শনিবার, ১৪ জানু ২০১৭ ০৩:০১ ঘণ্টা

কোরআনের একনিষ্ট খাদেম পীরসাহেব ফুলতলী (র)

Share Button

কোরআনের একনিষ্ট খাদেম পীরসাহেব ফুলতলী (র)

মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী :: ‘ফুলতলী’ বাংলার আধ্যাত্মিক রাজধানী সিলেটের সীমান্তবর্তী জনপদ জকিগঞ্জের একটি স্থানের নাম। এই স্থানেই জন্মগ্রহণ করেছেন প্রখ্যাত ইসলামী ব্যক্তিত্ব কোরআন শরীফের একনিষ্ট খাদেম হযরত মাওলানা আব্দুল লতিফ চৌধুরী ফুলতলী (র)। মুলত তাঁকে কেন্দ্র করেই ’ফুলতলা’ থেকে ফুলতলী শব্দটির উৎপত্তি।  আজকের সময়ে ’ফুলতলী’ শব্দটি বিশ্বব্যাপী সুখ্যাতি লাভকরেছে ,তাকে কেন্দ্রকরেই।  ১৯১৩ সালে এই ফুলপ্রস্ফুটিত হয়ে সিলেটসহ বিশ্বভূবনকে করে তুলে আলোকিত।
ফুলতলীর পীরসাহেব (র) ঐতিহ্যগত দিক দিয়েও ছিলেন একজন সম্মানী খান্দানের সুযোগ্য উত্তরসুরী। মহান দরবেশ হযরত শাহ জালাল (র) এর বংশীয় এক উজ্জবল নক্ষত্র। আধ্যাত্মিক, সিয়াসি ও কোরআনী শিক্ষার দিক দিয়ে তিনি শহীদে বালাকোট হযরত সৈয়দ আহমদ বেরলভী (র) এর বিপ্লবী চেতনার অধিকারী।  এছাড়া উপমহাদেশ থেকে বৃটিশ বিতারণ আন্দোলণে মরহুম ফুলতলী (র) বিপুল অবদান রেখেগেছেন।  তবে আমার নিকট তাঁর জীবনের সবচাইতে বেশী প্রভাব বিস্তারকারী বিষয় হলো দারুল ক্বিরাত মজিদিয়া।  যা বিশ্বব্যাপী আলোচিত ও আলোকিত একটি সংগঠনে রুপ নিয়েছে। যার পরশে লাখো বনি আদম পবিত্র কোরআনের বিশুদ্ধ তেলাওয়াত শিখেছেন। আমি ২০০০ সালে সিরাজুল ইসলাম আলিম মাদরাসার থেকে দারুল ক্বিরাতের ছাত্র হিসেবে রাবে জামাতের চূড়ান্ত পরীক্ষায় অংশ নিতে সুবহানীঘাট কেন্দ্রে যাওয়ার পরে সর্বপ্রথম ফুলতলী (র) কে প্রথম দেখি।  সম্ভবত একই বছর তিনি লন্ডনের একটি সংস্থা কর্তৃক ’’শামসুল উলামা’’ উপাধি পেয়ে দেশে প্রত্যার্বতন করার দিন ’কাফেলায়ে লতিফিয়া,সিলেট সদর’এর আহবায়ক হিসেবে বিমানবন্দরে অর্ভ্যথনায় গিয়েছিলাম। সেদিন তাকে সরাসরি দেখা সম্ভব হয়নি। পবর্তীতে সুবহানীঘাট ইয়াকুবিয়া মাদরাসা ও দক্ষিণ সুরমার মোমিন খলায় তাকে কাছে থেকে দেখার সুযোগ হয়েছিলো। ২০০১ সালে শাবিপ্রবির হল নামকরণ বিরোধী আন্দোলনে আল্লামা নুর উদ্দীন আহমদ গহরপুরী,এম সাইফুর রহমানসহ সিলেটের বিশিষ্ট জনের সাথে একই কাতারে দেখেছি ফুলতলী (র) কে।
