জামালগঞ্জের ছয়টি গ্রামে বিদ্যুতের ছোঁয়া লাগেনি প্রাধানমন্ত্রীর প্রত্যাশা ভেস্তেযেতে বসছে

প্রকাশিত: ১:০০ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৪, ২০২১

জামালগঞ্জের ছয়টি গ্রামে বিদ্যুতের ছোঁয়া লাগেনি প্রাধানমন্ত্রীর প্রত্যাশা ভেস্তেযেতে বসছে

তৌহিদ চৌধুরী প্রদীপ, জামালগঞ্জ থেকে:
‘প্রধানমন্ত্রীর উদ্যোগ ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ’ এই শ্লোগান ভেস্তে যেতে বসছে। এখনো বিদ্যুতের ছোঁয়া লাগেনি হাওরপাড়ের ছয়টি গ্রামে ফলে অন্ধকারে প্রায় সহস্রাধিক জনগোষ্ঠি। বিদ্যুৎ দেবার কথা বলে একটি প্রতারক চক্র প্রায় ১৫ লাখ টাকা হাতিয়ে নিলেও এখনো আলোর মুখ দেখেনি উপকার ভোগীরা।

সুনামগঞ্জ জেলার জামালগঞ্জ উপজেলার ফেনারবাঁক ইউনিয়নের মিনি পাকনার হাওরের অবহেলিত দরিদ্র ছয়টি গ্রামের সহস্রাধিক জনগোষ্ঠি বিদ্যুৎ না পেয়ে এখনো কুপি বাতি জ্বালিয়ে রাতের রাত কাটান তারা।

কৃষক ও মৎস্যজীবি সহ বিভিন্ন শ্রেনি পেশায় নিয়োজিত তায়েব নগর গ্রামের ৯০টি, আব্দুল্লাহ পুর গ্রামে ৫০টি, যশমন্তপুর গ্রামে ৯০টি, সুখদেবপুর গ্রামের ৫০টি, কৃষ্ণপুর গ্রামের ৩০টি ও শ্রীমন্তপুর গ্রামে ৩৫টি পরিবারসহ মোট ৩৩০টি দিনমজুর পরিবারের বসতি। ঢেউয়ের সাথে যুদ্ধ করে হাওরের কঠিন জীবন যাত্রার সম্মুখীন হয়ে জীবিকা নির্বাহ করা এই বৃহৎ জনগোষ্ঠির সাথে প্রতা।

একটি প্রতারক চক্র বিদ্যুূৎ দেবার নামে প্রায় ১৫ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। সরকার যেখানে নামে মাত্র অর্থ দিয়ে বিদ্যুৎ পৌছে দিচ্ছে সেখানে বিদ্যুতের নামে প্রতারকরা লাখ-লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। জামালগঞ্জ উপজেলার মিনি পাকনার হাওরের ৬টি গ্রামে এখনো পৌঁছেনি প্রধানমন্ত্রীর দেয়া বিদ্যুৎ। ৩নং ফেনারবাকঁ ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের অর্ন্তগত যশমন্তপুর, সুখদেবপুর, শ্রীমহন্তপুর, কৃষ্ণপুর, তায়েবনগর ও আব্দুল্লাহপুর গ্রামের ৩৩০টি পরিবারে এখনো পৌছেনি বিদ্যুৎ। অসচেতন গ্রামীণ জনগন পড়েছেন প্রতারক চক্রের পাল্লায়।

জানা যায়, বিগত ২০১৮ সাল থেকে ৬টি গ্রামে সহজ -সরল জনগণ প্রতিঘরে বিদ্যুতের আশায় প্রতিটি মিটারের বিপরীতে গড়ে ৪৫,০০ করে টাকা উত্তোলন করে নিয়েছে প্রত্যেক গ্রামের একজন করে চতুরবাজ লোক। বিদ্যুৎ সংযোগের নাম ধরে এই প্রতারক চক্রটি নেত্রকোণা জেলার সোহাগ মিয়া নামক এক ইলেকট্রিশিয়ান এর কাছে জমা দেয়।

যারা অর্থ সংগ্রহ করে সোহাগকে দিয়েছে তাদের মধ্যে যশমন্তপুর গ্রামের শংকর দাস, তায়েবনগর ও আব্দুল্লাপুর গ্রামের অর্থ সংগ্রহ করেছে রূপ মিয়া ও শফিক মিয়া, সুখদেবপুর গ্রামের অদ্বৈত বর্মন, শ্রীমন্তপুর গ্রামের মনির মিয়া, কৃষ্ণপুর গ্রামের দিলীপ বর্মন। অর্থ নেওয়ার পর প্রতিটি গ্রামের পাশে পিলার বসিয়ে ওয়ারিং এর কাজ অসমাপ্ত রেখে সেই থেকে চলে যায় এর পর তার মুখ দেকেনি এলাকাবাসী।

অনেক গরীব অসহায় পরিবার ঋণ করে বিদ্যুতের টাকা দিয়েছে। ৬টি গ্রামে সর্বসাকুল্যে ১৫ লক্ষ টাকা উত্তোলন করেও বিদ্যুৎ পৌছায়নি ঘরে ঘরে। প্রতিটি গ্রামে প্রতারিতরা এই অভিযোগগুলি ৩ বছর যাবত স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, সরকারি রাজনৈতিক দলের নেতা, সুনামগঞ্জ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি ও সংসদ সদস্য বরাবরে অবহিত করলেও এখনো কোনো সুরাহা হয়নি বলে জানান এলাকার লোকজন।

