বৃহস্পতিবার, ২৯ নভে ২০১৮ ১১:১১ ঘণ্টা

মৌলভীবাজার-২ আসনে ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী সুলতান মনসুর

Share Button

মৌলভীবাজার-২ আসনে ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী সুলতান মনসুর

সিলেট রিপোর্ট: দেশে এখন কোনো স্বাধীনতা বিরোধী শক্তি নাই বলে দাবি করেছেন মৌলভীবাজার-২ আসনে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী সুলতান মুহাম্মদ মনসুর আহমদ।

বুধবার দুপুরে কুলাউড়ার সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে নিজের মনোনয়নপত্র দাখিল শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এমন মন্তব্য করেন সাবেক এ আওয়ামী লীগ নেতা।

ঐক্যফ্রন্টে স্বাধীনতাবিরোধী দল হিসেবে চিহ্নিত জামায়াতে ইসলামির অন্তর্ভুক্তি সম্পর্কে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে সুলতান মনসুর বলেন, বাংলাদেশে এখন যারা ভোটার তারা কেউ স্বাধীনতাবিরোধী শক্তি নয়। যুদ্ধাপরাধী ছাড়া ৫৪ হাজার (৫৬ হাজার হবে) বর্গমাইলের যারা নাগরিক তারা সবাই সমান ব্যক্তিত্ব। এখানে স্বাধীনতা বিরোধী-অবিরোধী কোনো বিষয় নয়। সবাই হচ্ছে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের।

তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর পক্ষের যারা, তারাই মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের। যারা অপশাসনের বিরুদ্ধে তারাই মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের। যারা দুর্নীতির বিরুদ্ধে, লুটের বিরুদ্ধে, তারাই মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের। মুক্তিযুদ্ধ মানে লুট করা নয়, মুক্তিযুদ্ধ মানে ব্যাংকের টাকা বিদেশ পাঠানো নয়। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব বা অন্যান্য নেতৃবৃন্দ এজন্য মুক্তিযুদ্ধ করেননি।

উল্লেখ্য, কুলাউড়া থেকে ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগের ‘নৌকা’ প্রতীক নিয়ে সাংসদ নির্বাচিত হন সুলতান মনসুর। এরপর ২০০১ সালে তিনি স্বতন্ত্র প্রার্থী এমএম শাহীনের কাছে পরাজিত হন।

সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকার ক্ষমতায় এলে দলের মধ্যকার সংস্কারপন্থী গ্রুপের সদস্য হয়ে ওঠেন এমন অভিযোগ ওঠলে আওয়ামী লীগের সঙ্গে তার দূরত্ব বাড়তে থাকে। ২০০৮ সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পাননি তিনি। ২০১৪ সালেও হন মনোনয়নবঞ্চিত।

একাদশ সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গঠনে সক্রিয় ভূমিকা পালন করেন সুলতান মনসুর। সরকারবিরোধী এই জোটে বিএনপিও যোগ দিলে বিএনপির দলীয় প্রতীক ধানের শীষে প্রার্থী হন সাবেক এই আওয়ামী লীগ নেতা।

এই সংবাদটি 1,038 বার পড়া হয়েছে

কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।  শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ।  নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে।  জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন।  আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি।  লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ। নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে। জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন। আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি। লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com