১৭৫৭ সালে পলাশীর যুদ্ধে নবাব সিরাজুদ্দৌলার পতনের পর ভারতীয় উপমহাদেশের মুসলমানরা চরম ভাবে পরাজিত হয়।  ফলে স্থিমিত হয়ে পড়ে আজাদী আন্দোলনের অগ্রযাত্রা। এ বিপর্যয় মুসলমানদের চরম হতাশ করেছিল। এরপর আঠারো শতকে মুসলমানদের ঈমান আকীদা রক্ষা আর বৃটিশদের গোলামীর জিঞ্জির ভাঙতে সৈয়দ আহমদ শহীদ বেরেলভী হুঙ্কার ছাড়েন। তাঁর ডাকে মুসলমানরা একত্রিত হয়। শুরু হয় আজাদীর আন্দোলন। এক পর্যায়ে বালাকোটের ময়দানে ১৮৩১ সালে শহীদ হন সৈয়দ আহমদ শহীদ বেরেলভী (র.)। তবে রয়ে যায় বালাকোটের জিহাদী চেতনা। এই চেতনাকে ধারণ করেই পরবর্তীতে উপমহাদেশে মুক্তির আন্দোলন ত্বরান্বিত হয়েছিল। এ চেতনাই পরবর্তীতে মুসলমানদের সকল আন্দোলন সংগ্রামে অনুপ্রেরণা যুগিয়েছে।  আজকের সময়ে যারা শহীদে বালাকোট ও ফুলতলী (র) এর অনুসারী বলে আমরা যারা দাবী করি তাদের উচিত পুর্বসুরিদের আর্দশ অনুস্মরণে বালাকোটের চেতনায় উজ্জিবীত হয়ে সর্বপ্রকার বাতিল অপশক্তির বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ ভাবে প্রতিরোধ গড়ে তোলা।  ওহাবী,দেওবন্দি আর ফুলতলী বলে বিচ্ছিন্ন থাকলে চলবেনা, অতীতের আকাবির বুর্যুগদের পথ অনুস্মরণ করে আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাতের আক্বিদা বিশ্বাসীদের একই মঞ্চে এসে দাড়াতে হবে। আর না হয় আহলে হাদীস,লা-মাযহাবী ফেতনাসহ বহুমুখি ইসলাম বিদ্বেষী,নাস্তিক্যবাদ আমাদেরকে আবারো পরাধীনও ধর্ম-কর্মহীন করে তুলবে! তাই সময় থাকতে সচেতন হতে হবে।  আজ যদি ফুলতলীর পীর সাহেব জীবিত থাকতেন আমার বিশ্বাস তিনি জাতিকে নাস্তিক্যবাদী ফেতনা থেকে সজাগ থাকার জন্য মহাঐক্যের ডাক দিতেন। কিন্তু তিনি পৃথিবীতে নেই,তাই তাঁর সুযোগ্য উত্তরসুরীদেরকেই সেই রাহবরের ভূমিকা পালন করতে হবে।
আমাদেরকে ভুলে গেলে চলবেনা-২০০৫ সালে টিপাইমুখবাধেঁর বিরুদ্ধে মাসিক মদীনা সম্পাদক মাওলানা মুহিউদ্দীন খান (র) এর ডাকে আহুত ঐতিহাসিক লংমার্চে মরহুম ফুলতলী (র) সর্মথন দিয়ে দেশ ও জাতির কল্যাণে তিনি যে কাজ করতে আগ্রহী সেই প্রমাণ দেখিযে গেছেন। এছাড়া শাবিতে বির্তকিত ব্যক্তিদের নামে হলের নামকরণ বিরুধী আন্দোলন, ইরাকে মার্কিন হামলার বিরুদ্ধে সম্মিলিত আন্দোলনে মরহুম খতীব মাওলানা উবাযদুল হক (র), মাওলানা নুর উদ্দীন আহমদ গহরপুরী, মাওলানা শায়খ আশরাফ আলী বিশ্বনাথী (র), ফখরে মিল্লাত মুহিউদ্দীন খান (র) এর সাথে একই মঞ্চে দেখাগেছে।
