সোমবার, ০৪ ফেব্রু ২০১৯ ০৫:০২ ঘণ্টা

একতোড়া আলোকপুষ্প অথবা ‘একগুচ্ছ মুসা আল হাফিজ’

Share Button

একতোড়া আলোকপুষ্প অথবা ‘একগুচ্ছ মুসা আল হাফিজ’

 হুসাইন আল হাফিজ : তাঁকে নতুন করে পরিচয় করিয়ে দেবার কিছু নেই। কবি, গবেষক, প্রাবন্ধিক, কিম্বা নিমগ্ন চিন্তাবিদ – প্রতিটি পরিচয়েই তিনি সমৃদ্ধ । নিজেকে তিনি দাঁড় করিয়েছেন একটি চিন্তাপ্রতিষ্ঠান হিসেবে ।সুস্পষ্ট লক্ষ্য, জীবনদর্শন ও আদর্শিকতার বিদ্যুৎ ছড়িয়ে তিনি পথ চলেন রাতের অন্ধকার উজিয়ে। ত্রিশটি গ্রন্থের ঋদ্ধ মলাটে তিনি সাজিয়েছেন আপন মনন ও সৃজনের বিচিত্র সম্ভার । তিনি শুদ্ধতার ফেরিওয়ালা – কবি, গবেষক মুসা আল হাফিজ। তার রচনা মানেই সত্য-সুন্দরের বিজয় উল্লাস! . এবারের বইমেলাকে কেন্দ্র করে আসছে ‘একগুচ্ছ মুসা আল হাফিজ’। এতে আছে তাঁর লেখা ছয়টি বই এবং তাঁর সাহিত্য ও চিন্তাধারার উপর রচিত আরো দুটি বই-সহ মোট আটটি বই। ‘একগুচ্ছ মুসা আল হাফিজ’ নিয়ে তৈরী হয়েছে চমক ও আগ্রহ। একগুচ্ছ মুসা আল হাফিজ কী? এ হচ্ছে ছয়টি বইয়ের গুচ্ছ। বইমেলায় পাঠকের হাতে হাতে শোভা পাবে। . ছয়টি বই, ছয়টি মধুভাণ্ড। কবি,গবেষক মুসা আল হাফিজের বই সম্পর্কে মধুভাণ্ড শব্দটাই যথোচিত। চিন্তা ও শিল্পের অনন্য বৃষ্টিপাত বয়ে যায় তাঁর রচনায়। একেকটি বই হাতে তুলে দেয় একেক জগত আবিস্কারের চাবি।একারণেই তার জনপ্রিয়তা এতো বেশি। জনপ্রিয় লেখকরা সাধারণত সিরিয়াস লেখক নন। সিরিয়াস লেখকরা সাধারণত জনপ্রিয় নন। কিন্তু মুসা আল হাফিজ সিরিয়াস হয়েও জনপ্রিয়। তার সিরিয়াসনেস অনেক ব্রাইট । ফলে বোদ্ধামহলে যেভাবে তার ভক্তকূল আছেন, তেমনি দেশে বিদেশে অসংখ্য সাধারণ তরুণ তার দ্বারা আন্দোলিত। তাঁর আটটি বই এক সাথে প্রকাশিত হচ্ছে এবারের বইমেলায়। এটা আমাদের জন্য সৌভাগ্যের। ৩৩৫-৩৩৬ নম্বর স্টলে বিচিত্র মলাটে হাজির হবে জ্ঞান, প্রজ্ঞা, মনন ও সৃজনের চমকপ্রদ বইগুলো। আমরা অপেক্ষমান। আমরা পিপাসার্ত। . কবি, দার্শনিক মুসা আল হাফিজ-গবেষণা একটি ধারাবাহিকতায় আছে। আল হাফিজ-গবেষণায় যেমন আছেন প্রথিতযশা প্রবীন গবেষক, তেমন আছেন এই প্রজন্মের এক ঝাক মেধাবী তরুণ। এম এ আসাদ চৌধুরী সেই তরুণদের একজন। মুসা আল হাফিজ-বিষয়ক তার দ্বিতীয় বই `মননের কবি, বৈদগ্ধের দৃষ্টিতে’ আসছে এবারের বইমেলায়। বইটিতে মুসা আল হাফিজকে নিয়ে প্রফেসর ড. আবদুর রহিম, প্রফেসর ড. আবদুল্লাহ আল মামুন ড. মাহফুজুর রহমান আখন্দ, ড. মো. আশ্রাফুল করিম, ড. মো. নজরুল ইসলামসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশজন শিক্ষক-গবেষকের বিশ্লেষণধর্মী আলোচনা রয়েছে।

