খেলাফত মজলিস যুক্তরাজ্য শাখার ভার্চুয়াল তারবিয়্যাতী মজলিস অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত: ৫:২৮ পূর্বাহ্ণ, জুলাই ১, ২০২০

খেলাফত মজলিস যুক্তরাজ্য শাখার ভার্চুয়াল তারবিয়্যাতী মজলিস অনুষ্ঠিত

সিলেটরিপোর্ট : গত ২৮ জুন ২০২০ বিকাল ৪ ঘটিকায় ভার্চুয়াল এর মাধ্যমে অনুষ্ঠিত হয় খেলাফত মজলিস যুক্তরাজ্য শাখার তারবিয়্যাতী মজলিস। উক্ত প্রশিক্ষন মজলিসে উদ্বোধনী বক্তব্য রাখেন শাখার সভাপতি মাওলানা সাদিকুর রাহমান।
শাখার সাধারণ সম্পাদক মাওলানা শাহ মিজানুল হকের পরিচালনায় এতে হেদায়াতী নসিহত পেশ করেন, প্রধান অতিথি খেলাফত মজলিসের সিনিয়র নায়েবে আমীর অধ্যক্ষ মোহাম্মদ মাসউদ খান।
তিনি বলেন, খেলাফত মজলিসের কর্মীগণ কোন জাগতিক লক্ষ্যকে সামনে না রেখে আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জনের লক্ষ্যে জীবনের সার্বিক কাজ করতে হবে। সংঘবদ্ধ প্রচেষ্টার মাধ্যমে সমাজে ইনসাফ প্রতিষ্ঠা করতে হবে।সংগঠিত উদ্যোগ ছাড়া ইসলামের শ্রেষ্ঠত্ব ও সৌন্দর্য বিকাশ সাধন সম্ভব নয়। আল্লাহ এবং তাঁর রাসুল (সাঃ) এর প্রতি ঈমান রেখে সংঘবদ্ধ জীবন যাপন ও ইনসাফের মাধ্যমে সমাজে শান্তি প্রতিষ্ঠার আহবান জানান।

আরো হেদায়াতী বক্তব্য রাখেন বিশেষ অতিথি সংগঠনের মহাসচীব ড: আহমদ আব্দুল কাদের। তিনি বলেন, ইসলামী আন্দোলনের কর্মীগণ নিজেদের কে ক্বোরআন সুন্নাহের শিক্ষায় গড়ে তুলে সমাজ কে অন্ধকার থেকে মুক্ত করতে হবে। নিজের আত্বশুদ্ধি ও ইনফাক ফী সাবিলিল্লার মাধ্যমে জীবন গঠন ও সংগঠনের কর্মসুচী সফলের মনোযোগী হয়ে আল্লাহর সাহায্য কামনা করতে হবে।

তারবিয়্যাতী মজলিসে “সাংগঠনিক জীবনে ইখলাসের গুরুত্ব” বিষয়ক আলোচনা পেশ করেন, কেন্দ্রীয় সিনিয়র যুগ্ম মহাসচীব মাওলানা শফিক উদ্দীন।
তিনি তাঁর আলোচনায় বলেন, ইসলামী আন্দোলনের সৈনিকদের কে লাঞ্ছনা বঞ্চনা এবং জালিমের জুলুম থেকে মুক্তি এবং সমাজে ন্যায় ও ইনসাফ, সহমর্মিতা, সম্মানী জীবন যাপনের জন্য ঐক্যের কোন বিকল্প নেই।

সবাই ঐক্যবদ্ধ জীবনে এখলাসের গুরুত্ব দিয়ে খাঠি ও শুদ্ধ এবং একনিষ্টতা ও আন্তরিকতার ভিত্তিতে সাংগঠনিক কাজ সহ আল্লাহর বিধিবিধান। মনে রাখতে হবে! মুমিন ও বিশ্বাসীদের জীবনে এখলাসের গুরুত্ব অনেক অপরিহার্য্য।
জীবনে বিজয় অর্জন করতে হলে সঠিক ও একনিষ্ট ভাবে এবাদত, ক্বোরবানী ও ধৈর্য্যের সাথে মঞ্জিলে মকসুদে পৌঁছার প্রচেষ্টা জারি রাখতে হবে। অন্তরে যেন শুধু আনুষ্টানিকতা লক্ষ্য না হয়। কাজের ফলাফল সংকল্পের উপর নির্ভর করে জীবনের প্রতিটি মূহুর্ত যেন পরিশুদ্ধ হয়। বাহ্যিক আমলে একনিষ্টতা থাকলে গ্রহণযোগ্যতা বৃদ্ধি পায়। এতে সকল ধরণে জটিলতা ও বিশৃংখলা এবং অনিয়ম থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।
ব্যক্তিগত জীবনে হক্কুন্নাস ও আত্বসম্মান এবং ভারসাম্য যদি না থাকে তবে পরিবার, আত্মীয় স্বজন ও বন্ধু সমাজে অসন্তুষ্টি দেখা দেয়। লক্ষ্য রাখতে হবে এখলাসের ভিত্তিতে বৈধ লোভ ও ব্যক্তি স্বার্থ কে সিমাবদ্ধ রেখে জীবনের সকল ক্ষেত্রে ইজ্জত সম্মান অর্জন করতে হলে এখলাসের কোন বিকল্প নেই।

“ইউরোপে দ্বীনি কাজের গুরুত্ব ও প্রয়োজনীয়তা বিষয়ক” আলোচনা পেশ করেন, কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচীব, অধ্যাপক মাওলানা আব্দুল কাদির সালেহ।

তিনি বলেন, নবী (সাঃ) এর আদর্শ কে খোলাফায়ে রাশীদিনের অনুকরণের মাধ্যমে শান্তির মেসিজ বঞ্ছিত জনগষ্টির নিকট পৌঁছাতে হবে। ইসলামী আন্দোলনের কর্মীকে দ্বীনের দায়ী হিসেবে তৈরী হতে হবে এবং সবাই কে দ্বীনের প্রিপারেশন অন্তরে রাখতে হবে।

নীতি ও আদর্শের ক্ষেত্রে অপকৌশল কোন সময় অবলম্বন করা যাবেনা। ব্যক্তিকে খুশি করার স্বার্থে দ্বীনকে অবমূল্যায়ন করা যাবে না। রাসুলের নির্দেশের উপর অবিচল থাকতে হবে। সবার মাঝে ঈমানের মজবুতি ও দৃঢ়তা থাকতে হবে। যখন কোন কথা বা কাজ অথবা চিন্তা করবেন তখন দ্বীনকে অগ্রাধিকার দিতে হবে। সকল ধরণের স্বার্থপর পন্থা পরিহার করে তাগুতের সাথে কোন সময় কমপ্রমাইজ না করে সঠিক নীতির উপর অঠল থাকতে হবে।

“COVID’19 হতে শিক্ষা ও পরবর্তী করনীয় বিষয়ক” আলোচনা পেশ করেন, কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক, ড: মুস্তাফিজুর রাহমান ফয়সল।
তিনি বলেন, আদম (আঃ) পর থেকে আজ পর্যন্ত বিশ্বের প্রতিটি দেশে কোন সময় একসাথে মহামারী বা ভাইরাস আক্রমন করেনি। এই প্রথম কোভিড’১৯ বিশ্বের প্রতিটি দেশে আঘাত করেছে। করোনা কোন ঋতু বা সীমানা কে তুওয়াক্কা না করে মৃত্যুর বন্যায় বিশ্ব কে প্লাবিত করেছে।

করোনা শিক্ষা দিয়েছে, মহা নবী (সাঃ) এর আদর্শ পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা থাকা এবং করোনা ভাইরাস প্রমান করেছে আল্লাহর চেয়ে কেউ শক্তিশালী নয়। উক্ত ভাইরাসটি কেউ তৈরী করুক বা না করুক তা নিঃসন্দেহে রবের হুকুমে বিস্তার হচ্ছে। বিশ্বের মানবজাতীকে শিক্ষা দিয়েছে আল্লাহর ক্ষমতা সবার উর্ধে।

এতে আমাদের কে আল্লাহর দেওয়া নিয়ামতের শুকরিয়া আদায় করতে হবে। কোভিড’১৯ একথা বুঝি দিয়েছে ক্ষমতা থাকলেই শুধু যে কোন কাজ হয় তা সম্ভব নয়, তার প্রয়োজন আল্লাহর একান্ত সহায্য। তাই রবের নিয়ামত এবং হুকুম নতশীরে পালন করতে হবে। মৃত্যুকে মানুষ উপদলব্ধি করতেছে কাছ থেকে, দেখতেছে মৃত্যু যে মানুষের একেবারে কাছে তা সুনিশ্চিত শিক্ষা পেয়েছে।

সবাই কে ব্যক্তিগত, পারিবারিক, সামাজিক ও সাংগঠনিক এবং রাষ্ট্রীয় জীবনে আমাদের কে ভারসাম্য শিক্ষা দিয়েছে। জাতিগত বর্ণ বিদ্বেষ শিক্ষা দিতে কোভিড১৯ কোন বর্ন বা গোষ্টি, ধনী বা গরীব ভেদাভেদ ভুলে গিয়ে দেখিয়ে দিয়েছে আল্লাহর নিকট সবাই সমান।

