শান্তিনিকেতনের অধ্যক্ষ নেত্রকোনার শৈলজারঞ্জন

প্রকাশিত: ১১:৫৪ পূর্বাহ্ণ, জানুয়ারি ১৪, ২০১৭

শান্তিনিকেতনের অধ্যক্ষ নেত্রকোনার শৈলজারঞ্জন

ডেস্ক রিপোর্ট: রবীন্দ্রসঙ্গীতের স্বরলিপিকার শান্তিনিকেতনের অধ্যক্ষ এবং রবীন্দ্রনাথের বিশেষ স্নেহভাজন শৈলজারঞ্জন মজুমদার  নেত্রকোনার মোহনগঞ্জের  কৃতিসন্তান । শৈলজারঞ্জন মজুমদার
পরিশ্রম করেই ব্রিটিশ শাসনামলে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে রসায়নশাস্ত্রে পরীক্ষা দিয়ে এমএসসি পাস করলেন প্রথম শ্রেণিতে প্রথম হয়ে। পিতা রমণী কিশোর দত্ত মজুমদারের আগ্রহে এবং নির্দেশে ওকালতিও করলেন কিছু দিন। রসায়নশাস্ত্রে অধ্যাপক হয়ে শান্তিনিকেতনে অধ্যাপনাও করলেন। কিন্তু নেত্রকোনার মানুষ বলে কথা। রসায়নের অধ্যাপনা ছেড়ে হুমায়ূন আহমেদ যেভাবে শিল্পাঙ্গনে চলে এলেন শৈলজারঞ্জন মজুমদারের বাঁক পরিবর্তন তেমনই। রবীন্দ্র অবগাহনে শুরু হলো সঙ্গীতজীবন। যেমন গায়কী তেমনি স্বরলিপি রচনা। শৈলজারঞ্জনকে যেমন চিঠি লিখে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর বলেছিলেন, ‘আপন মনে আপন ইচ্ছামতো দিন কাটাবার স্বাধীনতা আমার ছিল, তখন ছিলুম শিলাইদহে। সেদিন আর ফিরবে না।’ চলে যাওয়া দিন ফেরে না জ্ঞানেই গায়কী, স্বরলিপি রচনা, রবীন্দ্রসঙ্গীত শিক্ষা প্রভৃতির পাশাপাশি সংগঠক শৈলজারঞ্জন রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের জীবদ্দশায় নেত্রকোনায় সুশৃঙ্খলভাবে উদযাপন করলেন রবীন্দ্র জন্মোৎসব। ১৯৩২ সালে শান্তিনিকেতনের বাইরে প্রথম রবীন্দ্রজয়ন্তী পালনের গৌরবময় অধিকারী এই নেত্রকোনাবাসী। নেত্রকোনাবাসী এবং শৈলজারঞ্জনকে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করতে বিশ্বকবি মুহূর্তমাত্র বিলম্ব করলেন না। চিঠিতে লিখলেন, ‘তোমাদের নেত্রকোনায় আমার জন্মদিনের উৎসব যেমন পরিপূর্ণ মাত্রায় সম্পন্ন হয়েছে এমন আর কোথাও হয়নি।… কিন্তু নেত্রকোনায় আমার সৃষ্টির মধ্যে অপ্রত্যক্ষ আমাকে রূপ দিয়ে আমার স্মৃতির যে প্রাণ প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে, কবির পক্ষে সেই অভিনন্দন আরো বেশি সত্য। তুমি না থাকলে এত উপকরণ সংগ্রহ করতো কে?’
কে যে কীভাবে রবীন্দ্রসঙ্গীত গাইবে সে ব্যাপারে তর্কবিতর্কের শেষ নেই। শৈলজারঞ্জন তার ‘দেবব্রত স্মরণে’ লেখায় লিখেছেন, ‘রবীন্দ্রনাথ বরাবর বলতেন যে গান হবে নদীর চলায় আর পাখির কণ্ঠে। অর্থাৎ গান গাইতে হবে উদাত্ত, খোলামেলা কণ্ঠে পাখির কলকল শব্দের মতো করে; আর তা হবে নদীর স্রোতের মতো প্রবহমান। কথার সঙ্গতিপূর্ণ কথা পাওয়া যাচ্ছে রবীন্দ্রসঙ্গীত শিল্পী সন্জীদা খাতুনের লেখায়। তিনি লিখেছেন, ‘শৈলজাদা বলতেন, স্বরলিপিতে কিন্তু সবই বলা আছে। ঠিকমতো পড়ে নিতে হয় সেসব। বাণী আর সুর থেকে চলন বুঝে নিয়ে স্বরের মাত্রা, কন্ মীড় ইত্যাদি যথাযথভাবে উচ্চারণ করেই গাইতে হবে রবীন্দ্রনাথের গান’।
