সোমবার, ০৯ জুলা ২০১৮ ০৯:০৭ ঘণ্টা

জামায়াতের প্রার্থীর বিরুদ্ধে কমিশনে বিএনপির অভিযোগ!

Share Button

জামায়াতের প্রার্থীর বিরুদ্ধে কমিশনে বিএনপির অভিযোগ!

সিলেট রিপোর্ট:

সিলেট সিটি করপোরেশন (সিসিক) নির্বাচনের মনোনয়নপত্র জমা দিয়েও নির্বাচন থেকে সরে দাড়িয়েছেন ৬জন প্রার্থী। ফলে মেয়র, কাউন্সিলর এবং সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে ১৯৬ জন প্রার্থীর লড়াই হবে।

সোমবার বিকেল ৫টা পর্যন্ত মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন পর্যন্ত এসব প্রার্থীরা তাদের মনোনয়নপত্র বহাল রেখেছেন।এদিকে রোববার ২ জন প্রার্থী তাদের মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করেছেন। সোমবার (আজ) আরোও ৪জন তাদের মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করেন। মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারকারীরা হলেন সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৮ নং ওয়ার্ডের মো. সিরাজ খান, ২৫ নং ওয়ার্ডের আফজাল উদ্দিন, ১৪নং ওয়ার্ডের সিরাজুল ইসলাম শামীম, ২০নং ওয়ার্ডের মিটু তালুকদার রয়েছেন।

আগামী ৩০ জুলাই যে তিন মহানগরে ভোট হতে যাচ্ছে তার মধ্যে সিলেট নিয়ে সবচেয়ে বেশি আলোচনা তৈরি হয় জামায়াতের মেয়র পদে প্রার্থী দেয়া নিয়ে। এর আগে গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে প্রার্থী দিলেও জামায়াত তা প্রত্যাহার করে নিয়েছিল। তবে সিলেটে এমনটা হবে না, সেটা আগেই জানিয়ে দিয়েছিল দলটি।এ বিষয়ে এমনকি লন্ডনে অবস্থানরত বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপারসন তারেক রহমানের অনুরোধ উপেক্ষা করেছে জামায়াত। ৪ জুলাই ২০ দলীয় জোটের বৈঠকে অন্য শরিকদের পরামর্শও পায়ে ঠেলেছে তারা।

তবে ওই বৈঠক শেষে ২০ দলের মুখপাত্র নজরুল ইসলাম খান জানিয়েছিলেন, তিন মহানগরেই ২০ দলের একক প্রার্থী থাকবে। আর এ জন্য ৯ জুলাই মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিনের দিকে নজর রাখার কথা বলেন নজরুল।

সোমবার ছিল সেই মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন। দৃষ্টি ছিল সিলেটে ২০ দলের একক প্রার্থী হলে কে সরে দাঁড়াবেন? আরিফুল নাকি জুবায়ের?

তবে প্রত্যাহারে রাজি হননি কেউ। ফলে আলোচিত কোনো নির্বাচনে ১০ বছর পর আবার পরস্পরের প্রতিদ্বন্দ্বী হতে যাচ্ছে বিএনপি ও জামায়াত।

এদিকে সিলেট সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে বিভিন্ন প্রার্থীর বিরুদ্ধে আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ করেছেন বিএনপি মনোনীত মেয়র প্রার্থী আরিফুল হক চৌধুরী। সোমবার দুপুরে সিলেট সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসার ও আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা মো: আলিমুজ্জামানের কাছে তিনি এ অভিযোগ করেন। এ সময় জেলা বিএনপির সভাপতি আবুল কাহের চৌধুরী শামীম ও মহানগর বিএনপির সভাপতি নাসিম হোসাইন তার সাথে ছিলেন।
আরিফুল হক রিটার্নিং অফিসারের কাছে বিএনপি নেতা-কর্মীদের বাসা-বাড়িতে তল্লাশীর বিষয়টি নির্বাচন কমিশনের নজরে আনেন। পরে তারা সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনারের সাথে দেখা করে অনুরুপ অভিযোগ করেন বলে আরিফের সাথে সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র জানায়।

এগুলো বাদ দিলে ১৯৯৯ সালে জোটবদ্ধ হওয়ার পর ২০০১ এবং ২০০৮ সালের জাতীয় নির্বাচন এবং ২০১৩ সালের আট সিটি করপোরেশন, ২০১৫ সালের তিন সিটি করপোরেশন এবং ২০১৬ সালে নারায়ণগঞ্জ এবং চলতি বছর কুমিল্লা, রংপুর, গাজীপুর, রাজশাহী, বরিশাল সিটি সিটি নির্বাচনে একাট্টা হয়েই আওয়ামী লীগের মোকাবেলা করছে বিএনপি-জামায়াত।

এর মধ্যে সিলেট নিয়ে এই বিভেদের ফল অন্য দুই মহানগরে পড়ে কি না, সেটির দিকে এখন নজর থাকবে রাজনৈতিক সচেতনদের মধ্যে।

সিলেটে মেয়র পদে এখন যেসব প্রার্থী রয়ে গেছেন তারা হলেন: আওয়ামী লীগের বদর উদ্দিন আহমদ কামরান, বিএনপির আরিফুল হক চৌধুরী, ‘স্বতন্ত্র’ হিসেবে জামায়াতের এহসানুল মাহবুব জুবায়ের, বিএনপির বিদ্রোহী বদরুজ্জামান সেলিম, সিপিবি-বাসদের আবু জাফর ও ইসলামী শাসনতন্ত্র আন্দোলনের মোয়াজ্জেম হোসেন ও স্বতন্ত্র এহসানুল হক তাহের।

এই সংবাদটি 1,538 বার পড়া হয়েছে