মঙ্গলবার, ১২ নভে ২০১৯ ০৩:১১ ঘণ্টা

অন্ধ কি বুঝিতে পারে আলেম সমাজ কিবা ধন?

Share Button

অন্ধ কি বুঝিতে পারে আলেম সমাজ কিবা ধন?

সৈয়দ মবনু:

একটি বিশেষ ঘরানার কিছু লোকের ধারণা ‘আলেমসমাজ বরাবরই রাজনীতির ব্যাপারে কাঁচা।’ এই কথাটা কি ঐতিহাসিক সত্য, না ইতিহাস সম্পর্কে ওদের মূর্খতার বহিঃপ্রকাশ? ইতিহাসের নানান বাঁকে হেটে আমরা কি দেখতে পাই না পৃথিবীব্যাপি আলেম সমাজই সর্বদা রাজনীতিতে প্রজ্ঞা ও দক্ষতার পরিচয় দিয়েছেন। কথা দীর্ঘ হয়ে যাবে, নতুবা এখনই হেটে যেতাম পৃথিবীর ইতিহাসের বাঁকে বাঁকে। তবু তাদের জন্য রইলো আমার ‘দ্রাবীড় বাংলার রাজনীতি’, ‘মুক্তিযুদ্ধ এবং উলামায়ে কেরাম’, কিংবা ‘লাহোর থেকে কান্দাহার’।
আপনারা ভাবতে পারেন, ঐ বিশেষ ঘরটি মার্কসবাদি, বাম কিংবা নাস্তিক্যবাদি কোন ঘর। মোটেও না। প্রকৃত মার্কসবাদি, বাম কিংবা নাস্তিক্যবাদিরা আর যাই হোক ইতিহাসের পাঠক, তাতে কোন সন্দেহ নেই। অবশ্য ওদের মধ্যেও অনেক আছেন ইতিহাস পাঠের অভ্যাসহীন। কোন অমুসলিম কিংবা মার্কসবাদি, বাম, নাস্তিক্যবাদিধারার কেউ ইতিহাসের পাঠক হয়েও শত্রুতা বশত বলতে পারেন, ‘আলেমসমাজ বরাবরই রাজনীতির ব্যাপারে কাঁচা।’ কিন্তু কোন ইসলামপন্থী ঘরের লোক যদি এমনটি বলেন তবে প্রশ্ন থেকে যায় তাঁর ইতিহাস পাঠের ঘাটতি নিয়ে। আর যদি বলেন তিনি ইতিহাসের পাঠক তবে প্রশ্ন আসে তিনি আলেমদের সাথে এত শত্রুতা কেন পোষণ করেন যে, ঐতিহাসিক সত্যটুকুও গোপন করে দিচ্ছেন। এই ঘর থেকে আলেমদের প্রতি শত্রুতারও একটি ঐতিহাসিক বিশেষ কারণ রয়েছে। যাদের হাত থেকে আল্লাহর নবী (স.)-এর অনেক সাহাবী রক্ষা পাননি, তাদের হাতে আলেম-উলামা তো কোন বিষয়ই না। আল্লাহ আমাদেরকে মূর্খতা থেকে রক্ষা করুন।

