বুধবার, ৩০ নভে ২০১৬ ১২:১১ ঘণ্টা

রোহিঙ্গা নিধন ও মজলুমানের কান্না

Share Button

রোহিঙ্গা নিধন ও মজলুমানের কান্না

শাহিদ হাতিমী : থেমে নেই অত্যাচার। মিয়ানমারের রোহিঙ্গা মুসলিম সম্প্রদায়ের উপর চলছে নির্যাতনের ষ্টিম রুলার। গত সপ্তাহে প্রায় দুই হাজার ঘরবাড়ি পুঁড়িয়ে দিয়েছে দেশটির সেনাবাহিনী। মগ ভল্লুকরা ক্ষুধার্ত নেকড়ের ন্যায় ঝাঁপিয়ে পড়েছে মুসলিমদের উপর। একটি সূত্রমতে হত্যা করা হয়েছে ৩০ হাজার পুরুষকে। ধর্ষণ করা হয়েছে হাজার হাজার মা বোনকে। মারা গেছে ১০ হাজারেরও বেশি শিশু। ভিন্ন ভিন্ন নামে তাদের পক্ষে মাতামাতি হলেও সময় যত যাচ্ছে মনে হচ্ছে কেউ নেই তাদের পাশে দাঁড়াবার। ইহা কি সময়ের কৃপণতা না মানুষের নিষ্ঠুরত! মুসলিম বিদ্বেষী রাষ্ট্রের ন্যায় আমাদের বাংলাদেশ সরকারও আশ্চর্যজনক নিরব। সময় কারো জন্য অপেক্ষা করে না যেমন সত্য, তেমন সত্য এক একটি সময় এক একটি বিষয়ে আলোচিত। কারো কারো নিকট সমালোচিত। কেউ কেউ থাকেন উদ্ভব বিষয়টির পক্ষে, কেউবা আবার বিপক্ষে। কেউ বলেন, বিষয়টি সাম্প্রদায়িক দাঙ্গামা। কেউ বলেন দেশের অভ্যন্তরীণ ব্যাপার। এমনকি অনেকে আন্তর্জাতিক চক্রান্তও বলেন। গেলো কয়েকদিনের আলোচনা-পর্যালোচনা, সমালোচনার বিষয়টি মিয়ানমারের ‘রোহিঙ্গা’ সম্প্রদায়কে নিয়ে। প্রতিদিনই সোসাল মেডিয়ায়, ফেইসবুকে, টুইটারে, ইউটিবে, পত্রিকার পাতায় অথবা মিডিয়ার খবরে দেখা যায়, শোনা যায়, কী নির্মম কাহিনী! ঘর-বাড়ী পুড়াঁনোর কী নৃশংস চিত্র! সাগর-জলে ভাসমান লা-ওয়ারিশ, অথবা গন্তব্যহীন লঞ্চ, স্টীমার, নৌকা, স্প্রীট বোটগুলোর নারী-শিশুসহ হাজার হাজার মানুষের না খেয়ে মারা যাবার কথা। যতদূর জানি, আত্মরক্ষা সর্বদা জায়েয। শুনেছি সীমান্তবর্তী দেশগুলোতে ‘রোহিঙ্গারা’ জীবন বাঁচাতে, আত্মরক্ষার্থে পাশবর্তী দেশে প্রবেশ হতে চাইলে তাদেরকে ফিরিয়ে দেয়া হচ্ছে। বিশেষত বাংলাদেশ সীমান্ত থেকে তাদেরকে কয়েক দফা ফেরত পাঠানো হয়েছে। পাশাপাশি এরা প্রবেশ না করার জন্য সরকারের পক্ষে বিজিবিকে সর্বোচ্চ হুশিয়ারী দেয়া হয়েছে।
সভাবতই প্রশ্ন জাগে ‘রোহিঙ্গা’ কারা? কী তাদের পরিচয়? কোথায় তাদের বসবাস? কী কারণে তাদের উপর এত নির্মম নির্যাতন। কেন নিধনযজ্ঞ! কোন ধর্মের অনুসারী-বিশ্বাসী তারা? ইতিহাসের পাতায় তাদের কোন উপখ্যান আছে কি? তাদের জন্য বাংলাদেশের কী করণীয়? মানবাধিকার সংস্থাগুলো কি তাদের পক্ষে? সার্ক ওআইসি এবং জাতিসংঘের পক্ষ থেকে তাদের ব্যাপারে কোন কথা-বার্তা কিংবা ব্যথা আছে কি?
