শুক্রবার, ২৭ সেপ্টে ২০১৯ ০২:০৯ ঘণ্টা

বাংলা সাহিত্যে মাওলানা নূর মোহাম্মদ আ’জমীর অবদান

Share Button

বাংলা সাহিত্যে মাওলানা নূর মোহাম্মদ আ’জমীর অবদান

মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী : ইসলামকে ধারণ করে এদেশে সাহিত্য রচনা কমকরে হলেও হয়েছে। সাধারণত আমাদের কবি সাহিত্যিকদের লেখায় ইসলামের গৌরবময় ঐতিহ্য ওঠে আসে না৷
অনেক প্রতিকুল অবস্থায় জীবন যৌবন বির্সজন দিয়ে কুরআন-সুন্নাহ নির্ভর বাংলা সাহিত্যে যে ক’জন আলেম অবদান রেখেছেন তাদের মধ্যে অন্যতম হলেন মাওলানা নূর মোহাম্মদ আজমী। আলেম সমাজের বাংলাভাষায় স্বীকৃত সাহিত্যচর্চার সূচনা মূলত এ দেশের আলোকিত ব্যক্তিত্ব মুজাহিদে আজম আল্লামা শামছুল হক ফরিদপুরী (রহ.)-এর হাত ধরে। এক্ষেত্রে মাসিক মদীনা সম্পাদক মাওলানা মুহিউদ্দীন খান (র) সীরাত সাহিত্যের নতুন দিকপাল। মাওলানা আজমী ইসলামী সাহিত্যের মিনারে অন্যতম মুআজ্জিন ছিলেন৷ বাঙালি মুসলমান সবাই উর্দূ, আরবি, ফার্সি শিখে ইসলাম সম্পর্কে জানবে অথবা জানতে হবে। এ ধরণের মানসিকতা অনাধুনিক ও অযৌক্তিক। অযৌক্তিক এই প্রবনতার বিরুদ্ধে অবিভক্ত বাংলায় যে ক’জন মনীষী কথা ও কাজে এগিয়ে এসেছিলেন মাওলানা নূর মোহাম্মদ আজমী।
মুনসী মেহেরুল্লাহ, ইসমাঈল হোসেন সিরাজী, নাসির উদ্দীন, মাওলানা আকরম খাঁ, ড. মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ, কবি নজরুল ইসলাম, মৌলভী ফজলুল হক সেলবর্ষী, মুহাম্মদ নূরুল হক, ইব্রাহিম খাঁ, কবি গোলাম মোস্তফা,মুহিউদ্দীন খান, শিল্পী আব্বাস উদ্দিন প্রমুখ বাঙালি মুসলমানের জাগরণ ও অগ্রগতিতে যে অবদান রেখেছেন, মাওলানা আজমী তাদের উত্তরসুরী হিসেবে তেমনি অবদান রেখেছেন।
বাংলা সাহিত্যের একজন অনন্য ইসলামী ব্যক্তিত্ব মাওলানা নূর মোহাম্মদ আ’জমী। অত্যন্ত অনুসন্ধিৎসু গবেষক বাংলা সাহিত্যের প্রচুর পড়াশোনা করেন। তিনি আজাদ পত্রিকায় লিখতেন। পঞ্চাশের দশকে জমিয়তুল মুদাররেসীনের মুখপত্র সাপ্তাহিক তালিম এর সম্পাদক ছিলেন। এদেশের ধর্মীয় শিক্ষা ব্যবস্থায় মাতৃভাষা বাংলাকে প্রতিষ্ঠিত করার জন্য অনেক সংগ্রাম-ত্যাগ স্বীকার করেছেন। ১৯৩৭ সালে মাদরাসা শিক্ষকদের সংগঠন ’’ জমিয়তুল মুদাররেসীন’’ গঠনে বিরাট ভূমিকা রাখেন। ১৯৪৪ সালে