সোমবার, ২৫ ডিসে ২০১৭ ১০:১২ ঘণ্টা

নদী থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন, নবীগঞ্জে আটক ৭

Share Button

নদী থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন, নবীগঞ্জে আটক ৭

সিলেট রিপোর্ট:
নবীগঞ্জ উপজেলার কুশিয়ারা নদী থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনকালে রবিবার (২৪ ডিসেম্বর) সকালে উপজেলা প্রশাসন ঝটিকা অভিযান চালিয়ে দুটি বালুভর্তি বলগ্রেটসহ ৭ জনকে আটক করেছে। আটককৃত বলগ্রেট জব্দ করে রেখে ৭ জনসহ অবৈধ বালু উত্তোলনকারীদের বিরুদ্ধে নিয়মিত মামলা দায়ের করা হয়েছে। নবীগঞ্জ উপজেলার ইনাতগঞ্জ ভূমি অফিসের তহশীলদার আব্দুল কাইয়ূম বাদী হয়ে মামলাটি দায়ের করেন।

জানা যায়, নবীগঞ্জ উপজেলার বন্যা কবলিত এলাকা থেকে বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ কুশিয়ারা ডাইক এবং বিবিয়ানা পাওয়ার প্লান্টের কাছে কুশিয়ারা নদী থেকে কয়েকটি ড্রেজার মেশিন বসিয়ে দীর্ঘ এক মাস যাবৎ সরকারী রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে একটি প্রভাবশালী সিন্ডিকেট অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করে আসছিল। এ ব্যাপারে হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসক বরাবরে একাধিক লিখিত অভিযোগ দেন এলাকাবাসী। এরই প্রেক্ষিতে গতকাল রবিবার সকালে হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসক মনীষ চাকমার নির্দেশে নবীগঞ্জ উপজেলার নবাগত নির্বাহী কর্মকর্তা তৌহিদ-বিন হাসান ও নবাগত সহকারী কমিশনার (ভূমি) আতাউল গণি ওসমানী নেতৃত্বে পুলিশসহ একটি টিম ঘটনাস্থলে গিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনকালে দুটি বালুভর্তি বলগ্রেটসহ ৭ শ্রমিককে আটক করা হয়।

বালুভর্তি বলগ্রেটসহ আটককৃতরা হলো- বরিশাল জেলার রাজাপুর গ্রামের মানিক মিয়ার পুত্র জাহাঙ্গীর মিয়া (৫০), ঝালকাঠি জেলার নৈকাঠি গ্রামের সুলতান মিয়ার পুত্র সাখাওয়াত হোসেন (৪০), একই জেলার রাজাপুর গ্রামের আজহার আলীর পুত্র সবুজ মিয়া (৩০), ব্রাম্মবাড়িয়া জেলার অরুয়া গ্রামের মৃত ইলিয়াছ মিয়ার পুত্র রিপন মিয়া (৩৫), পিরিজপুর জেলার দুর্গাপুর গ্রামের জাহাঙ্গীর মিয়ার পুত্র রানা মিয়া (২৮), ব্রাম্মনবাড়িয়া জেলার মানজু মিয়ার পুত্র রতন মিয়া (৩০), একই মাইজগুন গ্রামের কুতুব মিয়ার পুত্র জুবেল মিয়া (৪০)। এদিকে কুশিয়ারা নদী থেকে অবৈধভাবে বালূ উত্তোলনের ফলে যেকোন মুহুর্তে নদী ভাঙ্গন ও বিবিয়ানা পাওয়ার প্লান্ট এবং শেরপুর সেতু ধ্বসে পড়বে বলে আশংকা করছেন স্থানীয় লোকজন।

এ ব্যাপারে নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তৌহিদ-বিন হাসান বলেন, ‘ অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের অভিযোগ পেয়ে জেলা প্রশাসক এর নির্দেশে ঘটনাস্থলে গিয়ে দুটি বলগ্রেট মেশিনসহ ৭ জনকে আটক করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট আইনে নিয়মিত মামলা দায়ের করা হয়েছে।”

এ ব্যাপারে হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসক মনীষ চাকমা বলেন, অভিযোগ পেয়ে বালু উত্তোলনকারীদের বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নিয়েছি। দুটি বলগ্রেট মেশিনসহ ৭ জনকে আটক করে আইনের আওতায় নিয়ে আসা হয়েছে। অভিযোগ অব্যাহত থাকবে। বালু উত্তোলনকারী চক্র যতই শক্তিশালী হোক তাদের বিরুধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এই সংবাদটি 1,033 বার পড়া হয়েছে