শনিবার, ০৮ ফেব্রু ২০২০ ১০:০২ ঘণ্টা

সিলেটের ইজতেমা ২০২০

Share Button

সিলেটের ইজতেমা ২০২০

সৈয়দ মবনু:
হাতও আমার গালও আমার। যেদিকেই আঘাত করো সেদিকেই আমি আক্রান্ত হই। কেউ যদি মনে করেন আমি আল্লামা সাদ কান্ধালভীকে ওলিকুল শিরোমনি মনে করে তাঁর পক্ষ নিয়ে কথা বলি, তাই তাঁর প্রতিপক্ষকে আক্রান্ত করবো, তবে ভুল হবে। আমি উভয় গ্রুপের কাউকেই আক্রান্ত করতে চাই না, কারণ এখানে সংঘাত দুই ভাইয়ের আর আমি হলাম তাদের তৃতীয় ভাই। তৃতীয় ভাই যদি প্রথম দুজনের একজনের পক্ষালম্বন করে আর সে হয় ভুলের উপর তবে এখানে একজন হয়ে যায় একা এবং মজলুম। যদি পক্ষাবলম্বন কারি ন্যায়ের পক্ষ নেন তবে একজন একা হলেও মজলুম বলে গণ্য হবে না। মাওলানা সাদ কান্ধালভী একা নয়, তবে মজলুম। অপপ্রচার আর তহমতের সয়লাভে তিনি এতই আক্রান্ত যে প্রতিপক্ষের কেউ কেউ সত্য জানার পরও সাহস করতে পারছেন না তাঁর পক্ষকে সত্য জ্ঞাত করতে। তবে দেরিতে হলেও একদল সত্য সন্ধানী মানুষ সত্যকে বের করে নিচ্ছেন। সামনে আরও সত্য প্রকাশ হবে। সত্য সন্ধানীদের প্রতি শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করছি।

