শুক্রবার, ০২ আগ ২০১৯ ০৪:০৮ ঘণ্টা

শায়খুল হাদিস মুকাদ্দাস আলী : টানা ৬৩ বছর ধরে যে মনীষী সহিহ বুখারির দরস দিচ্ছেন

Share Button

শায়খুল হাদিস মুকাদ্দাস আলী : টানা ৬৩ বছর ধরে যে মনীষী সহিহ বুখারির দরস দিচ্ছেন

হামমাদ রাগিব

নিজের এলাকার মানুষের কাছে ‘মাটিয়া ফেরেশতা’ নামে মশহুর তিনি। একদিকে যেমন ইলমে হাদিসের ওপর অগাধ পাণ্ডিত্য, অন্যদিকে নিভৃতচারিতা ও বুজুর্গিতে অতুলনীয় হয়ে আছেন সিলেটের জকিগঞ্জ এলাকার ধর্মপ্রাণ জনগোষ্ঠীর কাছে। টানা ৬৩ বছর ধরে দেশের সীমান্ত অঞ্চল সিলেটের জকিগঞ্জে নিভৃতে বসে হাদিস শাস্ত্রের সবচেয়ে বিশুদ্ধ সংকলন সহিহ বুখারি শরিফের দরস প্রদান করে আসছেন। বাংলাদেশে একাধারে এত দীর্ঘকাল সহিহ বুখারির দরস প্রদানের সৌভাগ্য আর কোনো শায়খুল হাদিসের হয়নি বলে অভিমত বিজ্ঞজনদের। কেউ কেউ বলছেন পুরো উপমহাদেশেও দ্বিতীয় কোনো মনীষী নেই এমন, যিনি এত দীর্ঘকালব্যাপী বুখারির দরস প্রদান করেছেন।

শায়খুল হাদিস আল্লামা আজিজুল হক রহমাতুল্লাহি আলায়হি ‘শায়খুল হাদিস’ হিসেবে মশহুর ছিলেন, কিন্তু তাঁর বুখারি পড়ানোর মেয়াদকালও হাদিস শাস্ত্রের জীবন্ত এ কিংবদন্তিকে স্পর্শ করতে পারেনি। শায়খুল হাদিস রহমতুল্লাহি আলায়হি ১৯৫৫ সালে বুখারি পড়ানো শুরু করেন, এবং ২০১০ সালে তাঁর ইন্তেকাল হয়, সে-হিসেবে তাঁর বুখারি পড়ানোর মেয়াদকাল সর্বোচ্চ ৫৬ বছর। অপরদিকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বড়হুজুর খ্যাত হজরত আল্লামা সিরাজুল ইসলাম রহমতুল্লাহি আলায়হি দীর্ঘ সাত দশক ধরে ইলমে হাদিসের খেদমত করে গেলেও তাঁর বুখারি পড়ানোর মেয়াদকাল ছিল ৪০ বছর।

১৩৭৭ হিজরিতে ভারতের দারুল উলুম দেওবন্দে পড়াশোনা শেষ করে পরের বছর ১৩৭৮ হিজরিতেই হজরত মাওলানা মুকাদ্দাস আলী দামাত বারাকাতুহু নিজের এলাকা সিলেটের জকিগঞ্জের ঐতিহ্যবাহী জামেয়া ফয়েজিয়া মুনশিবাজার মাদরাসায় দরসে বুখারির উস্তাদ হিসেবে নিয়োগ পান। তারপর থেকে এখানেই তিনি একাধারে ৬৩ বছর যাবত বুখারি শরিফের দরস দিয়ে আসছেন। মাঝখানে একবার দু’বছরের জন্য সিলেটের আঙ্গুরা-মুহাম্মদপুর মাদরাসায় শায়খুল হাদিস হিসেবে ছিলেন, তারপর আবার ফিরে আসেন মুনশিবাজারে।

সিলেটের জকিগঞ্জ উপজেলার ‘বারগাত্তা’ গ্রামে ১৩৪০ বঙ্গাব্দের ২০ চৈত্র (হিজরি সন আনুমানিক ১৩৫২, ইংরেজি ১৯৩৩) তারিখে তাঁর জন্ম। ছেলেবেলা বাবাকে হারান, মায়ের অন্যত্র বিয়ে হয়ে গেলে প্রথমে ফুফুর কাছে, তারপর নানার কাছে লালিত-পালিত হন। মা-বাবাহীন শৈশব-কৈশোরের নানা প্রতিকূলতা ডিঙিয়ে মাওলানা মুকাদ্দাস আলী জালালাইন পর্যন্ত পড়াশোনা করেন সিলেট অঞ্চলের কয়েকটি মাদরাসায়। সিলেটে তখন শায়খুল ইসলাম হুসাইন আহমদ মাদানি রহমতুল্লাহ আলায়হির তুমুল জনপ্রিয়তা। মাদানির বেশ কয়েকজন খলিফার সাহচর্য ও শিষ্যত্ব লাভ করার সৌভাগ্যও অর্জন করেন তিনি জালালাইন পর্যন্ত পড়তে পড়তে।

