শায়খে গলমোকাপনীর জানাযায় অংশগ্রহণ; দৃঢ় সংকল্পই ছিলো মূল পুঁজি!

প্রকাশিত: ১১:৪৮ পূর্বাহ্ণ, জুলাই ২, ২০২০

মাওলানা আব্দুস সালাম আজাদঃ

এক.
বান্দা যখন আশা আর নিরাশার দোলাচলে হাবুডুবু খেতে থাকে, সম্ভাবনার কোনো পথ যখন তার কাছে আর বাকি থাকে না, তখন সে দিক বিদিক পেরেশানিতে পড়ে যায়। কী করবে আর কী করবে না এই চিন্তায় খেই হারিয়ে ফেলে। তখন কাতর কণ্ঠে রহমানুর রাহীমের শাহী দরবারে ফরিয়াদ করে ‘মাতা নাসরুল্লাহ? তখন রহমান প্রভুর তরফ থেকে জবাব আসে ‘আলা ইন্না নাসরাল্লাহি কারীব’। হে আমার বান্দা! তুই নিরাশ কেনো হবে? অবশ্যই অবশ্যই আমি আল্লাহ তোর প্রতি দয়াপরবশ হবো। আমার সাহায্যের হাত প্রসারিত করবো। নিশ্চয়ই আমার সাহায্য খুবই নিকটবর্তী। তুই কামিয়াব হবে। উদ্দিষ্ট লক্ষ্যপানে অগ্রসর হবে। তোর মনোবাসনা পূর্ণ হবে। আমি আল্লাহ-ই তোর সমূহ আশা-আকাঙ্ক্ষা সঠিক সময়ে যথাযথভাবে পূরণ করে দিবো। মাওলায়ে পাক তাঁর এ ওয়াদার খেলাফ কখনো করেননি।

আমার ক্ষুদ্র এ জীবনে এমন পরিস্থিতির সম্মুখীন যতোবারই হয়েছি, ততবারই মাওলায়ে পাকের অবারিত রহমত ও নুসরত দ্বারা ধন্য হয়েছি। ফালিল্লাহিল হামদ্। আসলে দূর্বল বান্দা যখন নিরাশ হয়, তখনই রাজাধিরাজ মাওলার পক্ষ থেকে দূর্বল বান্দার প্রতি সাহায্যের ঢালী আসতে থাকে অপ্রত্যাশিতভাবে। বান্দার নিয়ত যখন পরিশুদ্ধ থাকে, তখন মাওলার সাহায্যও নিকটবর্তী হতে থাকে। এটাই পরীক্ষিত বাস্তবতা। বান্দার প্রতি মাওলার তরফ থেকে অযাচিত বদান্যতার তোহফা।

দুই.

গত ২৫ শে জুন ২০২০ ঈসায়ী রোজ বৃহস্পতিবার। সকাল সাড়ে নয়টা। মোবাইল হাতে নিয়ে ফেসবুকে একবার ঢুঁ মারি। বিভিন্ন নিউজ একের পর এক দেখতে থাকি। হঠাৎ চোখের সামনে একটি বিষাদময় নিউজ এসে হাজির হলো। যা দেখে আর নিজেকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারিনি। অঝোর ধারায় চোখের পানি টপটপ করে মাটিতে পড়তে থাকলো। নিজের মধ্যে এক ধরনের বেচাইনি আর অস্থিরতা কাজ করতে লাগলো। শোকের খবর শুনে মূক হওয়ার উপক্রম। দেখতে পেলাম সিলেটের বরেণ্যদের মধ্যে থেকে এক অন্যতম উজ্জ্বল তারকা, উলামায়ে কেরামদের মধ্যে সর্বজনমান্য বুযুর্গ শায়খুল হাদীস আল্লামা শায়খ আবদুশ শহীদ গলমোকাপনী রাহিমাহুল্লাহর ইন্তেকালের সংবাদ। এমন সংবাদ শুনার জন্যে মোটেই প্রস্তত ছিলাম না।