ফেনী থেকে কলকাতা চলে যান। সেখানে দুই বছর ইম্পোরিয়াল লাইব্রেরী ও মাদরাসা আলিয়ার কুতুব খানায় জ্ঞান আহরণে নিয়োজিত ছিলেন। তিনি চাইতেন যুগের চ্যালেন্জ মোকাবেলায় মাদরাসা ছাত্ররা গড়ে উঠুক। এজন্য ৬০ এর দশকে ইসলামি আরবী বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার আন্দোলনে নেতৃত্বদেন। ১৩৭৬ হিজরীর ১লা মুহাররম মোতাবেক ৭ ই আগষ্ট ১৯৫৬ ঈসায়ী মেশকাত শরীফের বঙ্গানুবাদ ও ব্যাখ্যা লেখা শুরু করেন। এপ্রসঙ্গে বিখ্যাত আলেম মাওলানা শামছুল হক ফরিদপুরী (র) বলেন: মাওলানা নূর মোহাম্মদ আ’জমী ছাহেব তাঁর মেশকাত-অনুবাদের ভূমিকায় ‘ হাদীছের তত্ত্ব ও ইতিহাস’ নামে হাদীছ সম্পর্কে উম্মতে মোহাম্মদীর এ সকল তৎপরতরই বিশদ আলোচনা করেছেন। অত:পর তিনি মূল কিতাবের বঙ্গানুবাদ ও ব্যাখ্যা করেন। ব্যাখ্যায় তিনি দৃঢ়তার সহিত মোতাকাদ্দিমীনদের মতেরই অনুস্মরণ করেছেন। আমার মতে বাংলা ভাষায় মেশকাত শরীফের সুষ্ঠু ও নির্ভরযোগ্য অনুবাদ এটাই প্রথম। আর এর ভূমিকায় অর্থাৎ ‘ হাদীছের তত্ত্ব ও ইতিহাস’ এর ন্যায় একটি মূল্যবান কিতাব বাংলা ভাষায় কেন উর্দু প্রভৃতি ভাষায় লেখা হয়েছে বলে আমার জানানেই। সত্যিই উহা বাংলা সাহিত্যের একটি অবদান। ’’
কলিকাতা আলিয়া মাদরাসার মোহাদ্দিছ ও সিলেট আলিয়ার সাবেক অধ্যক্ষ বাহরুল উলুম মাওলানা মোহাম্মদ হোছাইন মতে: ‘অত্যন্ত সুখের বিষয় যে, মাওলানা নূর মোহাম্মদ আ’জমী ছাহেব তাঁর র্দীঘ অর্ধ শতাব্দীর অক্লান্ত সাধনাকে ইসলামের এই খেদমতের জন্য নিয়োজিত করেছেন এবং কয়েক বৎসরের অক্লান্ত পরিশ্রমের পর মেশকাত শরীফের অনুবাদের ভূমিকাস্বরূপ তিনশত পৃষ্ঠায় এলমে হাদীছের তত্ত্ব ও ইতিহাস জাতিকে উপহার দিয়েছেন।’
স্বনামখ্যাত শিক্ষাবিশারদ ও বহু ভাষাবিদ ড. মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ বলেন, মৌলানা সাহেব এই তথ্যপূর্ণ গ্রন্থ রচনা করে বাংলা ভাষায় ইসলামী সাহিত্যের একটি বড় প্রশংসনীয় খিদমত করেছেন।’
এছাড়া বাংলা একাডেমি সংকলিত বাংলা ইসলামী বিশ্বকোষের সহসম্পাদক আবুল কাসিম মুহাম্মদ আদমুদ্দীন,
ঢাকা জগন্নাথ কলেজের সাবেক প্রিন্সিপাল শায়খ শরফুদ্দীন বাংলা ভাষায় তার অবদানের স্বীকৃতি প্রদান করেছেন।
(সুত্র: হাদীছের তত্ত্ব ও ইতিহাস)।
