শনিবার, ০৭ জুলা ২০১৮ ০৫:০৭ ঘণ্টা

জমি বিক্রি করে ছেলের চিকিৎসার টাকা দিছি: নুরুর বাবা

Share Button

জমি বিক্রি করে ছেলের চিকিৎসার টাকা দিছি: নুরুর বাবা

ডেস্ক রিপোর্ট:সারা দেশে কোটা সংস্কার আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা, গ্রেফতার ও নির্যাতনের প্রতিবাদে উদ্বিগ্ন অভিভাবক ও নাগরিক সমাজের প্রতিবাদ-সমাবেশে কান্নাজড়িত কণ্ঠে নুরুল হক নুরুর বাবা জানিয়েছেন, তিনি জমি বিক্রি করে হামলায় আহত নুরুর চিকিৎসার টাকা জোগাড় করেছেন।

৬ জুলাই, শুক্রবার বিকেলে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এই প্রতিবাদ-সমাবেশ হয়। এর আগে একই দাবিতে গত ৩ জুলাই, মঙ্গলবার তাদের প্রতিবাদ সমাবেশে পুলিশ বাধা দিয়েছিল বলে অভিযোগ উঠেছিল।

উদ্বিগ্ন অভিভাবক ও নাগরিক সমাজের প্রতিবাদ সমাবেশে কোটা সংস্কার আন্দোলনকারী নেতা নুরুল হক নুরুর বাবা মো. ইদ্রিস হাওলাদার বলেন, ‘আমার বাড়ি পটুয়াখালী জেলার গলাচিপা উপজেলায়। আমি অত্যন্ত গরিব, একজন কৃষক মানুষ। আমার জায়গা জমি বিক্রি করে ছেলেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ইংরেজিতে অনার্স পাস করাইয়ে মাস্টার্সের ভর্তি করায়েছি।

সারা দেশে চলা সংস্কার আন্দোলনে সঙ্গে সে যোগ দেয়। সে সাধারণ মানুষের আন্দোলনের সঙ্গে যোগ দিয়েছিল। কিন্ত আপনারা জানেন এর আগে আমার ছেলেকে ডিবি পুলিশ ধরে নিয়েছিল। তাকে এক ঘণ্টা পর ছেড়ে দিয়েছে। আর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্রন্থাগারের সামনে কে বা কাহারা আমি দেখি নাই, তাকে যেভাবে নির্যাতন নিপীড়িত করেছে। সে এখন মুতূর সঙ্গে পাঞ্জা লড়তেছে। আমি জমি বিক্রি করে তার চিকিৎসার জন্য টাকা দিয়েছি। আমার ছেলের কিডনির সমস্যা, ব্রেনে সমস্যা, সর্ব শরীরে তার ব্যথা, সে নড়তে পারে না। তাই কথা বলতে আমারও অনেক কষ্ট হয়।’

ইদ্রিস হাওলাদার আরও বলেন, ‘আমার ছেলেকে ঢাকা মেডিকেল হাসপাতালে নেওয়ার পর তাকে বের করে দেওয়া হইছে। তারপরে ওখান থেকে নিয়ে অন্য এক জায়গায় তার চিকিৎসা চলছিল। সেখান থেকেও তাকে নিয়ে যাওয়া লাগছে। আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে সবিনয় অনুরোধ করব, কোটা সংস্কার আন্দোলন যদি ন্যায় সঙ্গত, যোক্তিক হয়, তাহলে সেটাকে অনতিবিলম্বে প্রজ্ঞাপন জারি করবেন। এই কোটা সংস্কার আন্দোলনে যারা নিপীড়িত হইছে যারা জেল হাজতে আছে, অনতিবিলম্বে তাদের নিঃশর্ত মুক্তি দেওয়ার অনুরোধ করব।’

এসময় উদ্বিগ্ন অভিভাবক ও নাগরিক সমাজের পক্ষে প্রতিবাদ সমাবেশে অ্যাডভোকেট হাসনাত কাইয়ুম বলেন, ‘এই সমাবেশ গত ৩রা জুলাই হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু আপনারা জানেন, সেই সমাবেশটি সরকার আমাদের করতে দেয়নি এবং সমাবেশস্থল থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন অধ্যাপক ও একজন সাবেক ছাত্রনেতাকে আটক করে। পরে তাদেরকে ছেড়ে দেওয়া হয়। এর অর্থ আমাদের বুঝে নিতে হবে, আমাদের সন্তানরা এদেশে কোনো ন্যায্য দাবি করলে প্রথমে সরকার ও রাষ্ট্র তার আইনি-বাহিনী ও রাজনীতির-বাহিনী দিয়ে নৃশংসভাবে পিটিয়ে নিভৃত করবে, আটক করবে, মিথ্যে মামলা দেবে, রিমান্ডে নেবে, জেলে দেবে এবং তার জন্য আমরা অভিভাবকরা প্রতিবাদও করতে পারব না। করলে সেখানেও হামলা করা হবে, জেলে নেওয়া হবে। আমরা বলতে চাই, একাত্তরে তিরিশ লাখ প্রাণ আমরা এমন একটি রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার জন্য দিইনি।’

প্রতিবাদ সমাবেশে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ফাহমিদুল হক বলেন, ‘কোটা বাতিল করার সিদ্ধান্ত জানানোর এতদিন পরও কোনো প্রজ্ঞাপন বা সুস্পষ্ট কোনো বক্তব্য জারি হয়নি। তাই শিক্ষার্থীদের এ বিষয়ে মাঠে নেমে আন্দোলন একটি যৌক্তিক অধিকার। কিন্ত সব কিছু এখন উল্টো হচ্ছে। আমরা কোন রাষ্ট্রে বসবাস করছি যাদের ওপরে আক্রমণ করা হচ্ছে তাদেরকেই আবার গ্রেফতার করা হচ্ছে।

কিন্ত যারা আক্রমণকারী তাদের কোনো বিচার হচ্ছে না। এই প্রতিবাদ সমাবেশ থেকে আমরা আমাদের নাগরিক অধিকার আদায়ের দাবি জানাতে এসেছি। আমাদের সন্তানদের ওপরে প্রকাশ্যে ও গোপনে এসব হামলার ঘটনা বন্ধ করতে হবে। আমাদের এ সন্তানদের কোনোভাবেই যেন আর হয়রানি না করা হয়। আমরা এইটুকু চাই ওই সকল হামলাকারীদের যেন দ্রুত গ্রেফতার করা হয়।’

সমাবেশে জাকির হোসেন নামে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থীর বাবা বলেন, ‘আমাদের সন্তানদের একটা ন্যায্য আন্দোলনে বাধা দেওয়া হচ্ছে। আমরা কোনো রাজনৈতিক আন্দোলন করছি না। একটা ন্যায্য দাবিতে আন্দোলন করছি। কিন্ত আমাদের দেশে এখন কেউ কোনো আন্দোলন করলেই তাকে বিএনপি-জামাত বানিয়ে দেওয়া হচ্ছে। সেটাকে সরকারবিরোধী আন্দোলন বলা হচ্ছে। আমরা শুধু কোটা সংস্কারে যে আন্দোলন হচ্ছে তাতে যেন আর কেউ হামলা, গ্রেফতারের শিকার না হয় সেই আহ্বান জানাচ্ছি।’

এই সংবাদটি 1,043 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com