শনিবার, ১১ আগ ২০১৮ ০১:০৮ ঘণ্টা

মুক্তিযোদ্ধারাদের স্বপ্ন পূরণ হয়নি:কালের ভাবনা গ্রন্থের প্রকাশনা অনুষ্ঠানে ড.এমাজউদ্দিন

Share Button

মুক্তিযোদ্ধারাদের স্বপ্ন পূরণ হয়নি:কালের ভাবনা গ্রন্থের প্রকাশনা অনুষ্ঠানে ড.এমাজউদ্দিন

সিলেট রিপোর্ট: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন ভিসি রাষ্ট্রবিজ্ঞানী অধ্যাপক ডক্টর এমাজউদ্দিন আহমদ বলেছেন মুক্তিযোদ্ধারা যে স্বপ্ন নিয়ে এ দেশের জন্য যুদ্ধ করেছিলো তাদের স্বপ্ন পূরণ হয়নি । তিনি বলেন বর্তমানে দেশে এমন অবস্থা বিরাজ করছে যে কোন সময় যে কেউ হারিয়ে যেতে পারেন। শুক্রবার তিনি জাতীয় প্রেসক্লাব মিলনায়তনে নিউইয়র্ক প্রবাসী লেখক ও কলামিষ্ট আহবাব চৌধুরী খোকনের প্রথম বই কালের ভাবনার মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠান প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। তিনি আরও বলেন, বর্তমানে দেশে এমন একটা পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে। আমরা যে কোন সময়ে পৃথিবী থেকে হারিয়ে যেতে পারি। দেশের যেসব ব্যক্তিরা সম্মান পাওয়ার কথা তাদেরকে এই দেশে সম্মানও দেওয়া হচ্ছে না।
ঢাবির সাবেক এই ভিসি বলেন, বাংলাদেশের তিনটি সমস্যা যদি সমাধান করা যায় তাহলে দেশ শান্তিপূর্ণভাবে চলবে বলে আমি মনেকরি। তা হলো রাজনীতি, অর্থনীতি ও বেকারত্ব সমস্যা। দেশে কর্ম-ক্ষমতা সম্পন্ন জনগন আছে কিন্তু তাদের চাকরী বা কাজের ক্ষেত্র নাই। এই সমস্যার সমাধান হতো যদি সবার মন মানুষিকতা ভালো হতো।
এ সময় তিনি লেখক এর উদ্দেশ্যে বলেন, তোমাদের কাজ হল বর্তমান দেশের প্রেক্ষাপট সম্পর্কে এবং কীভাবে দেশের গণতন্ত্র ফিরে আসে এবং উন্নত দেশগুলোতে গণতন্ত্র কীভাবে পরিচালিত হচ্ছে তার সম্পর্কে বই প্রকাশ করা। তাহলে দেশের জনগণ উপকৃত হবে