এই করোনাকালীন সময়ে আমাদের থেকে বিদায় নিয়েছেন অনেক উলামায়ে কেরাম ও বুজুর্গানেদ্বীন। যারা ছিলেন আপন কর্মগুণে মহিমায় ভাস্বর। ছিলেন একেক জন স্ব স্ব অবস্থানে আলোকময় উজ্জ্বল তারকা। তাঁদের তিরোধানে একেকটি অঞ্চল, একেকটি জেলা ও বিভাগ, এমনকি পুরোদেশ আজ অসহায় সর্বহারা। তাঁদের দরদমাখা রাহনুমায়ি থেকে আজ এ জাতি এ সমাজ বঞ্চিত হতে যাচ্ছে। অমানিশার ঘোর অন্ধকারে ছেয়ে গেছে আজ গোটা পরিবেশ। ধর্মীয় অঙ্গন আজ মুরব্বী শূন্য। কাণ্ডারী বিহীন দ্বীনি মারকায। যাদের সরব উপস্থিতিতে এসব দ্বীনি অঙ্গন প্রাণবন্ত থাকতো, সতেজ হতো, আপন ঐতিহ্যের জানান দিয়ে যেতো। আজ তাঁরা নেই। কিন্তু তাঁদের শোকে কাতর হয়ে এমন প্রতিষ্ঠানগুলো নিষ্প্রাণ হয়ে দাঁড়িয়ে আছে। হারিয়ে যাওয়া মহাত্মনদের স্মৃতি হাতড়িয়ে বাকি দিন গোজরানের ফিকির করছে।

তিন.

হযরতের ইন্তেকালের সংবাদ শুনার পর নীরবতা কাটিয়ে ওঠে জানাযায় অংশগ্রহণের জন্যে দৃঢ় সংকল্প করলাম। সফরসাথী হিসেবে লোক খুঁজতে থাকলাম। ফোন দিলাম শাহবাগ জামিয়া মাদানিয়া কাসিমুল উলূমের স্বনামধন্য মুহাদ্দিস শ্রদ্ধেয় বড়ভাই মাওলানা ফারুক আহমদ হাফিজাহুল্লাহকে। তিনি ফোন রিসিভ করলে বললাম- আপনি গলমুকাপনী হযরতের জানাযায় অংশগ্রহণ করবেন? তিনি আমার কথার উত্তরে জানালেন- ইচ্ছা আছে, তবে কীভাবে যাবো? ইজতেমায়ী কোনো ব্যবস্থা আছে? আমি বললাম- না! এরকম কোনো ব্যবস্থা নেই। তিনি বললেন- আচ্ছা দেখি! যদি কয়েকজন মিলে ব্যবস্থা করতে পারি তাহলে জানাযায় যাবো। এই বলে তিনি ফোন রাখলেন। বিভিন্নজনের সঙ্গে যোগাযোগ করতে লাগলেন। আশাতীত কোনো সাড়া না পেয়ে আমাকে আবারও ফোন দিলেন। জানালেন- তেমন কাউকে পাইনি। তবে শাহবাগ মাদরাসার সহকারী নাযিমে তা’লিমাত মাওলানা আতীকুর রহমান সাহেবের সঙ্গে যোগাযোগ হয়েছে। তিনি সম্ভবত যাবেন, কারণ হযরত গলমোকাপনী রাহিমাহুল্লাহ আতীক সাহেবের তরীকতের উসতায। হযরতের সঙ্গে তাঁর ইসলাহী সম্পর্ক।

সফরসাথী হিসেবে তেমন কাউকে পাইনি। করোনাকালীন এই সময়ে কেউ এতোদূর যেতে সাহস করেনি। এদিকে হযরতের পারিবারিক সিদ্ধান্ত মতে জানাযার সময় বেলা ২.৩০ মিনিট নির্ধারণ করা হয়েছে। ধীরে ধীরে সময়ও কমে আসছে। এখনো বাড়িতে। ঘড়ির কাটায় বেলা এগারোটা। জকিগঞ্জের বারঠাকুরী থেকে গিয়ে আমি কি জানাযায় অংশগ্রহণ করতে পারবো? এভাবেই নিজের মনের সঙ্গে বুঝাপড়া করলাম। মন সায় দিলো। এমনকি একথারও প্রবোধ দিলো যে, তুমি ইনশাআল্লাহ! বলে বেরিয়ে পড়ো। আল্লাহ তোমার সময়ের মধ্যে বরকত দিবেন। নির্ধারিত সময়ের মিনিট পনেরোর আগে গিয়ে জানাযায় পৌঁছবে। মনের এই দ্ব্যর্থহীন প্রবোধে প্রলুব্ধ হয়েই ‘বিসমিল্লাহি তাওয়াক্কালতু আলাল্লাহ’ বলে বাড়ি থেকে বেরিয়ে পড়লাম জানাযার উদ্দেশ্যে।

চার.