৬ এবং ৭ জানুয়ারি সিলেটের বদিকোনায় দুদিন ব্যাপি ইজতেমা হয়েগেলো। জুবায়েরপন্থীরা তা প্রতিরোধের ডাক দিয়ে ব্যর্থ হলেন বলতে হবে। যদিও জুবায়েরপন্থীরা দাবী করছেন তারা প্রতিহত বা প্রতিরোধ করতে পেরেছেন, বাস্তবে না সত্য নয়। মাদরাসাগুলো মাঠে না আসলে মূলত জুবায়েরপন্থীরা খুবই দুর্বল। কওমী অঙ্গনকে দেওবন্দের নামে মিথ্যা অপপ্রচার করে জুবায়েরপন্থীরা প্রথমে বিভ্রান্ত করেছিলেন বটে, তবে ধীরে ধীরে কওমী মাদরাসার অনেক ছাত্র-শিক্ষক প্রকৃত সত্য জেনে গেছেন। তারা জানেন তাবলিগের সাথে দেওবন্দের কোনদিন লেটপেট যেমন ছিলো না, তেমনি শত্রুতাও ছিলো না এবং আজও তাই। দেওবন্দ পরিস্কার জানিয়ে দিয়েছে তাবলিগ বিষয়ে আমরা আমাদের আগের অবস্থানে রয়েছি, অর্থাৎ তারা তারার, আমরা আমরার। তারপরও জুবায়ের পন্থীরা অপ্রচার চালাতে থাকে। এরমধ্যে সংযুক্ত হন কিছু মাতাপাতলা ওয়েজ, সাউন্ড গ্রেনেট ওয়েজ ইত্যাদি, যাদের জ্ঞানের পরিধি কম থাকায় তারা ফালতু বিষয় দিয়ে মানুষের মধ্যে উত্তেজনা তৈরি করেন। এগুলো শুধু বাংলাদেশে কিংবা যেসব দেশে বাঙালি মুসলিম জনগোষ্ঠি রয়েছে সেই সব দেশে।
সিলেটে ইজতেমা কেন্দ্রিক যে কজনকে উত্তেজিত দেখলাম তাদের অবস্থান তেমন নেই সিলেটের সমাজে। আবার যারা সাদ সাহেবের পক্ষ নিয়ে ওয়াসেফপন্থী ওরাও অবস্থাগতভাবে খুব শক্তিশালি নন। তবে সাদ সাহেব যে মজলুম এবং একজন আল্লাহর খাস বান্দা তা বিশ্বাসকারীদের সংখা ওদের উভয়ের থেকে বেশি। এই তহমত আর অপপ্রচারের বিরুদ্ধে কিংবা অপপ্রচার বা তহমতকারিদের বিরুদ্ধে মাওলানা সাদ সাহেবের কোন কথা নেই। তিনি শুধু বলেন, গালও আমার-হাতও আমার। আমি কাকে আঘাত করবো। তাই আমার আনুগত্যশীল যারা তারা মুখ বন্ধ করে কাজ চালিয়ে যান। ওদের ভুল একদিন ভাঙবে ইনশাল্লাহ। আমি বলি, যারা জেগে ঘুমে আছে তারা তো আর জাগবে না, জাগবে তো তারা যারা ছিলো প্রকৃত ঘুমে।
আমার এক বন্ধু, যিনি একটি দলের নেতা এবং একটি মাদরাসার মুহতামীম। তিনি প্রথম দিকে মাওলানা সাদ কান্ধালভীর বিরুদ্ধে অকথ্য কথা বলেছেন এবং আমার সাথে তর্ক করেছেন। পরে তিনি ভারত সফরে গিয়ে দেওবন্দ, দেওবন্দ ওয়াকফ, সাহরানপুর ইত্যাদি প্রতিষ্ঠানের বড় বড় আলেমদের সাথে কথা বলে একেবারে পাল্টে যান। তিনি আমাকে নিজেই এসে বলেন, ভাই মাওলানা কলিম সিদ্দিকির বক্তব্য শোনে আমি আমার কথাকে সংক্ষেপ করতে বাধ্য হয়েছি। ধীরে ধীরে অনেকই পাল্টে যাবেন কিংবা অনেকই শান্ত হয়ে যাবেন, ইনশাল্লাহ। আমি কারো নাম বলছি না। যারা এখনও ভুলের উপর রয়েছেন তাদের উচিৎ ভুলকে সংশোধন করা। ৬ এবং ৭ জানুয়ারি সিলেটের বদিকোনায় দুদিন ব্যাপি ইজতেমা দুদিনই পূর্ণাঙ্গ হয়েছে। প্রতিপক্ষরা প্রশাসনের কাছে গিয়েছিলেন। বিশেষসূত্রে প্রাপ্ত সংবাদ হলো, প্রশাসন খুব বিরক্ত হয়েছে প্রতিরোধকারিদের উপর। তারা তাদের প্রশাসনিক নিয়মে বিরক্তির প্রকাশ ঘটিয়েছে। তবে বন্ধ করেনি ইজতেমা। শুক্রবার এশার নামাজ পর্যন্ত তাদের কর্মসূচি ছিলো। তারা এশার নামাজ দেরিতে পড়েন এবং পরে দোয়ার মাধ্যমে শেষ করেন। একেবারে সত্য এটাই। উপস্থিত সাংবাদিকদের ভাষ্য হলো, এখানে খুজারখলা মাদরাসার কিছু ছোট ছাত্রকে নিয়ে কিছুলোক সমবেত হয়েছিলেন। তবে তারা পাল্টা প্রতিরোধের মুখোমুখি হলে বেশি সময় দাঁড়িয়ে থাকতে পারেনি। সাদপন্থী একজন বলেন, এখানে সুরমা নদীর পূর্ব পার থেকে কোন মাদরাসার শিক্ষক কিংবা ছাত্র আসেন নি। যাদেরকে দেখাগেছে তারা মনে হয় খুজারখলা মাদরাসারই ছাত্র কিংবা একজন আশপাশের হতে পারে। উলামায়ে কেরামদের যারা বিরোধীতা করছিলেন তারা ধীরে ধীরে ভুলটা বুঝতে পারছেন বলে অনেকেই মনে করেন। আমরা চাই এই ভুলের অবসান হোক।
যারা মাওলানা সাদ কান্ধালভীর পক্ষ নিয়ে প্রতিপক্ষকে গায়েল করার নিয়তে কাজ করেন, গালাগালি করেন, আমি তাদের উদ্দেশ্যে বলবো তারা যেন এই পথ ত্যাগ করেন। স্মরণ রাখবেন, উভয়ই আমাদের। কাউকে বাদ দিয়ে কিছুই হবে না। কেউ কাউকে গালাগালি করবেন না দয়া করে।
বদিকোনা কিংবা অন্যকোথাও ইজতেমা সফল হলে আপনার যেমন জিতার কিছু নেই, তেমনি ইজতেমা বিফল হলে আপনার হারারও কিছু নেই। কাজ করবেন সোয়াবের নিয়তে, তা হলে কোন কাজই বেকার যাবে না। আল্লাহ আমাদেরকে সহীহ বুঝ দান করুন।

এই সংবাদটি 1,393 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com