রবিবার, ৩০ জুলা ২০১৭ ০৩:০৭ ঘণ্টা

আল্লামা আহমদ শফি’রাই বেঁচে থাকবেন, আপনারা হারিয়ে যাবেন

Share Button

আল্লামা আহমদ শফি’রাই বেঁচে থাকবেন, আপনারা হারিয়ে যাবেন

সৈয়দ শামছুল হুদা: হেফাজতে ইসলাম নিয়ে ভাবনার অন্ত নেই অনেকের। ঘুরে ফিরে অনেকের লেখায় চলে আসে হেফাজত।কিন্তু একটি জিনিস যারা বুঝেও বুঝেনা, তাদেরকে বুঝানো কঠিন। সেটা হলো- হেফাজত স্বতন্ত্র কোন শক্তির নাম নয়, বরং হেফাজত এদেশের তাওহীদি জনতার এমন একটি প্ল্যাটফরম যেটা যুগে যুগে আসে, বারবার আসে ভিন্ন ভিন্ন নামে। হেফাজতের উত্থান, হেফাজতের শক্তি, হেফাজতের ভিত্তি আল্লামা আহমদ শফী দা.বা. নন। তিনি আজ প্রতীকি আমীর মাত্র। সময়ের পরিক্রমায় আল্লামা আহমদ শফীকে হেফাজত পেয়ে ধন্য হয়েছে।

হেফাজত কোন বিশেষ গোষ্ঠীর নাম নয়, হেফাজত নির্দিষ্ট কোন মার্কামারা লোকদের দল নয়। হেফাজত এক অদৃশ্য ঈমানী শক্তি, যা রাসুলের যুগ থেকে নিয়ে অদ্যাবধি বিদ্যমান। এদেশে দাউদ হায়দার বিরোধী আন্দোলন করেছে হেফাজত। এদেশে তাসলিমা নাসরীন বিরোধী আন্দোলন করেছে হেফাজত। এদেশে যে রাষ্ট্রীয় অন্যায়-অবিচারের বিরোদ্ধে রুখে দাঁড়িয়েছে হেফাজত। এদেশে বাবরী মসজিদ ভাঙ্গার প্রতিবাদে লংমার্চ করেছে হেফাজত। সুতরাং এটা সময়ের সাথে, পরিস্থিতির কারনে ব্যানার পাল্টায়, ব্যক্তি পাল্টায়, সময় পাল্টায়, কিন্তু চেতনা পাল্টায় না। বৃটিশ বিরোধী আন্দোলন করেছে হেফাজত। সেই সময়কার হেফাজতের নেতারা। আল্লামা আহমদ শফী’র উস্তাদ হোসাইন আহমদ মাদানী রহ. প্রমুখ আধ্যাত্মিক নেতারা। তারা ছিল সেই সময়ের হেফাজত।

সুতরাং আজকে যে বিতর্কটা দেখা দিয়েছে, আহমদ শফী’রা কতদিন বাঁচবেন তা একটি ফালতো মন্তব্য। যারা হেফাজতের নাম ভাঙ্গিয়ে কিছু পাওয়া না পাওয়ার হিসাব কষছেন, কলম চালাচ্ছেন, সাংবাদিক সম্মেলন করছেন, গোয়েন্দাদের সাথে লিয়াজো মেন্টেন করে চলেছেন, আগামী দিনে হেফাজতের নকল শক্তি ধারণ করে কিছু কামাইয়ের নেশায় আছেন, তারা ভুল পথে আছেন।

হেফাজত কোন ধান্দাবাজির নাম নয়, হেফাজত কোন আপোষকামী শক্তির নাম নয়। শাপলার হেফাজত, লংমার্চের হেফাজত, দেশব্যাপী শানে রেসালাতের হেফাজত, ৫মে’র হেফাজত কোন টাকা দিয়ে ক্রয় করা হেফাজত নয়, কোন বিশেষ ব্যক্তির স্বার্থ হাসিলের হেফাজত নয়। আল্লামা আহমদ শফি দা.বা. এখন চাইলেও আর সেই জাগরণ গড়ে তুলতে পারবেন না। হেফাজত একটি প্রতিবাদী শক্তির নাম, যারা পরিচালিত হয় ঈমানী শক্তির বলিয়ানে। এটা পরিস্থিতির আলোকে যে কোন আহবয়াকের আহবানে জেগে উঠে। এই জাগরণ গড়ে উঠে জাতীয় চেতনায় শাণিত হয়ে।

