মোদিকে আসতে দেয়া হবেনাঃ বায়তুল মোকাররমে বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তারা

প্রকাশিত: ৩:৩১ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ২৮, ২০২০

মোদিকে আসতে দেয়া হবেনাঃ বায়তুল মোকাররমে বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তারা

রুহুল আমীন নগরী, বায়তুল মুকাররম থেকেঃ
দিল্লিতে মুসলমানদের ওপর হামলার প্রতিবাদে রাজধানী ঢাকায় বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদ এলাকায় বিক্ষোভ করেছেন মুসল্লিরা।
শুক্রবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) জুমার নামাজের পর সমমনা ইসলামী দলগুলোর ব্যানারে মসজিদের গেটে এ বিক্ষোভ হয়। এসময় মুসল্লিরা বিভিন্ন স্লোগান দেন। জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের মহাসচিব ও ঢাকা মহানগর হেফাজতের আমির আল্লামা নুর হোছাইন কাসেমীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য রাখেন মাওলানা আব্দুর রব ইউসুফী, মাওলানা জাফর উল্লাহ খান, মাওলানা মামুনুল হক,মাওলানা মুজিবুর রহমান হামিদী, মাওলানা আব্দুল করিম, মাওলানা মুতিউর রহমান গাজিপুরী, মাওলানা জয়নুল আবেদীন, মাওলানা আতাউল্লাহ আমীন, মাওলানা আহমদ আলী,মাওলানা ফজলুল করিম কাসেমী প্রমুখ।
এর আগে বায়তুল মোকাররম মসজিদের আশপাশের এলাকায় ব্যাপক পুলিশ মোতায়েন করা হয়।
উল্লেখ্য, বিতর্কিত নাগরিকত্ব সংশোধনী (সিএএ) আইনকে কেন্দ্র করে দাঙ্গা-সহিংসতায় ভারতের রাজধানী দিল্লিতে এখন পর্যন্ত ৩৮ জন প্রাণ হারিয়েছে। অপরদিকে আহত হয়েছে আরও দুই শতাধিক মানুষ। সহিংসতার ঘটনা তদন্তে দু’টি বিশেষ তদন্তকারী দল গঠন করা হয়েছে।
গত রোববার নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের (সিএএ) সমর্থক-বিরোধীদের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হলেও ধীরে ধীরে এটি সাম্প্রদায়িক সহিংসতায় রূপ নেয়। এতে প্রতিদিনই বাড়ছে মৃতের সংখ্যা। বৃহস্পতিবারও অন্তত সাতজনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে।
সভাপতির ভাষনে আল্লামা নুর হোছাইন কাসেমী মোদীর বাংলাদেশ আগমন বাতিলের আহবান জানিয়ে বলেন, অবিলম্বে ভারতে মুসলিম নির্যাতন বন্ধকরতে হবে।

এসময় বক্তারা বলেন, ভারতে মুসলিমদের নির্মমভাবে হত্যা করা হচ্ছে। তাদের ঘরবাড়ি জ্বালিয়ে দেয়া হচ্ছে। মা বোনদেরকে নির্যাতন করা হচ্ছে। মুসলিম হিসেবে আমরা তা মেনে নিতে পারি না। এ নিয়ে সরকারের মাথা ব্যথা না থাকলে আমাদের মাথা ব্যাথা আছে। কারণ আমরা মুসলমান। মুসলিম হয়ে মুসলিমদের ওপর এমন নির্যাতন সহ্য করা যায় না। তারা বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ছিলেন অসাম্প্রদায়িক। আমাদের প্রধানমন্ত্রী নিজেও অসাম্প্রদায়িক। আমাদের দেশ অসাম্প্রদায়িক। এখানে আমরা মুসলিম হিন্দু বোদ্ধ খ্রিস্টান একসঙ্গে বাস করি। আর মোদি হলো একজন উগ্রপন্থী লোক। সে সাম্প্রদায়িক এবং খুনি। সুতরাং মুজিববর্ষে তার মতো খুনি সাম্প্রদায়িক এবং উগ্রবাদীকে বাংলাদেশে ঢুকতে দেয়া হবে না। তার আমন্ত্রণ পত্র প্রত্যাহার করতে হবে। এসময় তারা বিমানবন্দর ঘেরাও করার ঘোষণা দেন। বক্তারা মুসলিম হত্যার প্রতিবাদে ভারতের সব পণ্য বর্জন করার ঘোষণাও দেন।

এই সংবাদটি 22 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com