রবিবার, ০৫ জানু ২০২০ ১১:০১ ঘণ্টা

আল্লামা তাফাজ্জুলহক রহঃ সান্নিধ্যের কিছু কথা

Share Button

আল্লামা তাফাজ্জুলহক রহঃ সান্নিধ্যের কিছু কথা

মাওলানা লাবীব আব্দুল্লাহঃ
আমি একটি আরবী কিতাবে এই হযরতের নাম দেখি৷ বাংলাদেশি লেখকের আরবী কিতাব৷ আমার শ্বশুর মুফতী মুসলিম উদ্দীন সাহেবের পড়ার টেবিলে দেখি কিতাবটা৷ তিনি বললেন, আমার উস্তায আল্লামা তাফাজ্জুল হক সাহেবের লেখা কিতাব৷ শ্বশুর শেরপুর মাদরাসার শাইখুল হাদীস৷ (গত মাস থেকে তিনি ভীষণ অসুস্থ)৷
আল্লামা হবিগঞ্জী ঐতিহ্যবাহী আশরাফুল উলূম বালিয়া মাদরাসার মুহাদ্দিস ছিলেন কর্মজীবনের কিছুদিন৷ সেই পাকিস্থান আমলে৷ শ্বশুড় সেই সময়ের ছাত্র তাঁর৷ সেই কিতাবটি হাটহাজারী চট্রগ্রামের কোনো একটি প্রকাশনী থেকে প্রকাশিত৷

১৯৮৭ সাল থেকে আমার বসবাস ময়মনসিংহে৷ জামিয়া আরাবিয়া মাখযানুল উলূম তালতলা মাদরাসার ছাত্র সেই আশির দশকে৷ ১৯৯৩-২০১১ সাল পর্যন্ত শিক্ষক৷ আল্লামা হবিগঞ্জী মাখযানে প্রায় প্রতি বছর বার্ষিক মাহফিলে প্রথম সাড়ির বক্তা থাকতেন৷

দিনব্যাপী সভা হয় এখন৷ আগে হতো রাতব্যাপী৷ আল্লামা হবিগঞ্জী সেই মাহফিলে তাফসীর করতেন৷ সাহসী আলেমের ভূমিকায় কথা বলতেন৷ কুরআন তিলাওয়াতে আলাদা একটি সূর৷ আলাদা নাগমা৷ মুগ্ধকর৷ হৃদয়গ্রাহী৷

আমি ১৬ বছর ঐতিহ্যবাহী এই মাহফিল উপস্থাপনা করার সৌভাগ্য লাভ করেছি৷ হযরতের নাম ঘোষণা করতেই শ্রোতাগণ নড়ে চড়ে বসতেন৷ মুগ্ধ হয়ে শোনতেন হযরতের বয়ান৷ তাফসীর৷ মাখযানের দিনব্যাপী সভায় একবার তিনি জুমার খুতবা দেন৷ দরাজকণ্ঠে আরবী উচ্চারণ৷

এ ছাড়া ১৯৯৯ সালে ইত্তেফাকুল উলামা বৃরত্তর মোমেনশাহীর একটি আন্তর্জাতিক সীরাত মহা সম্মেলনে তিনি আলোচক ছিলেন৷ আমি উপস্থাপক৷ কাছ থেকে হযরতকে দেখা ও বয়ান শুনার সুযোগ হয়েছে এভাবে৷ তিনি সীরাত ও আজকের পৃথিবী বিষয়ে গুরত্বপূর্ণ বয়ান করতেন৷

আল্লামা হবিগঞ্জী বিয়ে করেন ময়মনসিংহে৷ ঐতিহ্যবাহী দীনি পরিবার মাইজবাড়ীতে৷ শাইখুল ইসলাম আল্লামা হোসাইন আহমদ মাদানী রহ. এর খাস শাগেরদ ও রাজনৈতিক নিবেদিতপ্রাণ কর্মী মাওলানা আরিফ রব্বানী (মাইজবাড়ী হুজুর) এর মেয়েকে বিয়ে করেন৷ এই সূত্রে সাওতুল হেরা মাইজবাড়ীর বার্ষিক মাহফিলে প্রায় প্রতিবছর পরিবারের সদস্যসহ সিলেট থেকে তাশরিফ আনতেন৷ এই মাহফিলে হযরতের বয়ান হতো প্রাণখোলা৷

হযরতের শালা আমার মুহতরাম হাবীবুল্লাহ রুশদী ভাই থাকেন এই মাহফিলের উপস্থাপক৷ একবার তিনি আমাকে রাখলেন উপস্থাপনায়৷ আমি হযরতের নাম ঘোষণা করি৷ মাইজবাডীতে বয়ানে তিনি বৃটিশ খেদাও আন্দোলনে উলামায়ে দেওবন্দের ভূমিকা নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ বয়ান পেশ করেন৷ সাধারণত তিনি বয়ানে সাম্প্রতিক বিষয়েও আলোচনা করতেন৷ কুরআনের আয়াত ও হাদীসে নববী সুর দিয়ে পড়তেন৷ মুগ্ধকর সুর৷ সাহসী খতীব ছিলেন তিনি৷