এ যাবৎ ‘রোহিঙ্গা’দের প্রতি বৈষম্য অথবা তাদের উপর গণহারে নির্মম নির্যাতন, নিধন প্রক্রিয়া- বিগত পঞ্চাশ বছরের মধ্যে চারবার হয়েছে। গত ৯ অক্টোবর রাখাইন রাজ্যে মিয়ানমার সীমান্তের তিনটি চেকপোস্টে মুখোশপরা অস্ত্রধারীদের হামলায় দেশটির নয়জন পুলিশ সদস্য নিহত হওয়ার পর রোহিঙ্গাদের দমনে সেনাবাহিনী কর্তৃক চলমান হত্যা অভিযানটি শুরু হয়। ইতিহাস অনুপাতে রোহিঙ্গা নিধনযজ্ঞের এটি চতুর্থ আক্রমণ ৷ সীমান্তের তিনটি চেকপোস্টে কারা ওই হামলা চালিয়েছিল, এটা পরিষ্কার নয়। তবে মাদক চোরাচালান চক্র থেকে শুরু করে ইসলামপন্থী সবাইকে হামলাকারী বলা হচ্ছে। এ ঘটনার পর সেনাবাহিনীর অভিযানে শতাধিক মানুষ নিহত হয়েছে, যাদের বেশির ভাগই বেসামরিক লোক। আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠন হিউম্যান রাইটস ওয়াচ প্রকাশিত স্যাটেলাইটে ধারণ করা ছবিতে দেখা গেছে, ২২ অক্টোবর থেকে ১০ নভেম্বর পর্যন্ত উত্তরাঞ্চলীয় রাখাইন রাজ্যের বিভিন্ন গ্রামের কমপক্ষে ৮৩০টি বাড়িঘর আগুনে পুঁড়িয়ে দিয়েছে বার্মার সেনারা ৷ কিন্তুু, মিয়ানমারের সরকার এসব অভিযোগ অস্বীকার করছে। মিয়ানমারের সরকার সম্প্রতি ঘোষণা করেছিল যে, তারা রাখাইন রাজ্যের সব অবৈধ স্থাপনা ভেঙে ফেলার পরিকল্পনা গ্রহন করেছে! সরকারের এ ঘোষণার কারণেই হয়তো ৯ অক্টোবরের ওই হামলা হয়েছে। কেননা, তাদের কাছে রোহিঙ্গারা অবৈধ ৷
এক বছর আগে মিয়ানমারে এক প্রত্যাশিত নির্বাচনের পর দেশটির গণতন্ত্রপন্থী নেত্রী ও শান্তিতে নোবেল জয়ী অং সান সু’চি নতুন একটি গণতান্ত্রিক সরকারের প্রধান হন। তার এই বিজয়ে অনেকে আশা করেছিল যে তিনি হয়তো রোহিঙ্গাদের এই সঙ্কট নিরসন করবেন। নতুন সরকার মিয়ানমারের জনগণের মানবাধিকার ফিরিয়ে আনবেন! কিন্তু এখন মনে হচ্ছে, যা আশা করা হয়েছিল, তা ছিল ভুল। উল্টো বরং অং সান সু’চি রোহিঙ্গাদের বিদেশি হিসেবে বিবেচনা করছেন। তিনি বলছেন, রোহিঙ্গারা মিয়ানমারের নাগরিক নয়। তারা বাঙালি। (সুত্র: ২৪ নভেম্বর, দৈনিক ইনকিলাব)
এবারের মতো পূর্বের দফা গুলোতেও ‘রোহিঙ্গা’ শরণার্থীরা সীমান্তবর্তী দেশগুলোতে আশ্রয় চেয়েছিল। তন্মধ্যে ১৯৭৮ সালে প্রথমে এবং ১৯৯১-৯২ সালে দ্বিতীয় দফায়। তখন মানবিক খাতিরে বাংলাদেশ সরকার ‘রোহিঙ্গা’ মজলুমদের প্রবেশ হওয়ার অনুমতি ও আশ্রয় দিয়েছিল এবং সে সময়গুলোতে হাজার হাজার রোহিঙ্গা শরণার্থী মুসলমান আমাদের দেশে এসেছিল, আশ্রয় নিয়েছিল।

১৯৭৪ সালের কথা। মিয়ানমারে জান্তা সরকার ইমার্জেন্সি ইমিগ্রেশন এ্যাক্ট সূচিত হয়। এই এ্যাক্টে বলা হয়, ভারত-চীন ও বাংলাদেশে রয়ে যাওয়া (অবস্থানরত) অবৈধ অভিবাসীদের নিয়ন্ত্রণ করাই আইনের উদ্দেশ্য। প্রত্যেক নাগরিকের জন্য নাগরিক কার্ড বহন বাধ্যতামূলক করা হয়। কিন্তু এ সময় রোহিঙ্গাদেরকে কোন কার্ড দেয়া হয় না। তাদের দেয়া হয় অভিবাসী কার্ড; যে কার্ড প্রমাণ করে তারা মিয়ানমারের নাগরিক নয়। প্রথম প্রথম এসব কার্ডে কোন সমস্যা বুঝা না গেলেও আসল সমস্যা শুরু হয় কয়েক বছর পর। ১৯৭৭ সালে সামরিক সরকার শুরু করে ‘অপারেশন নাগামীন’ বা ড্রাগন রাজ। অবৈধ অভিবাসী চিহ্নিত করার নামে রোহিঙ্গাদের উপর ব্যাপক নির্যাতন চালায় মিয়ানমার সেনাবাহিনী ও স্থানীয় রাখাইনরা। তাদের নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে ১৯৭৮ সালের মে মাসের মধ্যে কমপক্ষে ২ লাখ ‘রোহিঙ্গা’ মিয়ানমার ছেড়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিতে বাধ্য হয়।
দ্বিতীয় পর্ব ৯০ দশকে। সে বছর কোনও কারণে রোহিঙ্গাদের ভোটাধিকার দেয়া হয়। নির্বাচনে পশ্চিমা বধু অং সান সু’চির নেতৃত্বাধীন ‘ন্যাশনাল লীগ ফর ডেমাক্রসি’ বিজয়ী হয়। মিয়ানমারের এই নির্বাচনে (এনএলডি) ৪৫৮টি আসনের মধ্যে ৩৯২টি আসন পেলেও জান্তা সরকার সু’চির হাতে ক্ষমতা হস্তান্তরের প্রতিশ্রুতি থেকে সরে দাঁড়ায়। এতে করে মিয়ানমার জুড়ে ছড়িয়ে পড়ে অসন্তোষ আর বিক্ষোভ। ২১টি এথনিক গ্রুপ মিলে তৈরী হয় ‘ডেমাক্রটিক অ্যনারেন্স অব বার্মা’। যা ড্যাব নামে পরিচিতি পায়। ড্যাব ঘোষণা করে সামরিক সরকারের হাত থেকে গণতন্ত্র ছিনিয়ে আনতে তারা সশস্ত্র যুদ্ধ করবে। রোহিঙ্গাদের শুরু দুটি সংগঠন ‘অল বার্মা মুসলিম ইউনিয়ন এবং আরাকান রোহিঙ্গা ইসলামিক ফ্রন্টও’ যৌথ বিবৃতিতে জানায়, তারাও সামরিক সরকারের বিরুদ্ধে সশস্ত্র যুদ্ধে শামিল হবে। সামরিক এক নায়করা যা করেন এ ক্ষেত্রেও তার ব্যতিক্রম হয়নি। জনরোষকে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গায় পর্যবসিত করতে আক্রমণ শুরু হয় রোহিঙ্গাদের উপর। উস্কে দেয়া হয় স্থানীয় রাখাইনদের। একই সঙ্গে চলে সামরিক অভিযান। মাত্রা ছাড়া নির্যাতন চলে আরেকবার রোহিঙ্গাদের উপর। এবারও বাংলাদেশ তার মানবাধিকার পরিচয় দেয়। ১৯৯১ সালের জুন মাসে বাংলাদেশ সরকার জানায় পূর্ববর্তী ৬ মাসে অন্তত ২ লাখ রোহিঙ্গা সীমান্ত পেরিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে। সুযোগ হওয়াতে এ সময় তারা অন্যান্য রাষ্ট্রগুলোতেও আশ্রয় নেয় ৷ তৃতীয় পর্বে ২০১২সালে আবারো তাদের উপর শুরু হয় অত্যাচার! বৈষম্যের গ্যাড়াকলে এতেও প্রাণ হারাতে কয়েক হাজার মজলুমকে, মানুষকে ৷ তখন অবশ্য বাংলাদেশে বিচ্ছিন্নভাবে হাতেগণা রোহিঙ্গা মুসলমানের প্রবেশ ঘটলেও সরকারী ঘোষণা হয়নি ৷ এবারের নির্যাতন এবং হত্যামাত্রা ব্যাপকবারে বেড়েছে, যা আগের যেকোন সময়ের তুলনায় বেশি!
২০১২সালের বৈষম্যের জের কাটতে না কাটতে মাত্র বছর ক’য়েকের মাতায় আবারো চললো নিধনযজ্ঞ! আর কতো?
জানানুপাতে ২০১২ সালে রাখাইন এক তরুণীকে কে বা কারা ধর্ষণ করে। যা পশ্চিমা বিশ্বে অতি সাধারণ একটি ব্যাপার। আর পশ্চিমাদের কথাই বা বলব কেন? আমাদের ডিজিটাল বাংলাদেশে তা কি খুব কম? রাখাইন তরুণী শুধু ধর্ষিত হয়েছে, আর আমাদের বাংলাদেশের পাষান্ড বখাটেরা ধর্ষণের পর তরুণীকে ২৬ টুকরা লাশও বানাচ্ছে। কৈ? থানায় সাধারণ ডায়েরী আর দু’চারদিন মিডিয়ায় মাতামাতি ছাড়া অপরাধির তেমন কোন শাস্তি আছে কি? কোন সম্প্রদায়কে দোষি করা তো দূরের কথা যে বাড়িতে লাশ পাওয়া গেছে সে বাড়ির সবাইকে আসামী করা হয়েছে কি? না! কারণ, কখনো সবাই অপরাধী হয় না। অথচ রাখাইন মেয়েটি ধর্ষিত হয়েছে আর এর সম্পূর্ণ দায়বার বহন করতে হচ্ছে রোহিঙ্গাদের। দোষ চাপিয়ে দেয়া হয়েছে রোহিঙ্গা সম্প্রদায়ের উপর। এ যেন শৈশবে পাড়া গাঁয়ে শোনা প্রবাদটির মতো ‘‘নরম মাটি হলে ঘুঘরাও খোড়তে থাকে’’। কোথাকার কোন তরুণীকে কারা ধর্ষণ করেছে এর সত্যায়ন না করে অপরাধী করা হচ্ছে সম্পূর্ণ নিরপরাধ শরনার্থী মজলুম রোহিঙ্গা মুসলিম সম্প্রদায়কে। রাখাইনরা ঘোষণা করেছে ২০ লাখ রোহিঙ্গাদের ধ্বংস করার নিধনে এক দফা যুদ্ধ। তার শুরুটা এভাবেই যে, আরাকান মুসলিম রোহিঙ্গা সম্প্রদায়ের তাবলীগ জামাতের একটি কাফেলা মাইক্রোবাসে করে রাখাইন বসতির মধ্যের রাস্তা দিয়ে যাত্রা করছিলেন, আর এতে মূহুর্তেই হামলা করে পষান্ড রাখাইনরা।
বাসসহ নির্মমভাবে জ্বালিয়ে-পুঁড়িয়ে হত্যা করে ১০-১২ জন রোহিঙ্গাকে। কী চরম নির্মম আচরণ! মধ্যযুগীয় বর্বরতাকেও এ অত্যাচার (হত্যা) হার মানাচ্ছিল ৷

বর্তমানে অর্থাৎ চলতি ২০১৬ সালের অবস্থা ত আরো করুণ, বর্বর! রোহিঙ্গারা যে মানুষ এ কথাটিও ভুলে গেছে রাখাইন সেনারা ৷ -“এ মুহূর্তে মিয়ানমার রোহিঙ্গা মুসলিমদের জন্য হাবিয়া জাহান্নামে পরিণত হয়েছে। বিশেষ করে রাখাইন রাজ্যে। মগ ভল্লুকদের নির্দয় নির্যাতনের ষ্টিমরোলারে সেখানে নিষ্পেষিত মানবতা ৷ কাতরাচ্ছে গাছপালা! দোযখের আগুনের উত্তাল লেলিহান শিখা অনুভব অথবা দেখার যদি কারও ইচ্ছা হয় সেই মানবতাবাদী অনুসন্ধিৎসুর গন্তব্য হতে পারে মিয়ানমার। এটি এখন রোহিঙ্গাদের জন্য আগুন মৃত্যুপুরী। রাখাইন সম্প্রদায়ের বেশ কিছু নিষ্ঠুর জল্লাদ মেতে উঠেছে খুনের উল্লাসে। তারা পুঁড়িয়ে মারছে রোহিঙ্গাদের। প্রতিবাদী দেখলেই মারছে পাখির মতো গুলি করে ৷ হত্যা করছে মুসলমানদের। কালোধোঁয়ার কুন্ডলিতে আকাশ বাতাস বিষাক্ত হয়ে ওঠছে সেখানে! মৃত্যু সেনারা খুঁজে খুঁজে মারছে নিরপরাধ জাতিগোষ্ঠির অসহায় লোকগুলোকেও। ইহা জাতি নিধন ছাড়া অন্য কিছু হতে পারে কি? ওরা শিশু নারী কাউকে রেহাই দিচ্ছে না। পিঠে-বুকে কুপাচ্ছে শিশুকে। এক তরুণীর বদলা নিতে ধর্ষণ করছে হাজার হাজার মুসলিম নারীকে। দাউ দাউ করে জ্বলছে রোহিঙ্গাদের বসতি। ঘরের পর ঘর। ১৯৭১ সালে পাকিস্তান হানাদারদের হামলা, অগ্নি সংযোগ, হত্যার মুখে আমরা বাঙালীরা যেভাবে পালিয়ে ছিলাম, গ্রাম ছেড়ে ছুটে ছিলাম আশ্রয়ের সন্ধানে, রক্ত, দগ্ধ, লুন্ঠিত আর ধর্ষিত হয়েছিল আমাদের স্বদেশ। মিয়ানমার রোহিঙ্গাদের বর্তমান অবস্থা তেমন কঠিন বাস্তবতার মুখোমুখি। রোহিঙ্গীদের বিচলিত চেহারা জানান দিচ্ছে মহাগ্রন্থ আল কুরআনের ঐ বানী— তোমাদের কী হলো? আল্লাহর রাহে লড়াই করছ না! অথচ অসহায় পুরুষ-নারী ও শিশু ফরিয়াদ করছে, হে রব! এ জালিম জনপদ থেকে আমাদেরকে বের করে নাও, আমাদেরকে ওলী (অভিভাবক) দাও, দাও হে খোদা সাহায্যকারী। [সূরা নিসা-আয়াত নং-৭৫]

নজর ফেল বাংলাদেশ! নাফ নদী বিধৌত মিয়ানমারের সাথে বাংলাদেশের সীমান্ত মোট ১৭৬ মাইল, বা ২৮৩ কিঃমিঃ। মিয়ানমারের প্রধান শহর ও রাজধানী ছিল “রেঙ্গুন”এ। বার্মা থেকে যেমন মিয়ানমার হয়েছে, ঠিক রেঙ্গুনের পরিবর্তিত নামও ইয়াঙ্গুন হয়ে গেছে। কিন্তু এখানে আর রাজধানীও নেই, বর্তমান রাজধানী “নেপিদ”বা “নাইপেডু”। তাদের রাষ্ট্রভাষা বর্মী। আয়তন-৬,৭৬,৫৫২ বর্গ কিঃমিঃ। বাংলাদেশের আয়তন-১,৪৭,৫৭০ বর্গ কিঃমিঃ, মানে বাংলাদেশের’চে চার গুণেরও বিগেস্ট কান্ট্রি। জনসংখ্যা ২০১৫ সালের হিসাব অনুযায়ী ৬ কোটি ৭৭ হাজার ৬৮৯ জন, বাংলাদেশের তুলনায় প্রায় তিন ভাগের এক ভাগ। মিয়ানমারে রয়েছে মোট ছয়টি রাজ্য। যথা মিয়ানমার, চিন, কাচিন, কারেন, মন, রাখাইন এবং শান। ‘রোহিঙ্গা’ পরিচয় ও বাংলাদেশ সম্পর্কের শেকড় অনেক পুরনো! হাজারাধিক বছর পূর্বে আরাকান (বর্তমান মিয়ানমার) রাজ্য রেহান কিংবা রেহাঙ’ নামে পরিচিত ছিল। সেই অঞ্চলের অধিবাসী হিসেবেই ‘রোহিঙ্গা’ শব্দের উৎপত্তি। ‘রোহিঙ্গা’ শব্দের অর্থ নৌকার মানুষ। কথিত আছে, মুসলিম কোন নাবিক সাগরযানে পথ হারান, এক পর্যায়ে তীরের সন্ধান মিলে, আর তখন ঐ নৌকারোহি বার ক’য়েক রহিম রহমান বলে আল্লাহর শোকরিয়া আদায় করেন! রহমান মানে দয়াবান আর এতে করে সে জায়গা ও আবাদকারীদের নাম (অধিবাসীদের উচ্চারণ অবনতিতে) “রোহাঙ” বা রেহাং অতঃপর রোহিঙ্গা হয়েছে ৷ কিন্তু মিয়ানমার বা বার্মা সরকার রোহিঙ্গা বলে কোন অস্তিত্ব স্বীকার করে না। ‘রোহিঙ্গা’ পূর্বতন বর্মা, অধুনা মিয়ানমারের পশ্চিম অঞ্চলের মুসলমান সংখ্যালঘু সম্প্রদায়। সংখ্যায় প্রায় ২০ লাখ রোহিঙ্গার অধিকাংশ বাংলাদেশ-মিয়ানমার সীমান্তের পাশে উত্তর রাখাইন রাজ্য নামে নামকরণ করা পূর্ববর্তী আরাকান রাজ্যের তিনটি টাউনশিপে বাস করে। মিয়ানমারের সামরিক জান্তা ও উগ্র রাখাইনদের সাম্প্রদায়িক আক্রমণের শিকার হয়ে প্রায় ১০ লাখের মত রোহিঙ্গা মিয়ানমার থেকে বিতাড়িত হয়ে বাংলাদেশে অথবা বিভিন্ন দেশে ছড়িয়ে পড়ছে।
ইতিহাস পাঠে জানা যায় ১৪০৪ সালে বর্মার পাসদান শাসকরা আরাকান দখল করে নিলে আরাকান রাজা মিন স মুন (রাজা নরমিখেইল) পূর্বদিকে পালিয়ে বাংলায় চলে আসেন। বাংলার গৌড় সালতানাত তখন দিল্লির মোগল সাম্রাজ্যের অধীনে ছিল। মিন স মুন আশ্রয় নেয়ার পরে দীর্ঘদিন গৌড় সুলতানের অধীনে রাজ কর্মচারীর কাজ করেন। ১৪২৯ সালে সুলতান নাদির শাহ মিন স মুনকে তার হারানো রাজ্য ফিরিয়ে দেয়ার উদ্যোগি হন। সুলতানের অস্ত্র ও সেনা সহায়তায় মিন স মুন পরের বছর তার রাজ্য উদ্ধারে সক্ষম হন এবং ১৪৩০ সাল থেকে ১৫৩১ সাল পর্যন্ত ১০০ বছর আরাকান রাজ্য গৌড় সুলতানের পক্ষে শাসনাধীন ছিলেন। এ সময় উক্ত অঞ্চলে মুসলমানদের আনাগোনা বৃদ্ধি পায়। তখন আরাকানের রাজারা যদিও বৌদ্ধ ধর্মের অনুসারী ছিলেন কিন্তু সুলতানের প্রতি আনুগত্য প্রকাশে তারা মুসলিম পদবী ধারণ করতেন। ‘রাজনীতি’ ম্যাগাজিন সূত্রে আরো জানা যায়, ওই সময় আরকানি মুদ্রায় কালেমা ও পসিয়ান লিপি চালু ছিল। এ সময় মিন-স-মুনের ভাই আলী খান এবং ছেলে রামু ও চট্টগ্রামের আশপাশের আরো কিছু অঞ্চল পর্যন্ত আরাকান রাজ্য বিস্তৃত করেন। এই রাজবংশের দ্বাদশ রাজা যুবক শাহ পদবিধারী রাজা মিন-বিনের শাসনকালে ১৫৩১ থেকে ১৫৫৩ সাল পর্যন্ত আরাকান রাজ্য সমৃদ্ধির চুড়ান্ত রূপ লাভ করে। তিনি বাংলার সালতানাত থেকে নিজেকে স্বাধীন হিসেবে ঘোষণা করেন। রাজা মিন বিন পর্তুগিজদের তার সেনাবাহিনী গড়ে তোলার জন্য নিয়োগ দেন এবং পর্তুগিজ সহযোগিতায় একটি শক্তিশালী নৌবাহিনী গড়ে তোলেন।
এ সময় বাংলার শাসকরা মোগল শাসনের বিরুদ্ধে স্বাধীনতা ঘোষণা করলে মোগল সম্রাট হুমায়ুন বাংলা আক্রমণ করেন। বাংলার এই অস্থিরতার সুযোগে আরাকান রাজা মিন বিন পূর্ব বাংলার এক বিশাল অংশ দখল করে নেন। পরবর্তী ১২০ বছর এই এলাকা আরাকান রাজার অধীনে চিল। মিন বিন পূর্ব বাংলার দখল করা অংশগুলো স্থানীয় রাজাদের মাধ্যমে শাসন করতেন। চট্টগ্রামে আরাকান রাজার গভর্ণরের দপ্তরে এই রাজারা খাজনা প্রদান করতেন। এ সময় এ অঞ্চলের মানুষদের মধ্যে নানা রকম সামাজিক সম্পর্কের সূত্রপাত হয় এবং চট্টগ্রামের আঞ্চলিক ভাষাসহ বাংলা ভাষার কিছু অপভ্রংশ ছোট আকারে হলেও আরাকানে পাওয়া যায়। মজার ব্যাপার হলো, আরাকান স্বাধীনতা অর্জনের পরও ১৯৮৪ সালে বৃটিশ শাসন আসার আগ পর্যন্ত দীর্ঘ ৩৫০ বছর এই অঞ্চলের রাজসভায় মুসলিম রীতিনীতি ও সংস্কৃতি চালু ছিল। উইকিপিডিয়া সুত্রে এক সমৃদ্ধ তথ্য বের হয়ে আসে! আরাকানের প্রথম সুলতান বা মুসলিম শাসক সুলাইমান শাহ থেকে নিয়ে ১৭জন সুলতানের শাসনকালের সন ও মিয়াদসহ চমৎকার এক ইতিহাস বের হলো ৷ নিম্নে তা উদৃত।
(১) সুলতান সুলাইমান শাহ-১৪৩০- ১৪৩৭।
(২) আলী খান-১৪৩৭ -১৪৫৯।
(৩) কালিমাহ শাহ-১৪৫৯– ১৪৮২।
(৪) মনকু শাহ-১৪৮২ –১৪৯১।
(৫) মুহাম্মদ শাহ-১৪৯১- ১৪৯৩।
(৬) নূরী শাহ-১৪৯৩ — ১৪৯৪।
(৭) শওক্ব মক্বদুল-১৪৯৪- ১৫০০।
(৮) আলী শাহ-১৫০০ -১৫১৩।
(৯) জালাল শাহ-১৫১৪- ১৫১৫।
(১০) আলী-শাহ আযাদ ১৫১৫ -১৫২১।
(১১) ইলইয়াস শাহ-১৫২১ — ১৫২৫।
(১২) আলী শাহ—–১৫২৫ — ১৫৩১।
(১৩) সুলতান যাবুক শাহ–১৫৩১ — ১৫৫৩।
(১৪) সিকন্দর শাহ—১৫৫৩ — ১৫৯৩।
(১৫) সলীম শাহ——১৫৯৩ — ১৬১২।
(১৬) হোসাইন শাহ—১৬১২ — ১৬২২।
(১৭) সলীম শাহ (ছানী)–১৬২২ –১৬৩৮।
এভাবে ১৭৮৪ সাল পর্যন্ত মুসলিম সালতানাত
অব্যাহত থাকে ৷ এতো সমৃদ্ধ ইতিহাসের পরও আজ তারা নাগরিক অধিকার থেকেও বঞ্চিত ৷ তবে অনেক রোহিঙ্গা নেতা মনে করেন, সপ্তম শতকে আসা পার্সিয়ান বণিকদের মাধ্যমে এখানে রোহিঙ্গা মুসলিম জনগোষ্ঠির উদ্ভব হয় এবং পরবর্তী সময় ভারতের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে আসা মুসলমানরাও ধীরে ধীরে এখানে রোহিঙ্গা হিসেবে পরিচিত হয়ে পড়েন। তাদের এই দাবীকেও উড়িয়ে দেওয়া যায় না সহজে। ‘আরাকান’ শব্দটি আরবী ভাষার কোনো শব্দের অপভ্রংশ। তবে গৌড়ের সুলতানদের পরোক্ষ শাসন শুরু হওয়ারও প্রায় ১০০ বছর আগে আরব ভাষাবিদ রাশীদ উদ্দিন ১৩১০ সালেই এ এলাকাকে ‘রাহান’ নামে চিহ্নিত করেছেন। ১৫৮৬ সালের দিকে বৃটিশ পর্যটক রালফ ফ্লিচ এই এলাকাকে বর্ণনা করেছেন ‘রোকন’ নামে। স্পষ্টতই বোঝা যায়, এই এলাকায় এক সময় মুসলমানদের শক্ত রাজনৈতিক প্রভাব ছিল। আরাকান বা অধুনা উত্তর রাখাইন প্রদেশের বর্তমান রাখাইনদের তুলনায় মুসলমানরা এই অঞ্চলে খুব বেশি দেরিতে আসেননি। যতদূর জানা যায়, ৯৫৭ সালের দিকে মোগলদের সময় এই অঞ্চলে রাখাইনরা বসতি স্থাপন করে।

বাঙালীরা ভুলে গেলে চলবে না, আমাদের কবি আলওয়াল কে ‘রোহিঙ্গা’ মুসলিমরাই আশ্রয় দিয়েছিল মিয়ানমার। এও স্মরণ রাখতে হবে যে, পশ্চিমা বধু মিয়ানমার বংশভূত এক সেনা নায়কের কন্যা অং সান সূ’চিদের নেতৃত্বে যে ‘গণতান্ত্রিক সরকার’ রয়েছে তা কখনো কোন মুসলমানের কল্যাণ বয়ে আনবে কি? যেই গণতন্ত্রমালায় ‘রোহিঙ্গা’ বলে কোন জাতির অস্তিত্বের স্বীকৃতি নেই!