দুই। . ‘শতাব্দীর চিঠি ‘। বইটি নিয়ে প্রিরিভিউ লিখেছেন খ্যাতিমান গবেষক, প্রফেসর ড. মো. রিজাউল ইসলাম। পড়া যাক- . ‘১৪৯২ সালে উন্দুলুসিয়ায় মুসলিম সভ্যতার যে কবর রচিত হয়, সে কবর বাংলাদেশে রচিত হয়েছিলো ১৪১০-১৪১৪ সালে। কবর কেন রচিত হয়? কীভাবে রচিত হয়? কী ছিলো এর মর্মমূলে? . সে কবর থেকে উন্দুলুসিয়া জেগে উঠতে পারেনি, বাংলাদেশ পেরেছিলো। কেন পেরেছিলো? কীভাবে পেরেছিলো? কাদের মাধ্যমে পেরেছিলো? – এসব প্রসঙ্গ বাংলার মুসলিমের ইতিহাস ও জ্ঞানতত্ত্বে অনুপস্থিত। .
বাঙালি মুসলিমের বুদ্ধিবৃত্তিক, সাংস্কৃতিক ও রাজনৈতিক অভিজ্ঞানের গোড়ায় থাকার কথা ছিলো যে ঐতিহ্যিক তত্ত্ব, সে তত্ত্ব তৈরী করে দিযেছিলো ১৪১০-১৪১৪ সালের বাংলাদেশ। সেই হারানো সত্যকে খোঁজে পেলাম দিব্যদৃষ্টিসম্পন্ন ঐতিহাসিক মুসা আল হাফিজের শতাব্দীর চিঠি গ্রন্থে। লেখক একটি বইয়ে চলমান বুদ্ধিবৃত্তিক আবহাওয়ার বিপরিতে একটি প্রতিচিন্তা, প্রতিতত্ত্ব, প্রতিইতিহাস ও প্রতিমূল্যবোধ উপস্থাপন করেছেন। যেখান থেকে পথ পেতে পারে বাংলাদেশ, বাঙালি মুসলমান।` . তিন। . ‘মৃত্যুর জন্মদিন’। কবির চতুর্থ কাব্যগ্রন্থ। বইটি নিয়ে কবির কাছে জানতে চাইলে তিনি জানাচ্ছে- ‘এ হচ্ছে হৃদয়ের রক্তবৃষ্টি। এ হচ্ছে অস্তিত্বের শানে নুযুল ,অস্তিত্বের তর্জমা, অস্তিত্বের তাফসির। . মৃত্যুর জন্মদিন। কী আছে এখানে? এখানে আত্মার রক্তপাত। এখানে বাস্তবতার গলিত মগজ। এখানে পাখি ও নদীর রোদন। এখানে সময়ের শিরার আগুন লকলকিয়ে বিষ হয়ে ঝরে পড়ে নিরব নর্দমায় এখানে একজন লোক প্রদীপ হাতে সারা দিন আলো খোঁজে দিনের আলোয়। শত শত ঘটনা ঘটে চলে এখানে। কাল হয়ে যায় একটি স্থিরচিত্র। পাগলা শতাব্দীকে বগলদাবা করে ইতিহাসের উজানে দৌড়াতে থাকে প্রতিটি শব্দ। . চার। . ‘মুক্তি আনন্দে আমিও হাসবো’। কবির প্রথম আত্মপ্রকাশ ঘটেছিলো এই হাসির শব্দে। হাসির শব্দে ছিলো রোদন; মানবতার। এ ছিলো এক স্নিগ্ধআগুন, সবুজ বিদ্রোহ, প্রশান্ত তুফান। আনন্দের ভাষায় হাহাকার ছিলো, ছিলো ভালোবাসার বৃষ্টিপাত। পাঠক সেই বৃষ্টিকে অভিনন্দিত করেছিলেন আর উদযাপন করেছিলেন তার বর্ষণ ও সিক্ততাকে। কারণ, তাদের ভাষায় ’এই বৃষ্টির প্রতিটি ফোঁটায় ছিলো বিশ্বাসের সুগন্ধি আর সত্যের লাল বারুদ।’ . পাঁচ। . ‘চার কবি চিত্তের পাসওয়ার্ড’একটি সাহিত্য সমালোচনার বই। এতে আলোচিত হয়েছেন বাংলা কবিতার অনবদ্য চার জমিদার। ১. সৈয়দ আলী আহসান ২. ফজল শাহাবুদ্দীন ৩. আফজাল চৌধুরী ৪. আবদুল মান্নান সৈয়দ ঐতিহ্যের এই চার সৃজনপুরুষের মনোলোকের চাবি অনুসন্ধান করেছেন কবি মুসা আল হাফিজ। তালাশ করেছেন তাদের চিত্তের চারিত্র। . ছয়। . মুসা আল হাফিজ একজন কবি। সময়ের বোধিত কবি। একজন কবিপুরুষকে কাব্য-সমালোচনায় বিষয়-প্রকরণ উপলব্ধিতে যে প্রজ্ঞা, প্রকাশ- শীলনে ভাষার উপর যে নিষ্ঠা-নৈর্ব্যক্তিকতার নৈয়ায়িক প্রতীতী থাকা প্রয়োজন, সেটা সহজে আত্মস্থ করতে পেরেছেন। এর যথার্থ প্রতিফলন লক্ষ্য করা যায় তাঁর সদ্য প্রকাশিত ‘দৃশ্যকাব্যে ফররুখ আহমদ’ গ্রন্থে (২০১৬)। সাম্প্রতিক কাব্য-সমালোচনার রুগ্ন-রোদ্দুরে এটা বোধ করি শরৎ প্রভাতের নির্মল জ্যোতি। যার দীপ্তিতে তৃপ্তি আছে পীড়ন, যাতনা নেই। . প্রায় অর্ধশতাব্দী ধরে ফররুখ আহমদ কাব্যোমোদী-পাঠক-সমালোচক দ্বারা নানাভাবে চর্চিত। এ প্রচেষ্টার দীর্ঘমিছিলে ‘দৃশ্যকাব্যে ফররুখ আহমদ’ বিশিষ্টতার দাবিদার। একজন ফররুখ আহমদ কাব্যে,দৃশ্যকাব্যে,নাটকে, কাব্যনাটকে দিনবদলের পালায় আজও কীভাবে শাশ্বতিক-সতেজ, তার শতদালিক স্বত:স্ফূর্ত উচ্চারণ এ গ্রন্থটি। মোট দশটি প্রবন্ধের কলেবরে সীমায়িত এর অবয়ব-সংস্থান। প্রবন্ধগুলোর অধিকাংশ আকারে বেশ ছোট। তবে বিষয় প্রকাশে স্ফটিক দানার মত স্বচ্ছ। . সমালোচনার পদ্ধতি ইতিবাচক ৷ কবির তিনটি কাব্যনাটক নিয়ে বিশ্লেষণ করা হয়েছে পাণ্ডিত্যপূর্ণভাবে ৷ গোটা বাংলা সাহিত্যে কাব্যনাটকের একটি চিত্র একে দেখানো হয়েছে ফররুখ আহমদের স্বাতন্ত্র ৷ কবিকে মূল্যায়ণে বিভিন্ন সমালোচকের বক্তব্য পূণর্বিবেচনা করা হয়েছে ৷ প্রতিবাদ করা হয়েছে ৷ আবার নতুন দৃষ্টিকোনও হাজির করা হয়েছে ৷ শিল্পের নিরিখে কাব্য সমালোচনার এমন কাজ ইসলামি অঙ্গনে এই প্রথম ৷ . কাব্য-নাটক বা সাহিত্যের যে কোন কর্মের বিশ্লেষণে সমালোচনার একটি নিজস্ব পরিসর আছে, বোধ আছে,ভাষা আছে। মুসা আল হাফিজ ‘দৃশ্যকাব্যে ফররুখ আহমদ’ প্রণয়নের মাধ্যমে আমাদের জন্য সে সীমানায় প্রবেশের মাহেন্দ্রক্ষণ তৈরি করলেন। . সাত। . ‘ভাবনার বীজতলা’। একটি প্রবন্ধ সংকলন। পাঁচটি বড় প্রবন্ধ স্থান পেয়েছে এতে। বিভিন্ন সেমিনারে তিনি মূল প্রবন্ধ হিসেবে এগুলো উপস্থাপন করেন। বিষয়ের বিচারে অত্যন্ত তাৎপর্যবাহী এসব রচনা। শিক্ষাদর্শন, আইনতত্ত্ব, ইসলামি আইনের নবসম্পাদনের তাত্ত্বিক ও ব্যবহারিক পর্যালোচনা, মাদরাসা শিক্ষা উন্নয়ন ও উচ্চতর শিক্ষা নিশ্চিতকরণ, নগর পরিকল্পনা ও একটি নগর উন্নয়নের রূপরেখা, রোহিঙ্গা সঙ্কট-উত্তরণ ইত্যাদি গুরুতর বিষয়ের সমাহার ঘটেছে এতে। শক্তিমান চিন্তাবিদ হিসেবে মুসা আল হাফিজের যে উদাত্ত কণ্ঠস্বর, তা এখানেও সাবলীলভাবে উচ্চারিত। বইটিতে উদ্ভাবনী ও বিশ্লেষণী মানসিকতার একজন গবেষককে পাওয়া যায়। . আট। . ‘মুসা আল হাফিজের মননবিশ্ব’। একটি গবেষণাগ্রন্থ। লিখেছেন শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সহযোগী অধ্যাপক ডক্টর মো. রিজাউল ইসলাম। ১৭০ পৃষ্ঠার বইটিতে তিনি মূলত কবি মুসা আল হাফিজের ‘ ঈভের হ্রদের মাছ’ ও ‘ পরম সাঁতার’ এর বিভিন্ন কবিতার তলদেশ খনন করেছেন। এর সাথে ‘ মুক্তিআনন্দে আমিও হাসবো’ ‘প্রাচ্যবিদদের দাঁতের দাগ’ ও ‘ দৃশ্যকাব্যে ফররুখ আহমদ’ নিয়ে একটি করে বিশ্লেষণ যুক্ত করেছেন। কবিতা ও চিন্তাধারার উপর এটি আরেকটি অসাধারণ গবেষণাগ্রন্থ। এবারের বইমেলায় বের হচ্ছে বইটির দ্বিতীয় সংস্করণ।

এই সংবাদটি 1,078 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com