বিষয়বস্তুর আবার প্রতিটি দিক নিয়ে বিস্তর আলোচনার অবকাশ রয়েছে।

তিনি বলেন, আল্লাহ তায়ালার ফজল ও করম, আমাদের দেশ ভাগ হওয়ার পরে বাংলাদেশে আমভাবে মাদরাসার হালকায় দারুল উলূম দেওবন্দের সাথে নামের পরিচয় ছিল, কোন আলোচনা নেই, ফিকরে দারুল উলূম সম্পর্কে কোন সাধারণ পর্যায়ে আলোচনা নাই, কারো কোন আইডিয়া নাই। বিশিষ্ট বুজুর্গ যারা, কেবল তারাই জানতেন। কিন্তু এর কোন মোযাকারা নাই। এটা আল্লাহ তায়ালার লাখ লাখ শুকরিয়া। মাওলানা ড. মুশতাক সাহেব কিছু ইঙ্গিত দিয়ে গেছেন। ফিকরে দারুল উলূম এর পরিচিতি প্রথমে ফরিদাবাদ থেকে শুরু হয় ১৯৭৭ সনে। আর দারুল উলূম দেওবন্দে পড়তে যাওয়ার সিলসিলা ১৯৭৭ সানেই ফরিদাবাদ থেকে শুরু হয়।
আল্লামা উবায়দুল্লাহ ফারুক বলেন, আমি শুধু একটা কথা বলবো, সব উলামায়ে কেরাম বলে গেছেন, আমিও এটাই বলবো। আমরা দারুল উলূম দেওবন্দের ফরজন্দ। আমরা সবাই যদি মাদরাসা মসজিদ ভিত্তিক জীবন নির্বাহ করি, আর দেশের সাধারণ শিক্ষিত ও অন্য সকল মানুষের সাথে যদি আমাদের সম্পর্ক না থাকে, তাহলে মাদারিসগুলো বন্যায় ভেসে যাবে। যার কারণে এই ফিকির নিয়ে কাসেমী সাহেব (রাহ.) কাজ করতেন। সাধারণ শিক্ষিত শ্রেণীসহ সর্বসাধারণের সাথে যোগাযোগ কায়েম করা এটাই দেওবন্দীয়্যাতের ফিকির, কাসেমী সাহেবের ফিকির। তাবলীগের সাথে সম্পর্ক স্থাপন এবং প্রত্যেক মহল্লায় মহল্লায় মহিলা মাদরাসা কায়েম, বয়স্ক মহিলা শিক্ষা, বয়স্ক পুরুষ শিক্ষা চালু করা, এটা অত্যন্ত জরুরী। আর প্রত্যেক মাদরাসা সাধারণদের সাথে সম্পর্ক স্থাপনের এই গুরুত্ব যত আগে বুঝবে তত ফায়দা। প্রত্যেক কওমী মাদরাসাকে ইসলামী রাজনীতিতে সক্রিয় হতে হবে।
তিনি বলেন, রাজনীতি বিমুক্ত মাদরাসা হলো হাদিয়া তোহফা গ্রহণ এবং সবার কাছে যেন জনপ্রিয় থাকতে পারে, সেই চিন্তায় সীমাবদ্ধ থাকা। আমরা এর ঘোর বিরোধী। আপনি হাট-বাজার ও গ্রাম পর্যায়ে মানুষের ইনফিরাদিভাবে দুর্নীতি করে, এই আমর বিল মারুফ ওয়া নাহি আনিল মুনকারে জীবন কাটিয়ে দিলেন, আর রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় রাষ্ট্রীয় দুর্নীতি নিয়ে চুপ থাকলেন, এখানে আমর বিল মারুফ ওয়া নাহি আনিল মুনকার কেন করবো না। রাজনীতি হয়ে যায় এই কারণে? এটা কি নতুন কোন ধর্ম? যে কারণে সবচে বড় মুনকিরাত বা দুর্নীতি হলো রাষ্ট্রীয় দুর্নীতি