ছুটি শেষে শনিবারই কর্মস্থলে ফিরেছিলেন আলা উদ্দিন, রোববার বাড়িতে এলো মৃত্যুসংবাদ

প্রকাশিত: ৬:১১ পূর্বাহ্ণ, জুন ৬, ২০২২

ছুটি শেষে শনিবারই কর্মস্থলে ফিরেছিলেন আলা উদ্দিন, রোববার বাড়িতে এলো মৃত্যুসংবাদ

নোয়াখালী প্রতিনিধি:

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে বিএম কনটেইনার ডিপোতে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় নিহত ফায়ার সার্ভিসের আরেক সদস্য মো. আলা উদ্দিনের (৩৫) গ্রামের বাড়ি নোয়াখালীর চাটখিলে। তার মৃত্যুতে চলছে শোকের মাতম। শনিবার (৪ জুন) সকালেই ছুটি শেষে গ্রামের বাড়ি চাটখিল থেকে কর্মস্থল চট্টগ্রামের যান আলা উদ্দিন। রোববার বাড়িতে পৌঁছায় তার মৃত্যু সংবাদ।

নিহত আলা উদ্দিন নোয়াখালীর চাটখিল উপজেলার মোহাম্মদপুর ইউনিয়নের বানসা গ্রামের বড় মুন্সি বাড়ির আবদুর রশিদের ছেলে। তাজ উদ্দিন তাহিম নামের ৬ বছরের এক পুত্র সন্তানের জনক তিনি।

নিহতের বড় ভাই জহির উদ্দিন বলেন, মা-বাবা ও ছয় ভাই, চার বোন নিয়ে তাদের সংসার। ভাইদের মধ্যে পঞ্চম ছিলেন আলা উদ্দিন। গত ১৫ বছর আগে বাংলাদেশ ফায়ার সার্ভিসে ফায়ারম্যান হিসেবে যোগদান করেন আলা উদ্দিন। প্রথমে তার কর্মস্থল ছিল ঢাকায়। পরবর্তীতে ফেনী, চট্টগ্রামের আগ্রাবাদ, নোয়াখালীর সোনাইমুড়ী, কুমিল্লা এবং সবশেষ চট্টগ্রামের কুমিরা ফায়ার স্টেশনে কর্মরত ছিল সে।

গত সপ্তাহের প্রথম দিকে ছুটিতে বাড়িতে আসে আলা উদ্দিন। প্রায় ৭ দিনের ছুটি শেষ করে শনিবার সকালে বাড়ি থেকে গিয়ে চট্টগ্রামের কুমিরা স্টেশনে যোগদান করেন। রাতে চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ড উপজেলার ভাটিয়ারি এলাকার বিএম কনটেইনার ডিপোতে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটলে স্টেশনের অপর সদস্যদের সাথে ঘটনাস্থলে গিয়ে কর্মরত অবস্থায় অগ্নিদগ্ধ হয়ে তার মৃত্যু হয়।

জহির উদ্দিন আরও জানান, আলা উদ্দিনের লাশ আনার বিষয়ে তারা আগ্রাবাদ কন্ট্রোলরুমে যোগাযোগ করেছেন তারা। তাদেরকে জানানো হয়েছে সকল প্রক্রিয়া শেষে লাশ বাড়িতে পাঠানো হবে। বর্তমানে আলা উদ্দিনের লাশ চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রয়েছে।

এদিকে আলা উদ্দিনকে হারিয়ে তার পরিবারে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। শোকে পাথর হয়ে গেছেন বাবা আবদুর রশিদ, মা মমতাজ বেগম ও স্ত্রী তাসলিমা সুলতানা। স্বজনদের কান্নায় ভারী হয়ে উঠেছে গ্রামের পরিবেশ।

এই সংবাদটি 108 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com