রবিবার, ০২ ডিসে ২০১৮ ১০:১২ ঘণ্টা

নির্বাচনের ইতিহাসে সিলেট-৫ আসন

Share Button

নির্বাচনের ইতিহাসে সিলেট-৫ আসন

এহসানুল হক জসীম:  আসছে ৩০ ডিসেম্বর ২০১৮ তারিখে দেশে জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। স্বাধীন বাংলাদেশে বিগত ৪৭ বছরে ইতোমধ্যে ১০টি সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে বলে এটি একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন। আমাদের এ ভূ-খণ্ডে নির্বাচনের শুরু প্রায় শত বছর আগে। ১৯১৯ সালের ভারত শাসন আইনের মধ্য দিয়ে নির্বাচন প্রবর্তিত হয়। ভারতীয় উপমহাদেশের ইতিহাসে সর্বপ্রথম সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় ১৯২০ সালে। অবশ্য জনগণের অংশগ্রহণে প্রত্যক্ষ নির্বাচন শুরু হয় আরো বেশ কয়েক বছর পর। ১৯৩৭ সালে প্রথম প্রত্যক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। সে হিসেবে জনগণের ভোটাভোটি শুরুর হয়ে গেছে ৮১ বছর।

এই একাশি বছরে অনুষ্ঠিত হয় ১৬টি সাধারণ নির্বাচন। একটি উপনির্বাচন সহ সিলেট-৫ আসনে মোট ১৭বার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এই ১৭ বারে আওয়ামী লীগ-৪ বার, জাতীয় পার্টি-৩ বার, মুসলিম লীগ-২ বার, কংগ্রেস-১ বার, বিএনপি-১ বার, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম-১ বার, জামায়াতে ইসলামী-১ বার, ইসলামী ঐক্যজোট/খেলাফত মজলিস-১ বার ও স্বতন্ত্র প্রার্থী ৩ বার বিজয়ী হন।

দেশে ইসলামপন্থী বা ইসলামী দলগুলো ভোটের রাজনীতিতে পিছিয়ে থাকলেও সিলেট-৫ আসনে সব সময়ই ইসলামপন্থীরা ভাল করেছে। ১৭টি নির্বাচন পর্যালোচনায় দেখা যায়, চারটি নির্বাচনে সরাসরি কোন বিশিষ্ঠ আলেম নির্বাচিত হয়েছিলেন। সাতটি নির্বাচনে খুবই অল্প ভোটের ব্যবধানে কোন না কোন আলেম বা ইসলামী দলের প্রার্থী নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি ছিলেন। কয়েকটি নির্বাচনে ২য়, ২য় ও চতুর্থ স্থান অধিকার করেন ইসলামী দলের প্রার্থী। বিভিন্ন নির্বাচনে দেখা গেছে বিভিন্ন ইসলামী দল প্রার্থী দিয়েছে এবং তাদের সম্মিলিত ভোট অন্যদের সম্মিলিত ভোটের চাইতে অনেক বেশি ছিল, যদিও এসব নির্বাচনে ইসলামী দলের নেতারা বিজয়ী হননি। ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনে কার গলে উঠছে বিজয়ের মালা- সেটি জানতে আরো কয়েক দিন অপেক্ষা করতে হবে। তার আগে আসুন জেনে নেই বিগত ৮১ বছরে ১৭টি নির্বাচনে কারা কবে বিজয়ী হয়েছিলেন সিলেট-৫ আসনে।

বিএনপি বার বার ক্ষমতায় এলেও এবং সারাদেশে এই দলের সমর্থকগোষ্ঠীর সংখ্যা অনেক বেশি হলেও; দেখা গেছে– বিএনপি মনোনীত প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন মাত্র একবার। ১৯৯৬ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারীর একতরফা ও প্রহসনের নির্বাচন না হলে এই একবারও বিএনপি বিজয়ী হতো না। সে নির্বাচনে মাত্র কয়েক দিনের জন্য বিএনপির এমপি নির্বাচিত হওয়া ছাড়া আর যতবারই বিএনপির প্রার্থীরা নির্বাচন করেছেন, ততবারই তাদের জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে। জাতীয় পার্টি থেকে তিন বার এমপি নির্বাচিত হলেও ২০১৪ সালের ভোটবিহীন ও ১৯৯৮ সালে এক তরফা তথাকথিত নির্বাচনে দুই বার জাতীয় পার্টি এ আসনটি পায়। এখানকার দুই জন দুই সরকারে মন্ত্রী হয়েছিলেন। পাকিস্তান আমলে মন্ত্রী ছিলেন কানাইঘাটের আব্দুছ সালাম, আর বাংলাদেশ আমলে এরশাদ সরকারের মন্ত্রী ছিলেন জকিগঞ্জের এমএ হক। এ আসন থেকে ১৯৬৬ সালের নির্বাচনে বিজয়ী আজমল আলী চৌধুরীও মন্ত্রী ছিলেন। তখন আজমল আলী এই আসন তথা সিলেট সদরের বাসিন্দা ও নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি হলেও বর্তমানে সিলেট-৫ আসনটি কানাইঘাট ও জকিগঞ্জ নিয়ে গঠিত।

শুরুর দিকে এই আসনটি কানাইঘাট, জৈন্তাপুর ও গোয়াইনঘাট নিয়ে ছিল। এই নির্বাচনী এলাকা থেকে ১৯৩৭ সালের ১৮ ও ১৯শে জানুয়ারি তারিখে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে খুবই অল্প বয়সে ছাত্র থাকাবস্থায়ই এমপি (এমএলএ) নির্বাচিত হন মুসলিম লীগের আব্দুছ সালাম। তিনি এই এলাকা থেকে সাধারণ নির্বাচনে প্রথম নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি। আসামের ১০৮ সদস্য বিশিষ্ট আইনসভার মেয়াদ ১৯৪২ সাল পর্যন্ত ছিল। ২য় বিশ্বযুদ্ধের কারণে নির্বাচন অনুষ্ঠিত না হওয়ায় ব্রিটিশ সরকার আসাম আইন পরিষদের মেয়াদ আরও চার বছর বৃদ্ধি করে। ফলে এই প্রায় সাড়ে নয় বছর এমএলএ ছিলেন সালাম মিনিস্টার। ১৯৩৭ সালের সে নির্বাচনে সালাম মিনিস্টারের নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি ছিলেন হাতেম আলী নাজির। আব্দুছ সালাম কানাইঘাট উপজেলার সোনাপুর গ্রামে ১৯০৬ সালে জন্মগ্রহণ করেন। পরবর্তী সময়ে পুর্ব পাকিস্তান প্রাদেশিক সরকারের রাজস্ব ও ভূমি প্রশাসন মন্ত্রী ছিলেন বলে তাঁকে বলা হতো সালাম মিয়া মিনিস্টার। তিনি ১৯৯৯ সালে ইন্তেকাল করেন।

১৯৪৬ সালে অনুষ্ঠিত হয় পরবর্তী সাধারণ নির্বাচন। সে নির্বাচনে খেজুর গাছ প্রতীক নিয়ে বিজয়ী হন জমিয়তে উলামায়ে হিন্দের নেতা মাওলানা ইব্রাহীম চতুলী। মুসলিম লীগের প্রার্থী ছিলেন এডভোকেট হাবিবুর রহমান (তোতা মিয়া)। তিনি জমিয়তের প্রার্থীর কাছে পরাজিত হন। এতে বুঝা যায় যে, এই আসনে বহু আগে জমিয়তের একটা শক্ত অবস্থান ছিল। অন্যদিকে ইব্রাহীম চতুলী একজন খ্যতিমান আলেম ছিলেন। তিনি ব্রিটিশ বিরোধি আন্দোলনের অবিসংবাদিত নেতা ছিলেন।

১৯৫৪ সালে মুসলিম লীগের বিরুদ্ধে কয়েকটি রাজনৈতিক দল ঐক্যবদ্ধ হয়ে নির্বাচন করে। সে নির্বাচনে যুক্তফ্রন্ট সমর্থিত ও কংগ্রেস মনোনীত প্রার্থী মকবুল হোসেন নির্বাচিত হন। মকবুল হোসেনের মুল বাড়ি ছিল কানাইঘাট উপজেলার বীরদল গ্রামে। পরবর্তীতে তিনি গোয়াইনঘাটের বাসিন্দা হয়েছিলেন। ১৯৫৪ সালের নির্বাচনে মুসলিম লীগের প্রার্থী ছিলেন অধ্যক্ষ মৌলভী মোবারক আলী। তিনি কানাইঘাট উপজেলার তিনচটি গ্রামের বাসিন্দা। মৌলভী মোবারক আলী যুক্তফ্রন্টের প্রার্থীর কাছে পরাজিত হয়ে রাগে-ক্ষোভে-অভিমানে এলাকা ছেড়ে শহরে চলে যান। আর ফিরে আসেন নি।

এ আসনে উপনির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় ১৯৫৬ সালে। এই উপনির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে বিজয়ী হয়েছিলেন গোয়াইনঘাটের ডৌবাড়ি নিবাসী ফয়জুল হাসান। ফয়জুল হাসান তখন তরুণ ছিলেন। তিনি মারা যান ২০১২ সালে। ১৯৫৬ সালে বিজয়ী ফয়জুল হাসানের নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি ছিলেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী এডভোকেট হাবিবুর রহমান (তোতা মিয়া)। হাবিবুর রহমান এর আগে মুসলিম লীগ করতেন। ১৯৫৪ সালে তিনি আওয়ামী লীগে যোগ দেন। ১৯৫৬ সালের সে উপনির্বাচনে শেখ মুজিবুর রহমান জৈন্তাপুরের দরবস্ত বাজারে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর পক্ষে প্রচারণায় আসলে জনসভা ভন্ডুল করে দেয়া হয়েছিল। দরবস্তের শাহী ঈদগাহ মাঠে অনুষ্ঠিত নির্বাচনী জনসভা ভন্ডুল করে দেওয়ার পর উপজেলার রামপ্রসাদ গ্রামের মোহাম্মদ চৌধুরীর নেতৃত্বে এই এলাকার লোকজন ঢাকা থেকে আগত আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দের গাড়ি পুড়িয়ে দেয়। মোহাম্মদ চৌধুরী হচ্ছেন চারিকাটা ইউনিয়নের বর্তমানে চেয়ারম্যান তোফায়েল আহমদ এর দাদা এবং হবই চেয়ারম্যান এর পিতা।

আল্লামা মুহাম্মাদ মুশাহিদ বায়মপুরী ছিলেন ঘন কৃষ্ণ বর্ণের বড় নাক বিশিষ্ট অনেকটা হাবশী গড়নের অপেক্ষাকৃত বেঁটে আকৃতির। তাঁর জ্ঞান-গরিমা ও ও বিশাল ব্যক্তিত্বের কারণে তিনি সিলেটবাসীর কাছে ‘কালোমানিক’ রূপে সমাদৃত ছিলেন। তাঁর লিখিত দুটি উর্দু গ্রন্থ খুবই বিখ্যাত হয়। ১৯৬২ সালের নির্বাচনে সারাদেশে যখন মুসলিম লীগের জয়জয়কার, তখন চেয়ার প্রতীক নিয়ে স্বতন্ত্র এমপি বা জাতীয় পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হন উপমহাদেশের এই প্রখ্যাত আলেম। আল্লামা মুশাহিদ বায়মপুরীর কাছে সেদিন পরাজিত হয়েছিলেন সাবেক স্পীকার হুমায়ুন রশীদ চৌধুরীর মা সিরাজুন্নেসা চৌধুরীর মত বিদূষী ও সম্ভ্রান্ত ঘরের প্রার্থী। সে সময় এই আসন সিলেট সদর পর্যন্ত বিস্তৃত ছিল। পুরো সিলেট জুড়ে যে মুশাহিদ বায়মপুরীর বিপুল জনপ্রিয়তা ছিল- তা বলাই বাহুল্য। সেবার নির্বাচন ছিল বেসিক ডেমোক্র্যাসির নির্বাচন। ফলে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও মেম্বারদের ভোটের মাধ্যমে জাতীয় পরিষদের সদস্য নির্বাচিত করা হতো। এ সময় পূর্ব পাকিস্তান প্রাদেশিক পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হন আব্দুছ সালাম এবং প্রাদেশিক সরকারের রাজস্ব ও ভুমি মন্ত্রী নিযুক্ত হন।

প্রকৃতিগত দিক থেকে আল্লামা মুশাহিদ বায়মপুরী রাজনৈতিক জগতের লোক ছিলেন না। প্রকৃত অর্থে তিনি ছিলেন ইলমী জগতের ‍উজ্জ্বল নক্ষত্র। তবে তাঁর ছিল প্রখর রাজনৈতিক প্রজ্ঞা এবং অসাধারণ প্রতিভা। সেই মেধা ও অভিজ্ঞতা থেকে তাঁর কাছে প্রতীয়মান হয়েছিল যে, সমস্ত ইসলামী দল সম্মিলিতভাবে জোটবদ্ধ হলেও তার শক্তি রাজনীতির পট পরিবর্তনের জন্য যে শক্তি দরকার তার কাছাকাছিও নয়। ফলে মন্দের ভাল হিসেবে তিনি আইয়ুব খানের কনভেনশন মুসলিম লীগে যোগদান করেন। তিনি চেয়েছিলেন যে, এ দলের সাথে থেকেই ইসলাম ও মুসলিমদের দাবীর যৌক্তিকতা তুলে ধরবেন এবং দাবী আদায় করবেন। কিন্তু জনগণ তাঁর এই ভূমিকাকে সুনজরে দেখেনি। ফলে পরবর্তী নির্বাচনে তথা ১৯৬৬ সালের নির্বাচনে তিনি আর নির্বাচিত হতে পারেননি। সে সময় নির্বাচিত হয়েছিলেন মুসলিম লীগের অপর অংশের প্রার্থী সিলেট সদরের আজমল আলী চৌধুরী। তিনি পাকিস্তানের প্রভাবশালী মন্ত্রী ছিলেন। বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর পরই সিলেট শহরের দরগাহ এলাকায় নিজ বাসার কাছে আততায়ীর হাতে তিনি নিহত হন পাকিস্তানের এই মন্ত্রী।

১৯৭০ সালের নির্বাচনে সিলেট-৭ আসন গঠিত ছিলো কানাইঘাট, বিয়ানীবাজার ও জকিগঞ্জ নিয়ে। এই নির্বাচনী এলাকা থেকে সত্তরে নির্বাচিত হন বিয়ানীবাজারের এডভোকেট আব্দুর রহীম। তিনি সিলেট জেলার গোলাপগঞ্জ উপজেলার কালিদাসপাড়া গ্রামের বাসিন্দা। অবশ্য তাঁর জন্ম এ গ্রামের আরেকটু পুর্ব পাশে বিয়ানীবাজার উপজেলার রাউতগ্রামে। পরবর্তীতে তারা কালিদাসপাড়ায় বসতি স্থাপন করেন। আব্দুর রহীম ন্যাপ নেতা ছিলেন এবং ১৯৬৯ সাল পর্যন্ত ন্যাপের সিলেট জেলা কমিটির আহবায়ক ছিলেন। সত্তরের নির্বাচনের পুর্বে আওয়ামী লীগে যোগ দেন। দেশ স্বাধীনের পর গোলাপগঞ্জ ও বিয়ানীবাজার নিয়ে আলাদা আসন গঠিত হলে ১৯৭৩ সালে জাতীয় নির্বাচনে আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী হিসেবে সিলেট-৬ আসন থেকে পুনরায় এমপি নির্বাচিত হন। ১৯৭৬ সালে সিলেট জেলা আওয়ামীলীগ এর সভাপতি নির্বাচিত হন। ১৯৯০ সাল পর্যন্ত আমৃত্যু এ পদে বহাল ছিলেন।

১৯৭০ সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী বিজয়ী হলেও ভোটের হিসেবে এগিয়ে ছিল ইসলামপন্থিরা। তাদের ভোট ভাগ হয়ে যাওয়ায় সেদিন তাদের কেউ পাশ করতে পারেনি। ২য় ও ৩য় অবস্থানে ছিলেন খেজুর গাছ প্রতীক নিয়ে জমিয়তের প্রার্থী আল্লামা মুশাহিদ বায়মপুরী এবং দাঁড়িপাল্লা প্রতীক নিয়ে জামায়াতের শামসুল হক। তারা দুজনই ভালো ভোট পেয়েছিলেন। ১৯৭০ সালের নির্বাচনে সারাদেশে সব আসনেই আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা বিজয়ী হয়েছিল, মাত্র দুটি আসন বাদে। চট্রগ্রাম থেকে নির্বাচিত হয়েছিলেন ফজলুল কাদের চৌধুরী এবং পার্বত্য চট্রগ্রাম থেকে চাকমা রাজা।

স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় ১৯৭৩ সালে। এ নির্বাচনে কানাইঘাট উপজেলার রতনপুর গ্রামের হাবিবুর রহমান (তোতা মিয়া) সিলেট-৫ আসন থেকে এমপি নির্বাচিত হন। তিনি সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ছিলেন। ১৯৭৮ সালে তিনি মৃত্যুবরণ করেন। ১৯৭০ সালের নির্বাচনের মতো ১৯৭৩ সালের নির্বাচনেও জমিয়তের প্রার্থী নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি ছিলেন। জমিয়তের প্রার্থী ছিলেন শেখজাদা ফারুক। তিনি মুশাহিদ বায়মপুরীর ছেলে।

জিয়াউর রহমানের সময় ১৯৭৯ সালে দেশে দ্বিতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় সারাদেশে বিএনপির প্রার্থীরা একচেটিয়া পাশ করলেও জিয়াউর রহমানের মনোনীত বিএনপির প্রার্থী হারিছ চৌধুরীর শোচনীয় পরাজয় ঘটে। এমনকি তিনি জামানতও রক্ষা করতে পারেন নি। সে নির্বাচনে বিজয়ী হয়েছিলেন স্বতন্ত্র প্রার্থী এমএ হক, যিনি পরবর্তী সময়ে এরশাদ সরকারের আমলে মন্ত্রী হয়েছিলেন। এমএ হক পুলিশের আইজিপি ছিলেন। চট্রগ্রামের এসপি থাকার সময় তিনি ফজলুল কাদের চৌধুরীর বোন তথা সালাহউদ্দিন কাদের চৌধুরীর ফুফু বিয়ে করেন। ১৯৭৯ সালের সে নির্বাচেন মুসলিম লীগ প্রার্থী হিসাবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন মিনিস্টার আব্দুছ সালাম। তিনি নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি ছিলেন। জিয়াউর রহমানের সময় মুসলিম লীগ সহ বিভিন্ন দলের কার্যক্রম আবার শুরু হলে মিনিস্টার আব্দুছ সালাম ১৯৭৬ সালে বাংলাদেশ মুসলিম লীগ এর সিলেট জেলা শাখার সভাপতি নির্বাচিত হন।

১৯৮৬ সালে তৃতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এরশাদ সরকারের আমলে সে নির্বাচনে এমপি নির্বাচিত হন ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মাহমুদুর রহমান মজুমদার। তিনি ১৯ ডিসেম্বর ২০১২তারিখে ইন্তেকাল করেন। ব্রিগেডিয়ার মজুমদার ১৯৭১ সালের মার্চ মাসে চট্টগ্রামের ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্ট সেন্টারের কমান্ড্যান্ট (ইবিআরসি) ছিলেন। ওই সময় তিনিই পূর্ব পাকিস্তানে কর্মরতদের মধ্যে সর্ব জ্যেষ্ঠ বাঙালি অফিসার ছিলেন। সে সময় তিনি সরাসরি জিয়াউর রহমানের বস ছিলেন। পাকিস্তানি বাহিনী ২৫ মার্চের রাতেই ব্রিগেডিয়ার মজুমদারকে গ্রেপ্তার করে পাকিস্তানে পাঠিয়ে দেয়। দেশ স্বাধীন হলে ডিসেম্বর মাসে বন্দী অবস্থা থেকে ছাড়া পান এবং অন্যান্য বাঙালি সেনা কর্মকর্তার সঙ্গে কনসেনট্রেশন ক্যাম্পে আটক থাকেন। ১৯৭৩ সালে দেশে ফেরত আসেন।
১৯৮৬ সালের সে নির্বাচনে জনদলের প্রার্থী এমএ হক নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি ছিলেন। তিনি এরশাদ সরকারের ভূমি মন্ত্রী থাকলেও নির্বাচনে আগে তাঁর মন্ত্রীত্ব চলে যায়। পরে হুমায়ুন রশীদ চৌধুরী এরশাদের মন্ত্রী হন।

চতুর্থ সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় ১৯৮৮ সালে। বিএনপি-জামায়াত সহ দেশের প্রায় সকল রাজনৈতিক দল এই নির্বাচন বয়কট করে। সেই পাতানো নির্বাচনে বিরোধি দল হয় জাসদ এবং বিরোধি দলীয় নেতা হন জাসদের আসম রব। একতরফা এবং বিতর্কিত নির্বাচনে আবারো এমপি নির্বাচিত হন ব্রিগেডিয়ার মজুমদার। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি ছিলেন জাসদের প্রার্থী আব্দুল হামিদ।

খালেদা জিয়া সরকার গঠন করেন ১৯৯১ সালে। এ নির্বাচন দেশে বিদেশে গ্রহনযোগ্য হয় এবং নিরপেক্ষ নির্বাচন হিসেবে বিবেচিত। সে সময় সারাদেশে ধানের শীষ এবং নৌকার সয়লাব হলেও এখান থেকে মিনার প্রতীক নিয়ে পাশ করেন ইসলামী ঐক্যজোটের প্রার্থী এবং খেলাফত মজলিসের কেন্দ্রীয় নেতা মাওলানা ওবায়দুল হক। আল্লামা ওবায়দুল হক রানাপিং মাদ্রাসার মুহাদ্দিস ছিলেন এবং আলেম হিসেবে সর্বমহলে গ্রহণযোগ্য ছিলেন। ৫ম সংসদে ইসলামী ঐক্যজোটের একটি মাত্র আসন ছিল। সেটি এই সিলেট-৫। বিএনপির প্রভাবশালী কেন্দ্রীয় নেতা হারিছ চৌধুরীও সে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেন। কিন্তু তাঁর মতো এই বড় মাপের নেতা ধানের শীষ নিয়ে জামানতও ধরে রাখতে পারেননি। ফলে অভিমান করে তিনি আর নির্বাচনে দাঁড়াননি। ১৯৯১ সালের নির্বাচনে নৌকা প্রতীক নিয়ে আওয়ামী লীগের প্রার্থী এবং দাঁড়িপাল্লা প্রতীক নিয়ে জামায়াতের প্রার্থী সম্মানজনক ভোট পেয়েছিলেন। উল্লেখ্য, হারিছ চৌধুরী নিজ বাড়ির কেন্দ্র তথা দর্পনগর কেন্দ্রে ফরিদ উদ্দীন চৌধুরী বিজয়ী হয়েছিলেন।

একটি মাত্র নির্বাচনে বিএনপির প্রাথী বিজয়ী হয়েছিলেন। ১৯৯৬ সালের সেই এক তরফা ও প্রহসনের নির্বাচনে মাত্র কয়েকদিনের জন্য এমপি নির্বাচিত হয়েছিলেন আবুল কাহির চৌধুরী। কিছু দিন পর যখন দেশে ষষ্ঠ সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়, সে নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করে জামানতও রক্ষা করতে পারেননি হারিছ চৌধুরীর মামা মতিন চৌধুরী। এ নির্বাচনে বিজয়ী হন আওয়ামী লীগের হাফিজ আহমদ মজুমদার। নির্বাচনে দিন পর্যন্ত ভোটের হিসেবে এগিয়ে ছিলেন জামায়াতের মাওলানা ফরিদ উদ্দীন চৌধুরী। পরবর্তীতে স্থগিত হওয়া কেন্দ্রে ভোটের মধ্য দিয়ে হাফিজ আহমদ মজুমদার পাশ করেন। জকিগঞ্জ উপজেলার বলরামের চক গ্রামের স্থায়ী বাসিন্দা হলেও হাফিজ আহমদ মজুমদারের জন্ম ১৯৩৩ সালের ২৯ শে মার্চ ভারতের করিমগঞ্জের নওজিস নগরে। দেশ ভাগের পর তারা বলরামের চক গ্রামে স্থায়ী হন।

ছিয়ানব্বইর সে নির্বাচনে ইসলামী দলগুলো ভাল ভোট পায়। খেজুর গাছ নিয়ে মাওলানা আলিমুদ্দীন দুর্লভপুরী, ঘড়ি মার্কা নিয়ে ফুলতলী পীরের প্রার্থী মাওলানা হাবিবুর রহমান ৩য় ও ৪র্থ অবস্থানে ছিলেন। তারা ভাল ভোট পেয়েছিলেন। লাঙল প্রতীক নিয়ে সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান এমএ রকিব খুব একটা ভোট টানতে পারেননি।

চারদলীয় জোটের প্রার্থী হিসেবে ২০০১ সালে মাওলানা ফরিদ উদ্দিন চৌধুরী বিজয়ী হন। ১৯৪১ সালে জামায়াতে ইসলামী প্রতিষ্ঠার পর সিলেট বিভাগের কোন আসনে এটাই জামায়াতের প্রথম জয়লাভ। ফরিদ উদ্দীন চৌধুরী কানাইঘাট উপজেলার তালবাড়ী গ্রামের স্থায়ী বাসিন্দা। তাঁর পিতা একজন বড় আলেম ও পীর ছিলেন। আওয়ামী লীগের প্রার্থী হাফিজ আহমদ মজুমদার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি ছিলেন। জাতীয় পার্টির প্রার্থী রেয়াজুল হক অল্প সংখ্যক ভোট পান।

২০০৭ সালের ২২ জানুয়ারীর বাতিল হওয়া নির্বাচনে এখান থেকে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী ছিলেন ফুলতলী পীর সাহেবের ছেলে মাওলানা হুসামউদ্দীন চৌধুরী ফুলতলী। পরে ২০০৮ সালের নির্বাচনে হুসাম উদ্দীনকে নৌকা প্রতীক দেওয়া হয়নি। সে নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হাফিজ আহমদ মজুমদার পাস করেন এবং নিকটমতম প্রতিদ্বন্দ্বি ছিলেন মাওলানা ফরিদ উদ্দীন চৌধুরী।

সেই ১৫ ফেব্রুয়ারীর পর আরেকটা এক তরফা নির্বাচন হয় ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারী। এটা আরো বেশি এক তরফা ছিল। ১৫৪ জন এমপি হন বিনা ভোটে। সিলেট-৫ আসন থেকে এমপি হন সেলিম উদ্দীন। ‍প্রকৃত অর্থে নির্বাচন হলে ছিয়াননব্বইতে ধানের শীষ নিয়ে বিএনপির কাহির চৌধুরী যেমন এমপি হওয়ার স্বপ্নও দেখতে পারতেন না; তেমনি কোন রকম একটা নির্বাচন হলেও জাতীয় পার্টির সেলিম উদ্দীনও এমপি হতে পারতেন না।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সাবেক দুই এমপি মাওলানা ফরিদ উদ্দীন চৌধুরী ও হাফিজ আহমদ মজুমদার এবং বর্তমান এমপি সেলিম উদ্দীন প্রার্থী হয়েছেন। এছাড়া অতীতে এই আসনে বিজয়ী দল জমিয়তে উলামায়ে ইসলামও এখানে প্রার্থী দিয়েছে। মাওলানা উবাইদুল্লাহ ফারুক জমিয়তের প্রার্থী। তাঁর খালাতো ভাই বিএনপি নেতা মামুুনুর রশীদও এখানে নমিনেশন জমা দিয়েছেন। অতীতে কখনো প্রার্থী না দিলেও এবার চরমোনাই পীরের দলও এখানে প্রার্থী দিয়েছে।

সিলেট-৫ (কানাইঘাট-জকিগঞ্জ) আসনে জাতীয় নির্বাচনে একটু ভিন্ন হিসেব কাজ করে সব সময়। অতীতের নির্বাচনগুলোকে বিশ্লেষণ করলে দেখা যায় যে, প্রকৃত নির্বাচন হলে এখানকার ভোটাররা স্রোতের সাথে গা ভাসিয়ে ভোট দেয় না। নিজেদের পছন্দের প্রার্থীকেই ভোট দেয়। সরকার কে গঠন করবে- এমন চিন্তা থেকে এখানকার ভোটাররা ভোট দেয় না। ভোট দেয় নিজেদের ইচ্ছার প্রতিফল ঘটানোর জন্য। এখানকার ভোটাররা সাধারণত কোন ইসলামী দলের প্রার্থীকেই ভোট দিতে পছন্দ করে। দেখা যাক, আসছে নির্বাচনে কার গলে উঠবে বিজয় মাল্য…

লেখক: সাংবাদিক ও পিএইচডি গবেষক, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

এই সংবাদটি 1,233 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com