রবীন্দ্রনাথের গানকে এগিয়ে নেয়ার ক্ষেত্রে শৈলজারঞ্জন মুজমদারের ভূমিকাটা ঠিক কী তা প্রকাশিত হয়েছে অত্যন্ত সুনির্দিষ্টভাবে সঙ্গীতগুরু ওয়াহিদুল হকের বিশ্লেষণধর্মী লেখায়। তিনি লিখেছেন, ‘সে ক্ষেত্রেও শৈলজারঞ্জনের অক্ষয় কীর্তি। প্রথমত, বিশদ স্বরলিপি প্রণয়নে। দ্বিতীয়ত, স্বীয় কণ্ঠে রবীন্দ্রকৃতিকে অবিকৃত ধারণে, সর্বশেষ এই তনি্নষ্ঠ রূপকে এবং ভাবকে সমাজে প্রোথিত করবার জন্য সারাজীবন অকাতরে সহস্র শিষ্য-শিষ্যায় তার প্রসারণে।’
প্রসারণ, সম্প্রসারণ কিংবা অনুসরণ যা-ই করার প্রশ্ন আসুক না কেন সবার আগে দরকার চোখ তথা নেত্র। নেত্রকোনা নিয়ে চমৎকার তথ্য সোমা সেনের লেখায়। তিনি লিখেছেন, রবীন্দ্রনাথের মনে ‘নেত্রকোনা’ নামটি গেঁথে গিয়েছিল। যদিও তিনি নেত্রকোনায় যাননি। বেলঘরিয়ায় সুপ্তনিবাসে প্রশান্তচন্দ্র মহলানবীশের আতিথ্যে থাকার সময় দোতলার দক্ষিণপূর্ব দিকের ঘরটির নাম দিয়েছিলেন নেত্রকোনা।
নেত্রকোনায় যেখানে রবীন্দ্রজয়ন্তী উদযাপিত হয়েছে, রবীন্দ্রনাথের সঙ্গে যেখানে শৈলজারঞ্জন, শৈলজারঞ্জনের নেত্রকোনার বাড়ি ইত্যাদি প্রায় ত্রিশের অধিক দুষ্প্রাপ্য ছবি সংগ্রহ করে তা গ্রন্থে সনি্নবেশ এবং স্বরলিপিবিষয়ক তথ্যাদি সংযোজন নিঃসন্দেহে সম্পাদক মুহম্মদ আকবরের সক্ষমতার দক্ষ প্রকাশ। যে চিত্র ফুটে ওঠে রবীন্দ্র গবেষক আহমদ রফিকের প্রচ্চদ মুখবন্ধের মূল্যায়নে। আহমদ রফিক লিখেছেন, ‘রবীন্দ্রসঙ্গীতের পূর্ববাংলার একজন সঙ্গীতগুরু হিসেবে শৈলজাররঞ্জনের অবিস্মরণীয় অবদান এই গ্রন্থে অনেকখানি উল্লেখিত হয়েছে। বিশেষ করে তার সঙ্গীত শিক্ষার্থীদের তালিকা এবং তার করা রবীন্দ্রনাথের দুই শতাধিক গানের স্বরলিপিবিষয়ক তথ্যাদি সংযোজন সঙ্গীতপিপাসু মানুষের ভিন্ন আকর্ষণ তৈরি করবে।’
করবে কি করবে না তা ভবিতব্য তবে বর্তমান বাস্তবতা হলো রবীন্দ্রনাথ এবং শৈলজারঞ্জনের মধ্যকার রসিকতা। রবীন্দ্র গবেষক আহমদ রফিক লিখেছেন, ‘সে সময় মাঝেমধ্যে পঁচিশে বৈশাখের অনুষ্ঠান বৈশাখী ঝড়ে তছনছ হয়ে যেত আর শৈলজারঞ্জনের মনে হতো জন্মদিনটা বৈশাখ না হয়ে বৃষ্টিহীন কোনো মাসে হলে কী ক্ষতি হতো। কথাটা শুনে রবীন্দ্রনাথ নাকি বলেছিলেন : ‘তোমার কথা মনে রেখে আগামীবার অন্য সময় জন্মাবার চেষ্টা করব’।’ বাস্তব সত্য হলো নস্বর দেহ একবার চলে গেলে আর ফিরে আসে না। কিন্তু মহৎ ব্যক্তিরা বেঁচে থাকেন তাদের কর্মে। কর্মের উদযাপনেই তাদের নব নব আগমন। নতুন রূপে নতুন আবহে নেত্রকোনার শৈলজারঞ্জন মজুমদারকে তুলে ধরতে পারল নেত্রকোনারই সন্তান সংকলক-সম্পাদক মুহম্মদ আকবর, এও স্মারকগ্রন্থের জয়যাত্রায় এক সবিশেষ সংযোজন। শৈলজারঞ্জন মজুমদারের মহাপ্রয়াণের ২২ বছর পর তাকে নিয়ে লেখা ১৫ জন ব্যক্তিত্বের স্মৃতিচারণ, শৈলজারঞ্জনের চারটি সাক্ষাৎকার, তার নিজের চারটি লেখা, তাকে লেখা রবিঠাকুরের চারটি চিঠি, সংক্ষিপ্ত জীবনী, ত্রিশের অধিক ঐতিহাসিক স্থিরচিত্র, স্বরলিপি রচনা ও সম্পাদনা তালিকাসহ আরো অনেক লেখার সংকলনে এ বছর আবিষ্কার প্রকাশনা থেকে প্রকাশিত ‘শৈলজাররঞ্জন মজুমদার স্মারকগ্রন্থ’ সংকলন ও সম্পাদনার কাজটি করেছেন নেত্রকোনায় জন্ম নেয়া পেশায় তরুণ সাংবাদিক মুহম্মদ আকবর। ঐতিহ্যের অনুসন্ধান এবং সংগ্রহকে উপস্থাপনে সম্পাদক প্রকৃত অর্থেই পরিশ্রমী।

এই সংবাদটি 241 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com