কিন্তু হেফাজতকে ব্যানার বানিয়ে কেউ কেউ ক্ষমতায় যাওয়ার স্বপ্ন দেখছেন। কেউ কেউ সুবিধা নেওয়ার চেষ্টা করছেন। সরকার চেষ্টা করছে সাময়িক হেফাজতের দায়িত্বে থাকা আমীরদের আশেপাশের দুর্বলমনা লোকদের ম্যানেজ করে হেফাজতকে ভুল পথে পরিচালিত করতে, নিদেনপক্ষে, হেফাজতকে গরম কর্মসূচী দেওয়া থেকে বিরত রাখতে। কখনো তোষামোদি করছে, কখনো ভীতি প্রদর্শন করছে, কখনো লোভ দেখাচ্ছে। সেই ধারাবাহিকতায়ই একটি পত্রিকার জতীয় ভাষ্যকার হেফাজতকে নিয়ে যে ধরণের আপত্তিকর লেখা প্রকাশ করেছে তা দেখে আমরা বিস্মিত।

তাঁর লেখার মধ্যে এক ধরণের কটাক্ষ আছে, অভিযোগ আছে, উগ্রতা আছে, ঔদ্ধত্ব আছে, নেই কোন সঠিক সমাধান। শুরুতেই সরাসরি আল্লামা আহমদ শফিকে উদ্দেশ্য করে বলা হয়েছে : “আল্লামা আহমদ শফী কতদিন বাঁচবেন সে সিদ্ধান্ত তাকেই নিতে হবে।” এ কথার দ্বারা তিনি কী বুঝাতে চেয়েছেন? তিনি তো জানেন আল্লামা আহমদ শফী এখন আর কোন সিদ্ধান্ত নেওয়ার জায়গায় নেই। সত্যি বলতে তিনি আজ জীবন্মৃত। জীবনের শেষ সন্ধিক্ষণে হাজির। তার পক্ষে এখন আর কোন সিদ্ধান্ত নেওয়া সম্ভব না। তাহলে তিনি কেন আজ সরাসরি এ কথাটি বললেন? এর মাধ্যমে তিনি প্রথমেই পাঠকদের চমক দেখাতে চেষ্টা করেছেন। বিশেষ আপত্তিকর প্যারা হলো নীচের অংশটি;

তিনি লিখেন-

“ব্যক্তি আর আল্লামা শফী বাংলাদেশের দশজন আলেমের মতোই একজন ব্যক্তি। কমবেশি ৯৭ বছর (মতান্তরে ৮৭ বছর) দুনিয়ায় বেঁচে আছেন এমন মানুষও বাংলাদেশে আরো আছেন। হাটহাজারি মাদরাসার প্রতিষ্ঠা থেকে আল্লামা শফীর পূর্ব পর্যন্ত প্রত্যেক মুহতামিমই (এখন চালু হয়েছে ‘মহাপরিচালক’) ছিলেন তাঁর চেয়ে অধিক যোগ্য, শিক্ষাদানে দক্ষ ও সর্বজনমান্য বুজুুর্গ। হাটহাজারির প্রতিষ্ঠা ও এর প্রায় ১২০ বছরের অবদান ছিল হাকিমুল উম্মত হযরত থানভী রহ:-এর ফয়েজ ও বরকতের ধারা। মুহতামিমদের মধ্যে কেবল আল্লামা শফীই হলেন শায়খুল ইসলাম হযরত মাদানী রহ:-এর অনুসারী। ব্যক্তি আল্লামা শফীর বয়স বা মুহতামিম আল্লামা শফীর বয়স হয়তো ৯০ এর বেশি। কিন্তু দেশব্যাপী পরিচিত তওহিদি জনতার ধর্মীয় রাহবার আল্লামা আহমদ শফীর বয়স এখনো ১০ বছর হয়নি।”