মাইজবাড়ী বয়ান শেষে হযরতের আত্মীয় ডাক্তার নুরুল হুদা ভাইয়ের বাসায় আরাম করলেন৷ জুমাবার ছিলো৷ আমি হুদা ভাইয়ের বাসায় গিয়ে একটি পত্রিকার সম্পাদকের পরিচয় দিয়ে সাক্ষাৎকার নেবার আগ্রহ ব্যক্ত করলাম৷ তিনি অনাগ্রহ দেখালেও প্রায় দুই ঘন্টা কথা বলেছিলেন৷ নানা প্রসঙ্গে৷ দেশের রাজনীতি, প্রবাসে সফর, কওমি মাদরাসার শিক্ষার সরকারি স্বীকৃতি, পীরালির নামে দোকানদারি! লেখালেখিসহ নানা বিষয়৷ জীবনের অনেক তাজরেবার কথা বলেছিলেন৷ পরে হযরতকে নিয়ে ময়মনসিংহ বড় মসজিদে জুমা আদায় করি৷ বড় মসজিদের ইমাম ও খতীব আল্লামা আব্দুল হক সাহেবেরও তিনি উস্তায৷ পরে বড় মসজিদে আরও কিছুক্ষণ সান্নিধ্যে থাকার সৌভাগ্য হয় আমার৷

মাসিক মদীনা সম্পাদক মাওলানা মুহিউদ্দীন খান রহ. এর পল্টন অফিসে একবার খান সাহেবর সান্নিধ্যে ছিলাম৷ এক বিকেলে৷ আল্লামা হবিগঞ্জী এলেন মদীনা ভবনে৷ সঙ্গে আরও কয়েকজন৷ হযরত আমাকে আমার একটি দায়িত্ব সম্পর্কে বিশেষ নসীহত করলেন৷ আমি সেটি আমল করে ফল পেয়েছি৷

হযরতের সঙ্গে সর্বশেষ দেখা করি দুই বছর আগে৷ ময়মনসিংহের মাইজবাডীতে৷ মুহতরাম হাবীবুল্লাহ রুশদী ভাইয়ের বাসায়৷ বয়সের ছাপ চেহারা ও শরীরে৷ সালাম ও মুসাহাফা করে দুআর দরখাস্ত করি৷ তিনি দুআ করেন৷

আল্লামা তাফাজ্জুল হক হবিগঞ্জী বহুমাত্রিক প্রতিভার অধিকারী ছিলেন৷ দরসে যোগ্য মুহাদ্দিস, শাইখুল হাদীস৷ মাহফিলে সুবক্তা, সাহসী আলোচক৷ নির্ভীক৷ রাজনীতির ময়দানে আপোষহীন নেতা৷ সরকারি দরবারঘেষা আলেম ছিলেন না তিনি৷ সুবিধাবাদী রাজনৈতিক ছিলেন না৷ প্রায় পাঁচ দশক হাদীসের দরস দিয়েছেন৷ প্রচলিত বক্তাদের মতো বাণিজ্য মনোভাবের বক্তা ছিলেন না তিনি৷

হাফিজুল হাদীস আল্লামা আব্দুল্লাহ দরখাস্তি রহ. এর প্রিয়পাত্র ছিলেন৷ আল্লামা রসুল খান, আল্লামা ইদ্রিস কান্দালবীর শাগেরদ ছিলেন তিনি৷

আল্লামা হবিগঞ্জী দেশের ইসলামবিরোধী সকল ইস্যুতে প্রতিবাদী কণ্ঠ ছিলেন৷ রাজপথে আন্দোলন করেছেন৷ ইউরোপ আমেরিকা ও মধ্যপ্রাচ্যে দীনি সফর করেছেন৷ নবীপ্রেমী এই সংগ্রামী আলেম ছিলেন আকাবির ও আসলাফের নমুনা৷ হাজার হাজার আলেমের উস্তায ও অভিভাবক৷

রাজধানীর বাইরে থাকলেও তিনি জাতীয় ব্যক্তিত্ব ছিলেন এবং সেই ভূমিকা রেখেছেন৷ ২০২০ সালে ৫ জানুয়ারি৷ রোববার সত্য ও ন্যয়ের এই সূর্য অস্তমিত হয়৷ অন্ধকার হয়ে ওঠে সিলেটর আকাশ৷ বাংলার ইলমী আকাশ থেকে খসে পড়ে ইলমে নববীর উজ্বল এক নক্ষত্র৷

লেখক: পরিচালক, ইবনে খালদুন ইনস্টিটিউট,ময়মনসিং।

এই সংবাদটি 1,128 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com