জৈন্তা দরবস্তে মাদরাসার জমিদখল ষড়যন্ত্র : মিথ্যা মামলা দায়েরে এলাকাবাসীর ক্ষোভ

প্রকাশিত: ৭:০০ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ১৯, ২০২১

জৈন্তা দরবস্তে মাদরাসার জমিদখল ষড়যন্ত্র : মিথ্যা মামলা দায়েরে এলাকাবাসীর ক্ষোভ

সিলেট রিপোর্ট :

সিলেটের জৈন্তাপুর উপজেলার অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি এলাকা ‘দরবস্ত ইউনিয়ন’। তিনটি উপজেলার মধ্যস্থল হওয়ায় স্থানীয় দরবস্ত বাজার সেন্ট্রাল মোহনায় পরিণত হয়েছে। এই বাজারের এক্কেবারে সন্নিকটে প্রায় দুই দশক আগে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে

“দরবস্ত আল-মনসূর মাদরাসা” জৈন্তাপুর। দেশের সীমানা পেরিয়ে এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সুনাম অর্জন করছে বিদেশেও। প্রিয় এ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে দীর্ঘদিন থেকে একটা লোক তার পরিবাসহ বিভিন্নভাবে প্রতিষ্ঠানের পড়ালেখায় বিগ্নতা ঘটাচ্ছে! কষ্ট দিয়ে আসছে। জানা গেছে লোকটির নাম কুতুব আলী (যদিও সে এলাকায় অন্য নামে প্রসিদ্ধ)। সে মাদরাসার জমিদখলের ষড়যন্ত্র করছে এবং মাদরাসা শিক্ষার্থীদের ওপর মিথ্যা মামলা দায়েরে এলাকাবাসী ক্ষোভে ফোঁসছেন।

বছর চারেক আগে আকস্মিকভাবে সে দাবী করলো মাদরাসার দখলে, ক্যামপাসের ভিতরে তার অনেক জমি রয়েছে! তখন তার নির্বাচিত আমিন দিয়ে জরিপ করা হলে দেখা গেলো তার কেনো জায়গা মাদরাসা ক্যাম্পাসে নেই। উল্টো বরং তার দখলে মাদরাসার কয়েক শতক জমি রয়েছে। পরে এলাকার বিশিষ্টজনেরা তাকে এ জায়গা ছাড়তে বললে সে রাজি হয়।

কিন্তু উক্ত বিষয় নিষ্পত্তির কিছুদিন পর সে (কুতুব আলী) আবার মাদরাসার বাথরুমের পানি নিয়ে ঝামেলা শুরু করলো। তার এই অপরিনামদর্শী আচরণে বাথরুম সংলগ্ন প্রায় ২০ শতক জমি মাদরাসার জন্য কর্তৃপক্ষ ক্রয় করে।(উল্লেখ্য জমির মালিক পক্ষের একজন অপ্রাপ্ত বয়স্ক থাকার কারণে ১৩ শতক রেজিস্ট্রি করা হলেও গত ডিসেম্বরে বাকি প্রায় ৭ শতক জমি মাদরাসার নামে রেজিস্ট্রি করা হয়েছে)। কিন্ত সে আবারও মাদরাসাকে ক্ষতিগ্রস্ত করার জন্য বাথরুমের পাশে থাকা জমি অবৈধভাবে দখলকরে মাটি ভরাট করে কলাগাছের চারা লাগিয়ে দেয়।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় কুতুব আলী মাদরাসাকে বেকায়দায় ফেলানোর জন্য যে জায়গায় মাটি ভরাট করেছিল, সে জায়গাটি মাদরাসার রেজিস্ট্রিকৃত জায়গা। আর এই জায়গাটি মাদরাসার কাজে লাগাতে গেলে সে বারবার বাঁধা দিচ্ছে। পরবর্তীতে তার সম্মতিক্রমে এলাকার হাজারো মানুষের সামনে উক্ত জমি দখলমুক্ত করার সিদ্ধান্ত হয় এবং জমির বর্তমান মাটি ও কলাগাছের চারা সরিয়ে নেয়ার জন্য মাদরাসার সাধারণ সভায় কুতুব আলীকে ১সপ্তাহ সময় বেঁধে দেয়া হয়। কিন্তু নির্ধারিত সময়ের মধ্যে সে ওগুলো সরায় নি। তাই গত বুধবার (১৭ ফেব্রুয়ারী) মাদরাসার বাথরুমের পানি নিষ্কাসনের জন্য উক্ত জমিতে উন্নয়নমুলক কাজ শুরু হলে তার ২য় স্ত্রী এসে বাধা প্রদান করে। বাধা প্রদানের পর মাদরাসা কর্তৃপক্ষ কাজ বন্ধ করে দেয় এবং উক্ত সমস্যা সমাধানের লক্ষ্যে এলাকাবাসী ১৯ ফেব্রুয়ারী শুক্রবার সকাল ১০ টায় মাদরাসার সাধারণ সভার সময় নির্ধারিন করেন।
.
কিন্তু এলাকবাসীর এ সিদ্ধান্ত অমান্য করে একদিন আগেই ১৮ ফেব্রুয়ারী কুতুব আলী ও তার স্ত্রী মাদরাসার একজন শিক্ষকের নাম উল্লেখসহ অন্যান্য শিক্ষক/ছাত্রের বিরুদ্ধে থানায় মামলা করে বলে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সুত্রে জানা যায়! তার অভিযোগ দায়ের করা নিয়ে সৃষ্ট হয় ক্ষোভ। অভিযোগ দাখিলের পর গতকাল বৃহস্পতিবার জৈন্তাপুর মডেল থানার কয়েকজন পুলিশ এসে এলাকা ও মাদরাসার লোকদের সাথে কোনপ্রকার যোগাযোগ বা আলোচনা ছাড়াই বাদি পক্ষের রেডিমেট সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণ করে চলে যায়।

গতকাল বিকেলে বিষয়টি এলাকার মানুষের মধ্যে জানাজানি হলে এলাকাবাসী এর তীব্র নিন্দা জানাতে এবং ক্ষোভে দরবস্ত বাজারে তাৎক্ষণিক প্রতিবাদ সভার আয়োজন করে। সভায় ঘটনার বিবরণ শুনে বিক্ষোভরত স্থানীয় জনতা সিলেট-তামাবিল হাইওয়ে সড়ক অবরোধ করে । সাথে সাথে এলাকার চেয়ারম্যান, মেম্বার, জনপ্রতিনিধি, সামাজিক, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ ও জৈন্তাপুর মডেল থানার ওসি উপস্থিত হয়ে মামলা প্রত্যাহারের আশ্বাস দিলে ক্ষোভরত এলাকাবাসী শান্ত হন।

এই সংবাদটি 358 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com