ডক্টর এমাজউদ্দিন আহমদ আহবাবের বই এবং লেখার প্রশংসা করে বলেন, ভঙ্গুর এই সমাজ ব্যবস্থার পরিবর্তনে তোমাদের লেখনি হতে পারে পরিবর্তনের হাতিয়ার ।আহবাব যে দেশে বসবাস করে সেখানে নেই কোন অশান্তি,নেই কোন শংকা সেই প্রবাসে বসে দেশের জন্য অনেক ভালো ভালো লেখা সম্ভব যেটা বাংলাদেশ থেকে সম্ভব নয় । তিনি আহবাবকে এভাবে লিখে যাওয়ার আহবান জানান ।
কালের ভাবনা গ্রন্থের প্রকাশক ও বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ ও সমাজকর্মী আব্দুল কাইয়ুম চৌধুরীর সভাপতিত্বে ও জিয়াউল ইসলাম মুন্নার সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ, প্রাক্তন জাতীয় সংসদ সদস্য ও ডাকসু ভিপি সুলতান মোহাম্মদ মনসুর আহমেদ ও বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল প্রমুখ । মঞ্চে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বইয়ের লেখক বিশিষ্ট কলামিষ্ট ও সংগঠক আহবাব চৌধুরী খোকন, বিশিষ্ট লেখক ও গবেষক ইফতেখার মাবমুদ হেলিম ও বিশিষ্ট ব্যবসায়ী হুমায়ুন হোসেন চৌধুরী ডালিম। অনুষ্টানের শুরুতে কোরআন তেলাওয়াত করেন ফখরুল ইসলাম চৌধুরী ।
সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্যে প্রাক্তন ডাকসু ভিপি বলেন,আহবাবকে আমি চিনতাম আমার এক সময়ের হারিয়ে যাওয়া সহপাঠী।যে ১৯৭৫ সালে সড়ক দূর্ঘটনায় নিহত হয়েছিলো সেই নজরুল চৌধুরীর ছোট ভাই হিসাবে । এবার আবিস্কার করলাম একজন লেখক ও সমালোচক হিসাবে ।তার প্রকাশিত এই বইয়ের অনেক গুলো লেখা আমি পড়েছি ।সে সমাজের প্রচলিত খুটিনাঠি ভূল ভ্রান্তি যেভাবে তার লেখায় তোলে ধরেছে নিসন্দহে প্রশংসনীয় ।আমি কালের ভাবনার বহুল প্রচার আশা করি । বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বিএনপি নেতা মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, বলেন,আহবাবকে আমি অনেক দিন থেকে চিনি ।আমরা একই ধারার রাজনীতি করি বলে এক সময় তার সাথে আমার একটি চমৎকার সম্পর্ক গড়ে উঠেছিলো কিন্তু তার মধ্যে যে এতো প্রতিভা আছে,তা আমার জানা ছিলো না । তার লিখিত বইয়ের সব লেখাই আমি পড়েছি ।সে এই লেখায় যেমনি তার স্কুল জীবনের স্মৃতিচারণ করেছে তেমনি জ্ঞান তাপস দেওয়ান আজরফ,মুক্তিযুদ্ধের সেনাপতি ওসমানীকে তোলে ধরেছে,পহেলা বৈশাখ নিয়ে যেমন আলোচনা করেছে তেমনি ঈদ উদযাপনের কথাও বলেছে ,তুলে ধরেছে মুক্তিযুদ্ধ ,শাহ আব্দুল করিম এবং কবি দেলওয়ারকে ।বাংলাদেশের সম্ভাবনাময় কুঠির শিল্প ও পর্যটন শিল্পের কথা যেমন লিখেছে বাংলাদেশের একমাত্র জলপ্রপাত মাধবকুন্ডের কথা ।তার বইয়ে প্রকাশিত প্রতিটি লেখাই আমার খুব ভালো লেগেছে । লেখক জনাব আহবাব চৌধুরী বলেন, আমরা প্রবাসীরা জীবন ও জীবিকার তাগিদে দেশের বাহিরে অবস্থান করলেও আমাদের মন এবং প্রতিদিনকার চিন্তা চেতনা আবর্তিত হয় এদেশের মাটি,মানুষ ও ফেলে যাওয়া স্মৃতি দুলোকে ঘিরে ।তাই দেশের আনন্দে যেমনি আমরা আনন্দিত হই তেমনি দুঃখে হই ব্যথিত।আমার এই বইয়ের প্রতিটি লেখা তাই দেশ নিয়ে আমার চিন্তা ও চেতনা থেকে সৃষ্টি ।আমার এই লেখা গুলোতে ভুল ক্রুটি থাকা স্বাভাবিক ।যদি কারো দৃষ্টিতে কোন ভুলক্রুটি ধরা পড়ে আমাকে জানাবেন আমি পরবর্তী সংস্করণে সংশোধন করার চেষ্টা করবো ।
সভাপতির বক্তব্যে কাইয়ুম চৌধুরী বলেন, আহবাবকে আমি ছোট বেলা থেকেই চিনি যে যেমনি ভালো বক্তা তেমনি ভালো লেখকও ।৯০ সালের ছাত্র গণআন্দোলনে সে একজন ত্যাগী ছাত্রনেতা ছিলো । প্রবাসে গিয়েও যে থেমে নেই। সে বাংলাদেশের সাহিত্য ও সংস্কৃতি বহিবিশ্বে ছড়িয়ে দিতে প্রশংসনীয় ভুমিকা পালন করে আসছে।আমি এই বইটির প্রকাশক হতে পেরে গর্বিত ও আনন্দিত । সভায় মঞ্চে উপবিষ্ট অতিথি বৃদ্ধ বইটির মোড়ক উন্মোচন করে বহুল প্রচার ও বিপনন প্রত্যাশা করেন । অনুষ্টানে নূরবিডি ডটকম এর সম্পাদক সৈয়দ শামছুল হুদা, সিলেট রিপোর্ট ডটকম এর সম্পাদক রুহুল আমীন নগরী সহ ঢাকাস্থ জালালাবাদ এসোসিয়েশন এর নেতৃবৃন্দ সহ বিভিন্ন সংগঠনের বিপুল সংখ্যক নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন ।

এই সংবাদটি 1,040 বার পড়া হয়েছে

কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।  শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ।  নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে।  জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন।  আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি।  লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ। নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে। জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন। আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি। লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com