শনিবার, ০২ নভে ২০১৯ ০১:১১ ঘণ্টা

সমাজ সেবক আলেম, রাজনীতিবিদ নাসিরউদ্দীন মুনির

Share Button

সমাজ সেবক আলেম, রাজনীতিবিদ  নাসিরউদ্দীন মুনির


জুনাইদ আহমদ,হাটহাজারী থেকেঃ আমি তখন
নেত্রকোনা মোহনগঞ্জের ঐতিহ্যবাহী মাদরাসা দারুল কুরআন থেকে হিফজ সমাপ্তির পর ২০০৯-১০ ইংরেজিতে কিতাব বিভাগে পড়ার জন্য চট্টগ্রাম হাটহাজারীর মেখল মাদরাসায় ভর্তি হয়ে কৃতিত্বের সাথে দীর্ঘ সাত বছর পড়াশোনা করেছি,আলহামদুলিল্লাহ।

মেখলে ভর্তির ২য় বছরে(জামাতে মিজান পড়ার সময়)ভাগ্যক্রমে মেখলের সিনিয়র শিক্ষক ও মুফতী হযরত আল্লামা মুফতী মুহাম্মদ আলী কাসেমী দা.বা.এর সাথে আমার সু-সম্পর্ক হয়।স্রেফ ছাত্র-শিক্ষক নয় মুফতী সাহেব হুজুরের সাথে আমার গড়ে উঠে পিতাপুত্রের মতো অকৃত্তিম মায়া-মুহাব্বাত আর ভালবাসার গভীর সম্পর্ক।পরিচয়ের পর থেকেই মুফতী সাহেব হুজুরকে আমার জীবন পথে চলার রাহবুর ও মুরুব্বী হিসেবে গ্রহণ করেছি।

মুফতী সাহেব হুজুরের খেদমত ও সাহচর্যে থাকার দরূন চট্টগ্রামের বিশেষ করে হাটহাজারীর শীর্ষ ওলামায়ে কেরাম ও বিভিন্ন গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গদের খুব কাছ থেকে দেখার, চেনার ও জানার সুযোগ হয়েছে আমার।মুফতী সাহেব হুজুর ওলামায়ে কেরামের বিভিন্ন আম-খাছ মজলিস সহ সভা-সেমিনার ইত্যাদিতেও আমি অধমকে সাথে রাখতেন।

কবে কোথায় তা ঠিক মনে পড়ছেনা তবে এতটুকু মনে আছে যে,মুফতী মুহাম্মদ আলী কাসেমী সাহেব হুজুরের সাথে কোন এক বৈঠকে এসে পরিচয় পেয়েছিলাম হাটহাজারীর গণমানুষের নেতা,
আত্মমানবের সেবক,পরিচ্ছন্ন আলেম রাজনীতিবিদ মাওলানা নাসির উদ্দীন মুনির দা.বা. এর।প্রায় এক যুগ আগের কথা,তখন অনেকটা ছোট্ট ছিলাম।বিভিন্ন বৈঠকে গেলেও সবার পেছনে এক কোণায় চুপচাপ বসে থাকতাম।কারো সাথে কথা বলতাম না।সর্বোচ্চ সালাম-মুসাফাহা করতাম।এখনো আগের অভ্যাস কিছুটা আছে।

মাওলানা নাসির মুনির সাহেবের সাথে প্রথম সাক্ষাতেই মুগ্ধ হয়েছিল।এরপর মুফতী সাহেব হুজুরের মুখ থেকেও তাঁর অনেক গুণাগুণ ও কৃত্বিতের কথা শুনেছি।মেখলে পড়াশোনা শেষ করে হাটহাজারী আসার পর আরো কাছ থেকে দেখেছি নাসির উদ্দীন মুনির সাহেবকে।সদা হাস্যজ্বল চেহারা ও কোমল হৃদয়ের একজন মানুষ তিনি।আন্তরিকতাপূর্ণ আচার-আচরণ আর মনকাড়া হাসি ও অসাধরণ জাদুময়ি বাকশৈলীতে অল্পতেই যে কোন মানুষকে কাছে টানার মহৎ গুণ তাঁর আছে।

তিনি আমাকে খুব বেশি স্নেহ করেন।যখনি সাক্ষাৎ হয় হাসিমুকে হালপুরসি করে পড়াশোনার খোঁজ খবর নেন।মনোযোগী হয়ে লেখাপড়া করে যোগ্য ও সচেতন আলেম হওয়ার জন্য নসিহত করেন।এবং সর্ব সময়ে বিশেষভাবে আমার লেখনীর প্রশংসা করে উৎসাহ ও অনুপ্রেরণা যোগান। হাটহাজারীতে যেসব ওলামায়ে কেরামের স্নেহ ও মায়া-মমতা আমি ধন্য তাঁদের মধ্যে মাওলানা নাসির উদ্দীন মুনির সাহেব অন্যতম। আমার পরম শ্রদ্ধাভাজন, ভাল লাগার ও ভালবাসার একজন মানুষ তিনি।

গেল বছর ১১ ই এপ্রিল বৃহস্পতিবার বাদ আসর হাফেজ্জী হুজুর রহ.সেবা সংস্থার আয়োজনে নবীন আলেম ও সেবক সংবর্ধনা অনুষ্ঠান সংস্থার সভাপতি মাওলানা রাজিবুল হক সহ তিনি আমার হাতে সম্মাননা ক্র্যাস্ট তুলে দিয়েছিলেন।