মাসিক মদীনা সম্পাদক মাওলানা মুহিউদ্দীন খান বলেন-“পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার পর নতুন এ দেশটিকে ইসলামী আদর্শের উপর গড়ে তোলার লক্ষ্যে শীর্ষস্থানীয় ওলামায়ে কেরামগণ পরিকল্পনা গ্রহণ করেন। এদের মধ্যে অগ্রগণ্য ছিলেন মাওলানা শাব্বীর আহমদ উসমানী (র.), মুফতী মুহম্মদ শফী (র.), মাওলানা এহতেশামুল হক থানভী (র.), মাওলানা আতহার আলী (র.), ব্রাহ্মণ বাড়ীয়ার মাওলানা তাজুল ইসলাম (র.) প্রমুখ। ইসলামী শাসন ব্যবস্থার পরিপূর্ণ রূপরেখা বাংলা ভাষায় রচনা করে জনগণের সামনে তুলে ধরার উদ্দেশ্যে বর্ষীয়ান গবেষক আলেম মাওলানা নূর মুহাম্মদ আজমী (র.), সিলেটের মাওলানা সাখাওয়াতুল আম্বিয়া, বিভাগ-পূর্বকালে কলকাতা থেকে প্রকাশিত দৈনিক নবযুগ পত্রিকার স্বনামধন্য সম্পাদক মাওলানা আহমদ আলী, ঢাকা ইসলামিয়া হাইস্কুলের তখনকার প্রধান শিক্ষক মৌলবী আব্দুল খালেক, আহলে হাদীসজামাত প্রধান মাওলানা আব্দুল্লাহিল কাফী আল কুরাইশী (র.), সাপ্তাহিক আরাফাত সম্পাদক মৌলভী আব্দুর রহমান প্রমুখ সে সময়কার সেরা ইসলামী গবেষকগণও সমবেত হয়ে ইসলামী গবেষণা পরিষদ নামে একটি সংস্থা গঠন করেন। সংস্থাটির প্রধান সমন্বয়কারীর দায়িত্ব প্রদান করা হয় হযরত মাওলানা উবায়দুল হক (র.)-এর ওপর”। (সুত্র: সাপ্তাহিক মুসলিম জাহান ১৪ নভেম্বর ২০০৭, খতীব উবায়দুল হক স্মরণ সংখ্যা, ঐক্যের প্রতীক খতিব মাওলানা উবায়দুল হক (র)/রুহুল আমীন নগরী। প্রকাশ কাল -১৮ নভেম্বর ২০০৭ ঈসায়ী। )
হাদীছের তত্ত্ব ও ইতিহাস গ্রন্থটি বাংলা সাহিত্যে অভিনব বস্তু। কারণ, হাদীছ তত্ত্ব বা উছুলে হাদীছ ও হাদীছের ইতিহাস সম্বন্ধে স্বয়ংসর্ম্পূণ কোন গ্রন্থ বাংলা ভাষায় তার আগে কেউ রচনা করেননি। এদিকদিয়ে মাওলানা আজমী (র) বাংলা ভাষার ও বাংলাভাষী জ্ঞান পিপাসুদের একটি বিরাট অভাব মোচন করে বাংলাভাষী পাঠকদের সম্মুখে এক নতুন দিগন্তের দ্বার উন্মোচিত করলেন। উপমহাদেশের অধিবাসীগণ বিশেষ করে আজকের সময়ে যারা কুরআন-হাদীছ চর্চা করছেন তার কাছে চির ঋণীই থাকতে হবে।
রচনাবলী: ১. হাদীছের তত্ত্ব ও ইতিহাস ২. মেশকাত শরীফের অনুবাদ ৩. উনবিংশ শতাব্দীর আলেম সমাজ ও রাজনীতি ৪.খোলাফায়ে রাশেদিনের আর্দশ ৫.ইসলামের সমাজ ব্যবস্থা ৬. ইসলামের অর্থব্যবস্থা ৭.ইসলাম ও পাশ্চাত্য জগত ৮.ইসলামের ভূমি ব্যবস্থা ৯. বাংলা সাহিত্যে ইসলামের প্রচার। (সুত্র: বাংলার বরেণ্য আলেম/ সালাহউদ্দীন জাহাঙ্গীর)
