শনিবার, ০২ নভে ২০১৯ ০১:১১ ঘণ্টা

ইতালীতে রাষ্ট্রদূত ও কমিউনিটি নেতা মুখোমুখী!

Share Button

ইতালীতে রাষ্ট্রদূত ও কমিউনিটি নেতা মুখোমুখী!

ইতালী প্রতিনিধি:

বাংলাদেশ দূতাবাস ইতালী কর্তৃক সত্য গোপনের অভিযোগ নিয়ে ইতালীর প্রবীন কমিউনিটির নেতা বাচ্চুর স্ট্যাটাস নিয়ে প্রবাসীদের মধ্যে তোলপাড় শুরু হয়েছে। সিলেট রিপোর্টএর
পাঠকদের জন্য সেই স্ট্যাটাস হুবুহু তুলে ধরা হলঃ

একটি প্রশ্ন ও বাংলাদেশ দূতাবাস ইতালী কর্তৃক সত্য গোপন।
———– প্রিয় প্রবাসী ভাই ও বন্ধুগণ,
ইতালিতে 1987 সন থেকে বিভিন্ন সময় বাংলাদেশিরা ডকুমেন্টস পাওয়ার জন্য কেউ কারো নিজের নাম, জন্মস্থান, জন্ম তারিখ, মা- বাবার নাম এমনকি ভিন্ন ধর্ম ও ঘোষণা করেছে।
এগুলো করতে বাধ্য হয়েছিল ঐ সময় একটা কাগজ পাওয়ার জন্য। প্রেক্ষাপট ১৯৯০ সনে অনেকেই সেই সময় ইতালীতে তাহার উপস্থিতি প্রমাণের জন্য অন্যের চিঠি পত্র ব্যবহার করছেন।
একই ঘটনা ঘটছে ১৯৯৬-৯৮ সনে। আমাদের জানামতে ন্যূনতম এই নামের পরিবর্তন প্রায় 10 হাজার হবে ।
এরপর আসে নতুন প্রেক্ষাপট এবার যারা নতুন বাংলাদেশ সরকারের ডিজিটাল পাসপোর্ট হওয়ার পর নাম পরিবর্তন করছেন সেটার সংখ্যা প্রায় সাত থেকে আট হাজারের উপর হবে।
যারা রাজনৈতিক আশ্রয় চেয়েছেন, যারা লিবিয়া থেকে আসছে বিশেষ করে বর্ডার এলাকায় নিজের সেফটির জন্য সে তার নাম পরিবর্তন করে ফেলছে। আর পূর্বে যারা প্রায় 10 হাজারের মতো ছিল আমি বলছি 87 থেকে 2014 সেখানে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ইতালির তথ্য অনুযায়ী সাড়ে তিন হাজার লোক সঠিক তথ্যে ফেরত গেছে।
কিন্তু এখনো অনেকে যেতে পারে নাই, ফলে তাহাদের সমস্যা হচ্ছে সম্পত্তির বিষয়ে ওয়ারিশ সূত্র নিয়ে । মোটকথা বর্তমানে ইটালিতে প্রায় 10 হাজার লোক নিজেদের নাম, জন্মস্থান, জন্ম তারিখ নিয়ে সমস্যাতে আছে এবং এই বিষয়টি গতকাল যখন পররাষ্ট্রমন্ত্রীর নিকট উপস্থাপন করতে যাই ওই সময় আমাদের রাষ্ট্রদূত তার নিজের চেয়ারে বসে অবস্থানের মূল্যায়ন না করে হল একটি উত্তেজনা সৃষ্টি করার জন্য তিনি আমার এই তথ্যে বাধার সৃষ্টি করেন ।
শুধু তাই নয় তিনি বলেন এরকম তথ্য প্রমাণ না করতে পারলে তিনি এবং তার প্রশাসন নাকি আমাকে জেলে দিবেন ।
আপনারা আমলা হয়তো দু-চার পাঁচ বছরের জন্য এসেছেন, থাকবেন, চলে যাবেন কিন্তু সমাজ ব্যবস্থায় যারা সমস্যায় আছে, আমাদের কাছে সেই তথ্য গুলো থাকায় আমরা শুধু তথ্য দিতে চেষ্টা করি।
তারপরও আপনি যদি বলেন সংখ্যা 10 হাজার নয়, রোম দূতাবাসের রের্কড অনুযায়ী মাত্র 2000 এবং মিলানোর সম্বন্ধে আপনার সঠিক ধারণা নাই আপনি নিজেই বললেন।
আমার প্রশ্ন , সংখ্যা যদি 2000 বা তারও কম হয়, তাহলে সেটাই কেন সমাধানের জন্য আমরা মন্ত্রীর কাছে বলতে পারব না ?
আপনি বল্লেন, বাহবা পাওয়ার জন্য আমি এই মিথ্যা তথ্য দিচ্ছি।
জনাব রাষ্ট্রদূত সাহেব , স্বরন রাখবেন,
আমি কারো চাকুরী করি না,
কোন ধর্না ধরতে দূতাবাসে যাই না,
হয়তো মন্ত্রীর উপস্থিতিতে আপনি বিরাট ক্ষমতা রাখেন সেটা প্রমান করার জন্য একজন কথা বলতেছে সেখানে বাধার সৃষ্টি করেছেন, যাহা শিষ্টাচার পন্থি নয়।
—— আপনার দরখাস্ত , আর অঅমার বিপক্ষে বাংলাদেশ প্রশাসনকে নোট দিবার হুমকি একটু কম দিবেন।
যাহারা আপনাদের থেকে স্বার্থ উদ্ধার করে , তাহাদেরকে ঐ প্রকার হুমকি দিবেন , মুখ বুঝে সহ্য করবে।
আপনার সর্ব
উচ্চ ক্ষমতা আছে আমার পাসপোর্ট নবায়ন না করার আর আমার সন্তানদেরকে পাসপোর্ট না দিবার। এর বাহিরে কোন প্রকার ক্ষমতা আপনি রাখেন না।
———– আপনার দূতাবাসে, কখনো যাই না, পাসপোর্ট বিষয ছাড়া যাওয়া প্রয়োজন নাই।
সুতরাং দূতাবাসে গেলে আপনি যে মামলা করবেন সেই সুযোগও নাই।
————- যাই হউক, আপনি আপনার ক্ষমতা ব্যবহার করতে থাকুন। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির সম্মানে এবং জনগনের সম্মানে সেই সাথে অনুষ্ঠান যাতে কোন প্রকার বাধার সৃষ্টি না হয় সেই কারনে আপনার সাথে কথা কাটা-কাটিতে জড়াই নাই।
যার ফলে প্রধান অতিথিও আপনার সত্য নয় এমন তথ্যের ভিত্তিতে তিনিও বলেছেন আমার বক্তব্য বন্ধ করার জন্য ।
——– পুনরায় বলছি, শুধূ মাত্র অনুষ্ঠানটি নষ্ট হয়ে যাবে এবং এটা একটা নীল নকশা ছিল, সেটা যাতে না হয় সেই কারনে নিশ্চুপ ছিলাম।
——— আমি আপনাকে একটি তথ্য দিচ্ছিঃ
আজ যদি বাংলাদেশ সরকার ঘোষনা করে, ৯০ দিনের মধ্যে যাহারা নিজেদের সঠিক নাম ঠিকানা পরিবর্তন করতে চায় তাহারা দরখাস্ত জমা করুন। নিশ্চিত থাকুন সেই দরখাস্ত ১০ হাজার এর উপর হবে।
— আরেকটি বিষয় বোধ গম্য নয়, দাবী ও অনুরোধ করা হয় মন্ত্রীর নিকট, অনুরোদ করা হলো মন্ত্রী সাহেব যেন , স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ে বিষয়টি অঅলোচনা করে, আমার প্রশ্ন আপনি চটে গেলেন কেন ?
প্রিয় বন্ধুগণ, আপনাদের কোন ধারনা আছে ? মন্ত্রীর নিকট সুপরিশ চাওয় হলো, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ে আলোচনার জন্য, দূতাবাস বিষয়ে কোন কথা হয় নাই, কিন্তু তিনি চটে গেলন কেন ?
———– আর একটি বিষয় কেন এই সত্যটা বলেন না ? যে লাশ প্রেরন এর জন্য শুধূ বিমান টিকেট দেন, ( যদি প্রবাসী কল্যান মন্ত্রনালয়ের কার্ড করা থাকে ) কিন্তু বাকি ১৪-১৮ শত ইউরো কে পেমেন্ট করে ?
কেন এই লোক-চুরী ?
জনগন কথা বলবে মন্ত্রীর সাথে , আপনি কেন নিজের গায়ে মাখেন ?
যদি প্রশ্ন করা হত, দূতাবাস কত দিয়ে খরিদ করেছেন ?
তা হলেতো অঅপনি বাংলাদেশে আমার পরিবার গুম করে দিতেন ?