বাড়ির সামন থেকেই গাড়িতে উঠলাম। সিএনজি যোগেই কালিগঞ্জ পর্যন্ত গেলাম। সেখানে সিলেটমুখী গাড়ি খুঁজতে থাকলাম। অনেক সময় কেটে গেলো এই খুঁজাখুঁজিতেই। অবশেষে সিএনজি একটি পেয়ে গেলাম। তবে সিলেট যাত্রী নয়। গোলাপগঞ্জ যাবে গ্যাস আনতে। সিএনজি ড্রাইভার বললো- আপনারা যদি পাঁচজন হয়ে যান তাহলে আমি গাড়ি ছেড়ে দিবো। পাঁচজন কই পাবো? এ চিন্তা করতেই দুজন যাত্রী পেয়ে গেলাম। তখন ফোন দিলাম আতীকুর রহমান সাহেবকে। তিনি আমার আগে কালিগঞ্জ এসে পৌঁছেন। দেখা হলো তাঁর সঙ্গে। বললাম- চলুন! আমরা এ সিএনজি করেই গোলাপগঞ্জ চলে যাই। সেখান থেকে ইনশাআল্লাহ আমাদের ব্যবস্থা হবে। তা ছাড়া সময়ও বাঁচবে রাস্তাও কমে যাবে। তিনি ঘড়ি দেখিয়ে আমাকে বললেন- সময় তো ক্রমশঃ কমে যাচ্ছে। তাছাড়া এ সময়ের ভেতরে গন্তব্যেও পৌঁছা সম্ভব নয়। একথা বলে তিনি ইতস্ততবোধ করতে লাগলেন। তাঁর মন সায় দিচ্ছে না। তখন আমি বললাম- আপনি যান আর না-ই যান আমি কিন্তু জানাযার উদ্দেশ্যেেই বাড়ি থেকে বের হয়েছি। জানাযা পাই বা না পাই ইনশাআল্লাহ! আমি গলমোকাপন যাবোই।

আমার এমন দৃঢ়সংকল্প দেখে তিনি বললেন- তাহলে আপনি চলে যান। তিনি যে বাসে করেই কালিগঞ্জ এসেছিলেন। সে বাসেই আমি সিলেটের উদ্দেশ্যে উঠে গেলাম। তখন বেলা প্রায়ই বারোটার কাছাকাছি। আলহামদুলিল্লাহ! গাড়ির সব সীট পূর্ণ হলে নির্ধারিত সময়েই ছেড়ে দিলো সিলেটের উদ্দেশ্যে। আলহামদুলিল্লাহ! অত্যন্ত দ্রুতগতিতেই গাড়ির চাকা ঘুরতে লাগলো। পথিমধ্যে যাত্রী তুলতে তেমন একটা সময় ক্ষেপন করেনি গাড়ির ড্রাইভার। আবার পিছনে আরেকটি বাসও সমানতালে ছুটছে। কে কার আগে যাবে এই প্রতিযোগিতা চলছে ড্রাইভারদের মধ্যে। মিনিট চল্লিশের ভেতরেই চারখাই বাজারে এসে পৌঁছলাম। আগে থেকেই যোগাযোগ ছিলো শাহবাগ জামিয়া মাদানিয়ার শিক্ষার্থী প্রিয় ভাতিজা মারুফ আহমদের সঙ্গে। সে চারখাই থেকে আমার সঙ্গে যুক্ত হলো। তাকে সাথী হিসেবে পেয়ে একাকিত্বের অবসান হলো। চারখাই থেকে আধাঘন্টার ভেতরেই সিলেট কদমতলী গিয়ে পৌঁছুলাম। তখন ঘড়ির কাটায় একটা বেজে চল্লিশ মিনিট।

পাঁচ.