জন্ম পরিচয়: তৎকালীন নোয়াখালী জেলার ফেনী মহকুমার নেয়াজপুর গ্রামে ১৯০০ ঈসায়ীর ১২ ই ডিসেম্বর মোতাবেক ১৩০৭ বাংলার পৌষ মাসের কোন এক রবিবারে মাওলানা আজমীর জন্ম। পিতা শেখ আলী আজম মোল্লা। মাতা রহীমুন্নেছা খাতুন। নানার নাম মোহাম্মদ হাতেম মুন্সী। পিতামহ মনিরুদ্দীন ফরাজী। এবং পর দাদা শায়খ ছমী ফরাজী চরপারবতীর অধিবাসী ছিলেন। তার প্রপিতামহ হাজী শরিয়তুল্লাহর অনুসারী ছিলেন বলেই নামের সাথে ’ফরাজী’ শব্দ ব্যবহার করতেন। চার ভাই ও তিন বোনের মধ্যে তিনি সবার বড়। তার মাতা ও নানা অত্যন্ত পরহেযগার ছিলেন। বিশিষ্ট মুহাদ্দিস মাওলানা শামছুল হক মাছিপুরী তার ছোট ভাই। উপমহাদেশের অন্যতম হাদীস বিশারদ মাওলানা আজমী পিতার নিকট বাংলা বর্ণমালা, মুন্সী হাতেমের নিকট কুরআন মজিদ ও র্ফাসীর শিক্ষালাভ করেন। ১৯২০-২১ সালে চট্রগ্রামের আবুরহাট মাদরাসায় মরহুম মৌলভী এলাহী বখশ ও মৌলভী মেহের উল্লাহর নিকট জামাতে হাফতম ও শশম অধ্যয়ন করেন। ১৯২৫ সালে চট্রগ্রামের বিখ্যাত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান দারুল উলুম আলিয়া মাদরাসা থেকে ফাজিল ডিগ্রী অর্জন করেন। ১৯২৬ সালে ফেনীর বালুয়া চৌমুহনী মাদরাসা থেকে কর্মজীবন শুরু করেন। ১৯২৭ থেকে ৪৬ পর্যন্ত ফেনী আলিয়া মাদরাসায় অধ্যাপনায় নিযোজিত হন। তিনি দারুল উলুম দেওবন্দ এবং পাকিস্তানের মুফতি মোহাম্মদ শফী (র) এর সাথে চিঠি পত্রের মাধ্যমে যোগাযোগ রাখতেন। আধ্যাত্মিক জগতে তিনি হাটহাজারী মাদরাসার প্রতিষ্ঠাতা মাওলানা জমিরুদ্দীন (র) বায়াত ছিলেন। (সুত্র: যাঁদের ত্যাগে এ ইলম পেলাম/ মাওলানা মাহবুবুর রহমান নিজামী)
মৃত্যু: ১৯৭২ সালের ১৬ আগস্ট দিবাগত রাত সাড়ে ৯ ঘটিকার সময় নিজ বাড়ীতে ইন্তেকাল করেন। নিজ গ্রামের মসজিদ সংলগ্ন কবরস্থানে যুগশ্রেষ্ঠ এই মনিষীকে সমাহিত করা হয়।

লেখক : মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী। সম্পাদক-সিলেট রিপোর্ট। সাধারণ সম্পাদক-জালালাবাদ লেখক ফোরাম।
০১৭১৬৪৬৮৮০০।

এই সংবাদটি 1,003 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com