বুধবার, ১০ অক্টো ২০১৮ ০৬:১০ ঘণ্টা

সভা না করে হেফাজতের নামে ভুয়া বিবৃতি!

Share Button

সভা না করে হেফাজতের নামে ভুয়া বিবৃতি!

ডেস্করিপোর্ট: কওমী সনদের স্বীকৃতি প্রদানকে কেন্দ্র করে হেফাজতে ইসলামে সৃষ্ট বিরোধের জের ধরে গত ৭ অক্টোবর একটি দৈনিকে প্রকাশিত “আল্লামা শফির বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা ও হেফাজতের শুদ্ধি প্রক্রিয়া” শীর্ষক প্রতিবেদনে মুফতি ইজহারুল ইসলামের বক্তব্যের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে
হেফাজতের নামে ভুয়া বিবৃতি দেয়ার অভিযোগ উঠেছে।
হেফাজতের ইসলামের কেন্দ্রীয় কার্যালয় থেকে দেয়া বিবৃতিতে দাবী করা হয় যে, ওই দিন বাদ আছর সংগঠনের হাটহাজারীস্থ কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক জরুরী সভা আমীরে হেফাজত আল্লামা শাহ আহমদ শফির সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। এতে যে সকল আলেমদের উপস্থিতি দেখানো হয়েছে। মূলত অনেকেই সেখানে উপস্থিত ছিলেন না এবং তারা এ সভা সম্পর্কে জানেন না বলে স্বীকার করেছেন। হেফাজতের (আল্লামা শফির পক্ষে) পাঠানো বিবৃতিতে সভায় উপস্থিত দেখানো হয়-হেফাজতে ইসলামের মহাসচিব আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী, মাওলানা হাফেয তাজুল ইসলাম, যুগ্নমহাসচিব মাওলানা মুহাম্মদ সলিমুল্লাহ, মাওলানা লোকমান হাকিম, মাওলানা সাজিদুর রহমান, মাওলানা আইয়ুব বাবুনগরী, মাওলানা মুফতি জসীমুদ্দিন, মাওলানা আশরাফ আলী নেজামপুরী, মাওলানা ইসহাক মেহেরী, সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা আজিজুল হক ইসলামাবাদী, মাওলানা মুহাম্মদ আনাস মাদানী ও মাওলানা মুফতি রহিমুল্লাহ প্রমূখ”।

কিন্তু খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সেদিন এ ধরণের কোন সভা অনুষ্ঠিত হয়নি এবং যারা সভায় ছিলেন বলে উল্লেখ করা হয়েছে, তাদের বেশ কয়েকজনের সাথে মুঠোফোনে কথা বলে জানা গেছে, তারা এধরনের সভার কথা কিছুই জানেন না। তারা ক্ষোভ প্রকাশ করে এই প্রতিবেদককে জানিয়েছেন, একটা শীর্ষ দ্বীনি প্রতিষ্ঠান ও সংগঠন থেকে কিছু না জানিয়ে তারা মিটিং এ ছিলেন এমন মিথ্যা দাবী করে তাদের নাম ব্যাবহার চরম অনৈতিক ও নিন্দনীয় কাজ। আগেও তাদের নাম এভাবে অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করা হতো বলে ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

তাহলে প্রতিবাদ করেন না কেন- এমন প্রশ্নের উত্তরে নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক উত্তর চট্টগ্রামের একজন প্রভাবশালী মাদরাসা শিক্ষক বলেন, হাটহাজারী মাদরাসা দেশের শীর্ষ ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান। আল্লামা আহমদ শফীকে আলেম সমাজ মুরুব্বী মানেন। প্রতিবাদ করলে হাটহাজারী মাদরাসা ও হুজুরের সুনামহানী হবে। এই কারণে আমরা অসন্তুষ্ট হলেও চুপচাপ থাকি। সভা বা বৈঠকের অস্তিত্ব ছাড়া সভায় থেকেছেন উল্লেখ করে ও অনুমতি ছাড়া কারো নাম ব্যবহার বেআইনী ও চরম অনৈতিক বলে তারা উল্লেখ করেন।

বিবৃতিতে সভায় উপস্থিত ছিলেন বলে দাবী করা চট্টগ্রামের একজন হেফাজত নেতা নাম প্রকাশে অনীহা প্রকাশ করে এই প্রতিবেদককে মুঠোফোনে বলেন, গত কয়েক বছর ধরে হেফাজতের কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব বিভিন্ন বিতর্কে জড়িয়ে পড়ায় হেফাজতের কার্যক্রম থেকে নিজেকে গুটিয়ে নিয়েছি। গত ৬ মাসেও আমি হাটহাজারী মাদ্রাসায় যাইনি। কিন্তু এখনো কোন কোন বিবৃতি ও সংবাদবিজ্ঞপ্তিতে আমার উপস্থিতি দেখিয়ে নাম ব্যবহার করা হয়। মুরুব্বীদের ও সংগঠনের বদনাম হবে চিন্তা করে এরকম ঘটনায় আমরা চুপচাপ থাকি। এখন আপনার কাছে শুনলাম, গত ৭ অক্টোবরের সভায়ও আমি ছিলাম। হতবাক না হয়ে পারছি না।

হেফাজত ও বেফাকের আরেক কেন্দ্রীয় নেতা বি-বাড়ীয়ার দারুল আরকাম মাদরাসার পরিচালক মাওলানা সাজেদুর রহমান। তার নামও ছিল সেই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন হিসেবে। মুঠোফোনে এই প্রতিবেদককের কাছে স্বীকার করেছেন তিনি সেদিন কোন সভায় উপস্থিত ছিলেন না। তবে বিবৃতিতে দেয়া বক্তব্যের সাথে একমত বলে জানান।

বিবৃতিতে কি বক্তব্য দেয়া হয়েছে জানতে চাইলে তিনি বলতে পারেন নি। তিনি বলেন, আমার সাথে ফোনে কথা বলেছেন। কি লিখেছে আমি জানি না।

এ বিষয়ে জানতে বার বার ফোন দেয়া হলেও ফোন রিসিভ করেননি হেফাজত নেতা ও নাজিরহাট বড় মাদ্রাসার মুহাদ্দিস মাওলানা সলিম উল্লাহ।
হেফাজতে ইসলাম চট্টগ্রাম মহানগর কমিটির সভাপতি ও কেন্দ্রীয় নায়েবে আমীর চট্টগ্রাম ফিরোজশাহ কলোনী মাদরাসার পরিচালক মাওলানা তাজুল ইসলাম বলেন, কোন সভা ছিল না সেদিন। তবে আমরা একটি বিবৃতি দিয়েছি সবার সম্মতিতে।

হাটহাজারী মাদরাসা সূত্রে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সে দিন আমিরপুত্র মাওলানা আনাস মাদানি ফোন কল দিয়ে হেফাজতের সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা আজিজুল হক ইসলামাবাদিকে কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আসতে বলেন। তার উপস্থিতিতে জুনায়েদ বাবুনগরিকেও আমিরের কার্যালয়ে ডাকা হয়। হেফাজত আমির তাদেরকে মুফতি ইজহারের বক্তব্যের কড়া প্রতিবাদ দিতে বলেন। এরপর গায়েবি সভা ও উপস্থিতি দেখিয়ে বিবৃতি তৈরি করে সংবাদপত্রে পাঠানো হয়।

এই সংবাদটি 1,021 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com