জানাযার বাকি আছে আর মাত্র পঞ্চাশ মিনিট। আল্লাহর ওপর পূর্ণ ভরসা রেখেই হুমায়ূন রশিদ চত্বর থেকে সিএনজি যোগে চন্ডিপুল পর্যন্ত গেলাম। সেখান থেকেই ওসমানী নগরের বাসে চড়লাম। বাসে উঠেই সফর সাথীর সাথে কোনো কথা না বলেই সীটে বসে পড়লাম। আনমনে রহমানুর রহীমের শাহী দরবারে আকুতি পেশ করলাম। মনের গহীনের অব্যক্ত কথাগুলো বিড়বিড় করে বলতে থাকি। এভাবে পেশ করি- হে আল্লাহ! আমার মনোবাসনা আপনি দয়া গুণে পূরণ করে দিন। আমাকে আমার প্রত্যাশিত বিষয় থেকে নিরাশ করো না। বঞ্চিত করো না আমার উদ্দিষ্ট বিষয় থেকে। এতো দূর থেকে হাজির হয়েছি আপনার এক মাহবুব ও মাকবুল বান্দাকে শেষ বিদায় জানাতে। তাঁর জানাযায় শরীক হতে। আপনি যেনো নির্ধারিত সময়ের আগেই আমাকে সেখানে পৌঁছিয়ে দিন। এমন আকুতি নিবেদন করেই সারা পথ এভাবে চললাম। বিরতিহীন গাড়ি ছিলো বিধায় বেলা দুইটা দশ মিনিটেই গোয়ালা বাজার গিয়ে পৌঁছুলাম। আর বাকি আছে মাত্র বিশ মিনিট।

চেনা নেই জানা নেই। আগে কোনোদিন আসা হয়নি। গোয়ালাবাজার নেমে সেখান থেকে সিএনজি বা টমটমযোগে যেতে হবে বেগমপুর। সেখান থেকে গলমোকাপন। আমরা গাড়ির অপেক্ষা করছি। মিনিট দুয়েক যেতে না যেতেই একটি বাস পেয়ে গেলাম। বাসে উঠতেই জনৈক সিএনজি ড্রাইভার আমাদের সম্বোধন করে বললো- হুযুর আপনারা জানাযায় যাবেন? আমরা উত্তর দিলাম হ্যাঁ। তখন সে বললো আপনারা আমার গাড়িতে উঠুন। আমি আপনাদের জানাযার স্থান পর্যন্ত পৌঁছিয়ে দিবো। রাহমান প্রভু আমাদের নিরাশ করেননি। নির্ধারিত সময়ের আগেই আমাদের পৌঁছিয়ে দিলেন কাঙ্ক্ষিত ঠিকানায়। আসলে ওই সিএনজি ড্রাইভার হয়তো সাহায্যের জন্যে কুদরত প্রদত্ব কোনো ফেরেশতা ছিলো। যার বদৌলতে পনেরো মিনিটের ভেতরেই আমরা জানাযাস্থলে গিয়ে হাজির হলাম। ঘড়ির কাটায় খিয়াল করে দেখলাম, জানাযার বাকি এখনো আট মিনিট আছে। হাজার হাজার মানুষ জানাযার নামাযের জন্য অপেক্ষা করছে। আমরা প্রথমেই ওযু করলাম। রাহমানুর রাহীমের শাহী দরবারে অজস্র শোকরিয়া জ্ঞাপন করে জানাযার জন্যে সমবেত মুসল্লিদের সঙ্গে সফবন্দি হলাম।

ছয়.

জানাযার নামায আদায় করে আমরা মাদরাসার দিকে গেলাম। মাদরাসার মসজিদে সালাতুল যুহর আদায় করলাম। মাদরাসার বিভিন্ন দিক পরিদর্শন করে অফিস রুমের সামনে এলাম। অফিসে বসে আছেন জানাযায় অংশগ্রহণকারী শীর্ষস্থানীয় অনেক উলামায়ে কেরাম। দেখতে পেলাম। তাঁদের সঙ্গে বসা আছেন জামিয়া মাদানিয়া আঙ্গুরা মুহাম্মদপুরের সাবেক স্বনামধন্য মুহাদ্দিস, বর্তমান জামিয়া কাসিমুল উলূম দরগাহে হযরত শাহজালাল রহ.’র সিনিয়র মুহাদ্দিস উসতাযে মুহতারাম হযরত মাওলানা সালেহ আহমদ জকিগঞ্জী হাফিজাহুল্লাহ।
মুহতারাম উসতাযকে দেখেই সাহস করে অফিসে ঢুকলাম। সালাম মুসাফাহা করলাম। কুশল জেনে নিলাম।