এই প্যারার মাধ্যমে তিনি কী বুঝাতে চেয়েছেন? এখানে ব্যক্তি আল্লামা শফি দা.বা. কে নিয়ে রয়েছে এক ধরণের কটাক্ষ। তাঁর বয়সের মানুষের বেঁচে থাকা, মহাপরিচালক পদ ধারণ করা, পুর্ববর্তীদের তাঁর চেয় বেশি যোগ্যতার কথা স্মরণ করিয়ে দেওয়া, মাদানী আর থানভী সেলসেলার ইতিহাস শোনানো, রাহরাবির বয়স ১০ বছরের বেশি নয় বলে উস্মা প্রকাশ করা এক ধরণের মানসিক দেওয়ালিয়াত্ব।

এই সময়ে আল্লামা আহমদ শফি’র চেয়ে বড় আলেম, গ্রহনযোগ্য আলেম, বাংলাদেশে আর দ্বিতীয়টি কেউ নেই। বর্তমানে তাঁর অসুস্থ্যতায় তাঁর ছেলে, বা তাঁর নাম ভাঙ্গিয়ে অন্য কেউ কোন বিশেষ সংস্থার সাথে মধ্যস্থতা তৈরী, বা পেছন থেকে হেফাজতকে টেনে ধরার কৌশল প্রয়োগ ইত্যাদি কোন কিছুই আল্লামা আহমদ শফিকে বিতর্কিত করবে না। কারন ইতিমধ্যেই আল্লামা আহমদ শফী এমন পর্য়ায়ে পৌঁছে গেছেন যেখান থেকে তাঁর আর ফিরে আসার সুযোগ নেই।

অন্য জায়গায় তিনি লিখেন:

“যাকে কিছুদিন আগেও দেশের কওমি শিক্ষার্থী, আলেম সমাজ ও তাদের সীমিত ভক্ত অভিভাবকরা ছাড়া আর কেউ চিনত না। তিনি জন আকাংখার সাথে নিজেকে সম্পৃক্ত করে প্রতিবাদী কণ্ঠস্বর হিসেবে নিজেকে তুলে ধরায় এক অতুলনীয় ব্যক্তিত্বে রূপান্তরিত হন। নিজেকে নিজে ধ্বংস করে না ফেললে যার মৃত্যু হবে না। ‘ব্যক্তি’ আহমদ শফীর মৃত্যু হলেও ‘ব্যক্তিত্ব’ আহমদ শফী অমর হয়ে থাকবেন। ৯৭ বছরের আহমদ শফীর চেয়ে ৭ বছরের নতুন আহমদ শফীর মূল্য, গুরুত্ব ও শক্তি শতগুণ বেশি। এটাই ব্যক্তি ও ব্যক্তিত্বের পার্থক্য।”

তাকে না চেনা না চেনার এই কাহিনী শুনিয়ে কী বুঝাতে চান তিনি? শতবর্ষী এই আলেমকে হেফাজত ভালো করেই চিনতো, আর সে কারণেই তাঁর ডাকে সাড়া দেয় সব মানুষ। আলেম সমাজ, এবং সমাজের ভিতর লুকিয়ে থাকা ঈমানদার হেফাজতকর্মীরা। এখানেও আল্লামা আহমদ শফীকে পরোক্ষভাবে কটাক্ষ করা হযেছে। ৭বছরের শিশুর সাথে তুলনা করে তাকে তাচ্ছিল্য করা হয়েছে। এটা কোন সংশোধনের ভাষা নয়। ভেতর থেকে হিতাকাংখী কোন মানুষের শব্দচয়ন নয়।

হেফাজত যে কাজ আঞ্জাম দিয়েছে তা ইতিহাসে স্বর্ণাক্ষরে লেখা থাকবে। আর হেফাজতের কথাআসলে বাংলাদেশের ইতিহাসে আল্লামা আহমদ শফী এর নামও আসবে। যে আওয়াজ নিয়ে, যে দাবী নিয়ে হেফাজত এসেছিল, আজ তাদের অস্তিত্ব নেই। সুতরাং হেফাজতের আন্দোলন সফল। হেফাজতকে নিয়ে কেউ ক্ষমতার স্বপ্ন দেখেন, হেফাজতকে কেউ কেউ ক্ষমতার সিড়ি হিসেবে দেখেন। এখানেই যত গন্ডগোল। হেফাজত কারো ক্ষমতার যাওয়ার জন্যও আসেনি, হেফাজত কাউকে ক্ষমতা থেকে সরিয়ে দেওয়ার জন্যও আসেনি। বারবার হেফাজত মহাসচিব আল্লামা বাবুনগরী দা.বা. এ বিষয়টি পরিস্কার করেছেন। হেফাজত কোন ভাবেই ব্যর্থ নয়, হেফাজত কোন ভাবেই বিতর্কিত নয়। হেফাজতের নাম ভাঙ্গিয়ে যে বা যারা কোন সুযোগ-সুবিধা নেওয়ার অপচেষ্টা করছে তারা অবশ্যেই ইতিহাসের আস্তাকুঁড়ে নিক্ষিপ্ত হবে। আজ হোক কাল। কিন্তু আল্লামা আহমদ শফী যা করে গেছেন। তা চিরদিন বাংলাদেশের তৌহিদী জনতার অন্তরে বিদ্যমান থাকবে।

