সোমবার, ২০ আগ ২০১৮ ০১:০৮ ঘণ্টা

মাদরাসার ছাত্ররাও সেবা করতে জানে !

Share Button

মাদরাসার ছাত্ররাও সেবা করতে জানে !

আমিন আশরাফ: কদিন পরই ঈদুল আযহা। নাড়ীর টানে বাড়ি ফেরার পথে কর্মজীবী মানুষ। মানুষে মানুৃষে চাপ সৃষ্টি হয়েছে পথ-ঘাটে। চাপ হোক আর যাই হোক সবার লক্ষ্য, যে কোনো মূল্যে বাড়ি ফেরা। এ ছাড়া আর কোনো পথ নেই। কদিন যাবত আকাশ আগুন বর্ষণ করছে। ফকফকা নীলাভ আকাশ থাকলেও সূর্য ঠিকই তার কর্তব্য করে যাচ্ছে। একটুও ভুল হচ্ছে না। সড়কে মানুষের চেয়ে যানবাহনের মিছিলই চোখের পড়ার মতো। কে আগে যাবে, কার আগে কে বাড়ি ফিরবে এ নিয়ে সড়কে রীতিমতো প্রতিযোগিতা চলছে। বাস মালিকরাও ঈদে বাড়ি ফেরা মানুষের ঢল দেখে ভাড়া দ্বিগুণ করে দেয়, সেই সঙ্গে গ্যারেজে বা বাসস্টেশনে অযত্ন-অবহেলায় পড়ে থাকা ফিটনেসবিহীন গাড়িগুলো সড়কে ছেড়ে দেয় নিয়ন্ত্রণহীনভাবে।

কোনো বাসের হরন ভালো না, কোনো বাসের সিট ভাঙা, কোনো বাসের পঞ্চাশজনের ধারণ ক্ষমতা থাকলেও লোক নিয়েছে ১০০ জন। এ যেন লঙ্কায় রাবণের রাজত্ব। প্রচণ্ড দুর্ঘটনার আশঙ্কা থাকলেও এসব কিছু থোরাই কেয়ার করছে ওরা। এ কারণে সড়কে মৃত্যুর মিছিল থামে না। উদ্দেশ্য একটাই সুযোগে অধিক মুনাফা করা। কিন্তু এতে দেখা যায়, কেউ আর সময়ের আগে গন্তব্যে পৌঁছতে পারছে না। ওদের মুনাফা লোভের জন্য খামোকাই নিরীহ যাত্রীদের হয়রানীর শিকার হতে হয়। যদি সবাই সড়ক-ট্রাফিক আইন মেনে গাড়ি চালাতো তবে এমন জ্যাম কখনো হতো না। সবাই নির্বিঘ্নে সময় মতো গন্তব্য পৌঁছতে পারতো। গাড়িওয়ালারাও কিছু ভাড়া বেশিই মারতে পারতো। এমন চিত্রই দেখা গেল গত ১৭ অগাস্ট।

দিনটা ছিল শুক্রবার। জুম্মাবার পবিত্র দিন। অনেকে সাতসকালে গাড়ি চেপেছেন । অনেকের ইচ্ছে নামাজটা বাড়ি গিয়ে পড়বেন । কিন্তু স্বাদের গাড়ি যেভাবে জ্যামে ঠাঁই দাঁড়িয়ে। এদিকে নামাজের সময় যায় যায় অবস্থা। কেউ গাড়ি থেকে নেমে নামাজটা সেরে নেবে সেই অবস্থাও নেই। কখন জ্যাম ছেড়ে গাড়ি চলতে শুরু করবে কে জানে? সবাই তো বাড়ি ফেরার জন্য মুখিয়ে অাছে। কে কার জন্য অপেক্ষা করতে বলবে!!

তখনও গাজীপুর থেকে মাওনা পর্যন্ত শত শত গাড়ির এলোমেলো সারি। খইভাজা রোদ যেন বাসে বসা আবাল, বৃদ্ধা, বনিতা, ছোট-বড় সবাইকে সিদ্ধ করছে। সুস্থরাই অসুস্থ হয়ে যাচ্ছিলো, এখানে রোগীদের অবস্থা আরো করুণ। বসে বসে থাকতে ওদের সময় যেন আরো দীর্ঘতর হচ্ছে । কারো মনে হচ্ছে যেন, তাদের সামনে ছোটখাটো কিয়ামত সংগঠিত হচ্ছে। একজন বৃদ্ধ গরমটা আর সহ্যই করতে পারছেন না। বাসে বয়স্কদেরই বেশি কষ্ট হচ্ছে। এমন সময় জানালায় শব্দ হচ্ছে-

আসসালামু আলাইকুম! দাদা! জানালাটা একটু খুলবেন?