ঐ ঘরের অনেকেরই দেখছি পাকিস্তানের বর্তমান রাজনীতি নিয়ে কথা বলতে গিয়ে ইমরান খানের প্রশংসা এবং মাওলানা ফজলুর রহমানের নিন্দা করছেন। কেউ কেউ মাওলানাকে বিভিন্ন ভাষায় গালাগালিও করছেন। প্রশ্ন হলো কেন? কারণও ঐতিহাসিক। প্লেবয় ইমরান খান নিয়াজি হলেন তাদের ঐতিহাসিক বন্ধু একাত্তরের পরাজিত পাকিস্তানি সেনাপ্রধান জেনারেল আব্দুল্লাহ খান নিয়াজির ভাতিজা আর মাওলানা ফজলুর রহমান হলেন একাত্তরে বাংলাদেশের পক্ষে পাকিস্তানে বসে লড়াইকারি জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের নেতা মুফতি মাহমুদের ছেলে। একাত্তরের যুদ্ধ নিয়ে মাওলানা ফজলুর রহমানের নিজের বক্তব্য হলো, ‘প্রত্যেক বাচ্চারও একটা বুঝ থাকে। মুরুব্বীদের উচিৎ বাচ্চাদের বুঝ সম্পর্কে খবর রাখা। ১৯৭১ খ্রিস্টাব্দে বাঙালিদের একটা নিজস্ব বুঝ ছিলো। পাকিস্তানের শাসকদের উচিৎ ছিলো বাঙালিদের এই বুঝকে বুঝে কাজ উঠানো।’ এখানেই বাংলাদেশে একাত্তরের পরাজিত শক্তির মাওলানা ফজলুর রহমানের সাথে বিরোধ। নতুবা পাকিস্তানের রাজনীতির সাথে আমাদের কোন স্বার্থ জড়িত? ইমরান খান কাশ্মীর ইস্যুতে জাতিসংঘে বক্তব্য দিয়ে এমন কি মহাগাছের গোটা পেরেছেন? বিগত সত্তর বছরে জাতিসংঘ মুসলিম কোন দেশের সমস্যার সমাধান করতে পেরেছে? ফিলিস্তিনের পিএলও নেতা ইয়াসির আরাফাত যখন জাতিসংঘে বক্তব্য রেখেছিলেন তখন তিনি সেখানে গিয়েছিলেন যুদ্ধের সাজে সেজে, তবু কাজ হয়নি। ফিলিস্তিন আজও স্বাধীন হয়নি। বরং পরিস্থিতি আরও খারাপ হয়েছে। কাশ্মীর ইস্যুতে পাকিস্তান বারবার জাতিসংঘে বক্তব্য দিয়েছে, বিল পাশ করিয়েছে, কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হয়নি। যারা মনে করেন ইমরান খানের এই বক্তব্যে কাশ্মীর স্বাধীন হয়ে যাবে তারা যেমন ইতিহাস সম্পর্কে অজ্ঞ, তেমনি বিশ্ব-রাজনীতি সম্পর্কেও। যারা মনে করেন, ‘ইমরান খান ভারতের বিরুদ্ধে যুদ্ধে প্রস্তুত হচ্ছিলেন আর মাওলানা ফজলুর রহমান বারোটা বাজালেন ভেতর থেকে আঘাত করে’ তারা পাকিস্তানের রাজনীতি সম্পর্কে মোটেও ওয়াকিফহাল নয়। আমি ইতোপূর্বে এক লেখায় বলেছি, ভারত যেমন চায় না কাশ্মীরের স্বাধীনতা তেমনি পাকিস্তানও চায় না। তারা উভয়ে চায় কাশ্মীরকে নিজেদের নিয়ন্ত্রণে নিতে, যা কাশ্মীরীরা চায় না। কাশ্মীরের ব্যাপারে ইমরান খান যে বক্তব্য দিয়েছেন তা সাউন্ড গ্রেনেট ছাড়া আর কিছুই নয়। ইমরান খান নিয়াজির বক্ত ঐ ঘরের লোকেরা মনে করেন ‘রাজনীতির এ চালে মাওলানা ফজলুর রহমান হেরে গেছেন।’ তাদের পূর্বের গুরুরাও ১৯৭১ খ্রিস্টাব্দে মনে করেছিলেন মুফতি মাহমুদ শেখ মুজিবের পক্ষ নিয়ে হেরেগেছেন। প্রকৃত অর্থে এটা তাদের রাজনৈতিক অজ্ঞতার পরিচয় বহন করছে। একাত্তরে তাদের নেতারা যে অদক্ষতার পরিচয় দিয়েছেন, এর মাসুল এখনও দিতে হচ্ছে। আলেমদের সমালোচনা করতে গিয়ে কিছু মূর্খ বাবরী মসজিদ প্রসঙ্গে মাওলানা মাদানীর বাংলাদেশে সফরের সমালোচনা করছেন, তারা দেখতে পাননি মাওলানা আরশদ মাদানী বাবরী মসজিদ নিয়ে কি বক্তব্য দিয়েছেন। এই মূর্খদের দল মূখবাজিতেই নিজের ঘরে নিজে বড়, মায়দানে ওরা অন্যের লেজুর ধরা ছাড়া দাঁড়িয়ে থাকতে পারেনি অতীতে যেমন, তেমনি আজও। মাওলানা ফজলুর রহমান কিংবা তাঁর দলের লোক ছাড়া পাকিস্তানে, মাদানী-নদভী কিংবা কান্ধালভী আলেমরা ছাড়া ভারতে এবং আহমদ শফি- ফরিদ উদ্দিন মাসউদ প্রমূখ ছাড়া বাংলাদেশে ইসলামী রাজনীতি অকেজু তা ইতোমধ্যে প্রমাণিত সত্য। অন্ধরা আলো না দেখলেও চোখওয়ালারা ঠিকই দেখে সত্য এবং মিথ্যা।

