শনিবার, ২০ জানু ২০১৮ ১১:০১ ঘণ্টা

জিয়া ছিলেন জিয়া আছেন জিয়া থাকবেন

Share Button

জিয়া ছিলেন জিয়া আছেন জিয়া থাকবেন

 

মোহাম্মদ অলিদ সিদ্দিকী তালুকদার : আমাদের সমাজ রাষ্ট্র বাস্তবতায় গণতন্ত্র সার্বভৌমত্ব রক্ষায় বিবেচনায় শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের আলোচনা শুধু প্রাসঙ্গিক নয় বরং অপরিহার্য।আজকের বাংলাশে যে বহু দলীয় গণতন্ত্র বিদ্যমান অর্থে বাকশালের কফিন থেকে তিনিই তা জাতিকে ফিরিয়ে দিয়েছিলেন। স্বাধীনতা পরবর্তী কালের বাস্তবতায় যেভাবে বাংলাশকে করতলগত করার রাষ্ট্রীয় প্রক্রিয়া শরু হয়েছিল কার্যত প্রেসিডেন্ট জিয়াই তার বিপরীতে সম মর্যাদায় আন্তজার্তিক পর্যায়ে বাংলাশকে তুলে ধরেছিলেন। জিয়ার মুখের স্বাধীনতার ঘোষণাই গোটা জাতিকে উদ্ভুদ্ব করেছিল।  স্বাধীনতা রক্ষায় দ্বীতিয় সংগ্রাম সিপাহী-জনতার অভ্যুত্থানে তাকেই ক্ষমতায়িত করা হয়েছিল।  জনগণের গণতান্ত্রিক দেশপ্রেমিক শক্তি জিয়াকে স্মরণ করবে গভীর শ্রদ্বা ও ভালোবাসায়। ১৯৮১ সালের এই দিনে দেশের সবচেয়ে সফল দেশপ্রেমিক প্রেসিডেন্ট জিয়াকে হত্যা করা হয়েছিল। ১৯৩৬ সালের ১৯ জানূয়ারি আজকের এই দিনে শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান জন্মেছিলেন। জিয়ার নামের প্রকৃত অর্থ তার প্রতিফলন ঘটিয়েছিলেন কর্মজীবনে। সময়ের দিক থেকে তার জন্ম সালের সময় ছিল ব্রিটিশ ঔপনিবেশিককাল।তার পিতা মুনসুর আহমদ প্রত্যেক্ষ করেছিলেন ওই সময় ও সময়ের রাজনীতিতে। ঐতিহাসিক ভাবে বলা যায় ১৮৫৭-এর প্রথম স্বাধীনতা সংগ্রাম সমাপ্ত হবার পর ১৯০৫ -এর বঙ্গভঙ্গ,১১-এর বঙ্গভঙ্গ রদ সবই তখন অতিক্রান্ত। ৪৭ সালের ভারতবর্ষে
যে দুটি স্বাধীন রাষ্ট্রের জন্ম হয়েছিল মূলত জিয়ার জন্মকাল ছিল তারই প্রস্তুতিপর্ব। সেই বিবেচনায় বলা যায়, জিয়া জন্মেছিলেন, ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক আমলে আর রাষ্ট্রক্ষতায় আসীন হয়েছিলেন স্বাধীন বাংলাদেশে। তিন সময়ে তিনি ছিলেন প্রত্যেক্ষদর্শী। হয়তো সে কারণেই তার জীবন- শিক্ষা ও কর্মের মধ্যে এমন কিছু বিষয় কাজ করেছে যা অন্যদের চেয়ে ছিল ব্যতিক্রমী। প্রতিটি ঘটনারই নানা বিশ্লেষণ থাকে এবং থাকাই স্বাভাবিক। সে কারণেই ঘটনা থেকে শিক্ষা গ্রহণের বাস্তব ও দার্শনিক দিকও থাকে আলাদা।

