বুধবার, ১৫ আগ ২০১৮ ০৩:০৮ ঘণ্টা

‘বঙ্গবন্ধুর জন্য ১০ হাজার বার কোরআন খতম’

Share Button

‘বঙ্গবন্ধুর জন্য ১০ হাজার বার কোরআন খতম’

বাংলা ট্রিবিউন: জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তার সঙ্গে শাহাদতবরণকারী সব শহীদের জন্য ১০ হাজার ১৫২ বার পবিত্র কোরআন খতম সম্পন্ন করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন সমাজ সেবা অধিদফতরের মহাপরিচালক গাজী মোহাম্মদ নূরুল কবির। তিনি জানান, ১ আগস্ট থেকে এই কোরআন খতম সম্পন্ন করে অধিদফতরের শিশুরা। পাশাপাশি দোয়া, মিলাদ মাহফিল, আলোচনা সভা ও দুস্থদের মধ্যে খাবার বিতরণ করা হয়েছে।

বুধবার (১৫ আগস্ট) সকালে জাতীয় সমাজ সেবা অধিদফতরের অডিটরিয়ামে শোক দিবসের আলোচনায় এসব তথ্য জানানো হয়।

অধিদফতরের মহাপরিচালক গাজী মোহাম্মদ নূরুল কবির বলেন, ‘জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তার সঙ্গে শাহাদতবরণকারী সব শহীদের আত্মার শান্তি কামনায় ১ আগস্ট থেকে আমাদের শিশুদের মাধ্যমে কোরআন খতম শুরু করি। আজ (১৫ আগস্ট) পর্যন্ত ১০ হাজার ১৫২ বার পবিত্র কোরআন খতম করা হয়েছে। এই কর্মসূচি মাসজুড়ে চলবে। এছাড়া দোয়া মাহফিল, আলোচনা সভা, রচনা ও চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। প্রতিযোগিতায় যারা বিজয়ী হবে তাদের বঙ্গবন্ধুর হাতে লেখা দুটি বইসহ তাকে নিয়ে বিশিষ্টজনদের লেখা ১৯টি বই দেওয়া হবে।’

এর আগে ১৫ আগস্ট সকালে সমাজসেবা অধিদফতরের ১০টি ইউনিট পৃথক ব্যানারে ধানমন্ডি ৩২-এ স্থাপিত জাতির জনকের প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করে। পরে সবার অংশগ্রহণে শোক র‌্যালি অনুষ্ঠিত হয়।

আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. জিল্লার রহমান বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু ছিলেন একজন সাহসী ও সত্যবাদী নেতা। নবম শ্রেণিতে পড়াকালে তিনি একবার একটি মামলায় পড়েন। বলা হয়েছে রাতে তাকে গ্রেফতার করা হবে। অন্যরা তাকে পালিয়ে যেতে বলেছেন। কিন্তু বঙ্গবন্ধু বলেছেন, আমি পালাবো না, আমি পালালে সবাই আমাকে ভীতু বলবে। এমন অনেক ঘটনা রয়েছে তার জীবনে। তাকে হারিয়ে বাংলাদেশের অপূরণীয় ক্ষতি হয়েছে। তিনি বেঁচে থাকলে আজ বাংলাদেশ অনেক দূর এগিয়ে যেতো।’

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন সমাজ সেবা অধিদফতরের গোলাম ফারুক, শাহ কামাল চৌধুরী, এস এম ফজলুল করিম রুমি, মুক্তিযোদ্ধা ও উপপরিচালক খান আবুল বাশার। অনুষ্ঠানে কবিতা পাঠ করেন সমাজ সেবা অধিদফতরের পরিচালক (প্রতিষ্ঠান) মো. আব্দুল্লাহ আল মামুন, লামিয়া ইয়াসমিন (উপ-পরিচালক), সমাজ সেবা অফিসার (প্রতিষ্ঠান) মোহাম্মদ আছাদুজ্জামান, প্রশাসনিক কর্মকর্তা সাইদুর রহমান প্রমুখ।

এই সংবাদটি 1,034 বার পড়া হয়েছে

কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।  শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ।  নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে।  জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন।  আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি।  লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ। নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে। জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন। আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি। লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com