ছোটবেলা থেকে দেখছি জামায়াতি আর মুসলিমলীগিরা দেওবন্দিদেরকে ‘কংগ্রেসী’ এবং ‘র’-এর দালাল বলে গালি দেন। কারণ তখন বুঝতাম না। পাকিস্তান সফরে গেলে আবিস্কার করি মুফতি মাহমুদকে। ধীরে ধীরে অবগত হই দারুল উলূম দেওবন্দের ফতোয়া সম্পর্কে। বুঝতে পারি জামায়াতি আর মুসলিমলীগারদের অন্তঃজ্বালা সত্তরের নির্বাচনের পর মুফতি মাহমুদের প্রকাশ্য শেখ মুজিবুর রহমানের পক্ষ নিয়ে ঘোষণা করা, শেখ মুজিব পার্লামেন্ট ডাকলে তিনি এতে যোগ দিবেন। তখন পিপলস পাটির জুলফিকার আলী ভূট্টো বলেন, যে মুজিবের ডাকে পূর্ব পাকিস্তান যাবে সে যেন আর ফিরে না আসে। সাথে সাথে মুফতি মাহমুদ জবাব দেন, পাকিস্তান কারো বাপের জাগির বা জমিদারী নয়। তখন ভূট্টোর পিপলস পাটি এবং পাকিস্তান জামায়াতে ইসলামী মিলে পেশওয়ারে মুফতি মাহমুদের জমিয়তে উলামার অফিস জ্বালিয়ে দিলো। একাত্তরের ২৫শে মার্চ পাকিস্তানী সেনারা ইয়াহিয়া-ভূট্টোর নির্দেশে বাঙালীদের উপর নির্বিচারে হত্যা শুরু করলে মুফতি মাহমুদ প্রতিবাদ করে বলে ছিলেন, ‘ইয়াহিয়া-ভূট্টো শিয়া, শেখ মুজিব সুন্নি, প্রত্যেক সুন্নির জন্য ফরজ হলো সুন্নিদেরকে রক্ষা করা।’ এরপর দারুল উলূম দেওবন্দ থেকে ফতোয়া জারি হলো বাংলাদেশে পাকিস্তান বাহিনীর নির্যাতনের বিরুদ্ধে। অতঃপর এই ফতোয়া নিয়ে জামিয়তে উলামায়ে হিন্দের নেতা আল্লামা সৈয়দ আসআদ আল মাদানী তখন গোটা ভারত সফর করে জনসমর্থন আদায়ে কাজ করেন। একাত্তরে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের পক্ষে মুফতি মাহমুদের ঐতিহাসিক ঘোষণা এবং দারুল উলূম দেওবন্দের ফতোয়া বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের ইতিহাসে স্বর্ণাক্ষরে লেখা থাকবে।

