বুধবার, ০৬ ফেব্রু ২০১৯ ০৪:০২ ঘণ্টা

ইজতেমা প্রসঙ্গে মাওলানা বাহাউদ্দীন জাকারিয়া যা বললেন-

Share Button

ইজতেমা প্রসঙ্গে মাওলানা বাহাউদ্দীন জাকারিয়া যা বললেন-

সিলেট রিপোর্ট : এটা কোন ধরনের তামাশা? তামাশার একটা সীমা আছে৷ হাবভাব দেখে মনে হচ্ছে যেন দুজন লোক একজন দাসীর মালিকানা নিয়ে ঝগরা করছে৷ গ্রাম্য মোড়লরা মীমাংসা করার জন্য উভয়কে নিয়ে কদিন পরপর দরবার করছে৷ মোড়লরা একপক্ষকে কথামালার ফুলঝুড়ি শুনিয়ে শুনিয়ে আশ্বস্ত করছে৷ অপর পক্ষের অন্যায় দাবীরও একধরনের বৈধতা দিয়ে চলছে৷
১লা ডিসেম্বর নিরস্ত্র, নীরিহ কুরআন-হাদীসের শিক্ষার্থী এবং তাবলীগের সাথীদের উপর অতর্কিত পৈশাচিক হামলা করেছে অন্যায় দাবীদাররা৷ এ অপরাধে কাউকে আইনের আওতায় না এনে জামাই আদরে তাদের সাথে মীমাংসা মিটিং করা কোন ধরনের তামাশা?
আপত্তিকর বয়ানদাতা এবং তাবলীগের মাঝে বিভক্তি সৃষ্টিকারী, দাম্ভিক সাআদ সাহেবের বরাতের সার্টিফিকেটের জন্য দেওবন্দ যেতে বাধ্য করা এবং গোমর ফাক হয়ে যাওয়ার আশংকায় পরবর্তীতে দেওবন্দ না যাওয়ার পক্ষে অটল থাকা৷ এটা কোন ধরনের তামাশা?
ইজতিমাকে দুপক্ষের জন্য দুদিন করে ভাগ করে নেয়াই প্রমাণ করে ওরা কি চায়৷ মোড়লরাও ভাগ করে দিল৷ ভাগও হয়ে গেল৷
ইজতিমা ভাগ! কদিন পরে বলবে মসজিদে ভাগ! কাকরাইল মসজিদ তো বহু পুর্বেই ভাগ করে দেয়া হয়েছে৷ এই ভাগাভাগির তামাশা যদি এভাবে চলতে থাকে তাহলে সে দিন বেশী দূরে নয় যেদিন মসজিদের জামাতেও ভাগের দাবী করা হবে৷ এরা এক জামাত করবে, ওরা অপর জামাত করবে৷
দ্বীনের সহীহ মেহনতের নামে গোটা সমাজকে যারা সহীহ নিয়তে ভাগ করার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত তাদের যদি এখনিই দমন না করা হয় তাহলে অদূর ভবিষ্যতে এক ভয়াবহ অবস্থা তৈরী হবে, তাতে কোন সন্দেহ নেই৷
এ যেন এক তামাশা!
দ্বীনের নামে এক তামাশা!
সহীহ নিয়তের সহীহ তামাশা!
বন্ধ করুন এসব তামাশা!
এসব তামাশা বন্ধ করুন!!

এই সংবাদটি 1,043 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com