তথ্য আমার জানার ভুলও হতে পারে, এর মানে এই নয় , আপনি ধমক দিয়ে কথা বলবেন ?
আপনার তথ্য আংশিক , যাহা আপনি জানেন
যেমন দক্ষিন আমেরকিার লোক এখানে প্রচুর, বাংলাদেশীদের থেকেও বেশী কিন্তু স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের ইমিগ্রেশন জরিপে নাই। কারন তাহারা প্রতিবার প্রবেশ করে ৮৯ দিন পর বাহির হয়ে যায় এবং পুনরা আসে।
যেমনটি বলা হয় চীনে প্রায় ২ কোটি গননার বাহিরে
————–
আরেকটি কথা স্বরন রাখা উচিৎ, আমাদের সকলের
সেটা হলোঃ
প্রশাসক এবং প্রতিনিধি এক জিনিষ নয়
যাই হউক, আপনি প্রশাসক থেকে রাষ্ট্রের প্রতিনিধি
আপনার প্রতিনিধিত্ব আপনি করুন, তবে অন্যকে হেয়
করার জন্য ক্ষমতা ব্যবহার করবেন না।

ফেসবুক পোস্টটি পড়তে এখানে ক্লিক করুন:

একটি প্রশ্ন ওবাংলাদেশ দূতাবাস ইতালী কর্তৃক সত্য গোপন।———– প্রিয় প্রবাসী ভাই ও বন্ধুগণ,ইতালিতে 1987 সন থেকে…

Posted by Bachcu Dhuumcatu on Monday, 28 October 2019

এই সংবাদটি 1,328 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com