এ সম্পর্কে জমিয়ত নেতা অধ্যক্ষ আব্দুর রহমান সিদ্দিকী বলেন, ১৯৯৪ সালে তসলিমা নাসরিন বিরোধী আন্দোলনে বাংলাদেশ যখন উত্তাল। সিলেটসহ সারা দেশ আন্দোলন তুঙ্গে, তখন সর্বদলীয় উলামায়ে কেরামের এক যৌথ প্রতিবাদ সভা বাস্তবায়নের লক্ষ্যে সিলেটস্থ ফুলতলী সাহেবের বাসভবনে এক গুরুত্বপূর্ণ পরামর্শ সভা অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত সভায় ইমামে মদনী ছদরে জমিয়ত আল্লামা আব্দুল করিম শায়খে কৌড়িয়া উপস্থিত ছিলেন। এ সময় হযরত ফুলতলীরপীর সাহেব শায়খেকৌড়িয়াকে লক্ষ্য করে বলেন, ‘ভাইসাহেব, আমার বাড়ীতে যাওয়ার দাওয়াত গ্রহণ করেন।’ তখন শায়খে কৌড়িয়া সানন্দে দাওয়াত গ্রহণ করেন। পরবর্তীত বৃহস্পতিবার হযরত শায়খে কৌড়িয়া, মাওলানা শফিকুল হক আমকুনী, মাওলানা মনছুরুল হাসান রায়পুরীসহ আমরা চারজন রওয়ানা দিলাম জকিগঞ্জ হযরত ফুলতলীর পীরসাহেব বাড়ীর উদ্দেশ্যে। আমরা সেখানে পৌঁছে তাঁর বাড়ীতে জোহরের নামাজ আদায় করলাম। নামাজ পড়ে ফুলতলী সাহেবের বিশেষ মেহমান হিসেবে যখন আমরা দস্তরখানে খাওয়ার জন্য বসলাম, তখন ফুলতলী সাহেব নিজ হাতে আমাদেরকে আপ্যায়নের জন্য ব্যতিব্যস্ত হয়ে পড়লেন। শায়খে কৌড়িয়া (র) ও মাওলানা আমকুনী এক চৌকিতে এবং আমরা সবাই চেয়ার-টেবিলে খেতে বসলাম। তখন হযরত ফুলতলী সাহেব নিজ আসন ছেড়ে নিজ হাতে পরিবেশন করে খাওয়ালেন। এক পর্যায়ে হযরত ফুলতলী সাহেব বললেন, ভাই সাহেব অর্থাৎ শায়খে কৌড়িয়া (রহ.) আমার বাড়ীর খানা অত্যন্ত পিয়র। নিজের পুকুরের মাছ এবং খাঁটি দুধ, নিজলোকদের হাতের রান্না তরকারী। নিঃসন্দেহে খান, কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হবে না ইনশাআল্লাহ! খাওয়া দাওয়ার পর ফুলতলী সাহেবের (প্রাইভেট গাড়ী) পাজেরো জিপের সামনের সিটে শায়খে কৌড়িয়া ও পিছনে হযরত পীর সাহেব ফুলতলী একসাথে জকিগঞ্জের স্মরণকালের সর্ববৃহত প্রতিবাদ সমাবেশে যোগদান করেন। সেই দিন শায়খে কৌড়িয়া (রহ.) এর প্রতি হযরত ফুলতলী সাহেবের ভক্তি ও শ্রদ্ধা প্রদর্শন দেখে ভীষণ অভিভূত হয়েছিলাম। তারপর ২০০৫ সালের ১০ মার্চ ফখরে মিল্লাত মাওলানা মুহিউদ্দীন খান রহ. এর আহ্বানকৃত লংমার্চ সফলে হযরত ফুলতলী সাহেব রহ. ও তাঁর পরিবারের অবস্থান ছিলো ইতিহাসের এক স্মরণীয় অধ্যায়।  