সার্চ কমিটিতে মোহনগঞ্জের কৃতি সন্তান ওবায়দুল হাসান

প্রকাশিত: ১:৫৫ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ২৬, ২০১৭

সার্চ কমিটিতে মোহনগঞ্জের কৃতি সন্তান ওবায়দুল হাসান

মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী:: নতুন নির্বাচন কমিশন (ইসি) গঠনের লক্ষ্যে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ আপিল বিভাগের বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনকে প্রধান করে ছয় সদস্য বিশিষ্ট সার্চ কমিটি গঠন করেছেন। এই কমিটির বাকি সদস্যরা হলেন, হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি ওবায়দুল হাসান, সরকারি কর্মকমিশনের (পিএসসি) চেয়ারম্যান ড. মোহাম্মদ সাদিক, মহা হিসাব-নিরীক্ষক ও নিয়ন্ত্রক মাসুদ আহমেদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের অধ্যাপক সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রোভিসি শিরীণ আখতার।
(২৫ জানুয়ারী) বুধবার সন্ধ্যায় মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপনও জারি করা হয়।
নতুন নির্বাচন কমিশন গঠনের লক্ষ্যে আপিল বিভাগের একজন বিচারপতির নেতৃত্বে ছয় সদস্যের সার্চ কমিটি গঠন করতে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে চিঠি দেন রাষ্ট্রপতি। নিয়ম অনুযায়ী সার্চ কমিটির সদস্যদের দেওয়া নামগুলো থেকে রাষ্ট্রপতি প্রধান নির্বাচন কমিশনার এবং অন্য কমিশনারদের নিয়োগ দেবেন।
মাসুদ আহমেদ ও মোহাম্মদ সাদিক২০১২ সালের ২৩ জানুয়ারি প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমান নির্বাচন কমিশন গঠন করতে চার সদস্যবিশিষ্ট সার্চ কমিটি করেছিলেন। ওই কমিটিরও প্রধান ছিলেন বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন। বাকি তিন সদস্য হিসেবে ছিলেন হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি মো. নুরুজ্জামান, পদাধিকার বলে তৎকালীন মহাহিসাব নিরীক্ষক ও নিয়ন্ত্রক (সিএজি) আহমেদ আতাউল হাকিম এবং সরকারি কর্মকমিশনের তৎকালীন চেয়ারম্যান এ টি আহমেদুল হক চৌধুরী।
রাষ্ট্রপতির কার্যালয় এবং মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের দুটি সূত্র জানিয়েছে, সার্চ কমিটি গঠন করতে জিল্লুর রহমানের ওই ফর্মুলা বর্তমান রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদও অনুসরণ করেছেন। তবে সুশীল সমাজের প্রতিনিধি হিসেবে সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম এবং নারী প্রতিনিধি হিসেবে শিরীণ আখতারকে অন্তর্ভুক্ত করে এর আকার বাড়িয়েছেন।
নতুন কমিশন গঠন নিয়ে গত ১৮ ডিসেম্বর থেকে রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে আলোচনা শুরু করেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জাতীয় পার্টি, জমিয়তে উলামায়ে ইসলামসহ মোট ৩১টি রাজনৈতিক দলের সঙ্গে রাষ্ট্রপতি আলোচনা করেন।
রাষ্ট্রপতির কার্যালয় সূত্র জানায়, রাষ্ট্রপতি রাজনৈতিক দলগুলোর দেওয়া প্রস্তাবগুলো যাচাই-বাছাই করে সার্চ কমিটি করার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেন। সময়ের অভাবে এবার নির্বাচন কমিশন গঠনে আইন প্রণয়ন বা অধ্যাদেশ জারি করছেন না রাষ্ট্রপতি।
একজন কমিশনার বাদে বর্তমান প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) ও অন্য নির্বাচন কমিশনারদের মেয়াদ শেষ হচ্ছে আগামী ৮ ফেব্রুয়ারি।

