রবিবার, ১০ ডিসে ২০১৭ ০৫:১২ ঘণ্টা

জমিয়ত নিয়ে কিছু কথা

Share Button

জমিয়ত নিয়ে কিছু কথা

 সাইমুম সাদী: খুব দূর থেকে কিছু মানুষকে ভালবাসি। কোন কোন দলকেও দূর থেকে ভালবাসি। প্রকাশ করতে ভয় পাই, কারণ এনিয়ে কেউ কেউ মনে করতে শুরু করেন আমি বোধহয় ওইসব দলে যোগ দেয়ার জন্য তেলমালিশ করছি। যদিও আমি মনে করি দলীয় রাজনীতির বাইরেও দ্বীনি কাজ করার একটা বড় প্লাটফরম রয়ে গেছে। আমরা বুঝিনা তাই বলে বাস্তবতা ত আর অস্বীকার করা যায়না।

জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম নামক এই সংগঠনকে ভালবাসি কয়েকটা কারণে।

এত বেশী আলেমদের সম্মিলন সম্ভবত অন্য কোথাও নেই। আলেমদের প্রতি ভালবাসা এজন্য যে, তারা যত দুর্বলভাবেই হোক নবীর উত্তরসূরি। ওয়ারাসাতুল আম্বিয়া।
জমিয়তে সাম্প্রতিক সময়ে গৃহদাহ শুরু হয়েছে। ছাত্রদের থেকে সৃষ্ট সমস্যায় মূল সংগঠনের ব্রাঞ্চ স্থগিত করা হয়েছে । এটা আমাদের জন্য যারা মনে প্রাণে চাই এই দল এগিয়ে যাক, তাদের জন্য কষ্টদায়ক।

ফেসবুকের কারণে সমস্যা অনেক ক্ষেত্রে বেড়ে যায়, নিয়ন্ত্রণের বাহিরে চলে যায়। ঘরের খবর এভাবে কেউ ঢাক ঢোল বাজিয়ে বাইরে জানান দেয়না। আমরা দিচ্ছি মানুষকে হাসাচ্ছি

ফেসবুকের কারণে সমস্যা অনেক ক্ষেত্রে বেড়ে যায়, নিয়ন্ত্রণের বাহিরে চলে যায়। ঘরের খবর এভাবে কেউ ঢাক ঢোল বাজিয়ে বাইরে জানান দেয়না। আমরা দিচ্ছি মানুষকে হাসাচ্ছি।

অধিকাংশ ক্ষেত্রে সমস্যা তৈরি হয় যখন কোন জনশক্তি মনে করে তার ক্ষেত্রে ইনসাফ করা হচ্ছেনা জুলুম করা হচ্ছে। সে তখন বিভিন্নভাবে, কিংবা শৃংখলা ভংগ করে হলেও তা জানান দেয়ার চেষ্টা করে। অথচ যারা করে তারা কিন্তু দল ও সংগঠনকে ভালবেসেই তা করে।

তাহলে এর সমাধান কি? বহিষ্কার করা? স্থগিত করা শাখাকে? কাজ বন্ধ করে দেয়া?

কোনটাই না বোধহয়। সমাধান একটাই, কিছু গল্প শুনতে হবে নেতাদেরকে। হ‌্যাঁ গল্পই।

যে কর্মীটি সকল দায়িত্বশীলতা ভুলে গিয়ে দলের নেতাদেরকে ফেসবুকে গালাগালি করে তারও কিছু না বলা গল্প আছে। যে কর্মী নিজেদের মধ্যে মারামারি করতে গিয়েছে এবং আপনি তাকে উশৃংখল বলে ট্যাগ লাগাচ্ছেন তারও কিছু জমে থাকা কষ্ট বুকের গহীনে রাখা আছে।

যে নিবেদিত কর্মীটি আজ আর কাজ করেনা, রাস্তায় রাস্তায় ঘুরে, পথহারা পাখির মত ওড়াউড়ি করে তারও না বলা কিছু বক্তব্য আছে। কেউ ভালবেসে পুড়ে, কেউ পোড়ায়। কেউ বুকের গহীনে রাখা কষ্টের পাথর বয়ে নিয়ে বেড়ায় দিনের পর দিন।

তার এবং তাদের গল্পগুলো শুনুন। সমস্যা অনেকাংশেই সমাধান হয়ে যাবে। যাকে পানিশমেন্ট দিবেন তার সাথেও কথা বলুন আন্তরিকভাবে। দেখবেন সে ও দলের স্বার্থেই কাদতে কাদতে মেনে নিবে সাংগঠনিক সিদ্ধান্ত।

সে ও বিদায়ী প্রোগ্রামে চোখের পানিতে বুক ভিজিয়েও বলবে ‘আই লাভ মাই অর্গানাইজেশন’। শুধু ঘৃণার আগুন দেখেন অথচ এর পেছনের ভালবাসা দেখেননা কেনো?
জমিয়ত এগিয়ে যাক এই প্রত্যাশা করছি।

এই সংবাদটি 1,082 বার পড়া হয়েছে