২০০২ খ্রিস্টাব্দের দিকে বৃটেনের বার্মিংহাম শহরের আস্টন স্টেডিয়ামের কনফারেন্স হলে শিক্ষা বিষয়ক এক সেমিনারে মাওলানা ফজলুর রহমানকে প্রধান অতিথি করা হয়েছিলো। এতে মাওলানা সৈয়দ আসআদ আল-মাদানী (র.) এবং বৃটেনের তৎকালিন শিক্ষামন্ত্রীও অতিথি ছিলেন। সেই অনুষ্ঠানে আমি নিজেও উপস্থিত ছিলাম। মাওলানা ফজলুর রহমান সেদিন বৃটিশ শিক্ষামন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে যে বক্তব্য দিয়েছিলেন তা আমার মনে নতুন করে ‘আমি বাঙালি’ বলে আত্ম-মর্যাদাবোধ জাগ্রত করে দিয়েছিলো। মাওলানা সেদিন বলেছিলেন, ‘আমরা জানি আমরা উপমহাদেশের মানুষ পৃথিবীর সবচে ধনী। সৃষ্টিকর্তা আমাদেরকে প্রাকৃতিকভাবে ধনী করেছেন। আমাদের আবহাওয়া সম্পদ, আমাদের ভূমি সম্পদ, আমাদের জল সম্পদ, আমাদের জঙ্গল সম্পদ, আমাদের খনিজ সম্পদ, এমন কি আমাদের মানব সম্পদও রয়েছে। আমাদেরকে সৃষ্টিকর্তা জন্মগতভাবে ধনী এবং জমিদার বানিয়ে দিয়েছেন, যা পশ্চিমা পৃথিবীর নেই। ইউরোপ-আমেরিকার বাঁচতে হলে আমাদের ধনের প্রয়োজন হবে, আমাদের কাছে যেতে হবে। আমরা তাদের কাছে না আসলেও বেঁচে থাকতে পারবো। তারা আমাদের ধন পাওয়ার জন্য দুটা পথ গ্রহণ করে আসছে সেই প্রাচীনকাল থেকে; ১. চুরি-ডাকাতির পথ, ২. আলোচনার মাধ্যমে শ্রমের বিনিময় খাদ্য গ্রহণের পথ। শ্রমের বিনিময় খাদ্য দিতে আমরা প্রস্তুত, কারণ আমাদের কাছে নগদ অর্থ নেই। আবার কেউ চুরি-ডাকাতিতে গেলে আমরা প্রতিরোধ করবো, এটাই তো নিয়ম। আজকে যারা আমাদেরকে সন্ত্রাসী বলছেন, তাদের কাছে আমাদের প্রশ্ন সম্পদের হেফাজত করা সম্পদের মালিকের জন্য জরুরী কি না? চুর-ডাকাত কে প্রতিরোধ করার নাম কি সন্ত্রাস? আমরা কি সন্ত্রাস করছি পশ্চিমা দুনিয়ায় এসে, না পশ্চিমারা যাচ্ছেন আমাদের অঞ্চলে সম্পাদ চুরি-ডাকাতি করতে? আপনারা আমাদের সম্পদ চুরি-ডাকাতির চিন্তা বাদ দিয়ে আমাদের সাথে আলোচনায় বসেন খাদ্যের বিনিময় কীভাবে কাজ করবেন, দেখবেন আমরাও আপনাদেরকে সম্মান করি। ইসলাম আমাদেরকে শিখিয়েছে কীভাবে শ্রমিক-মজদুরদেরকে স্নেহ-মমতা দেখাতে হয়। আপনাদের কম্পিউটার টেকনলজি তো মূলত অতীতকালের দা, কোদাল, কোড়ালের আধুনিক ভার্সন-ই। পূর্বযুগের শ্রমিকরা দা, কোদাল, কোড়াল নিয়ে কাজে যেত, আপনারা এখন কম্পিউটার নিয়ে যান, ব্যবধান এতটুকুই। অতঃপর মাওলানা ফজলুর রহমান বলেন, আসুন মালিক-কর্মচারীর মধ্যে চুক্তি করি কীভাবে সম্পদকে কাজে লাগানো যায় এবং বন্ধ করি চুরি-ডাকাতির চিন্তা-ভাবনা। তখনই দেখবেন পৃথিবীতে আর তেমন যুদ্ধের প্রয়োজন হবে না।’
এই বক্তব্য মাওলানা ফজলুর রহমানের প্রতি সেদিন আমার শ্রদ্ধাবোধ জাগ্রত করে দিয়েছিলো এবং সাথে সাথে দেশীয় দিকে নিজের প্রতি নিজের আত্মঃবিশ্বাস জাগিয়ে দিয়েছিলো। ইতিহাস জানা বৃটিশ শিক্ষামন্ত্রী সেদিন কোন কথা বলেননি, শুধু মাওলানা ফজলুর রহমানের বক্তব্যের প্রশংসা করেছেন।

সেদিন মাওলানা সৈয়দ আসআদ মাদানী ও মাওলানা ফজলুর রহমন এক দস্তরখানায় বসে রুটি খেয়েছিলেন। তাদের পাশে বসে আমরাও রুটি খাই। খেতে খেতে এবং খাওয়ার পর তাঁরা দু’জন অনেক কথা বলেন। আমরা মন দিয়ে তাদের কথা শোনছিলাম। তাদের একের প্রতি অন্যের শ্রদ্ধাবোধ দেখে নিজের মনে তাদের প্রতি শ্রদ্ধা জেগে উঠেছিলো সেদিন। ১৯৭১ খ্রিস্টাব্দে পাকিস্তান যে বাংলাদেশের সাথে ভুল এবং জালিমানা ব্যবহার করেছে তা তৎকালিন কিংবা বর্তমানের জামায়াত-মুসলিমলীগ স্বীকার না করলেও মুফতি মাহমুদ, মাওলানা ফজলুর রহমান, ডা. ইসরার আহমদ, সাংবাদিক বদর মুনির, কবি ফয়েজ আহমদ ফয়েজ, প্রফেসার এহসান প্রমূখ সচেতন পাকিস্তানিরা স্বীকার করেছেন এবং আজও করেন, যা জামায়াত-মুসলিমলীগারদের জ¦লনের কারণ হয়। এই জ¦লনকে আরও বৃদ্ধি করেছে একাত্তরের অপরাধে বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক তাদের নেতাদের শাস্তি। ঐতিহাসিক সত্য হলো, বাংলাদেশ রাষ্ট্রের পক্ষে যারা ছিলেন তাদের প্রতি জ¦লন ওদের শেষ হবে না যতদিন তারা বেঁচে থাকবে। আল্লাহ তাদেরকে এবং আমাদের সবাইকে মাফ করুন।

এই সংবাদটি 1,199 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com