জাতীয় ইস্যুতে নীরব থাকার পরামর্শ আত্মঘাতি

প্রকাশিত: ৯:৫১ পূর্বাহ্ণ, জুলাই ৪, ২০২০

সৈয়দ শামছুল হুদা।।

২৩শে জুন১৭৫৭সালে যখন দেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব ডুবে যাচ্ছিল, যখন মুসলমানদের হাত থেকে দেশের শাসন ও কর্তৃত্ব চিরদিনের জন্য মুছে যাচ্ছিল, তখন যেমন এক শ্রেণির অতিবুদ্ধিমান এ কথা বলেছিল যে, এগুলো রাজায় রাজায় খেলা, আমাদের কি? ইংরেজ ঐতিহাসিক বলেছিল, সেদিন পলাশির আম্রকাননে যে পরিমান বাঙ্গালী দর্শক ছিল তারা যদি সম্মিলিতভাবে আমাদের ওপর একটি করে ঢিলও মারতো, তাহলেই আমরা হেরে যাই। কিন্তু এক শ্রেণির নীরব দার্শনিকদের কারণে সেদিন স্বাধীনতার সুর্য অস্তমিত গেলো। এর ফল ভোগ করলো সাধারণ মানুষ।

কোন দেশের রাজনৈতিক পরাজয়ে শুধু রাজারাই সবকিছু হারায় না। দেশের নিম্ন ও মধ্যবিত্ত সমাজ সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হয়। মান, সম্মান, ইজ্জত, সবকিছু হারায়। আজকেও বাংলাদেশে যখন রাজনৈতিক গেম খেলা হচ্ছে, তখন এক শ্রেণির বুদ্ধিমান পরামর্শ দিচ্ছেন, আরে মিয়া, চুপ থাকেন! আপনি কি বেশি বুঝেন? পারলে বড়দের গিয়ে বলেন। না পারলে বকবকানি বন্ধ করেন। এসব কথা বলার একমাত্র কারণ ইতিহাস না জানা। খুব বেশি দূরে যাওয়ার দরকার নেই। মুসলমানদের বিগত দুশো বছরের ইতিহাস, উত্থান-পতন দেখলেই বুঝা যাবে আমরা কতটা আত্মঘাতি ভূমিকা পালন করছি। জাহাজ যখন ডুবতে থাকে, তখন শুধু ক্যাপ্টেনের দিকে তাকিয়ে কেউ থাকে না। সবাই যার যার চেষ্টা করে। আমাদের জাহাজ এখন ডুবন্ত প্রায়। অশীতিপর একজন বৃদ্ধকে সামনে রেখে খেলছে খুব শক্ত খেলোয়াড়রা। আর আমাদের বলা হচ্ছে, মিয়া নীরব থাকেন। বেশি বুঝেন?

উসমানী খেলাফতের পতন, মোগল সাম্রাজ্যের পতনের সময়ও এমনই নসিহত করতো কিছু মানুষ। বলতো, আরে, ধুর মিয়া, এসব বাদ দেন। এগুলো বলে আমাদের লাভ কি? আজ একবারও কেউ ভাবছে না যে, হাটহাজারী নিয়ে যে খেলা হচ্ছে এটা শুধু আনাস মাদানী এর বিষয় নয়। এর সাথে অনেক বিষয় জড়িয়ে আছে। শুধু একজন ব্যক্তি বাবুনগরী এখানে ফ্যাক্টর নয়। আল্লামা আহমদ শফী দা.বা. এর আগেই আল্লামা বাবুনগরীও দুনিয়া থেকে চলে যেতে পারেন। কে কখন চলে যাবেন তা কেউ জানে না। ব্যক্তি কোন ফ্যাক্টর না। ফ্যাক্টর হলো, এর পেছনের খেলা। এর পেছনের উদ্দেশ্য।

আমরা একজন ব্যক্তির কাছে সবকিছু সোপর্দ করে দিয়েছি। হাইয়াতুল উলয়া, বেফাকুল মাদারিস, হেফাজতে ইসলাম, দারুল উলূম হাটহাজারী। যারা গেইম খেলছে তারা লক্ষ্য করেছে যে, যদি একজনকে ম্যানেজ করা যায়, অথবা পছন্দসই তাঁর পরবর্তী উত্তরসুরি নির্ধারণ নিজেদের মতো করে দেওয়া যায় তাহলে একঢিলে অনেক শত্রুই কুপোকাত করা সম্ভব। আপনি হয়তো বলবেন, বিষয়টা কি এত সহজ? আমি বলবো, হ্যাঁ, এতই সহজ। আজকে আল্লামা বাবুনগরী দা.বা.কে হাটহাজারীর মুঈনে মুহতামিম থেকে সরিয়ে দেওয়া, অতঃপর তাঁকে হেফাজতের মহাসচিবের পদ থেকে সরিয়ে দেওয়ার যে প্রক্রিয়া এটাকে খুব হালকাভাবে দেখছেন, এটাকে হাটহাজারীর অভ্যন্তরীণ বিষয় বলে মনে করছেন, কিন্তু আমি সেটা মনি করি না। এটা কতটা হাটহাজারীর অভ্যন্তরীণ ইস্যু, আর কতটা জাতীয় ইস্যু, তা বুঝতে হলে শুধুমাত্র ১৭জুন ২০২০ শুরা বৈঠক উপলক্ষ্যে গোটা চট্টগ্রামে যে প্রশাসনিক ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়েছিল তার সম্পর্কে সামান্য খবর নিলেই বুঝতে পারবেন।

