শনিবার, ৩০ সেপ্টে ২০১৭ ১২:০৯ ঘণ্টা

রোহিঙ্গা সংকট : বাংলাদেশ বিরোধী ষড়যন্ত্রের আলামত!

Share Button

রোহিঙ্গা সংকট : বাংলাদেশ বিরোধী ষড়যন্ত্রের আলামত!

মুনীর আহমদ :: মিয়ানমার সেনাবাহিনী ও বৌদ্ধ মগ দস্যুদের রোহিঙ্গা মুসলিম গণহত্যা ও উচ্ছেদাভিযানে বাংলাদেশে লাখ লাখ রোহিঙ্গা শরণার্থী আশ্রয় নেওয়ার পর এইবার পরিকল্পিতভাবে এটাকে হিন্দু-মুসলিম সংঘাতে রূপ দেওয়ার চেষ্টার আলামত দেখা যাচ্ছে। বিবিসি পরিবেশিত নীচের দু’টি সংবাদ প্রতিবেদন পর্যালোচনা করলে এটা সহজেই গোচরে আসবে। এটা এমন একটা উদ্দেশ্য থেকেও হতে পারে যে, বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া লক্ষ লক্ষ রোহিঙ্গার প্রতি তৈরি হওয়া সহানুভূতিশীল জাতীয় আবেগে জোর বিভক্তি ও বিতর্ক তৈরি করে আলাদা এক সংঘাতমুখর পরিস্থিতি তৈরি করে বাংলাদেশ; বিশেষ করে চট্টগ্রাম অঞ্চলকে অস্থিতিশীল করে পশ্চিমের নীল নকশা বাস্তবায়নের পথকে সুগম করা।

গত ১১ সেপ্টেম্বর “রোহিঙ্গাদের গ্রামে আগুন দেয়া স্বচক্ষে দেখলেন বিবিসির সাংবাদিক” শীর্ষক নিউজ প্রতিবেদনে বিবিসি’র সেই প্রত্যক্ষদর্শী সাংবাদিকের বরাতে বলা হয়-
“হাজিদের সাদা টুপি পরা কিছু লোক একটি ঘরের পাতার তৈরি চালায় আগুন দিচ্ছে। মহিলাদের দেখা যাচ্ছে – তারা নাটকীয় ভঙ্গিতে তলোয়ার এবং দা ঘোরাচ্ছে, তাদের মাথায় টেবিলক্লথের মতো লেসের কাজ করা কাপড়।
আমি চিনতে পারলাম, এই মহিলাদের একজন হচ্ছে স্কুলের সেই হিন্দু মহিলাটি – যে উত্তেজিতভাবে নির্যাতনের বর্ণনা দিচ্ছিল। আর এই ঘর পোড়ানো পুরুষদের মধ্যে একজনকেও আমি সেই বাস্তুচ্যুত হিন্দুদের মধ্যে দেখেছি।
তার মানে, তারা এমনভাবে কিছু ভুয়া ছবি তুলেছে, যাতে মনে হয় মুসলিমরা ঘর-বাড়িতে আগুন লাগাচ্ছে”।

এবার বিবিসি’র আজকের (২৫ সেপ্টেম্বর) প্রচারিত “মিয়ানমারের রাখাইনে হিন্দুদের গণকবর” শীর্ষক সংবাদ প্রতিবেদনটি দেখুন। আজকের এই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে- “মিয়ানমারের সেনাবাহিনী বলছে, তারা রাখাইন প্রদেশে একটি গণকবর খুঁজে পেয়েছে, যেখানে শুধু হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের মৃতদেহ রয়েছে। সেনাবাহিনী বলছে, তাদের ভাষায় রোহিঙ্গা মুসলমান জঙ্গিরা এইসব হিন্দুদেরকে হত্যা করেছে”।
একই প্রতিবেদনের শেষদিকে লেখা হয়েছে- “এলাকাটিতে চলাচল নিয়ন্ত্রিত থাকবার কারণে সেনাবাহিনীর এই অভিযোগ যাচাই করা সম্ভব হয়নি”।
মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর রোহিঙ্গা মুসলিম গণহত্যা নিয়ে এতদিন যাবত দেওয়া বিবৃতিকে বিবিসি বাস্তবতার বিপরীত দেখিয়ে আসলেও হিন্দুদের হত্যা সংশ্লিষ্ট বিবৃতিকে সত্যের মতো করেই প্রকাশ করেছে।

তারপর লিখেছে- “রাখাইনে গত পঁচিশে অগাস্ট থেকে সহিংসতা শুরু হবার পর এখন পর্যন্ত চার লাখ ত্রিশ হাজারের বেশী রোহিঙ্গা মুসলমান পার্শ্ববর্তী বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছে”।

আচ্ছা, বাংলাদেশে কি শুধুই রোহিঙ্গা মুসলিম শরণার্থী এসেছেন??? রোহিঙ্গা হিন্দু শরণার্থী কি আসেননি?

এই সংবাদটি 1,013 বার পড়া হয়েছে