গোয়াইনঘাটে ভোগান্তির আরেক নাম বৈদ্যুতিক খুঁটি স্থানান্তরের আবেদন

প্রকাশিত: ১১:২৫ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৬, ২০২১

গোয়াইনঘাটে ভোগান্তির আরেক নাম বৈদ্যুতিক খুঁটি স্থানান্তরের আবেদন

সিলেট রিপোর্ট :

সীমান্ত এলাকা সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলার ৭নং নন্দিরগাঁও ইউনিয়ের মানাউরা গ্রামে ভোগান্তির আরেক নাম বৈদ্যুতিক খুঁটি সরানোর আবেদন।

ওই এলাকার সিদ্দিক আহমদ এর ছোট ভাই নতুন বাড়ি তৈরী করেছেন সড়কের পাশে। বাড়ির সীমানা প্রাচীর নির্মাণের পর গেইট নির্মাণে বাঁধা হয়ে দাঁড়ায় বৈদ্যুতিক খুঁটি।
বাড়ির মূল ফটকের সামনেই বৈদ্যুতিক খাম্বাটি দাঁড়িয়ে আছে। তা স্থানান্তর না করলে বাড়িতে প্রবেশ হয়ে যাবে দুস্কর।
গত মার্চ মাসের ২৯ তারিখে সিলেট পল্লী বিদ্যু সমিতি-২ এর আওতাধীন শিবের বাজার আঞ্চলিক শাখায় রশিদ নং (২০২৯৮৮) মারফত ১৭২৫ টাকা ফি দেন খুঁটি সরানোর আবেদন বাবদ।
এর ৬ মাস পর চলতি মাসের ১০ তারিখ খুঁটি স্থানান্তর করা হয়। এর মাঝে চলে আসছি/আসবো, হচ্ছে-হবে বলে সময় ক্ষেপন। এভাবেই ভোগান্তির চাকা ঘুরতে থাকে দিনের পর দিন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে সিদ্দিক আহমদ ও তাঁর ভাই সাদী আহমদ জানান, খুঁটি সরানোর আবেদন ফি ১৭২৫ টাকা। পরে খুঁটি স্থানান্তর ফি ৭ হাজার ৩৯ টাকা প্রদান করেছি। যা তাদের নির্ধারিত ফি।
ব্যাপার হলো, টাকা যাক কিন্তু আমরা পল্লী বিদ্যুতের গ্রাহক। আমাদের মতো এই এলাকার আরও অনেকে নিরবে ভোগান্তি সহ্য করে যাচ্ছেন।
এই ভোগান্তি থেকে পরিত্রানের জন্য গ্রাহকরা পল্লী বিদ্যুত কর্তৃপক্ষের সাথে বার বার যোগাযোগ করলেও কর্তৃপক্ষ কাউকে কোনো পাত্তাই দেয়নি।

সরেজিমনে এলাকা ঘুরে পাওয়া যায় আরেক তথ্য ১০ সেপ্টেম্বর খুঁটি স্থানান্তর করতে আসলে আরও ২ হাজার ৫শ’ টাকাও দিতে হয়েছে বখরা হিসেবে।
মানাউরার বাসিন্দা ফখর উদ্দিন নামের কলেজ পড়ুয়া একজন ছাত্র বলেন, তিনিও এই ‘খুঁটি’ ভোগান্তির শিকার হয়েছেন।

এ ব্যাপারে কথা বললে সিলেট পল্লী বিদ্যু সমিতি-২ এর আওতাধীন শিবের বাজার আঞ্চলিক শাখার এজিএম রমিজ উদ্দিন বলেন-ফি যা দিয়েছেন তা সরকার কর্তৃক নির্ধারিত। তবে কালক্ষেপন করার বিষয়টি তিনি অস্বীকার করে বলেন-বৈদ্যুতিক খুঁটি স্থানান্তরের কোনো নির্দিষ্ট সময়সীমা নেই। তবে আমরা গ্রাহকদের ভালো সার্ভিস দেয়ার চেষ্ঠা সর্বদা করে থাকি।

এই সংবাদটি 64 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com