সংগ্রামী মনীষী : মাওলানা শামসুদ্দিন কাসেমী রাহ.  (১৯৩৫- ১৯৯৬) শাহিদ হাতিমী

প্রকাশিত: ১১:৫৪ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ১৯, ২০২০

শাহিদ হাতিমী

 

মাওলানা শামছুদ্দীন কাসেমী। রহমাতুল্লাহি আলাইহি। একাধারে ছিলেন একজন প্রাজ্ঞ রাজনৈতিক, চিন্তাশীল আলেম, দ্বীনদরদী সমাজহিতৈষী সেবক, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের সাবেক মহাসচিব, জামিয়া হুছাইনিয়া ইসলামিয়া আরজাবাদ মিরপুর ঢাকার মহাপরিচালক, মাসিক পয়গামে হক্ক ও সাপ্তাহিক জমিয়তের প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক। হেফাজতে ইসলামের বহু আগে থেকে শুরু করেন নাস্তিক-মুরতাদ বিরোধী আন্দোলন। বাতিলের বিরুদ্ধে আপোষহীন এক অকুতোভয় সৈনিক তিনি। ছিলেন খতমে নবুওত আন্দোলন পরিষদ বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি এবং বহুগ্রন্থ প্রণেতা। চট্টগ্রামের সন্দ্বীপ থানাধীন নিয়ামস্তির এক সম্ভ্রান্ত পরিবারে ১৯৩৫ ঈসায়ীর ৫ই মার্চ তিনি জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতার নাম মাওলানা মুহাম্মদ মুদ্দাসসির, দাদার নাম আহমদ সারেং। তিনি মরহুম আলী মুন্সি সাহেবের বংশধর।

 

সংগ্রামী এ মনীষী বাংলাদেশে সর্বপ্রথম কাদিয়ানীদের বিরুদ্ধে জোরদার আন্দোলন গড়ে তোলেন। দেশ ও ধর্ম বিদ্বেষী এনজিও সস্থার বিরুদ্ধেও তিনি আজীবন আপোষহীন সংগ্রাম পরিচালনা করে গেছেন। লিখেছেন অনেক রিসালা। বেশিরভাগ সময় তিনি সমসাময়িক নতুন নতুন ফেতনাগুলোর স্বরূপ উন্মোচন করে সমাজ ও জাতিকে সতর্ক করতেন! আকাবির আসলাফের সংগঠন জমিয়তের ইতিহাসে তিনি চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবেন কেননা, তিনি টানা ৩বার দক্ষতা ও বিশ্বস্ততার সঙ্গে কাজ করায় জমিয়তের মহাসচিব নির্বাচিত হন। অতঃপর সহ-সভাপতি ও নির্বাহী সভাপতিও ছিলেন। তাঁর বড় ছেলে, জামিয়া আরজাবাদের বর্তমান মুহতামিম, জমিয়তের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা শায়খ বাহাউদ্দীন জাকারিয়া হাফিজাহুল্লাহকে বলতে শোনেছি, তাঁর পিতা মুজাহিদে মিল্লাত আল্লামা শামসুদ্দিন কাসিমী রাহ. ছিলেন বৃটিশ বিরোধী আন্দোলনের কিংবদন্তি শায়খুল ইসলাম সায়্যিদ হুসাইন আহমদ মাদানীর একান্ত অনুরক্ত ও আদর্শের ভাষ্যকার।

 

১৯৮০ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারি ঢাকা লালকুঠি হলে অনুষ্ঠিত জমিয়তের কাউন্সিলে শায়খুল মাশায়েখ হযরত মাওলানা হাফেজ সৈয়দ আব্দুল করীম শায়খে কৌড়িয়া ও আমীরে শরীয়ত সাবেক প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী হাফেজ মাওলানা মোহাম্মদ উল্লাহ হাফেজ্জী হুজুর রহ.-কে পৃষ্ঠপোষক এবং মরহুম শায়খুল হাদিস আল্লামা আজীজুল হককে সভাপতি ও মরহুম কাসেমীকে মহাসচিব নির্বাচিত করা হয়। তাছাড়া আরও দু’বার, ১৯৮১ ও ১৯৮৮ সালেও মহাসচিব নির্বাচিত হন। ১৯৮৮ সালে সম্মিলিত ত্রাণ কমিটির সহসভাপতি হিসেবে ব্যাপক কাজ করেন এবং হাফেজ্জী হুজুরের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির ভাইস চেয়ারম্যানের দায়িত্বে ছিলেন। আল্লাহ পাক তাঁকে ভালোবাসুন। আমাদেরকে তাঁর মতো সংগ্রামী ও আপোষহীন জীবন গঠনের তৌফিক দিন।

….

তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক

ছাত্র জমিয়ত বাংলাদেশ

 

এই সংবাদটি 117 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com