ব্রিটিশ ভারতে পুর্ববঙ্গের মুসলিম সমাজে নানা ঘটনার মধ্যে সামন্তীর শোষণ এবং কলকাতা কেন্দ্রীক বাবুদের প্রত্যেক্ষ ও পরোক্ষ নির্যাতনের প্রসঙ্গ এ দেশের আর্থ- সামাজিক গতি- প্রকৃতির সাথে গভীরভাবে সম্পর্কিত।শেরে-বাংলা একে ফজলুল হকের গরিব দরদী নীতির কথা যখন আলোচিত হয় তখন কার্যত শেরে বাংলার বোধ, বিশ্বাস এবং ঐতিহ্য চেতনার প্রসঙ্গই বড় হয়ে ওঠে।  রাজনৈতিক ভাবে নানা সমালোচনা সত্ত্বে ও এটা বলা যায়, বাংলার মুসলমানদের দুর্দশা লাগবে শেরে বাংলার ভুুমিকা কার্যত একজন মুসলমান হবার কারণেই তার বোধ বিশ্বাসকে নাড়া দিয়েছিল।স্বজাতির দু:খবোধ তিনি আত্নস্হ করেছিলেন। অনুরুপভাবে হিন্দু জাতীয়তাবাদীদের কারণেই ‘৪৭ সালে বাংলা ঐক্যবোদ্ব থাকেনি বা থাকতে পারেনি বরং হিন্দু কংগ্রেসি নেতাসহ সকল হিন্দু নেতারাই স্বজাতির স্বার্থরক্ষা করতে গিয়ে বাংলাকে ভাগ করে হিন্দু বাংলা তৈরি করে হিন্দু স্তানের সাথে যুক্ত রেখেছিল। বলা যায় স্বজাত্ববোধের যে চেতনাবোধ একজন মানুষের জন্মের পর থেকে গড়ে তুলে সেখান থেকে আমৃত্যু বেরিয়ে আসা প্রায় অসম্ভব। আমাদের মতো সমাজের বিবেচনায় প্রকৃতই যে নিজের পরিবেশ, প্রতিবেশ  অস্বীকার করা অসম্ভব। সে কথা অন্যদের চেয়ে রাজনীতিবিদদের চরিত্রেই বেশী প্রতিভাত হয়। একজন পেশাদার রাজনীতিক না হয়ে ও নিজের বোধ, বিশ্বাস, মেধা,মননের ওপর নির্ভর করে প্রেসিডেন্ট জিয়া এ জাতির কল্যাণ চিন্তায় আত্নত্যাগের যে মহান উদাহরণ রেখে গেছেন আজকের এই দিনে তার সে আলোচনাই সঙ্গত। প্রেসসিডেন্ট জিয়া ছিলেন কালোত্তীর্ণ। যত দিক থেকে একজন মানুষকে বিশ্লেষণ করা সম্ভব তার সবক’টি দিক থেকে যদি জিয়াকে আলোচনা করা যায়,তাহলে সমাপ্তিতে একথাই বলতে হবে। তিনি সময়ের গড্ডলিকা প্রবাহে নিজেকে ভাসিয়ে না দিয়ে নিজের দক্ষতা, যোগ্যতায় প্রয়োজনীয় সঠিক নির্দেশনা দিতে সক্ষম হয়েছেন। যে সময় তিনি রাষ্ট্রক্ষতায় আসীন হয়েছিলেন সেটি ছিল বাংলাদেশের জন্য বড় দু:সময়। স্বাধীনতার পর একটি দেশে জনগণ যখন আশা- আকাঙ্খাকে বাস্তবে রুপ দিতে ঐক্যবদ্ব ছিল অথচ সেই আকাঙ্খার বিপরীতে হতাশা যখন গ্রাস করেছিল।সরকারের এক শ্রেণীর সীমাহীন লুটপাট,দুর্নীতি, দুবৃত্তায়ন জাতীয় আকাঙ্খার বিপরীতে অবস্থান নিয়েছিলেন। বাক-স্বাধীনতা অধিকার যখন স্তব্ধ করে দেয়া হয়েছিল ঠিক সেই প্রেক্ষিতে রাজনৈতিক পট- পরিবর্তন হলেও দেশে রাজনৈতিক স্হিতিশীলতার পরিবর্তে অস্তিরতার মাত্রাই বৃদ্ধি পাচ্ছিল।
সামগ্রিক নৈরাজ্যকর বাস্তবতায় সিপাহী জনতার ঐক্যবদ্বতায় কারাবন্দী জিয়াউর রহমান ক্ষমতার কেন্দ্রবিন্দুতে পৌছলে ও ক্ষমতায় তিনি আসীন হন আরও পরে।সে প্রসঙ্গ আরও বিস্তৃত আলোচনা সুযোগ রাখে। জিয়াউর রহমান তার সময়কে অতিক্রম করে গিয়েছিলেন আরও আগে থেকেই।একজন সেনা কর্মকর্তা হিসেবে স্বাধীনতার ঘোষণায় যেমনি তিনি দেশপ্রেমের পতাকা উড্ডীন করে ওই সময়ের সকলকে অতিক্রম করে গিয়েছিলেন তেমনি বাকশাল পরবর্তী শাসক হয়েও কিনি ফ্যাসিজমের পরিবর্তে বহুদলীয় গণতন্ত্রের প্রবর্তক হিসেবে বাংলাদেশের রাজনীতিতে একজন গণতান্ত্রিক চেতনাবোধ সম্পন্ন্ হিসেবে নিজের সুনিদিষ্ট স্হান করে নিয়েছেন। জিয়া সাধারাণ অর্থে একজন রাজনীতিক ছিলেন না। তিনি যে বহুদলীয় গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা বর্তমানে হুমকির মুখে রয়েছে। সে অর্থে বাংলাদেশ যে আবারও একদলীয় শাসন ব্যবস্থার জাতাকলে নিস্পৃষ্ট হয় তাহলে কি হবে বা হতে পারে সে আলোচনাতে ও বর্তমান সময়ে নানা মাত্রিকতা রয়েছে। জিয়াউর রহমানের দেশপ্রেমের বিশ্লেষণ করতে গেলে তার অতীতের সাথে মিলিয়ে তাকে দেখতে গেলে একথাই বলতে হবে বাংলাদেশের গণতন্ত্রকে সামনের দিকে নিয়ে যাওয়ার নির্দেশনা একমাত্র তিনি দিয়েছিলেন। স্বাধীনতার শত্রু – মিত্র এবং গণতন্ত্রের শত্রু-মিত্র সম্পর্কে তার সুস্পষ্ট ধারণা ছিল। আর সে কারণেই তিনি একটি স্বাধীন জাতির অস্তিত্ব রক্ষার জন্যই স্বাতন্ত্র্যবোধের পরিচয় সমৃদ্ধ করে তুলতে বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদ বহুদলীয় গণতন্ত্র ইসলামি মূল্যবোধের প্রবর্তন করেছিলেন শহীদ রাষ্ট্রপ্রতি জিয়াউর রহমান।তিনি জিয়া ছিলেন-জিয়া আছেন-জিয়া তাকবেন-।

বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদের ধারণা তিনি যে, স্বাতন্ত্রিক সাংস্কৃতিক পরিচয় তুলে ধরার জন্য রাষ্ট্রীয় পৃষ্টপোকতায় তুলে ধরেছিলেন ঐতিহাসিক বিবেচনায় তা হয়তো নতুন কিছু ছিলনা। তবে তার পুর্বসুরিরা জাতিকে যে ঐতিহ্য বিস্মৃত করতে চেয়েছিল সে বিবেচনায় তার পৃষ্ট পোষকতা অনেক গুরুত্বপূর্ণ এবং সাহসী পদক্ষেপ ছিল। তিনি শুধু ভাষা নয়, অন্যান্য উপাদানে সন্নিবেশে বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদ প্রতিষ্টার মধ্যদিয়ে প্রকৃত পক্ষেই বাংলা ভাষা এবং এই জাতির এগিয়ে যাবার সুনিদিষ্ট নিশানা ঠিক করে দিয়েছিলেন। ভাষা বাংলা হলে ও বাংলাদেশ এবং হিন্দুস্তানের রাজ্য পশ্মিমবাংলার বাংলা সকল বিবেচনায় এক নয়। কারণ দূ’ অঞ্চলের সংস্কৃতি একই রুপ নয়। এই সাংস্কৃতিক পার্থক্যের সীমারেখা ভৌগলিক সীমারেখার মতো নিধারণ করে দিয়েছিলেন মহান স্বাধীনতার ঘোষক শহীদ রাষ্ট্রপ্রতি জিয়াউর রহমান।  এই সাহসী এবং সময়োপযোগী ভুমিকার কারণে জিয়া স্বাধীন বাংলাদেশের ব্যতিক্রমী শাসক হিসেবে অবিশ্বরণীয় হয়ে আছেন বিশ্ববাসীর আস্তা অর্জন করে। পরিশেষে দোয়া করি মহান আল্লাহ তাকে শহীদ হিসেবে কবুল করে জান্নাতুল ফেরদাউস দান করেন আমিন।

লেখকঃ সদস্য – ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন ( ডিইউজে )
আহ্বায়কঃ জনতা ফোরাম
সাংগঠনিক সম্পাদক : শত নাগরিক কেন্দ্রীয় কমিটি সিলেট বিভাগীয়।

এই সংবাদটি 1,026 বার পড়া হয়েছে