আমি ও আইয়ুরী হুজুর (মাওলানা আব্দুল মছব্বির আইয়ুবী) ফুলতলী সাহেব রহ. এর নিকট খান সাহেব হুজুরের সালাম ও লংমার্চের দাওয়াত পৌঁছানোর জন্য তাঁর বাড়ী যাই। রাত তখন ১০টা। পীর সাহেব তখন খাস কামরায় আরাম করছিলেন। খান সাহেব হুজুরের নাম শোনার পর তিনি আমাদের খাস কামরায় ডাকলেন এবং লংমার্চে কামিয়াবীর জন্য দোয়া করলেন। পরিবারের সকলকে এবং তাঁর মুহিব্বিন মতালম্বিদের লংমার্চ সফলের জন্য সর্বাত্মক সহযোতিার জন্য বলে দিলেন এবং লংমার্চ কাফেলায় ঢাকা থেকে আগত সকল ভি.আই.পি মেহমানদের মেহমানদারীর ব্যবস্থা খুব সুন্দর সুষ্ঠুভাবে আঞ্জাম দিয়েছিলেন হযরত ফুলতলী ছাহেব নিজ তত্ত্বাবধানে।’

উইকিপিডিয়ায় ফুলতলী ছাহেব কিবলা:
সংক্ষিপ্ত পরিচয়: মাওলানা আব্দুল লতিফ চৌধুরী ১৩২১ বাংলার ফাল্গুন মাসে অর্থাৎ ১৯১৩ সালের প্রথম দিকে সিলেট জেলার জকিগঞ্জ উপজেলার ফুলতলী গ্রামে জন্ম গ্রহণ করেন।  তার পিতার নাম মুফতি আব্দুল মজিদ। তিনি হযরত শাহ জালাল রহ. এর সফরসঙ্গী ৩৬০ আউলিয়ার অন্যতম হযরত শাহ কামাল রহ. এর বংশধর ছিলেন।
শিক্ষাজীবন:  শিক্ষাজীবনের প্রারম্ভে তিনি তার চাচাতো ভাই ফাতির আলীর নিকট লেখা পড়া করেন। অতঃপর ফুলতলী মাদ্রাসায় ভর্তি হন। ১৩৩৮ বঙ্গাব্দে তিনি বদরপুর সিনিয়র মাদ্রাসায় উচ্চ মাধ্যমিত শিক্ষা সমাপ্ত করেন। এরপর রামপুর আলিয়া ও মাতলাউল উলুম মাদ্রাসায় হাদীস শাস্ত্রে উচ্চশিক্ষা অর্জন করেন। ১৩৫৫ হিজরীতে তিনি মাতলাউল উলুম মাদ্রাসায় ১ম শ্রেণীতে প্রথম স্থান অধিকার করে হাদীস শরীফের সর্বোচ্চ সনদ অর্জন করেন। তার গুরুদের মধ্যে অন্যতম ছিলেন আল্লামা খলিলুল্লাহ রামপুরী ও আল্লামা ওয়াজিহুদ্দীন রামপুরী রহ.।  এ ছাড়া তিনি শাহ আব্দুর রউফ করমপুরী রহ. ও শায়খুল কুররা আহমদ হেজাযী রহ. এর নিকট থেকে ইলমে কিরাতের সনদ অর্জন করেন। ১৯৪৬ সালে তিনি শায়খুল কূররার নিকট থেকে ইলমে কিরাতের সর্বোচ্চ সনদ অর্জন করেন।
কর্মজীবন: ১৯৪৬ সাল থেকে ১৯৫০ সাল পর্যন্ত তিনি বদরপুর আলিয়া মাদ্রাসায় শিক্ষকতা করেন। ১৯৫৪ সাল থেকে গাছবাড়ী জামেউল উলুম মাদ্রাসায় অধ্যাপনা করেন। এ সময় মাদ্রাসার উপাধ্যক্ষ ও অধ্যক্ষের দায়িত্ব পালন করেন। এরপর সৎপুর, ইছামতি ও বাদেদেওরাইল ফুলতলী আলিয়া মাদ্রাসায় হাদীস শাস্ত্র অধ্যাপনা করেন। এ ছাড়া তিনি শুদ্ধভাবে কোরআন তিলাওয়াত শিক্ষাদানের জন্য প্রতিষ্ঠা করেন দারুল ক্বিরাত মজিদিয়া ফুলতলী ট্রাষ্ট। দেশ বিদেশে প্রতিষ্ঠা করেন অসংখ্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, মসজিদ ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠান।