একনজরে বিচারপতি ওবায়দুল হাসান:
বিচারপতি  ওবায়দুল হাসান (শাহিন) ১৯৫৯ সালের এর ১১ জানুয়ারি তারিখে নেত্রকোণা জেলার মোহনগঞ্জের এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্ম গ্রহণ করেন। তাঁর পিতা ডাঃ আখ্লাকুল হোসাইন আহমেদ মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক ছিলেন। তিনি গণ পরিষদ সদস্য হিসেবে স্বাধীনতার পর বাংলাদেশের সংবধিান রচনায় সক্রিয় অংশগ্রহণ করেন এবং সংবিধান রচনায় পর তাতে স্বাক্ষর প্রদান করেন।
জনাব ওবায়দুল হাসান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় হতে অর্থনীতি বিষয়ে বিএসএস (অনার্স) এবং এমএসএস ডিগ্রি অর্জন করেন। একই বিশ্ববিদ্যালয় হতে তিনি এলএলবি ডিগ্রি অর্জন করেন।
তিনি ১৯৮৬ সালে আইনজীবী হিসেবে তালিকাভুক্ত হন। ১৯৮৮ সালে বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগে আইনজীবী হিসেবে এবং ২০০৫ সালে বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্টের আপীল বিভাগের আইনজীবী হিসেবে তালিকাভুক্ত হন। ১৯৯১ সলে বিচারপতি হাসান আইনজীবী হিসেবে হংকং-এ অনুষ্ঠিত ‘ইন্টারন্যাশনালল’ইয়ারস কনফারেন্স’,-এ অংশগ্রহণ করেন। গণচিনের প্রসিকিউটর জেনারেলের সফরসঙ্গী হিসেবে ১৯৯৭ সালে চিনের বেইজিং সহ বেশ কিছু নগরী ভ্রমণ করেন। বিচারপতি হাসান সহকারী এটর্নি জেনারেল এবং ডেপুটি এটর্নি জেনারেল হিসেবে ১৯৯৬-২০০১ মেয়াদে ৫(পাঁচ) বছর দায়িত্ব পালন করেন। এই সময়ের মধ্যে তিনি বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্ট এর হাইকোর্ট বিভাগ এবং আপিল বিভাগে অনেক সাংবিধানিক মোকদ্দমা পরিচালনা করেন। বিচারপতি হিসেবে যোগদানের পূর্বে তিনি দেওয়ানী, ফৌজদারী এবং সাংবিধানিক বিষয়াদি সম্পর্কিত মোকদ্দমার একজন দক্ষ আইনজীবী হিসেবে ব্যাপক পরিচিতি লাভ করেন।
জনাব ওবায়দুল হাসান ২০০৬ সালে একটি আন্তর্জাতিক আরবিট্রেশন মোকদ্দমায় পাকিস্তানী কোম্পানী- ‘পাকিস্তান ইন্টারন্যাশনাল এয়ারলাইন্স (পি.আই.এ)’ এর বিরুদ্ধে বাংলাদেশী কোম্পানী- ‘বেঙ্গল এয়ারলিফট’ এর পক্ষে মামলা পরিচালনা করেন। তিনি ৩০ জুন ২০০৯ তারিখে বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগের একজন অতিরিক্ত বিচারপতি হিসেবে যোগদান করেন এবং ৬ জুন ২০১১ তারিখে একই বিভাগে স্থায়ী বিচারপতি হিসেবে নিয়োগ লাভ করেন।
মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচারের জন্য আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল গঠন করা হলে ২০১২ সালের ২৫ মার্চ এসংক্রান্ত ট্রাইব্যুনাল-২ এর অন্যতম বিচারক হিসেবে নিযুক্ত হন তিনি। পরে ২০১২ সালের ১৩ ডিসেম্বর এই ট্রাইব্যুনালের চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন বিচারপতি ওবায়দুল হাসান। ওবায়দুল হাসান ব্যক্তিগত জীবনে এক পুত্র সন্তানের জনক। তাঁর স্ত্রী বাংলাদেশ এক্সপোর্ট প্রসেসিং এবং তাঁর ছোট ভাই সাজ্জাদুল হাসান মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর একান্ত সচিব-১।

এই সংবাদটি 531 বার পঠিত হয়েছে

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com