নিউ ইয়র্কে অগ্নিকাণ্ডে ৯ শিশুসহ কমপক্ষে ১৯ জন নিহত

প্রকাশিত: ৩:২৯ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১০, ২০২২

নিউ ইয়র্কে অগ্নিকাণ্ডে ৯ শিশুসহ কমপক্ষে ১৯ জন নিহত

 

ডেস্ক রিপোর্ট :

নিউ ইয়র্কে একটি এপার্টমেন্ট ভবনে অগ্নিকাণ্ডে ৯টি শিশুসহ কমপক্ষে ১৯ জন নিহত হয়েছেন। উদ্ধার করে ৩২ জনকে পাঠানো হয়েছে হাসপাতালে। তার মধ্যে অনেকের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানিয়েছেন নিউ ইয়র্কের মেয়র এরিক এডামস। ফায়ার ডিপার্টমেন্ট কমিশনার ডানিয়েল নিগ্রো বলেছেন, ১৯ তলাবিশিষ্ট ভবনটির প্রতিটি ফ্লোরে তারা হতাহত মানুষকে দেখতে পেয়েছেন। সেখানে যে অগ্নিকাণ্ড হয়েছে তাতে অপ্রত্যাশিত মাত্রায় ধোয়া সৃষ্টি হয়েছিল। এনবিসি নিউজ বলেছে, ৩০ বছরের মধ্যে নিউ ইয়র্কে এটাই সবচেয়ে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে মৃত্যু। একদিন আগে ফিলাডেলফিয়ায় একটি এপার্টমেন্টে অগ্নিকাণ্ডে নিহত হয়েছেন ১২ জন। সেখানেও মারা গেছে আটটি শিশু।রোববার নিউ ইয়র্কের ব্রোঙ্কস এপার্টমেন্ট ব্লকের দ্বিতীয় ও তৃতীয় তলায় আগুন ছড়িয়ে পড়ে স্থানীয় সময় সকাল ১১টার দিকে।

এ খবর পেয়ে আগুন নিভাতে ছুটে যান প্রায় ২০০ অগ্নিনির্বাপণকারী। কর্মকর্তারা মনে করছেন ইলেকট্রিক হিটারের ত্রুটি থেকে এই অগ্নিকাণ্ডের সূত্রপাত। কমিশনার নিগ্রো বলেছেন, আগুন লেগেছিল দুটি মেঝেতে। কিন্তু ধোয়া ছড়িয়ে পড়ে সর্বত্র। যে ফ্লোরে অগ্নিকাণ্ডের সূচনা সেখানকার দরজা ছিল উন্মুক্ত। ফলে ধোয়া সব ফ্লোরকে আচ্ছন্ন করেছে। কমিশনার নিগ্রো বলেন, প্রতিটি ফ্লোরের সিঁড়িপথে পড়ে ছিলেন মানুষ। তাদের অনেকের হৃদযন্ত্রে অথবা শ্বাসপ্রশ্বাসের সমস্যা দেখা দেয়।

ওই এপার্টমেন্টের কাছেই বসবাস করেন জর্জ কিং। তিনি বার্তা সংস্থা এএফপিকে বলেন, ধোয়া চারদিকে যখন ছড়িয়ে পড়ে তখন জানালা দিয়ে লোকজনকে সাহায্য চেয়ে হাত নাড়তে দেখা যায়। তার ভাষায়, দেখলাম ধোয়ার মধ্য দিয়ে বহু মানুষ আতঙ্কিত। কিন্তু তারা কেউ লাফিয়ে পড়ার চেষ্টা করেননি।

এ ঘটনায় মোট আহত হয়েছেন ৬৩ জন। ৩২ জনকে নেয়া হয়েছে হাসপাতালে। মেয়রের সিনিয়র একজন উপদেষ্টা স্টিফেন রিঙ্গেল বলেন, এর মধ্যে ১৩ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। এই অগ্নিকাণ্ড আমাদের শহরে শোকের ছায়া নামিয়ে দিয়েছে। হতাহতের সংখ্যা ভয়াবহ। অন্যদিকে এ ঘটনাকে ভয়াবহ এক ট্রাজেডি বলে মন্তব্য করেছেন নিউ ইয়র্কের গভর্নর ক্যাথি হোচুল। তিনি হতাহতদের ক্ষতিপূরণ দেয়ার জন্য একটি তহবিল গঠনের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। বলেছেন, নতুন বাড়ি করতে অর্থ দেয়া হবে। দাফনের জন্য অর্থ দেয়া হবে। আরও প্রয়োজনে অর্থ দেয়া হবে।
উল্লেখ্য, ব্রোঙ্কস হলো এমন একটি এলাকা, যেখানে বসবাসকারীদের বেশির ভাগই অভিবাসী মুসলিম। আগুনে যারা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন তারা মূলত গাম্বিয়া থেকে যুক্তরাষ্ট্রে গিয়েছেন বলে মনে করা হচ্ছে। আগুনে যারা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন, তাদের অভিবাসন বিষয়ক স্ট্যাটাস যা-ই হোক না কেন, কর্তৃপক্ষের সহায়তা নিতে আহ্বান জানিয়েছেন এডামস। তিনি অধিবাসীদের নিশ্চয়তা দিয়েছেন যে, তাদের অভিবাসন বিষয়ক স্ট্যাটাস অভিবাসন বিষয়ক বিভাগের কাছে হস্তান্তর করা হবে না। তার পাশাপাশি নিউ ইয়র্কের সিনেটর চাক শুমার অভিবাসীদের সমর্থন দেয়ার প্রত্যয় ঘোষণা করেন।

এই সংবাদটি 114 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com