রবিবার, ২১ জানু ২০১৮ ১১:০১ ঘণ্টা

বিরতিহীন বাসযাত্রীর বিড়ম্বনা

Share Button

বিরতিহীন বাসযাত্রীর বিড়ম্বনা

সাজিদুর রহমান সাজিদ :  সুনামগঞ্জ জেলা বাস-মিনিবাস-মাইক্রোবাস মালিক গ্রুপ- এর একটি গাড়ির নাম্বার হলো ১৪৭১। টিকিটে এ নাম্বারই লেখা। দিরাই পয়েণ্ট থেকে উল্টো সুনামগঞ্জ বাসটার্মিনালে এসেছি বিরতিহীন গাড়ি করে সিলেট যাওয়ার জন্য। আমাকে ১২ নং সিট দেয়া হলো। পাশের ভদ্রলোকের সিটনং ১১। আমরা ১১ ও ১২ নং সিটধারী যখন বসতে চেষ্টা করলাম, দেখলাম আমরা বসতে পারছি না। সিট ছোট। দুইজনের সঙ্কুলান হচ্ছে না। আমরা মিডিয়াম সাইজ মানুষ, তেমন মোটাসোটা না। তারপরও বসতে পারছি না। শুধু আমরাই না, অন্যান্য সিটের মানুষও বসতে পারছে না। এক নিতম্ব সিটের ওপর, আরেকটা শূন্যে। এভাবে পৌনে দু’ঘণ্টার লঙ জার্নি কিভাবে করা যায়?
মালিক সমাতির নেতৃবৃন্দকে যথাযথ সম্মান প্রদর্শন পূর্বক বলতে চাই—–
১। হবিগঞ্জ, বিয়ানীবাজার বা জকিগঞ্জ রোডের গাড়িগুলো মানানসই ও বড়। বাংলাদেশের প্রায় সব রোডের গাড়িই বড়সড়ো। স্বচ্ছন্দে দু’জন সিটে বসা যায়। কষ্ট হয় না। আপনাদের গাড়িগুলোও সেভাবে নির্মাণ করেন না কেন? এমন তো নয় অন্যান্য রোড থেকে ভাড়া আপনারা কম রাখেন। যাত্রীরা কষ্ট করে যাতায়াত করে। প্রতি দু’জনের একজনের, যিনি ভেতরের সাইটে বসেন, দশ মিনিট যেতে না যেতেই কোমরে বেদনা এসে যায়। তারপরও যাত্রীরা যাতায়াত করে। কারণ, তারা অনন্যোপায়, যেতে বাধ্য। যাত্রীরা মনে করে, তারা আপনাদের কাছে জিম্মি। তাদের জিম্মি করে,  কষ্ট দিয়ে আপনারা পয়সা কামাচ্ছেন। কিন্তু কেন?
আপনারা সেবার মানসিকতা লালন করুন, যাত্রীদের দুর্ভোগ বুঝুন- প্রত্যাশা রইলো।
২। সুনামগঞ্জ টু আম্বরখানা তখন ৪২ মাইল দূরত্ব ছিলো। এখন দু’টি বাস-টার্মিনালই শহরের বাইরে নির্মিত হওয়ায় দূরত্ব কিছুটা হলেও কমেছে। তারপরও বিরতিহীন গাড়িতে যেতে কমপক্ষে ১ ঘণ্টা চল্লিশ মিনিট লাগে কেন? এতো ধীর গতিতে চালালে তো মানুষের সময় রাস্তায়ই ফুরিয়ে যাবে। অনেকেই গন্তব্যে গিয়ে তার কাজটি করতে পারবে না। অন্যান্য রোডের গাড়ি দেখেছি আরো দ্রুত গতিতে চলে। গাড়ির গতিবেগ বাড়িয়ে ১ ঘণ্টা ২০ মিনিটে গন্তব্যে পৌঁছা যায় কিনা-  বিবেচনা করে দেখবেন।
৩। বিরতিহীন গাড়ি। মানুষ জলদি যেতে চায়। আরামে যেতে চায়। আপনারা সব গাড়িকেই বিরতিহীন বানিয়ে দেন। একেবারে ছোট, লক্করঝক্কর, পুরনো, বসলে কাপড় নষ্ট হয়ে যায়- এমন গাড়িও বিরতিহীন সিরিয়াল পায়। কিন্তু কেন? এটা কি আদর্শ যাত্রীসেবা? এতে কি “বিরতিহীন” এর ইজ্জত মারা হয়ে যায় না? ক্রমান্বয়ে গাড়িগুলো সঠিক সাইজমত নির্মাণ করার আগে ভালো এবং বড় গাড়িগুলোকে বিরতিহীন সিরিয়ালে দিন, অন্যগুলোকে আটকান। এতে “বিরতিহীন” নামের ইজ্জত রক্ষা হবে। পাশাপাশি যাত্রীদের কষ্টও লাঘব হবে। কথাগুলো বললাম, যাতে যাত্রীসেবার দরদি মানসিকতা নিয়ে ভাবেন ও বিবেচনা করেন এবং সুপরিকল্পনার ভিত্তিতে পদক্ষেপ নেন। ২০।০১।১৮ ইং।

এই সংবাদটি 1,056 বার পড়া হয়েছে