এবং সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ‘আমর বিল মারুফ ওয়া নাহি আনিল মুনকার’ হল রাষ্ট্রীয় দুর্নীতি ও জুলুমের বিরোধীতা করা। জাতীয় ও রাষ্ট্রীয় পর্যায় থেকে আমর বিল মারুফ তথা সৎকাজের আদেশ জারির লক্ষ্যে কাজ করা। এটা আমাদের নজরিয়া, এটাই আমাদের মতবাদ, কওমী মাদরাসাসমূহকে এই কাজ করতে হবে। স্বদেশে থেকে কিছু ইলম-কালাম বিতরণ করলাম, আর ফিল্ডে আমাদের কোন ওয়ার্ক নাই। এই সব হালুয়া রুটির খাওয়ার তালে কওমী মাদরাসা পরিচালনা করলে, মধ্য এশিয়ার দেশসমূহের যে পরিণতি হয়েছে, তদ্রুপ আমাদের দেশেও আমাদের বিলীন হওয়ার মুখে পড়তে হবে।
আল্লামা উবায়দুল্লাহ ফারুক আরো বলেন, দেশের ভিতরে বাইরে বিভিন্ন ধরণের ইসলামের শত্রুরা আমাদেরকে ধ্বংস করতে মুখিয়ে আছে। সকল কুফরি শক্তি ইসলাম উৎখাতের মিশনে আলেমদের পেছনে লেগে আছে। মুসলমান ঘরের কিছু সন্তানের কাজকর্মও অর্ধ্ব কাফিরের মতো। তারাও ইসল্যাম বিচ্যুত হয়ে ইসলামবিদ্বেষী শক্তির সাথে যোগ দিয়েছে। এই দুই পর্যায়ের ইসলামবিদ্বেষীরা দেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব ধ্বংস, ইসলাম উৎখাত এবং নাস্তিক্যবাদ ছড়িয়ে দিতে দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা বাস্তবায়নের পথে অগ্রসর হচ্ছে। এরা ধাপে ধাপে বছরে বছরে তাদের অসৎ উদ্দেশ্য পুরণে অগ্রসর হচ্ছে।
তিনি বলেন, ইসলামবিদ্বেষী অপশক্তি তাদের নীল নকশা বাস্তবায়নে দ্রুত অগ্রসর হচ্ছে। আর আমরা যদি সহজ-সরল বোকা মানুষের মতো বেফিকির হয়ে মাদ্রাসার চার দেওয়ালেই চিন্তাকে সীমাবদ্ধ করে পড়ে থাকি, আর দুশমন সম্পর্কে যদি সচেতন না হই, তাহলে এসব মাদ্রাসা দিয়ে ইসলামবিদ্বেষী চক্রের কঠিন কঠিন ষড়যন্ত্র মোকাবেলা করবেন কীভাবে? এইসব মাদরাসাও তো বিলীন হয়ে যাবে। যার কারণে এই তরীকা গলদ তরীকা ভুল তরীকা। রাজনীতি মাইনাস মাদরাসা অত্যন্ত গলদ আর ভুল তরিকা। রাজনীতি নিয়া আমরা যদি রাজপথে উলামাদের ভালো শক্তি না থাকে, তাহলে তো এরা, অর্থাৎ যারা ইসলাম সম্পর্কে কিছুই জ্ঞান রাখে না, তারা তো দেশটাকে নাস্তিকের দেশ বানিয়ে ফেলবে। খোদ সরকারকে ইসলাম সম্পর্কে অবগত করার জন্য ইসলামী রাজনৈতিক দল রাজপথে থাকা দরকার। সরকারের তো জানা নাই ইসলাম কাকে বলে না বলে? যার কারণে তামাম দেওবন্দী কওমি মাদরাসার রাজনীতি করা লাগবে, পাবলিক নিয়ে চলা লাগবে। রাষ্ট্রীয় দুর্নীতির প্রতিবাদ আপনার জুম্মার বয়ানে হয় না। মাদরাসার বাৎসরিক সভায় এটা হয় না। খানকায় এটা হয় না। রাজপথের সমস্যাকে সমাধান করতে হবে রাজপথে গিয়ে। যার কারণে যদি এই গলদ বুঝ ছাড়ি তাহলে রাষ্ট্রের পক্ষ থেকে এনজিওদের পক্ষ থেকে আর বিভিন্ন ধরণের নাস্তিক মুরতাদের পক্ষ থেকে ইসলামের বিরুদ্ধে যত ষড়যন্ত্র হচ্ছে সারা সড়যন্ত্রের ঔষধ হইলো কওমী মাদরাসার উলামাদের নেতৃত্বে রাজপথে সক্রিয় হওয়া। যদি এটা না বুঝেন, তাহলে দুই কথা বলা হবে। মানুষটা হয় বেকুব অথবা বাতিলের সাথে আঁতাত করে চলছে।
সবশেষে তিনি বলেন, এজন্য উলামায়ে কেরামের প্রতি আমার বিনীত আবেদন, সব কওমী মাদরাসার উলামায়ে কেরাম খানকার জিম্মাদারী যেভাবে আদায় করেন, যেভাবে দাওয়াত ও তাবলীগের জিম্মাদারী আদায় করেন, যেভাবে দারুল উলূম দেওবন্দের মাসলাকের প্রচার-প্রসার ও ধারণ করেন, একইভাবে রাষ্ট্রীয় পর্যায়ের দুর্নীতি, অনিয়ম ও জুলুম প্রতিরোধ এবং সর্বস্তরে সুবিচার ও ইনসাফ প্রতিষ্ঠার মহান লক্ষ্যে রাজনীতির জিম্মাদারীও পালনেও মনোনিবেশ করুন।
সভায় অন্যান্যদের মধ্যে আরো বক্তব্য রাখেন- বেফাক সভাপতি আল্লামা মাহমুদুল হাসান, হেফাজতে ইসলামের মহাসচিব মাওলানা নূরুল ইসলাম, মাওলানা আবুল কালাম, মাওলানা আবদুর রব ইউসুফী, মাওলানা আবদুর রহমান হাফেজ্জী, মাওলানা আবদুল আউয়াল, মুফতি জাফর আহমদ, মাওলানা ড. মুশতাক আহমদ, মাওলানা মামুনুল হক, মাওলানা হাফেজ নাজমুল হাসান, মুফতি ইমাদুদ্দীন, মাওলানা ওয়েজ উদ্দীন, মাওলানা উবায়দুর রহমান খান নদভী, মাওলানা এমদাদুল্লাহ, মাওলানা রফিকুল ইসলাম, অধ্যাপক ড. আহমদ আব্দুল কাদের, মাওলানা জয়নুল আবেদীন, মাওলানা আহমাদুল হক, মাওলানা মঞ্জুরুল ইসলাম আফেন্দী, ড. মাওলানা ঈসা শাহেদী, মাওলানা বাহাউদ্দীন জাকারিয়া, মাওলানা ফজলুল করীম কাসেমী, মাওলানা আহমদ আলী কাসেমী, মাওলানা হাকীম আবদুল করীম, মাওলানা খালেদ সাইফুল্লাহ আইয়ূবী, মাওলানা যাইনুল আবেদীন, মাওলানা হাসান জামিল, মুফতি কামরুজ্জামান, মাওলানা ফায়সাল আহমদ, মুফতি জাকির হোসাইন, মাওলানা নাসির উদ্দিন মুনির, মাওলানা আবদুল কুদ্দুস, মুফতি জাবের কাসেমী, হাফেজ মাওলানা আবদুল কাইয়্যুম প্রমুখ।

এই সংবাদটি 595 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com