মাওলানা নাসির উদ্দীন মুনির,
ইস্তে’দাদ(যোগ্যতা)সম্পন্ন একজন আলেম।দাওরায়ে হাদীস(মাস্টার্স) সম্পন্ন করেছেন হাটহাজারী মাদরাসা থেকে এবং জামিয়া গাউছিয়া থেকে কামিল ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কৃতিত্বের সাথে বি.এ পাশ করেছেন৷ পড়াশোনা করেছেন মদীনা ইউনিভার্সিটিতেও।

অধ্যাপনা শেষ করে কর্ম জীবনে বাংলার প্রথম শায়খুল হাদীস আল্লামা সাঈদ আহমদ রহ.প্রতিষ্ঠিত হাটহাজারী জামিয়া কাসিমুল উলুম চারিয়া মাদরাসায় মুহাদ্দীস হিসেবে হাদীসে রাসুলের খেদমতের আঞ্জাম দিয়েছেন।দরস-তাদরিসের খেদমতের পর দেশ ও জাতির কল্যাণে,সমাজের সর্বক্ষেত্রে হক্ব,ন্যায় ও ইনসাফ প্রতিষ্ঠার উদ্দেশ্যে ইসলামীতে রাজনীতিতে যোগদান করেছেন।শহীদ মুফতি ফজলুল হক আমিনী রহ.এর বলিষ্ঠ নেতৃত্বে রাজনীতির ময়দানে কাজ করেছেন তিনি।

হাটহাজারীর মাটি ও মানুষের প্রিয় একজন নেতা তিনি।সেবার মহৎ গুণ নিয়ে সর্বস্তরের জনগণের সুখে-দুঃখে পাশে থেকে হাটহাজারীবাসির মনের মনিকোঠায় স্থান করে নিয়েছেন।যার ফলশ্রুতিতে তিনি ২০১৪ সালের ১৯ ফ্রেব্রয়ারী অনুষ্ঠিত হাটহাজারী উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে বৈদ্যতিক বাল্ব মার্কায় বিপুল ভোটে বিজয়ী হয়ে ওলামায়ে কেরামের প্রতিনিধিত্ব করেছেন।

নির্বাচনী প্রচারণায় তাঁর শ্রোগান ছিল “শাসক নয় সেবক হতে চাই”৷ এই শ্লোগানকে সামনে রেখেই তিনি ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছিলেন৷

জনপ্রতিনিধি হওয়ার পর ইনসাফের সাথে নিজের উপর অর্পিত গুরু দায়িত্বের আঞ্জাম দিয়েছেন।আমানতের সাথে দায়িত্ব পালন করেছেন।কোন ধরনের দূর্নীতি তাঁকে স্পর্শ করতে পারেনি।বিভিন্ন জনসমাবেশে আল্লাহ তায়া’লাকে সাক্ষী রেখে একাধিকবার তাঁকে দৃঢ়তার সাথে এ কথা আমি বলতে শুনেছি যে,ভাইস চেয়ারম্যান থাকা অবস্থায় আমি কোন ধরনের দূর্ণীতি করিনি।এক টাকা পরিমাণও দূর্নীতি আমার দ্বারা হয়নি।এখলাস ও আমানতের সাথে দায়িত্ব পালন করেছি।সরকারের দেওয়া যাবতীয় বরাদ্দ মসজিদ,মাদরাসা ও জনসাধারনের কল্যাণে ব্যয় করেছি।একজন হক্কানী আলেম রাজনীতিবিদই বলিষ্ঠ কণ্ঠে দৃঢ়তার সাথে এমন কথা বলতে পারে।

আল হাবীব হজ্ব কাফেলার চেয়ারম্যান মাওলানা নাসির উদ্দীন মুনির হাটহাজারীর গণমানুষের কাছে বেশ জনপ্রিয়।ভাইস চেয়ারম্যানের মেয়াদ শেষ হওয়ার পরও অদ্যাবদি তিনি সুখে -দুখে সর্বসময় হাটহাজারী বাসীর পাশেই থাকেন৷তিনি প্রশাসনিক ভাবে বিভিন্ন সময় আলেম সমাজের প্রতিনিধিত্ব করা সহ মসজিদ মাদরাসা,আলেম ওলামার খেদমতে তিনি নিবেদিতপ্রাণ হয়ে কাজ করে যাচ্ছেন।

আল্লাহ তায়া’লা তাঁকে সুস্থতার সহিত দীর্ঘ নেক হায়াত দান করুন এবং ইসলাম, মুসলমান,দেশ ও জাতীর কল্যাণে আমরন নিবেদিতপ্রাণ হয়ে কাজ তাওফীক দান করুন,আমিন।

লেখকঃ
জুনাইদ আহমদ।
অধ্যয়নরত,উচ্চতর আরবী সাহিত্য বিভাগ।হাটহাজারী আরবী বিশ্ববিদ্যালয়, চট্টগ্রাম, বাংলাদেশ।
১/১১/২০১৯ ইং
শুক্রবার

এই সংবাদটি 1,025 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com