হযরত আমাকে দেখেই খুবই খুশী হলেন। স্বভাবসুলভ ভঙ্গিতে জিজ্ঞেস করলেন- কিতাবা তুমি কই থেকে? আমি বললাম হুযুর বাড়ি থেকেই জানাযার উদ্দেশ্যে এসেছি। হুযুর হেসে বললেন- তোমার তো হিম্মত কম নয়; এতো দূর থেকে সাহস করে এসে গেছো। সোফা দেখিয়ে আদেশ করলেন এখানে বসো। বিশ্রাম গ্রহণ করো। আমি ইতস্ততবোধ করলে তিনি আমাকে প্রায় জোর করেই বসালেন। মাদরাসার জনৈক ছাত্রকে বললেন- পানি নিয়ে এসে আমাকে পান করাতে। পানি খেয়ে উঠে দাঁড়ানোর কসরত করলে বলে উঠলেন- বসো। মাদরাসার পক্ষথেকে নাস্তা পরিবেশন করা হবে। তুমি তা খেয়ে এর পরে যাও। নাস্তা পরিবেশন করলেন দরগাহের স্বনামধন্য উসতায মাওলানা জুনায়েদ আহমদ কিয়ামপুরী হাফিজাহুল্লাহ। যথাসময়ে নাস্তা এলে আমরা সকলেই আহার করলাম। ছাত্রের প্রতি মুহতারাম উসতাযের এ অকৃত্রিম ভালোবাসা স্মৃতির পাতায় আজীবন স্মরণীয় হয়ে থাকবে। আল্লাহ আমার মুহতারাম উসতাযকে সুস্থতার সঙ্গে নেক হায়াত দান করুন।

সাত.

মাদরাসা অফিসেই বসা। এমন সময় প্রবেশ করলেন সিলেটের আরেক প্রবীণ আলিমেদ্বীন, সফেদ চেহারার সুদর্শন এক ব্যক্তিত্ব শায়খুল হাদীস হযরত মাওলানা আবদুল মালিক মোবারকপুরী হাফিজাহুল্লাহ। যিনি একদিকে কুরআন হাদীসের জ্ঞানে বিরাট পাণ্ডিত্যের অধিকারী। আবার অন্যদিকে লেখালেখির অঙ্গনেও রয়েছে তাঁর সরব অবস্থান। তাঁর ক্ষুরধার লিখনির আমি এক ভক্ত পাঠক। ছোটবেলায় তাঁর লিখিত অমরগ্রন্থ ‘সিলেটে আল্লামা সায়্যিদ হুসাইন আহমদ মাদানী’ বইটি বেশ কয়েকবার পড়েছি। হযরত মাদানী রহ.কে জানতে পেরেছি। তাঁকে দেখে খুবই আনন্দিত হয়েছি। তাঁর সঙ্গে কুশল বিনিময় করেছি।

বছর চারেক আগে সিলেট বন্দর বাজার মসজিদের সাবেক ইমাম ও খতীব আল্লামা মুকাদ্দাস আলী আকাখাজানী রাহ.র জীবনী স্মারকের জন্য লিখা আবতে হযরতের নাতি তাঁর সঙ্গে সাক্ষাত করেন। তিনি তখন অসুস্থ ছিলেন। লিখতে বসলে হাত কাঁপতো। তাই না লিখেই হযরতের স্মৃতিচারণমূলক কিছু কথা পেশ করলেন। তারা সেটি রেকর্ড করে আনলে আমি একথাগুলো গ্রন্থনা করে দেই। তাঁকে এ বিষয়টি অবহিত করলে খুবই খুশী হলেন। আমাকে দুআ দিলেন। আমিও তাঁকে সরাসরি পেয়ে খুশী হয়েছি। দুআ নিয়েছি। আরো অন্যান্যদের সঙ্গে দেখা হলো। কথা হলো। মোবারক এ সফরে অনেক অপ্রত্যাশিত বিষয় হাসিল হলো। যা আমার প্রতি আমার মালিকের অযাচিত তোহফা।

এই সংবাদটি 9 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com