আল্লামা আহমদ শফী’র যোগ্যতা, তাঁর গ্রহনযোগ্যতা, তাঁর বিশালতা, কেউ অস্বীকার করতে পারবে না। এখন আল্লামা আহমদ শফী নন, আপনারাই হিসাব করুন, আপনারা ইতিহাসে বেঁচে থাকবেন, না হারিয়ে যাবেন? হেফাজত ছিল একটি স্মরণাতীতকালের সর্ববৃহৎ মহাজাগরণ, এটা সফল। এখন নতুন হেফাজত আসবে, নতুন আমিনী আসবে, নতুন শায়খুল হাদীস আসবে। আমরা তাদেরই প্রতীক্ষায়। কিন্তু আল্লামা আহমদ শফী তাঁর দায়িত্ব তিনি যথাযথ আদায় করে গিয়েছেন এর মধ্যে কোন সন্দেহ নেই।

আলোচনার শেষপ্রান্তে ইতিহাসের আস্তাকুঁড়ে নিক্ষিপ্ত হওয়ার জন্য কয়েকটি আন্দোলনের উদাহরণ দিয়ে যা বলা হয়েছে তা আল্লামা আহমদ শফীর ক্ষেত্রে প্রযোজ্য নয়। তিনি কোন দেশের দালালী করেননি, কোন দেশের আঙ্গুলী হেলনে রাস্তায় নামেননি। যে উদ্দেশ্য নিয়ে হেফাজত এসেছিল, তা সফল হয়েছে। এখন সেটা দুর্বল হয়ে যাওয়ায় ভালো। নতুবা এর পেছনে বড় থেকে বড় গোয়েন্দা বাহিনী যেভাবে মেধা ব্যয় করছে, তাতে আসল হেফাজতের ক্ষতির সমূহ সম্ভাবনা। কিছু চেনা মানুষকে বিভ্রান্ত করতে পারবে গোয়েন্দা বাহিনী, অর্থ বিত্ত, কিন্তু দেশের ঈমানী শক্তির প্রেরণার উৎস যে হেফাজত তাকে কোনদিন ক্ষতি করতে পারবে না।

একটি কথা খুব জোর দিয়ে বলি, আল্লাহ পাক হেফাজতকে হেফাজত করবেন। হেফাজতের অপর এক অন্যতম কান্ডারী আল্লামা বাবুনগরী এখনো বেঁচে আছেন। তিনিই আগামী দিনের হাটহাজারীর মহাকান্ডারী, তিনিই আগামী দিনের হেফাজতের আমীর। আল্লামা আহমদ শফী দা.বা. জীবদ্দশায় তাকেই হাটহাজারীর পরবর্তী মহাদায়িত্ব দিয়ে গিয়েছেন। এরচেয়ে বড় কাজ আল্লামা আহমদ শফী আর কি করবেন? তিনি তো যোগ্য লোকের হাতেই সবকিছু তুলে দেওয়ার পথ প্রশস্ত করে গিয়েছেন, তাহলে কেন এই শঙ্কা ছড়ানো?

তাই বলি- আসুন, আমরা বেঁচে থাকার জন্য কাজ করি। মনে করেন আল্লামা আহমদ শফি দা.বা. আর নেই। এখন কী করণীয় সেটা বর্ণনা করি। একজন মৃতপ্রায় অসুস্থ্য ব্যক্তিকে নিয়ে এ ধরণের বিভ্রান্তিকর লেখা থেকে বিরত থাকি। জাতিকে আবার নতুন চেতনায় জেগে উঠার স্বপ্ন দেখাাই।

এই সংবাদটি 1,065 বার পড়া হয়েছে