বৃহস্পতিবার, ০৪ অক্টো ২০১৮ ০৭:১০ ঘণ্টা

প্রিয় আমিনী, আল্লাহ আপনার মর্তবা দিন ..

Share Button

প্রিয় আমিনী, আল্লাহ আপনার মর্তবা দিন ..

লিসানুল হক
: আপনি ছিলেন সাহস ও সততার দুর্লঙ্ঘ্য প্রাচীর৷ যেদিন আপনার জানাযা হয়েছিল সেদিনই সাহস ও সততার জানাযা হয়ে গিয়েছিল৷ ভেঙে গেলো তরবারি৷ মুসোলিনী ডিঙিয়ে গেলো সাহস ও সততার সেই প্রাচীর৷ আমি এখন গাড়িতে উঠলে পুলিশ আমাকে তল্লাশি চালায়৷ আমি শাপলার বিভীষিকাময় রাতের পর থেকে সদা সন্ত্রস্ত অবস্থায় সময় কাটাই৷ মুসোলিনী আপনাকে চিনতে পেরেছিল৷ আপনাকে বধ করতে পারলে রাস্তা ফাঁকা সে বুঝতে পেরেছিল৷ আপনাকে হত্যা করার পর কেউই আর তার রাস্তা রোধ করে দাঁড়াতে পারে নি৷ বরং আপনার মৃত্যু থেকে উল্টো শিক্ষা নিয়ে আপনার সময়ের অনলবর্ষী বক্তারাও মুসোলিনীর প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষ মদদদাতাদের অন্তর্ভুক্ত হয়ে গেলো৷

আমাদের মতো ছোটদের জন্যে আর কারও ছায়া নেই৷ ফিতনার অশান্ত সমুদ্রে আমরা এখন কাণ্ডারীবিহীন তরীর দুর্ভাগা যাত্রী৷ ঘূর্ণিবায়ু একবার আমাদেরকে কামালের মঞ্চে তোলে দেয়৷ কামাল সেখান থেকে ধুর ধুর ছেই ছেই করে তাড়িয়ে দেয়৷ আরেকবার আমরা আওয়ামীর আঁচলে শরণাপন্ন হই৷ তারা কখনও আমাদেরকে রাতের আঁধারে হত্যা করে৷ আবার কখনও বড় অংকের দান দিয়ে বশ করে৷ আবার কখনও আমাদের ঘরে এসে নর্তকী নিয়ে জাতীয় সংগীত গেয়ে শোনায়৷ এখন আমরা নাকি ন্যায্য অধিকার পেয়েছি! এ নাকি আমাদের উপর নির্মম গণহত্যার এক স্বীকৃত নায়কের বহুত বড় এহসান৷ আমাদের এখন স্বকীয়তা বলে কিছুই নেই৷ যে স্বীকৃতি পেলে আমরা আরও স্বাধীন হব বলে ভেবেছিলাম, সেই স্বীকৃতিই এখন আমাদের স্বাধীনতা হরণের মোক্ষম হাতিয়ার৷

বয়োবৃদ্ধ সর্বজন শ্রদ্ধেয় উস্তাদজীর সম্মান নিয়েও এখন ছিনিমিনি খেলছে একটি দল৷ যারা কুশীলব ছিলো তারা নীরবে তামাশা দেখছে৷

আমাদের ভেদাভেদ বাড়ছে৷ নেতাদের চিন্তার বন্ধ্যাত্ব চলছে৷ হযরত বাবুনগরী বত্রিশ দাঁতের মাঝখানে জিহ্বার মতো হয়ে বেঁচে আছেন৷

এখন শুধু আপনার মতো আরেকজন মহীরুহের অস্থির প্রতীক্ষায় আছি৷

এই সংবাদটি 1,658 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com