ইসলাম ও মুসলমানদের জীবনকে বিষাক্ত করে তুলতে যুগে-যুগেই কিছু গাদ্দার অন্যতম ভূমিকা পালন করেছে। পবিত্র কুরআনে ২৮পারায় সুরাতুল মুনাফিকুন এ আল্লাহ তায়ালা মুসলিম গাদ্দার ও মুনাফিকদের চরিত্র খুব সুন্দরভাবে তুলে ধরেছেন।মাত্র ১১টি আয়াতের এই ছোট্ট সুরাটির তাফসীর পড়ার জন্য আমি সকল ভাইদের প্রতি বিনীত অনুরোধ করবো। তাহলে বুঝতে পারবেন, ঐ চরিত্রের মানুষ বর্তমান সমাজেও কীভাবে লুকিয়ে আছে। সাধারণ মানুষের মধ্যেই শুধু নয়, আলেমদের মধ্যেও পবিত্র কুরআনে বর্ণিত চরিত্রের অসংখ্য মানুষ, অসংখ্য চরিত্র দেখতে পাবেন।

গাদ্দাররা ইসলামের শত্রুদের সাথে গলাগলি ভাব গড়ে তুলে। এরা মনে করে, আহ! আমাদের কত সম্মান। যখনই শত্রুপক্ষের স্বার্থ হাসিল হয়ে যায়, তখনই গাদ্দাররা পরিত্যক্ত হয়। লাঞ্ছিত হয়। কিন্তু তখন আর কিছুই করার থাকে না। তখন তারা বুঝতে পারলেও আর কিছুই করার থাকে না। আজকের হেফাজত শুধূ মৌলভীদের সংগঠন নয়, এর সাথে এদেশের আগামী দিনের অনেক কিছু জড়িয়ে আছে। সে জন্যই হেফাজতকে জাতীয় সংগঠন থেকে মৌলভীদের দলে পরিণত করতে কাজ করা হচ্ছে। একটি পকেট সংগঠন কোন দিনই জাতীয় দায়িত্ব পালন করতে পারে না। হেফাজত আপন গতিতে বাবুনগরীকে বাদ দিলে কোন কথা ছিল না। স্বাভাবিকভাবে শুরা বৈঠক করে অন্য যে কাউকে মহাসচিব বানালেও কোন সমস্যা ছিল না। কিন্তু অন্য কারো উদ্দেশ্য হাসিলে বাবুনগরীকে দূরে সরে দেওয়ার মধ্যে আউর কুচ হে।

আজ বাবুনগরী দা.বা.কে জামাত সংশ্লিষ্টতার নোংরা ও মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে হেফাজত থেকে সরিয়ে দেওয়ার যে ভয়ঙ্কর খেলা চলছে, সেখানে হয়তো
নাজিরহাটের মাওলানা সলিমুল্লাহ বা অন্য কাউকে নিয়ে আসা হবে, এর দ্বারা ব্যক্তি বাবুনগরীর কোন ক্ষতিই হবে না। ক্ষতি যেটা হবে, যেই প্রক্রিয়ায় এই কাজটি হচ্ছে তার কারণে হেফাজতের আর কোন সামাজিক ও রাষ্ট্রীয় গুরুত্ব থাকবে না। ঐ নতুন হেফাজতের ব্যানারে আল্লামা আহমদ শফীও যদি শতবার ডাক দেয়, সেই ডাকে আর কেউ সাড়া দিবে না। আমাদের আপত্তি প্রক্রিয়া নিয়ে। আমাদের শঙ্কা শত্রুপক্ষের অতিউৎসাহ নিয়ে।

মনে রাখবেন, শত্রুদের মুল টার্গেট হলো, একজন আল্লামা আহমদ শফী চাইলেই গড়ে উঠবেন না, একজন আল্লামা বাবুনগরী চাইলেই কেউ হতে পারবে না। এই দুটি শক্তিকে যদি বিভক্ত করে দেওয়া যায়, তাহলে কেল্লাফতেহ। আর আমরাও কেউ কেউ সেই ষড়যন্ত্রেই সমর্থন দিয়ে যাচ্ছি।

এই জন্য যার যার অঙ্গন থেকে যতটুকু অসঙ্গতি ধরা পড়ে, আমি মনে করি, প্রত্যেকের সেই বিষয়ে কথা বলা উচিত। এখন নীরব থাকার সময় নয়। এই নীরবতা আমাদের স্বপ্নের সবগুলো প্রতিষ্ঠানে ঘাপটি মেরে থাকা শক্তির কালো হাত দীর্ঘ হওয়ার পথকে আরো সহজ করে দিবে। একজন ব্যক্তির অন্তিম মূহূর্তটাকে কাজে লাগিয়ে যা করা হচ্ছে তা আদৌ ঠিক নয়। এর সাথে গোটা কওমী অঙ্গনের স্বার্থ ও সম্মান জড়িত।বেফাক কমিটি গঠনে ঘাপলা ছিল, তরুন আলেমরা নীরব ছিল, ৫মে হেফাজতে শাপলায় অবস্থান করা না করা নিয়ে কোন কথা বলার সুযোগ ছিল না, এসব কারণে বড় ধরণের ক্ষতি হয়েছে। তাই কথা বলতেই হবে।সচেতনতা সৃষ্টি করতে কাজ করতে হবে।

আল্লাহ তায়ালা আমাদেরকে সবসময়মতো সবকিছু বুঝার তৌফিক দান করুন। অন্ধ অনুকরণ সব সময় নিরাপদ নয়।

03.07.2020

এই সংবাদটি 23 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com