জামিআ সিদ্দিকিয়ায় জগলু চৌধুরী: সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির মাধ্যমে স্বাধীনতার মর্যাদা অক্ষুণ্ণ রাখতে হবে

প্রকাশিত: ১০:২৩ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ১৬, ২০২২

জামিআ সিদ্দিকিয়ায় জগলু চৌধুরী: সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির মাধ্যমে স্বাধীনতার মর্যাদা অক্ষুণ্ণ রাখতে হবে

সিলেট রিপোর্টঃ বিশিষ্ট সাহিত্যিক ও রাজনীতিবিদ জনাব জগলু চৌধুরী বলেছেন Ñস্বাধীনতার পর থেকে অদ্যাবধি এদেশে সব ধর্ম—বর্ণের মানুষের সহাবস্থান চলে আসছে। অঞ্চলভিত্তিক রাষ্ট্রীয়ভাবে এই সম্প্রীতি—সৌহার্দ্য বিনষ্ট হওয়াতেই আমাদের পশ্চিম পাকিস্তানের সাথে যুদ্ধের দরকার পড়েছিল। সুতরাং স্বাধীনতার মর্যাদা অক্ষুণ্ণ রাখতে আমাদেরকে মুসলিম—হিন্দু, খ্রিস্টান—বৌদ্ধ, ধর্মীয় শিক্ষায় শিক্ষিত—সাধারণ শিক্ষিত, উলামা—জনতা মিলেমিশে চলতে হবে এবং এ দেশের অগ্রযাত্রা অব্যাহত রাখতে কাজ করে যেতে হবে।

গতকাল ১৬ ডিসেম্বর শুক্রবার বিকাল তিনটা থেকে নগরীর বালুচরস্থ জামিআ সিদ্দিকিয়া আয়োজিত বিজয় দিবসের আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি উপরোক্ত কথা বলেন। তিনি আরও বলেনÑস্বাধীনতার পর থেকেই একাধিক মহল স্বাধীনতা সংগ্রামে আলিমদের অবদানকে অস্বীকার এবং আলিমসমাজকে স্বাধীনতাবিরোধী প্রমাণে সচেষ্ট। তিনি বলেনÑএকদল লোক বিজয় দিবস এলেই আতশবাজিসহ এমন কিছু আয়োজন করে থাকেন যাতে বুঝা যায় এটি উল্লাসের দিবস। কিন্তু প্রকৃতপক্ষে আমাদের স্বাধীনতা সংগ্রামে জড়িয়ে আছে অনেক মা—বোনের সম্ভ্রম, অনেক মানুষের রক্ত আর অনেকের স্বজন হারানোর বোবা কান্না। আমরা স্বাধীনতা সংগ্রামে জীবন দানকারী মানুষদের জন্য দুআ করে তাদের রুহের মাগফিরাত কামনা করব।
জামিআর প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি গবেষক সৈয়দ মবনুর সভাপতিত্বে ও উপ—পরিচালক কবি রেজাউল হকের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন জামিআর উপ—পরিচালক (প্রশাসন) জনাব হেলাল হামাম, কার্যকরী পরিষদ সদস্য ফিদা হাসান, অভিভাবক পরিষদ সদস্য সৈয়দ জয়নাল আবেদীন আবেদ প্রমুখ।
জামিআর শিক্ষার্থী এহসানের তিলাওয়াতের মাধ্যমে শুরু হওয়া এ সভায় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জামিআর অর্থসম্পাদক হাফিজ মাওলানা জামিল আহমদ চৌধুরী, শিক্ষক মাওলানা জাফর ইকবাল, শৈলীর সভাপতি সাইয়্যিদ মুজাদ্দিদ, সহসভাপতি অরূপ নাগ, সেক্রেটারি সামিম গাজী প্রমুখ।
প্রধান আলোচকের বক্তব্যে সৈয়দপুর ফাজিল মাদরাসার অধ্যক্ষ ও জামিআর কার্যকরী পরিষদ সদস্য ড. সৈয়দ রেজওয়ান আহমদ বলেনÑএ অর্জন সমস্ত বাঙালির। একসময় ধর্মীয় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোকে এ সমস্ত দিবসে হীনম্মন্যতায় ভূগতে দেখা যেত। মনে হতো এ বিজয়ে আমাদের কোনো সম্পর্ক বা অর্জন নেই। আলহামদু লিল্লাহ, তরুণ উলামায়ে কেরামের মাধ্যমে এই হীনম্মন্যতা ও ভুল ভাঙছে। আমাদেরকে বিজয়ের মর্যাদা অম্লান রাখতে সবাইকে সম্মিলিত প্রচেষ্টা চালিয়ে যেতে হবে।
সভাপতির বক্তব্যে জনাব সৈয়দ মবনু বলেনÑস্বাধীনতার প্রকৃত ইতিহাস সবাইকে ভালোভাবে পড়তে হবে এবং জাতির সামনে তুলে ধরতে হবে। স্বাধীনতা এবং এর পূর্ববর্তী সকল সংগ্রামে এ দেশের, ভারতবর্ষের উলামায়ে কেরামের অবদান অনস্বীকার্য। কট্টর বাম এবং ইসলামের নামে স্বাধীনতার বিরোধিতাকারীরা মূলধারার আলিমসমাজকে স্বাধীনতাবিরোধী সাব্যস্থ করতে সবসময় সচেষ্ট। স্বাধীনতায় আলিমদের অবদান আমি আমার বিভিন্ন বইয়ে আলোচনা করেছি। আপনারা সেগুলো পড়বেন এবং সমাজে তুলে ধরবেন। স্বাধীনতার সঠিক ইতিহাস তুলে ধরতে জামিআ সিদ্দিকিয়া প্রতিবছর এ ধরণের প্রোগ্রাম করে থাকে।
তিনি সবাইকে জামিআর সকল প্রোগ্রামে অংশগ্রহণের আহ্বান রেখে সভার সমাপ্তি ঘোষণা করেন।

এই সংবাদটি 30 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com