কোভিড১৯ প্রমান করেছে জনগন দেশের কোন বুঝা নয়, জনগন জাতীর সম্পদ এখন সবার উপলব্দি হয়েছে।আলোচক উল্লেখ করেন যে, মহামারী আল্লাহর পক্ষ থেকে আমাদের জন্য রহমত বা ঈমানী পরিক্ষা এবং কাহার জন্য এতে আজাবও রয়েছে। এতে মানবতা এবং হৃদয়হীনতা তৈরী করেছে। এথেকে মুক্তি পেতে হলে মানুষের জীবনে ইসলামী শিক্ষা বা চিন্তা চেতনা এবং এক আল্লাহর উপর বিশ্বাস স্খাপনের ভিত্তিতে মহান নবী (সাঃ) এর আদর্শ, জীবনের সকল ক্ষেত্রে বাস্তবায়নের জন্য সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে।
শুরুতে দারসে কোরআন পেশ করেন, কেন্দ্রীয় শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক, মাওলানা শামছুজ্জামান চৌধুরী।
তিনি বলেন, ইসলামী আন্দোলনের সফলকাম হতে হলে বিনয় নম্র ও অনর্থক কথা বার্তা থেকে হেফাজত থাকতে হবে। নিজের ব্যক্তিগত ও সামষ্টিক জীবনে সীমালংঘন না করে আমানত ও অঙ্গীকার কে রক্ষা করতে হবে। এবাদতের সাথে সাথে নিজের সাধ্যমতে ইনফাক-ফী সাবিলিল্লাহ ও দাওয়াতের মাধ্যমে দ্বীনি কাজ সম্প্রসারিত করার আহবান জানান।

এতে প্রশিক্ষন সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচীব, বিশিষ্ট আলেমে দ্বীন মাওলানা আহমদ আলী কাসেমী।
তিনি বলেন, ইসলামী আন্দোলনের কর্মীদের কে দাওয়াতে দ্বীনের প্রতি গুরুত্ব দিতে হবে। দাওয়াতের জন্য সময় উপযোগী জ্ঞান অর্জন এবং দাওয়াতের প্রতিটি ক্ষেত্র কে দ্বীন প্রচারের জন্য গ্রহন করতে হবে। ব্যক্তিগত বা সামষ্টিক ভাবে হেকমত ও উত্তম পন্থায় হকের আহবান করে মানুষকে সমাজের অন্ধকার থেকে আলোর পথে নিয়ে আসার আহবান জানান।

বিশেষ অতিথি হিসেবে আরো বক্তব্য রাখেন, যুগ্ম মহাসচীব এডভোকেট জাহাঙ্গীর হোসাইন। তিনি বলেন, ইসলামী আন্দোলনের কাজ কে ঐক্যবদ্ধ প্রক্রিয়ার ভিত্তিতে করতে হবে। ব্যক্তিগত ও সামষ্টিগত যে কোন কাজে সফল হতে হলে দ্বীনিমান ও সাংগঠনিক প্রক্রিয়ায় থাকতে হবে। কর্মী সকল পর্যায়ে দ্বীনকে অগ্রাধিকার দিতে হবে। সংগঠনের সকল পর্যায়ে সংবিধানের নীতি মেনে চলতে হবে। মনে রাখতে হবে, পারস্পরিক আস্থা ও সম্পর্ক হচ্ছে সফলের আরো একটি পন্থা। জীবনে আরাম আইশের প্রধান্য না দিয়ে ঈমান ও বিশ্বাসের প্রধান্য দিয়ে কাজ করার আহবান জানান।

বিশেষ অতিথি হিসেবে আরো বক্তব্য রাখেন, যুগ্ম মহাসচীব, মোহাম্মদ মুনতাসির আলী। তিনি বলেন, ঈমানের যদি পরিপুর্ণ রুপ লাভ করতে হয়। তা হলে ইসলামি অনুশাসনের উপরে জীবন কে পরিচালিত করতে হবে। ইসলামকে জীবনে পুর্নাঙ্গ রুপ দিতে হলে এহসান কে প্রধান্য দিতে হবে। আমাদের জীবন কে সঠিক ভাবে মূল্যয়ন করতে হবে। এহসানে দুর্বলতা থাকার কারণে আমাদের ঈমান পরিপুর্ন হয় না। খেলাফতে রাশেদার আদর্শে ইনসাফ ভিত্তিক সমাজ গঠনের কাজে সবাই এগিয়ে আসার আহবান জানান।

তারবিয়্যাহ মজলিসের শুরুতে কোরআন তেলাওয়াত করেন, ইউকে শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক হাফিজ মাওলানা কামরুল হাছান খান।

পরিশেষে শাখার সভাপতি মাওলানা সাদিকুর রাহমানের সমাপনী বক্তব্যের পর বিশ্ব শান্তি ও করোনা মহামারী থেকে মুক্তির জন্য মহান আল্লাহর নিকট মোনাজাত করেন খেলাফত মজলিসের কেন্দ্রীয় সিনিয়র যুগ্ম মহাসচীব, মাওলানা শফিক উদ্দীন।

এই সংবাদটি 44 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com