রবিবার, ০৮ জুলা ২০১৮ ১১:০৭ ঘণ্টা

নিবন্ধনের আশায় ইসিতে ধরনা দিচ্ছে ২৪ দল

Share Button

নিবন্ধনের আশায় ইসিতে ধরনা দিচ্ছে ২৪ দল

ডেস্ক রিপোর্ট: সংসদ নির্বাচনের আগে নিবন্ধন পেতে নির্বাচন কমিশনে আবেদন করা ৭৫ দলের মধ্যে নাগরিক ঐক্য, বাংলাদেশ জাসদ, গণসংহতি ও এনডিএসহ মোট ২৪টি দল আবারো ইসিতে আবেদন করেছে তাদের নিবন্ধনের বিষয়টি পুনর্বিবেচনা করার জন্য।

ইসি সূত্র জানায়, রাজনৈতিক দলের নিবন্ধন প্রক্রিয়া শুরুর ৮ মাস পেরোলেও কার্যক্রম সম্পন্ন করতে না পারায় উদ্বেগ প্রকাশ করে ২৪টি দল আবারও ইসিতে আবেদন করেছেন নিবন্ধনের আশায়।

এদিকে এখনও পর্যন্ত মাঠ পর্যায়ে তদন্তের কাজই শেষ করেনি নির্বাচন কমিশন। এ নিয়ে ‘অসন্তোষ ও ক্ষোভ’ ঝরছে আগ্রহী দলগুলোর। সেই সঙ্গে নিবন্ধন বাছাইয়ের ফলাফল জানতে ইসিতে ধরনা দিচ্ছে এসব দল।

গেল বছরের অক্টোবরে দলগুলোর কাছে আবেদন আহ্বান করে ইসি। ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে ৭৬টি দল আবেদন করে। পাঁচ মাস ধরে এ নিয়ে যাচাই-বাছাইয়ের কাজ করে। অথচ নির্বাচনী রোডম্যাপ মেনে এপ্রিলের মধ্যে কাজটি শেষ করার কথা ছিল।

নির্বাচন কমিশনের অতিরিক্তি সচিব মোখলেসুর রহমান জানান, নিবন্ধন আগ্রহী দলগুলোর মধ্যে বাংলাদেশ কংগ্রেস ও গণ-আজাদী লীগ এ দুটি দলের বিষয়ে কেন্দ্রীয় ও মাঠ পর্যায়ের অফিস-কমিটির তদন্ত করার সুপারিশ করেছে ইসির নিবন্ধন যাচাই-বাছাই কমিটি। কমিশন তাদের বিষয়ে ইতিবাচক সিদ্ধান্ত দিলে তদন্ত হবে; না দিলে করার কিছুই নেই।

ইসির উপ সচিব আব্দুল হালিম জানান, কমিশনের সিদ্ধান্ত পেলেই তারা মাঠ পর্যায়ে তদন্তের কাজে পাঠাবে কর্মকর্তাদের। তবে ৭৫ দলের মধ্যে কাগুজে দলিলে বাংলাদেশ কংগ্রেস ও গণ-আজাদী লীগ নামে দুটি দলের সার্বিক আবেদন যথাযথ রয়েছে বলে জানান ইসির এ কর্মকর্তা। বাকি দলের কোন কিছু ঠিক নেই। কিন্তু তারা আবারও ইসিতে এসে অবেদন করছেন, লাভ হবে কি না আমি বলতে পারছিনা।’

নিবন্ধনের সিদ্ধান্ত পুনঃনিরীক্ষার দাবি করে ইসিতে আবেদন দিয়ে গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বকারী জোনায়েদ সাকি বলেন, ‘আমাদের দল আনেক দিন থেকে কার্যক্রম চালিয়ে আসছে। ইসি যা চেয়েছে আমরা তাই দিয়েছি। কিন্তু তারা আমাদের নিবন্ধন দিচ্ছে না। এ কারণে আবারও প্রধান নির্বাচন কমিশনের কাছে নিবন্ধনের বিষয়টি পুনর্বিবেচনা জন্য আবেদন করেছি।’

জাতীয় সংসদে দু’জন সংসদ সদস্য থাকার পরও নিবন্ধন না দিলে নির্বাচন কমিশন প্রশ্নবিদ্ধ হবে বলে সতর্ক করেছে বাংলাদেশ জাসদ। দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য মুশতাক হোসেন বলেছেন, ‘কোনো বিশেষ ক্ষমতাবান ব্যক্তির পক্ষ নিয়ে ছলচাতুরি করবেন না। আপনাদের প্রতি আমাদের আস্থা নষ্ট করতে চাই না। আপনারা সাংবিধানিক দায়িত্ব পালনে নিরপেক্ষতাকে প্রশ্নবিদ্ধ করবেন না। আমাদের নিবন্ধন দিতে হবে। আপনারা যা চেয়েছেন তাই দিয়েছি।’

গণসংহতি আন্দোলনের কেন্দ্রীয় সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য জুলহাসনাইন বাবু বলেন, ‘নিবন্ধন কার্যক্রম এখনও সম্পন্ন না করায় আমরা উদ্বিগ্ন। প্রয়োজনীয় তথ্য সরবরাহ করা হয়েছি। আমাদের দলটি নিবন্ধনযোগ্য; অথচ কোনো ধরনের সাড়া নেই কমিশনের। সেক্ষেত্রে সর্বশেষ আপডেট জানতে ও সামনের নির্বাচনকে সামনে রেখে কমিশনের কাছে আবারো আবেদন করেছি।’

নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, ‘আমাদের দলকে রেজিস্ট্রেশন করার জন্য নির্বাচন কমিশন যা চেয়েছে সেসব কাগজ আমরা দিয়েছি। কিন্তু তার কত অগ্রগতি হয়েছে সেটা জানতে গেলে নির্বাচন কমিশন বিরক্ত হয়। বলে পরে জানাবে। এ কারণে আবারো আবেদন করলাম তাদের অবস্থান জানার জন্য।’

২০০৮ সালে রাজনৈতিক দলের নিবন্ধন ব্যবস্থা চালুর পর ৩৮টি দল নিবন্ধিত হয়। এরপর নবম সংসদে দুটি এবং দশম সংসদে দুটি দল নিবন্ধন পায়। এছাড়া শর্ত পূরণ না হওয়ায় দুটি দলের নিবন্ধন বাতিল হয়ে যায়। সব মিলিয়ে এখন বাংলাদেশে ৪০টি নিবন্ধিত রাজনৈতিক দল রয়েছে, যারা নিজস্ব প্রতীক নিয়ে দলীয়ভাবে নির্বাচন করতে পারে।

এ বছরের শেষ ভাগে ৩০ অক্টোবর থেকে ২৮ জানুয়ারির মধ্যে একাদশ সংসদ নির্বাচন হবে। ৩০ জুলাই তিন সিটি নির্বাচনের পর থেকে সংসদ নির্বাচনের কার্যক্রম শুরু হবে পুরোদমে।

এই সংবাদটি 1,010 বার পড়া হয়েছে