সোমবার, ০৫ জুন ২০১৭ ০১:০৬ ঘণ্টা

মনু নদ প্রতিরক্ষা বাঁধে ভাঙন, নিরাপদ আশ্রয়ের খুঁজে মানুষ

Share Button

মনু নদ প্রতিরক্ষা বাঁধে ভাঙন, নিরাপদ আশ্রয়ের খুঁজে মানুষ

মৌলভীবাজার প্রতিনিধি :: মৌলভীবাজার জেলার কুলাউড়া, রাজনগর ও মৌলভীবাজার সদর উপজেলায় মনু নদ প্রতিরক্ষা বাঁধে ৪টি স্থানে ভাঙন সৃষ্টি হওয়ায় কমপক্ষে বিশটি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। নদী তীরবর্তী এলাকায় পানি বাড়তে থাকায় মানুষ গবাদি পশু নিয়ে ছুটছে নিরাপদ আশ্রয়ের খোঁজে।

আজ রবিবার ভোর ৫টায় রাজনগর উপজেলার কামারচাক ইউনিয়নে ভোলানগর এলাকায় প্রায় ১০০ ফুট ও দুপুর ১টায় কুলাউড়া উপজেলার শরীফপুর ইউনিয়নের নিশ্চিন্তপুর গ্রামে ৫০ ফুট এলাকা জুড়ে ভাঙনের সৃষ্টি হয়।

এছাড়াও চলতি বছর মনু নদের পানি উন্নয়ন বোর্ড ঘোষিত ৩৯টি ঝুকিপূর্ণ স্থানের মধ্যে ২৪টি স্থানে ফাটল দিয়ে পানি বের হচ্ছে। যেকোন সময় এই স্থানগুলো ভেঙে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

কুলাউড়ার নিশ্চিন্তপুর গ্রামের প্রায় ৫০ ফুট এলাকাজুড়ে সৃষ্ট ভাঙনের ফলে উপজেলার হাজীপুর ও শরীফপুর ইউনিয়নের বিশটি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে।

কুলাউড়ার নিশ্চিন্তপুর গ্রামের আবুল কালাম জানান, তারা দীর্ঘদিন থেকে ভাঙনকবলিত জায়গা মেরামতের দাবি জানিয়ে আসছিলেন। কিন্তু কোন কাজ হয়নি।

একই গ্রামের আব্দুল হান্নান বলেন, এখন যে অবস্থা, তাতে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ না করলে আরো খারাপ হবে।

তিনি জানান, দুপুর দেড়টায় নিশ্চিন্তপুর এলাকায় মনু নদের প্রতিরক্ষা বাঁধ এলাকা দিয়ে লোকালয়ে পানি প্রবেশ শুরু করেছে।

কুলাউড়া উপজেলার টিলাগাঁও ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. আব্দুল মালিক জানান, ইউনিয়নের মিয়ারপাড়া ও খন্দকারের গ্রাম এলাকায় মনু নদের প্রতিরক্ষা বাঁধে ভাঙনের সৃষ্টি হয়েছে। কয়েকশ’ মানুষ স্বেচ্ছাশ্রমে কাজ করে ভাঙন রোধে চেষ্টা চালাচ্ছে। এছাড়া হাজিপুর ইউনিয়নের মন্দিরা ও কোনগাঁও গ্রামের দুটি জায়গায় ভাঙন দেখা দিয়েছে।

রাজনগর উপজেলার কামারচাক ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নজমুল হক সেলিম জানান, সেহরির পর কোন এক সময়ে ভোলানগর এলাকায় মুন নদের প্রতিরক্ষা বাঁধ এলাকায় প্রায় ১০০ ফুট এলাকাজুড়ে ভাঙন দেখা দেয়। এতে ভোলানগর, মিটিপুর, শ্যামর কোনা ও করাইয়ার হাওর এলাকায় কয়েকটি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। ভোলানগর গ্রামের যে স্থান দিয়ে ভাঙনের সৃষ্টি হয়েছে, সেই ভাঙনের মুখে ফারুক মিয়ার বাড়িটি নদের স্রোতে ভেসে গেছে। এছাড়া আর বাড়িঘর ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ার তাৎক্ষণিক খবর পাওয়া যায়নি।

চেয়ারম্যান ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, পানি উন্নয়ন বোর্ডকে বারবার বলার পরও তারা কোন ব্যবস্থা না নেয়ায় এখন এই ভয়াবহ বিপদ হল।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের প্রকৌশলী বিজয় ইন্দ্র শংকর চক্রবর্তী বলেন, মনু নদের ৩-৪টি স্থানে ভাঙন সৃষ্টি হয়েছে। পানি নামলেই শরিফপুরের ভাঙনে অস্থায়ী ভিত্তিতে কাজ শুরু হবে। আর অন্যান্য ভাঙনগুলো মেরামতের জন্য বরাদ্দ চেয়েছি। বরাদ্দ পেলেই কাজ শুরু করবো।

সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন চেয়ারম্যানদের ক্ষোভ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘ক্ষোভ থাকতেই পারে। আসলে মিথ্যা আশ্বাস দিয়ে কোন লাভ নেই। বরাদ্দ অনুসারে কাজ হয়।’ –

এই সংবাদটি 1,051 বার পড়া হয়েছে

পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত।  পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন।  ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে।  পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে।  সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন।  ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন
পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত। পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন। ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে। পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে। সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন। ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন