রবিবার, ০৮ এপ্রি ২০১৮ ০৭:০৪ ঘণ্টা

ইউকে জমিয়তের মাসিক ইসলাহী ও দাওয়াতী সভা

Share Button

ইউকে জমিয়তের মাসিক ইসলাহী ও দাওয়াতী সভা

জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম ইউকের মাসিক ইসলাহী ও দাওয়াতী সভা গত শনিবার ৩১ মার্চ পূর্ব লন্ডনের ফোর্ড স্কয়ার মসজিদে অনুষ্ঠিত হয়।

ইউকে জমিয়তের সভাপতি মাওলানা শুয়াইব আহমদের সভাপতিত্বে ও জেনারেল সেক্রেটারী মাওলানা সৈয়দ তামীম আহমদের পরিচালনায় অনুষ্টিত এ সভায় গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা পেশ করেন ইউকে জমিয়তের সিনিয়র সহ সভাপতি বিশিষ্ট মিডিয়া ব্যক্তিত্ব মাওলানা মুফতি আব্দুল মুনতাকিম।

অন্যান্যের মধ্যে আলোচনা পেশ করেন জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম ইউকের জয়েন্ট সেক্রেটারি মাওলানা শামসুল আলম ক্বিয়ামপূরী, সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা সৈয়দ নাঈম আহমদ, সহকারী প্রচার সম্পাদক হাফিজ মাওলানা রশিদ আহমদ, যুব বিষয়ক সম্পাদক মুফতি সৈয়দ রিয়াজ আহমদ, প্রচার সম্পাদক মাওলানা নাজমুল হাসান, প্রশিক্ষণ সম্পাদক হাফিজ মাওলানা সৈয়দ হোসাইন আহমদ।

সভায় উপস্থিত ছিলেন জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম ইউকের উপদেষ্টা আলহাজ্ব সামছুজ্জামান চৌধুরী, আলহাজ্ব খালিস মিয়া, আলহাজ্ব সৈয়দ আবদুর রউফ, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম ইউকের ট্রেজারার হাফিজ হুসাইন আহমদ বিশনাথী, আন্তর্জাতিক সম্পাদক হাফিজ মাওলানা ইলিয়াস, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক হাফিজ জিয়া উদ্দিন প্রমুখ।

সভায় বক্তাগন আত্মশুদ্ধি, ইসলাহে নফস্ ও ব্যাক্তি সংশোধনের বিভিন্ন দিক নিয়ে আলোচনা করে বলেন যে আমাদের কে হিংসা-বিদ্বেষ, অহংকার ও অন্যান্য আত্মিক রোগ থেকে রক্ষা পেতে নিজেদের ইসলাহ ও সংশোধনের প্রতি বিশেষ ভাবে মনযোগী হতে হবে।

সভায় মুফতি আব্দুল মুনতাকিম তাঁর স্বারগর্ভ বক্তব্যে বলেন জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের প্রতিষ্ঠাতা, গত শতাব্দির শ্রেষ্ঠ মুজাদ্দিদ হযরত শায়খুল হিন্দ মাওলানা মাহমুদ হাসান রহ. মুসলিম উম্মাহকে সময়োপযোগী সঠিক নেতৃত্ব দিয়েছেন।

তিনি মুসলিম উম্মাহর ভাগ্য পরিবর্তনের জন্য কালজয়ী অসংখ্য ব্যক্তিত্ব ও এমন মনীষা তৈরী করেছেন, যাদের দৃষ্টান্ত শতশত বছরের ইতিহাসে ও খুজে পাওয়া মুশকিল। ইলম ও আমল এবং নেতৃত্বের বিভিন্ন ময়দানে মহান ঐতিহাসিক ব্যক্তিত্ব তৈরীর মাধ্যমে হযরত শায়খুল হিন্দ যে অবদান রেখে গিয়েছেন তার সুফল আজ আমরা সর্বত্র পরিলক্ষিত হতে দেখছি।

হযরত শায়খুল হিন্দের অনুসৃত পথ ধরে ইলমী, আমলী, রুহানী ও আধ্যাত্মিক শক্তিতে বলিয়ান অসংখ্য ব্যক্তিত্ব তৈরির মাধ্যমে আমাদেরকে বর্তমান যুগের নেতৃত্ব শূন্যতা দূর করতে হবে।

এর জন্য ইলমী, ইসলাহী কার্যক্রমের কোন বিকল্প নেই। জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম এর জন্য উত্তম প্লাটফর্ম। সবাইকে এ ব্যাপারে সর্বাধিক গুরুত্ব সহকারে কাজ করা উচিত। পরিশেষে জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম ইউকের প্রধান উপদেষ্টা মাওলানা শায়খ আসগর হোসাইন সাহেবের পূর্ণ সুস্থতা কামনা করে বিশেষ দোয়ার মাধ্যমে সভার সমাপ্তি হয়।

এই সংবাদটি 1,007 বার পড়া হয়েছে

পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত।  পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন।  ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে।  পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে।  সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন।  ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন
পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত। পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন। ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে। পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে। সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন। ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন