সোমবার, ০৮ এপ্রি ২০১৯ ০৯:০৪ ঘণ্টা

আমার দৃষ্টিতে জমিয়তি এবং দেওবন্দী

Share Button

আমার দৃষ্টিতে জমিয়তি এবং দেওবন্দী

সৈয়দ মবনু : আমি মনে করি দেওবন্দ একটি জায়গার নাম হলেও দেওবন্দী কোন জায়গার নাম নয়। দেওবন্দি হলো একটি দর্শনের নাম। তেমনি জমিয়তও কোন দলের নাম নয়, জমিয়ত হলো একটি দর্শনের নাম। দেওবন্দ মাদরাসার প্রতিষ্ঠাতাদের অন্যতম ব্যক্তিত্ব আল্লামা কাসেম নানতুবি হলেও এই দর্শনের উৎপত্তি শায়খুল হিন্দ মাহমুদুল হাসান (র.)-এর বাপ-চাচার ঘরে। আল্লামা কাসেম নানতুবির নাম দেওবন্দের প্রতিষ্ঠাতা হিসাবে আসলেও মূলত এই মাদরাসা প্রতিষ্ঠার মূল পরিকল্পক শায়খুল হিন্দ মাহমুদুল হাসান (র.)-এর পরিবার। কাসেম নানতুবী নিজেও ছিলেন এই পরিবারের ছাত্র। বৃটিশ বিরোধী আন্দোলনের নেতা হওয়ায় মামলা এবং পুলিশী হুলিয়ার কারণে কাসেম নানতুবি দেওবন্দে তেন অবস্থান করতে পারেননি। যেহেতু দেওবন্দ শায়খুলহিন্দের বাপ-দাদার বসতি, তারা সার্বক্ষণিক থাকতেন মাদরাসার আশপাশেই। তাই এই মাদরাসা প্রথম থেকেই এই পরিবারের চিন্তার আদলে গঠিত। অতঃপর এই মাদরাসার প্রথম ছাত্র শায়খুল হিন্দ মাহমুদুল হাসান (র.) যখন এই মাদরাসার পরিচালক হলেন তখন গঠন করেন জমিয়তে আনসার। এই জমিয়তে আনসারের চিন্তাই মূলত জমিয়তি চিন্তা। চিন্তা চেতনায় দেওবন্দ আর জমিয়ত মূলত এক জিনিষ।
তাই আমি ব্যাপক অর্থে জমিয়তি বলেতে বুঝি তাদেরকে যারা দেওবন্দী আন্দোলনের সাথে সম্পার্কিত কিংবা সহমতকারি। যারা দেওবন্দের চিন্তাকে ধারণ করে সেখানের কিংবা অন্যকোন প্রতিষ্ঠানের ছাত্র, বা দেওবন্দী পিরের এই শিষ্য যে এই চিন্তার সাথে সম্পার্কিত। পৃথিবীতে এমন একজন দেওবন্দি পাবেন না যিনি চিন্তার দিকে জমিয়তকে অপছন্দ করেন।

এই বিষয়গুলো আরও ব্যাপকভাবে আমি আলোচনা করেছি আমার ‘দ্রাবীড় বাংলার রাজনীতি’ গ্রন্থে। আমি সেখানে প্রমাণসহ স্পষ্ট করেই বলেছি, বাংলাদেশের মুসলিম এবং ইসলামিক সকল সংগঠনের মা হলো জমিয়ত। তাই আমি বলি, জমিয়তকে বুঝতে হলে জমিয়তিদের শ্রেণী ভাগ করে বুঝতে হবে।
১. জমিয়তের দলীয় কর্মি। যেখানে আছে দুই ভাগ। প্রথমভাগে তারা যারা জমিয়তি চিন্তা বুঝে জমিয়ত করেন। দ্বিতীয়ভাগে তারা যারা বাপ-দাদার কারণে জমিয়ত করেন। তৃতীয়ভাগে তারা যারা স্বার্থগত কারণে জমিয়ত করেন।
২. জমিয়তের চিন্তাগত কর্মি। যেখানে আছেন তারা যারা দলীয়ভাবে জমিয়ত না করলেও জমিয়তের চিন্তার বাইরে যেতে পারেন না। তারা বিভিন্ন দলে বিভক্ত হলেও মনের দিকে জমিয়তি চিন্তাকে লালন করেন। ওরা কোনদিন দল করেন না এবং দলের কাছেও যান না। তবে অনুষ্ঠানাদিতে জমিয়তি এবং দেওবন্দিদেরকে দেখতে পছন্দ করেন।
৩. আকিদাগত এবং মাসআলাগত বিষয়াদিতে দেওবন্দি।
এই তিন শ্রেণীর দেওবান্দিরাই মূলত জমিয়তি। আপনার দ্বিতম থাকতে পারে। তবে সত্যনিষ্ট গবেষণায় তা সত্য বলেই পাবেন। চিন্তা করুন চিন্তকেরা। বিষয়টিকে ঐতিহাসিক দৃষ্টিতে বুঝার জন্য দেখতে পারেন ‘দ্রাবীড় বাংলার রাজনীতি’ বইটি ।

এই সংবাদটি 1,014 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com