সোমবার, ১৩ আগ ২০১৮ ০৫:০৮ ঘণ্টা

হাফিজ মাওলানা নাজমুল হোসাইন খিদিরপুরী আর নেই

Share Button

হাফিজ মাওলানা নাজমুল হোসাইন খিদিরপুরী আর নেই

সিলেট রিপোর্ট: দারুল উলুম আরাবিয়া ফুলেননেছা মাদরাসা,বংশিকুন্ডা,মধ্যনগর,সুনামগঞ্জ এর প্রতিষ্ঠাতা মুহতামিম হাফিজ মাওলানা নাজমুল হোসাইন খিদিরপুরী আর নেই। তিনি পবিত্র হজ্ব পালন করতে গিয়ে সৌদি আরবে ইন্তেকাল করেছেন।
ইন্নাল্লিাহি ওয়াইন্নাইলাইহি রাজিউন। গত ৩১ জুলাই তিনি পবিত্র মক্কার উদ্দেশ্যে বাংলাদেশ ত্যাগ করেন। ১২ আগষ্ট ২০১৮ তার মৃত্যুর সংবাদটি মাওলানা মুখলিসুর রহমান রাজাগঞ্জীর মাধ্যমে জানাগেছে। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিলো প্রায় ৪০ বছর। তিনি একটি ধার্মিক ও সম্ভ্রান্ত পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতা মাওলানা আকরাম হোসাইন রহ. ছিলেন একজন বুযুর্গ ব্যক্তি ও মধ্যনগর উপজেলার একজন প্রভাবশালী ও শীর্ষ আলিম। নিজ এলাকায় কোনো কওমী মাদরাসা না থাকায় মাওলানা হা. নাজমুল হোসাইন খিদিরপুরী রহ. একটি হাফিজী মাদরাসা ও এতিমখানা এবং একটি মহিলা মাদরাসা প্রতিষ্ঠা করেন। ব্যক্তিজীবনে তিনি বিবাহিত,তাঁর সহধর্মিণী কুরআনের একজন হাফিজা।
তিনি ছাত্র জীবন থেকেই লেখা লেখির সাথে যুক্ত ছিলেন। মাসিক তৌহিদী পরিক্রমা, মাসিক আল ফারকে,সাপ্তাহিক মুসলিম জাহানে তার অনেক লেখা প্রকামিত হয়েছে।
মাওলানা নাজমুল হোসাইন জামিয়া মাদানিয়া বিশ্বনাথ ও জামিয়া কাসিমুল উলুম দরগাহে হযরত শাহজালাল সিলেট এ লেখাপড়া করেন। কর্মজীবনে তিনি সুনামগঞ্জের দরগাহপুর দারুল হাদীস মাদরাসায় কয়েক বছর শিক্ষকতার পরে নিজ এলাকা সুনামগঞ্জের ধর্মপাশা উপজেলার বংশীকুন্ডাগ্রামে মাদরাসা প্রতিষ্ঠা করেন। সে প্রতিষ্ঠানের মুহতামিমের দায়িত্ব পালন করছিলেন।
হাফিজ মাওলানা নাজমুল হো্সাইন তার ফেসবুকের সর্বশেষ স্ট্যাটাসটি নিন্মরুপ :

আলহামদুলিল্লাহ্, দীর্ঘ প্রায় দু’যুগ ধরে যে সপ্ন অন্তরে লালন করে আসছিলাম, আমার আব্বা-আম্মার নেক দোয়ার বরকতে আল্লাহ্ তায়ালার অশেষ ফযল ও করমে এ বছর বাস্তবায়িত হতে যাচ্ছে,ইনশা আল্লাহ্ | এক মাত্র আল্লাহ্ তায়ালার সন্তুষ্ঠি অর্জনের জন্য যিয়ারতে হারামাইন শরীফাইনের উদ্দেশ্যে পবিত্র হজ্ব পালনের নিয়্যতে মক্কা-মদীনায় সফর করার লক্ষে চলিত(জুলাই) মাসের ৩১ তারিখ সকাল ৫টার ফ্লাইটে ঢাকা থেকে রওয়ানা হবো, ইনশা আল্লাহ্ | আমার ভগ্নিপতী মনাষ মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল মাওঃ লুকমান হুসাইন সাহেবও এই কাফেলায় আছেন | আমার ছোট ভাই মাওঃ রফীকুল ইসলামও আল্লাহ্ চাহেতো আগামী (আগষ্ট’18) মাসের প্রথম সপ্তাহে হজ্বের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হবে| আমার সকল বন্ধু, পরিচিত দ্বীনী ভাই, শুভাখাংকী এবং সর্বস্হরের মুসলমানদের নিকট আমি দোয়া প্রার্থী , আল্লাহ্ তায়ালা যেন আমাকে ও সাথীদেরকে হজ্বে মাক্ববূল আদায় করার তাওফীক্ব দান করেন, আমীন | আলহামদুলিল্লাহ্, ….. ,আমার আব্বা-আম্মার নেক দোয়ার বরকতে আল্লাহ্ তায়ালার অশেষ ফযল ও করমে এ বছর বাস্তবায়িত হতে যাচ্ছে,ইনশা আল্লাহ্ |

এই সংবাদটি 1,198 বার পড়া হয়েছে

কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।  শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ।  নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে।  জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন।  আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি।  লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ। নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে। জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন। আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি। লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com