যারা যুদ্ধাপরাধীদের পতাকা দিয়েছে তাদেরও বিচার হবে

প্রকাশিত: ৬:৫৪ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ১৪, ২০১৬

যারা যুদ্ধাপরাধীদের পতাকা দিয়েছে তাদেরও বিচার হবে


ডেস্ক রিপোর্ট: 

যুদ্ধাপরাধীদের হাতে যারা পতাকা তুলে দিয়েছে তাদেরও বিচার হবে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেছেন,তারা যুদ্ধাপরাধীদের মতোই অপরাধী।

বুধবার শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস উপলক্ষে রাজধানীর খামারবাড়িতে কৃষিবিদ ইনস্টিটিউটে আওয়ামী লীগ আয়োজিত আলোচনা সভায় এ কথা বলেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘যুদ্ধাপরাধী যাদের বিচার হয়েছে এবং বিচারের রায় কার্যকর হয়েছে, তারা এ দেশে মন্ত্রী হয়েছে। তাদের হাতে ছিল আমাদের লাখো শহীদের রক্তে রঞ্জিত পতাকা। আমাদের স্বাধীনতার পতাকাকে কতটা অপমান করা হয়েছিল এদের হাতে পতাকা তুলে দিয়ে! এই পতাকা যারা তুলে দিয়েছে, তারাও সমান অপরাধে অপরাধী। যুদ্ধাপরাধীদের যেমন বিচার হয়েছে, এদেরও বিচার বাংলার মাটিতে হবে।’

এ ব্যাপারে দেশবাসীকে সোচ্চার হওয়ার তাগিদ দেন শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, ‘আমি মনে করি সময় এসে গেছে। দেশবাসীকে আজ  সোচ্চার হতে হবে। শুধু যুদ্ধাপরাধীদের বিচার নয়, যারা যুদ্ধাপরাধীদের লালন-পালন করেছে, যারা তাদের রাজনৈতিক অধিকার ফিরিয়ে দিয়েছে, লাখো শহীদের রক্তে রঞ্জিত পতাকা দিয়েছে, তারাও সমান অপরাধী।’

শেখ হাসিনা অভিযোগ করেন, পঁচাত্তরের পর এ দেশের মানুষকে স্বাধীনতার ইতিহাস জানতে দেয়া হয়নি। বলতে দেয়া হয়নি। স্বাধীনতার ইতিহাস বদলানোর চেষ্টা করা হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘কোনো দেশ যদি স্বাধীন হয়, সেদেশের নাগরিকরা তাদের স্বাধীনতার ইতিহাস জানতে পারে। কারা স্বাধীনতার বিরোধিতা করেছে সেই সম্পর্কে জানতে পারে। কাদের সঙ্গে আমাদের যুদ্ধ হয়েছিল তাদের সম্পর্কে জানতে পারে। কাদের পরাজিত করে বিজয়ী হয়েছে সে কথা জানতে পারে। কিন্তু আমাদের দুর্ভাগ্য, ১৯৭৫-এর ১৫ আগস্ট জাতির পিতাকে হত্যার পর স্বাধীনতার ইতিহাস বদলে দেয়ার চেষ্টা হয়েছে। তখন মুক্তিযুদ্ধের কথা বলা যেত না। একসময় মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস ভুলে যেতে বসেছিল দেশবাসী। তখন আর পাকিস্তানি হানাদার বলা হতো না। বলা হতো হানাদার। কারা হানাদার। বলার সুযোগ ছিল না। স্বাধীনতাবিরোধীদের মন্ত্রী-উপদেষ্টা বানানো হলো।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে, স্বাধীনতাবিরোধীদের নিয়ে মুখ ফুটে কিছু বলা যেত না। এমন দিন ছিল আমরা জয় বাংলা স্লোগান দিতে পারতাম না। বঙ্গবন্ধুর ভাষণ প্রচার করতে পারতাম না। মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস ভুলে যেতে বসেছিলাম।’

আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর যুদ্ধাপরাধীদের বিচার শুরুর কথা উল্লেখ করে বলেন, এ নিয়েও অনেক ষড়যন্ত্র হয়েছে। কিন্তু সব ষড়যন্ত্র উপেক্ষা করে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করা হয়েছে। আরো যারা যুদ্ধাপরাধী আছে তাদেরও বিচার হবে। এই বিচার চলতে থাকবে। কেউ যুদ্ধাপরাধীদের বিচার ঠেকিয়ে রাখতে পারবে না।

বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমান যুদ্ধাপরাধীদের পুনর্বাসন করেন বলে অভিযোগ করেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি জিয়াউর রহমানের সমালোচনা করে বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর জিয়াউর রহমান রাজাকারদের নিয়ে মন্ত্রণালয় গঠন করেন। সে সংবিধানের ১২ আনুচ্ছেদ বাতিল করলো, ৩৮ অনুচ্ছেদ আংশিক বাতিল করে যুদ্ধাপরাধীদের রাজনীতি করার সুযোগ দিল। মুখ ফুটে কেউ কিছু বলতে পারত না। বলতে গেলে ১০ বছর কারফিউ ছিল। কারফিউ দিয়ে যারা দেশ চালিয়েছে, তাদের আবার কেউ কেউ গণতন্ত্রের প্রবক্তা বলতে থাকল । তবে সবাই বিকিয়ে যায়নি।

প্রধানমন্ত্রী শহীদ বুদ্ধিজীবীদের স্মৃতির শ্রদ্ধা জানিয়ে বলেন, তাদের ত্যাগ কোনো দিন বৃথা যাবে না।

এই সংবাদটি 204 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com