তাকিয়ে দেখেন একটা পিচ্ছি ছেলে দাঁড়িয়ে।ধুলোর কারণে এই গরমেো তিনি জানালা বন্ধ রেখেছেন। হুজুর ছেলেটাকে দেখে মুরব্বি ভাবলেন, আরে গরমে প্রাণটা দেহছাড়ার উপক্রম। মাদরাসার মুনশি পোলাপান আসছে কালেকশন করতে। এদের কী আর সময় জ্ঞান নেই। বিরক্ত হয়ে তিনি জানালা খোলে বললেন কী? ছোট ছেলেটা ঠাণ্ডা পানির গ্লাস তাঁর দিকে এগিয়ে দিলো। তিনি বাইরে তাকিয়ে দেখলেন গোটা পঞ্চাশেক হুজুর ছাত্ররা জগ গ্লাস নিয়ে সারি সারি বাসের কাছে যাচ্ছে আর জানালা দিয়ে লোকদের পানি পান করাচ্ছে। তিনি খুশি হয়ে পিচ্ছি হুজুরটার হাত থেকে গ্লাস নিয়ে পান করলেন। দেহছাড়ার উপক্রম প্রাণটায় যেনো একটা পশলা প্রশান্তি ফিরে এলো। তিনি ছেলেটাকে গ্লাসটা ফিরিয়ে দিলেন।

আরেক গ্লাস দেব?

তিনি বললেন, দাও বাবা দাও।

পিচ্ছিটা মুখে এক প্রস্থ হাসি ঝুলিয়ে গ্লাসে পানি দিচ্ছিলো। তিনি ওর পানি ঢালা দেখছিলেন। মনে মনে দুআ করছিলেন, হে আল্লাহ এর বিনিময় তুমি তাকে দিও।

শুধু এই বৃদ্ধ না মাদরাসার ছাত্রদের পানি পানের এই সামান্য খেদমতে খুশি হয়েছেন ওইদিন হাজার হাজার বাড়ি ফেরার মানুষ। মুগ্ধ হয়ে তাদের জন্য দুআ করেছেন।

দরাসার ছাত্ররা যে সত্যি মানুষের সেবা করে এর জীবন্ত উদাহারণ ফেলেন ঘামে ভিজে জবুথবু মানুষগুলো। পানি পান করার এই অভূতপূর্ব দৃশ্য ফেসবুকে রাশেদ খান ভাই শেয়ার করেছেন। অল্প সময়ে ছবি তিনটা ভাইরাল হয়ে যায়। মানুষের মনে পিচ্ছিদের এই কাজটুকু আশার আলো জ্বালিয়েছে। নতুন করে তারা ভাবতে বাধ্য হচ্ছেন, মাদরাসার ছাত্ররাও জাতির সূর্য সন্তান ও আগামীর ভবিষ্যত কর্ণধার। এরাই জাতির গর্বিত সন্তান। এদের অবহেলা করার কিছু নেই। খবরটা গণমাধ্যমেও স্থান পেয়েছে। মানুষ আগ্রহ ভরে তাদের ব্যাপারে পজেটিভ মন্তব্য করেছেন। আর সব সময় সেবামূলক কাজে এগিয়ে থাকার ব্যাপারে তাদের উৎসাহমূলক মন্তব্য করেছেন।

মাদরাসার এইসব স্বর্গীয় পিচ্ছিরাও প্রমাণ করেছে, আমরাও রাসুল সা. এর মহান শিক্ষায় অনুপ্রাণিত। আমরাও জনগণের প্রকৃত সেবক হতে পারি। হতে পারি জাতির প্রকৃত কাণ্ডারী। আশাকরি ওদের এই সামান্য খেদমতটুকু অন্যদেরকেও মানুষের সেবায় সব সময় এগিয়ে আসতে সাহায্য ব্যাপক ভূমিকা রাখবে ইনশাআল্লাহ। আল্লাহ সবাইকে তার রাসুলের প্রকৃত শিক্ষার বাস্তবায়ন করার তাওফিক দিন। আমীন।

তথ্য ও ছবি কৃতজ্ঞতা:-শীলনবাংলা

এই সংবাদটি 1,230 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com