তরীকত: ফুলতলী রহ. ছিলেন তরীকায়ে কাদেরিয়া, চিশতীয়া, নক্সবন্দীয়া, মুজাদ্দেদিয়া ও মুহাম্মদিয়ার একজন মুর্শিদ। তিনি আজীবন উপরিউক্ত তরীকা সমূহের প্রচার ও প্রসারে নিয়োজিত ছিলেন। তাঁর তরিকতের সিলিসিলা নিম্নরূপঃ
মাওলানা আব্দুল লতিফ চৌধুরী ফুলতলী রহ,  শাহ ইয়া’কুব বদরপুরী রহ.,  হাফিজ আহমদ জৌনপুরী রহ.,  কারামত আলী জৌনপুরী রহ.,  সৈযদ আহমাদ শহীদ ব্রেলভী রহ., শাহ আব্দুল আজিজ মুহাদ্দিসে দেহলভী রহ., শাহ ওয়ালিউল্লাহ মুহাদ্দিসে দেহলভী রহ.।
ইন্তেকাল: আল্লামা ফুলতলী রহ. ১৬ জানুয়ারী ২০০৮ সালে সিলেট শহরে ইন্তেকাল করেন।
রচনাবলী: আত তানভীর আলাত তাফসীর
মুন্তাখাবুস সিয়র
আনওয়ারুছ ছালিকীন
আল খুতবাতুল ইয়াাকুবিয়া
নালায়ে কলন্দর
শাজরায়ে তাইয়্যিবাহ
আল কাউলুছ ছাদীদ।
তার লেখা অনেক উর্দু ও আরবি গ্রন্থ ভারত ও পাকিস্তানের বিভিন্ন মাদ্রাসার পাঠ্যসূচিতে রয়েছে। এছাড়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়সহ বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামিক স্টাডিজের পাঠ্যসূচিতেও তার অনেক গ্রন্থ রয়েছে।
সংগঠন ও প্রতিষ্ঠান:  দারুল ক্বিরাত মজিদিয়া ফুলতলী ট্রাষ্ট,  বাংলাদেশ আনজুমানে আল ইসলাহ,  বাংলাদেশ আনজুমানে তালামীযে ইসলামীয়া
দারুল হাদীস লতিফিয়া, ইউ. কে, লতিফিয়া ক্বারী সোসাইটি , দারুল হাদীস লতিফিয়াহ ।
উত্তরসূরী : পীরছাহেবের ইন্তেকালের পর তাঁর অনুসারীরা তাঁর স্থলাভিষিক্ত হিসেবে মনোনীত করেছেন তাঁর বড় ছেলে মাওলানা ইমাদ উদ্দীন চৌধুরীকে।  ইমাদ উদ্দীন প্রাথমিক জীবনে শিক্ষকতা করতেন। ১৯৭৮ সালে সৎপুর কামিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ থাকাকালে চাকুরী ছেড়ে স্থায়ী ভাবে গ্রামের বাড়ীতে চলে আসেন। এরপর অবৈতনিকভাবে ইছামতি কামিল মাদ্রাসা ও পরে বাদেদেওরাইল কামিল মাদ্রাসায় অধ্যাপনা করেন। পিতার ইন্তেকালের পর থেকে তিনি পিতার স্থলাভিষিক্ত হিসেবে ভক্ত ও অনুসারীদেরকে প্রয়োজনীয় দিক নির্দেশনা দিচ্ছেন।

এই সংবাদটি 1,316 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com