জালালাইন শেষ করে ১৩৭৪ হিজরিতে পাড়ি জমান ভারতের দারুল উলুম দেওবন্দের উদ্দেশ্যে। দেওবন্দে তিন বছর ‘ফুনুনাত’ পড়ে ১৩৭৭ হিজরিতে ভর্তি হন দাওরায়ে হাদিসে। বুখারি শরিফের দরস ও সনদ গ্রহণ করেন হজরত ফখরুদ্দিন মুরাদাবাদী রহ.-এর কাছ থেকে। কারি তৈয়্যব রহ. তখন মুআত্তান পড়ান। তাঁর কাছ থেকে মুআত্তানের ইজাজত পান।

মাওলানা মুকাদ্দাস আলী যে বছর দাওরা পড়েন, তার মাত্র বছর দুয়েক আগে হজরত মাদানি রহমতুল্লাহ আলায়হির ইন্তেকাল হয়। তাই বুখারি শরিফের দরস মাদানি’র কাছ থেকে আর নেওয়া হয়নি তাঁর। তবে দেওবন্দে দাওরা পরীক্ষার পর মাজাহেরুল উলুম সাহারানপুর গমন করে কিছুদিন শায়খুল হাদিস জাকারিয়া রহমতুল্লাহ আলায়হির সাহচর্য নেন এবং তাঁর কাছ থেকে বুখারি শরিফের লিখিত ইজাজত লাভ করেন।

কিংবদন্তীতুল্য একজন শায়খুল হাদিস হবার পাশাপাশি মাওলানা মুকাদ্দাস আলী উঁচুমাপের একজন বুজুর্গ ব্যক্তিত্বও। শায়খুল ইসলাম হুসাইন আহমদ মাদানি রহমতুল্লাহ আলায়হির অন্যতম খলিফা কায়েদে উলামা হজরত আবদুল করীম শায়খে কৌড়িয়া রহমতুল্লাহ আলায়হির অন্যতম খলিফা তিনি। প্রতিবছর রমজানের শেষ দশকে বিভিন্ন অঞ্চল থেকে লোকজন জকিগঞ্জ ছুটে যান তাঁর সাহচর্যে থেকে এতেকাফ করার জন্য।

ইতিমধ্যে আধ্যাত্মিক তরিকায় বেশ কয়েকজন ব্যক্তিত্বকে তিনি খেলাফত দান করেছেন। তাঁদের মধ্যে অন্যতম কিশোরগঞ্জের জামিয়া ইমদাদিয়ার শায়খুল হাদিস আল্লামা শফিকুর রহমান জালালাবাদী দামাত বারাকাতুহুম। আল্লামা জালালাবাদী প্রতিবছর রমজানের শেষ দশকে কিশোরগঞ্জ থেকে ছুটে আসেন তাঁর শায়খের সাহচর্যে এতেকাফের জন্য।

সিলেটে খানকাওয়ারি আধ্যাত্মিক মেহনত এখন নেই বললেই চলে। বিশুদ্ধ আধ্যাত্মিক মেহনতের চর্চাকেন্দ্র হিসেবে একসময় সিলেটের খ্যাতি থাকলেও এখন সেই জৌলুস আর মুজাহাদা খুব একটা চোখে পড়ে না। জানামতে, বর্তমান সিলেটে খানকাওয়ারি মেহনতের ধারাটি জকিগঞ্জের মুনশিবাজার মাদরাসা মসজিদেই কেবল চালু আছে। আর খানকার পুরোধা ব্যক্তিত্ব হিসেবে আছেন আমাদের আজকের আলোচ্য মনীষী আল্লামা মুকাদ্দাস আলী দামাত বারাকাতুহ।

আল্লামা মুকাদ্দাস আলীর জীবন ও কর্ম নিয়ে সিলেটের উলামায়ে কেরাম ‘হায়াতে মুকাদ্দাস’ নামে সমৃদ্ধ একটি স্মারকও সংকলন করেছেন ইতিমধ্যে। আল্লাহ তাআলা বাংলার জীবন্ত কিংবদন্তি এ শায়খুল হাদিসের নেক হায়াত দীর্ঘায়িত করুন।

এই সংবাদটি 1,109 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com