প্রতারিতদের পক্ষে কথা বলেন, আব্দুল্লাহপুর গ্রামের মোশারফ হোসেন, হাজু মিয়া, আব্দুল খালেক ও সাদেক মিয়া বলেন, ২০১৮ সালে বিদ্যুৎ আনিয়া দিব বলিয়া আব্দুল্লাহপুর ও তায়েবনগর গ্রাম হইতে ১৪০টি পরিবার থেকে ৪৬,০০ টাকা করে দিয়েছি কিন্তু বিদ্যুৎ পাই নাই।

এখন মনির হুসেনের কাছে প্রত্যেকে ৫০০ টাকা করে দিয়েছি, বিদ্যুৎ দিবে বলেছে। পরে আরো দিবে হবে।

যশমন্তপুর গ্রামের ৭৫টি পরিবারের পক্ষে যুতি মোহন মাস্টার, রঞ্জিত দাস, অজিত দাস, পলাশ দাস ও জ্যোতিষ দাস বলেন ,বিদ্যুৎ পাইবার শর্তে প্রতিটি পরিবার থেকে ৪১,০০ টাকা দেয়ার মধ্যে প্রত্যেকে পরিবার থেকে ৩,০০০ টাকা দিয়েছি। এ পর্যন্ত খুটি, তার ও কিছু পরিবারে ওয়ারিং ছাড়া কিছুই পাইনি । আমরা ৩ বছর যাবত প্রতারনার শিকার কেউ আমাদের খুঁজ নেননি।

একই অভিযোগে সুখদেবপুর গ্রামে বিদ্যুৎ দিবার নামে গ্রামবাসী টাকা দিয়েও বিদ্যুৎ না পাওয়ায় অভিযুক্ত করেন একই গ্রামের অদৈত্য বর্মনকে। একই অভিযোগে অভিযুক্ত কৃষ্ণপুর গ্রামের দিলীপ বর্মন। শ্রীমন্তপুর গ্রামের সুমন বর্মন, শীতেষ বর্মন, মতিলাল বর্মন, রবিন্দ্র ও সুভাষ বর্মন বলেন, আমরা প্রত্যেক পরিবারে ৪৬,০০ টাকা করে দিয়েছি ৩ বছরেও বিদ্যুৎ পাইনি।

শ্রীমন্তপুর গ্রামের পক্ষে ছয়ফুল মিয়া বলেন, বিদ্যুতের জন্য আমরাও রাজা মিয়াকে একই হারে টাকা দিয়েছি কিন্তু বিদ্যুৎ পাইনি। অভিযুক্তকারীদের মধ্যে যশমন্তপুরের শংকর দাস বলেন, আমি নেত্রকোনার সোহাগকে টাকা দিয়েছি সে বিদ্যুৎ দিতে না পারায় এখন জামালগঞ্জের মমিনকে ৫০,০০০ টাকা দিয়েছি আব্দুল্লাহপুর ও তায়েব নগরের রুপ মিয়া ও শফিক মিয়া ও সোহাগকে টাকা দেবার কথা বলে।

আব্দুল্লাহপুর ও তায়েব নগরের লোকেরা মনির হোসেনকে দায়িত্ব দিয়েছে। সুখদেবপুরের অদ্বৈত্য বর্মন, কৃষ্ণপুরের দিলীপ বর্মন বলেন, বিদ্যুতের জন্য আমরা টাকা উত্তোলন করে নেত্রকোণার সোহাগ মিয়াকে দিয়েছি, সে খুঠি ও তার সংযোগ করে দিয়েছে আরও টাকা চায়।

শ্রীমন্তপুরের রাজা মিয়া বলেন, আমি মুমিন কে দিয়েছি, বলেছে বিদ্যুৎ দিবে। ফেনারঁবাক ইউনিয়নের ২ নং ওয়ার্ডের স্থানীয় ইউপি সদস্য আসাদ মিয়া বলেন, সারা জামালগঞ্জে বিদ্যুতের বাতি জ্বললেও এই ৬ টি গ্রাম এখনো অন্ধকারে, তারা প্রতারনার শিকার। ইউনিয়ন চেয়ারম্যান হাওরের চারদিকে বর্ষায় যখন গ্রামের ঘরে ঘরে বিদ্যুতের ঝলকানি মিনি পাগনা হাওর তখন অন্ধকারে নিমজ্জিত।

সুনামগঞ্জ পল্লী বিদ্যুত এর পরিচালক, সুজিত কুমার বিশ্বাস জামালগঞ্জ এখনো শতভাগ ঘোষণা করা হয়নি হবে, লাইন টানানো হয়েছে। আমরা মিটার টাকা সংগ্রহ করেছি আর বাড়তি কিছু জানি না। সারা বাংলাদেশে মিটারের কিছু ক্রাইসেস ছিল, আমরা একসপ্তাহের মধ্যে মিটার পেয়ে যাবো পড়ে কাজ শুরু হবে।

এই সংবাদটি 39 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com