বৃহস্পতিবার, ১২ এপ্রি ২০১৮ ১০:০৪ ঘণ্টা

শুক্রবার বাদ জুমা ঢাকায় হেফাজতের বিক্ষোভ

Share Button

শুক্রবার বাদ জুমা ঢাকায় হেফাজতের বিক্ষোভ

সিলেট রিপোর্ট: আফগানিস্তানের কুন্দুস প্রদেশের দাস্তেআর্চি জেলার পাঠান বাজার এলাকায় মাদরাসায়ে উমরিয়্যাহ এর হাফেজ ছাত্রদের সনদ প্রদান ও দস্তারবন্ধী অনুষ্ঠান চলাকালে গত ৪ এপ্রিল ন্যাটো বাহিনীর সন্ত্রাসী বিমান হামলায় শতাধিক আফগান নিরীহ শিশু-কিশোর হাফেজে কুরআন শাহাদাত বরণ করেছেন।

এই বর্বরতম হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে আগামী ১৩ এপ্রিল শুক্রবার বাদ জুমা হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের ঢাকা মহানগরী শাখার উদ্যোগে এক বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমের উত্তর গেইটে অনুষ্ঠিত হবে।

উক্ত সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিল সফল করার জন্য সর্বস্তরের ওলামায়ে কেরাম ও তৌহিদী জনতার প্রতি আহবান জানিয়ে সংবাদপত্রে এক যুক্ত বিবৃতি দিয়েছেন, হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের আমীর, জামিয়া আহলিয়া দারুল উলুম হাটহাজারীর মহাপরিচালক শায়খুল ইসলাম আল্লামা শাহ আহমদ শফী ও মহাসচিব আল্লামা হাফেজ জুনাইদ বাবুনগরী।

বিবৃতিতে হেফোজত নেতৃদ্বয় বলেন, বিশ্বসন্ত্রাসী আমেরিকা ও তাদের দোসররা আফগানিস্তান, সিরিয়া, ফিলিস্তিন, কাশ্মীর, আরকানসহ বিশ্বব্যাপী মুসলিম নারী শিশু ও নিরাপরাধ মুসলমানদের ওপর নির্মম হত্যাকাণ্ড চালিয়ে ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করতে চায়।

এই জালিমরা এত নিষ্ঠুর যে, আফগানিস্তানের নিষ্পাপ শিশু হাফেজদের অনুষ্ঠানে বর্বরতম হত্যাকাণ্ড চালাতেও তাদের বিবেকে বাধেনি।

জাতিসংঘের মানবাধিকার আইনে শিশু হত্যা চরম অপরাধ। অথচ মানবতার কথা বলে, নির্লজ্জভাবে এরা মানবাধিকার হরণ করে চলেছে।

তারা বলেন, মাসুম হাফেজে কুরআন হত্যাকারীদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে না তুললে ইহুদী খ্রিস্টান সাম্রাজ্যবাদী গোষ্ঠী মুসলিম উম্মাহর বিরুদ্ধে ক্রুসেডে ঘোষণা করবে।

তারা প্রশ্ন করে বলেন, কি অপরাধ ছিল এই নিষ্পাপ শিশু হাফেজদের? এত ব্যাপক শিশু হত্যা করার পরও জাতিসংঘসহ বিশ্ব নেতৃবর্গ নিরব দর্শকের ভুমিকা পালন করছে কেন? মুসলিম রাষ্ট্র নেতাদের মানবতাবোধ কোথায় হারিয়ে গেল। ও আই সি, আরব লীগ বোবা হয়ে বসে আছে।

হেফোজত নেতৃদ্বয় বলেন, মানবাধিকারের কথা বলে ইহুদী খ্রিস্টান সাম্রাজ্যবাদী শক্তি মুসলমানদের রক্ত নিয়ে হোলি খেলায় মেতে উঠেছে। এরা মানবতার চরম দুশমন। বহুদিন থেকে আফগানের মাটিতে মুসলমানদের রক্তের বন্যা বেয়ে চলেছে।

আফগান মুসলমানদের হাতে সোভিয়েত ইউনিয়নের পতন হয়েছে, বর্তমান বিশ্বসন্ত্রাসী মার্কিন বাহিনীরও পতন হবে ইনশাআল্লাহ।

তারা আফগানিস্তানে আলেম, হাফেজ ও মুসলমানদের শাহাদাতের রক্তের প্রতিশোধ নিতে মুসলিম উম্মাহকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহবান জানান।

এই সংবাদটি 1,156 বার পড়া হয়েছে

পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত।  পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন।  ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে।  পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে।  সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন।  ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন
পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত। পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন। ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে। পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে। সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন। ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন