হেফাজত ও হাইআতুল একমত নয় অধ্যক্ষ মিজানুর রহমান চৌধুরী।

প্রকাশিত: ১২:০০ অপরাহ্ণ, আগস্ট ৮, ২০২২

হেফাজত ও হাইআতুল একমত নয় অধ্যক্ষ মিজানুর রহমান চৌধুরী।

ডেস্ক রিপোর্ট:
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের সঙ্গে জরুরি বৈঠক করেছে দেশের কওমি মাদরাসাগুলোর সর্বোচ্চ সংগঠন আল হাইআতুল উলয়া লিল জামিআ’তিল কওমিয়া বাংলাদেশের ৬ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল।

৬ জুলাই রাত ৯টায় সংস্থার চেয়ারম্যান আল্লামা মাহমুদুল হাসানের নিদের্শে সংস্থার ৬ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করে। বৈঠকে আগামী ১০ আগস্ট (বুধবার) স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিতব্য সভায় অংশগ্রহণে অপারগতা প্রকাশ করে হাইয়াতুল উলয়া।

জানা যায়, গত ২৫ জুন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে একটি চিঠি দেন হেফাজতের নায়েবে আমির অধ্যক্ষ মিজানুর রহমান চৌধুরী। ‘কওমি ধারার দ্বীনি শিক্ষা ও শিক্ষকের মান উন্নয়নকল্পে সদয় দৃষ্টি আকর্ষণ’ শীর্ষক চিঠিতে তিনি আটটি সুপারিশ করেন। এরপ্রেক্ষিতে আগামী ১০ আগস্ট সভা ডাকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়।

আরো জানা যায়, গত ৪ আগস্ট স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে কওমি মাদ্রাসার বোর্ড প্রধানদের উক্ত বৈঠকের আমন্ত্রণ জানিয়ে চিঠি দেওয়া হয়। ওই সভায় যোগদানের বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণের জন্য গতকাল শনিবার (৬ আগস্ট) বেলা ১২টায় হাইয়া’র চেয়ারম্যান মাওলানা মাহমুদুল হাসানের সভাপতিত্বে জরুরি বৈঠকে বসে হাইআতুল উলয়া। উক্ত বৈঠকে নেয়া সিদ্ধান্ত অনুযায়ী গত রাতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা মাওলানা মাহমুদুল হাসানের পক্ষ থেকে একটি প্রতিনিধি দল।

উক্ত প্রতিনিধি দলে ছিলেন, হাইয়াতুল উলয়ার সদস্য, ফরিদাবাদ মাদরাসার মুহাদ্দিস মুফতি নুরুল আমিন। হাইয়াতুল উলয়ার সদস্য, তানযিমুল মাদারিসিদ দ্বীনিয়ার সভাপতি মুফতি আরশাদ রাহমানী। হাইয়াতুল উলয়ার সদস্য, লালবাগ মাদরাসার সিনিয়র মুহাদ্দিস মুফতি ফয়জুল্লাহ। হাইয়াতুল উলয়ার সদস্য, বেফাকের সহসভাপতি মাওলানা মুসলেহ উদ্দীন রাজু। হাইয়াতুল উলয়ার সদস্য, জাতীয় দ্বীনি মাদরাসা শিক্ষাবোর্ডের সহসভাপতি মাওলানা ইয়াহইয়া মাহমুদ ও একই বোর্ডের মহাসচিব, হাইয়াতুল উলয়ার সদস্য মুফতি মুহাম্মদ আলী।

প্রতিনিধি দল স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে জানায়, ‘হেফাজতে ইসলামের সহসভাপতি অধ্যক্ষ মিজানুর রহমান চৌধুরী কর্তৃক প্রেরিত চিঠি একান্তই তার ব্যক্তিগত বিষয়। এর সঙ্গে হাইয়াতুল উলয়া বা সংশ্লিষ্ট ছয় বোর্ডের কোনো সম্পৃক্ততা নেই। তাছাড়া হেফাজতের ওই নায়েবে আমির হাইয়াতুল উলয়ার কেউ নন। তার প্রেরিত চিঠির ওপর ভিত্তি করে ডাকা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের সভায় অংশগ্রহণে তাই অপারগতা প্রকাশ করছে হাইয়াতুল উলয়া।’

তবে আগামী ১০ আগস্ট স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের ডাকা সভায় হাইয়াতুল উলয়ার কোনো প্রতিনিধি দল বা সংস্থার সভাপতি উপস্থিত থাকবে কী না? তা এখনো নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না। তাছাড়া ধারণা করা যাচ্ছে না অধ্যক্ষ মিজানুর রহমানের ব্যাপারে হাইয়াতুল উলয়া বা হেফাজত আগামীতে কী পদক্ষেপ নেবে। তবে হেফাজত এক বিবৃতিতে জানিয়েছে তাদের এই নায়েবে আমিরের চিঠির সঙ্গে সংগঠনের কোনো সম্পৃক্ততা নেই। সংগঠন তার চিঠির সঙ্গে একমতও নয়। –আওর ইসলাম

এই সংবাদটি 110 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com