অন্যথায় গণতন্ত্রপন্থি নেত্রী দেশের নির্মল বাতাসে ঘুরে বেড়ানোর হেতো কি? পত্রিকার পাতায় যারা চোখ রাখেন তারা সেদিন নিশ্চয় দেখেছেন সূ’চি পরিস্কার জানিয়ে দিয়েছেন তিনি রোহিঙ্গাদের সাথে নেই। তিনি বলেছেন রোহিঙ্গারা প্রবাসী! (২৪নভেম্বর, দৈনিক ইনকিলাব) সুতরাং ইহা বলার অপেক্ষা রাখে না যে, সময়ের অথবা শতাব্দির সবচেয়ে গুরুতর মজলুমদের পাশে দাঁড়াবার কেউ আছেন কি? যাদের অন্তরে রোহিঙ্গা মজলুমদের ব্যাপারে এতটুকু ভালোবাসা আছে, আসুন আমরা (মুসলমানরা) নিজে থেকে কমপক্ষে নিম্নের উদ্যোগগুলো গ্রহণ করি। এবং আমাদের করণীয় নির্ণয় করি।
ক) বিপন্ন রোহিঙ্গা ত্রাণ পরিষদ বাংলাদেশ অথবা অন্য কোন ব্যানারে তাদেরকে সহযোগিতা করা।
খ) দেশের ভেতরে সরকারের সুমতির জন্য ছোট অথবা বড় যে আকারেই হোক দোয়া মাহফিল, আলোচনা সভা, সেমিনার, মিছিল, মানববন্ধন, অনশন, গণস্বাক্ষর, গোলটেবিল বৈঠক, লংমার্চ, রোডমার্চ, ইত্যাদি করা।
গ) ‘রোহিঙ্গা’ মুসলমানদের আমাদের দেশে প্রবেশ করার অনুমতি প্রদানে ক্ষমতাশীন সরকারকে বাধ্য করাতে সুশৃঙ্খলভাবে অথবা শান্তিপূর্ণভাবে কিছু একটা করা।
ঘ) ঈমানী, ইসলামী এবং বাঙালী এই তিন পরিচয়ের কারণে বিশ্ব মুসলিম ও বাঙালী জাতিকে বলিষ্ঠ ভূমিকা পালন করা।
ঙ) রোহিঙ্গাদের স্থায়ী বসবাস, নাগরীকত্ব কার্ড প্রতিষ্ঠিত আবাস ভূমি-জন্ম ভূমি ফিরিয়ে দেয়ার লক্ষ্যে ‘‘তারা মিয়ানমারেরই উল্লেখ্যযোগ্য এক সম্প্রদায়’ এ কথার স্বীকৃতি আদায়ে সার্ক, ওআইসি এবং নামকরা সংগঠনগুলোকে জোটবদ্ধভাবে সোচ্চার হয়ে কাজ করা।
চ) জাতিসংঘ ও মানবাধিকার সংস্থাগুলোর সামনে রোহিঙ্গা নির্যাতনের লোমহর্ষক চিত্রগুলো তুলে ধরা।
ছ) সর্বোপরি আন্তর্জাতিক আদালতে তাৎক্ষণিক রোহিঙ্গা বৈষম্য নিরসনে উল্লেখযোগ্য উপস্থাপন (কেইস ডায়েরী) করা এবং বিচারপ্রার্থী হওয়া।
বলাবাহুল্য, পৃথিবীতে মুসলিম জাতির অস্তিত্ব আজ বহুমুখি আগ্রাসন, নির্যাতন ও ভয়াবহ বিপদের সম্মুখীন। পশ্চিমাবাদ, পূঁজিবাদ, সাম্রাজ্যবাদ একে একে মুসলিম দেশগুলোকে গিলে ফেলার চেষ্টা করছে। কাশ্মীর, ফিলিস্তিন, আফগানিস্তান, ইরাক, লিবিয়া, মধ্যপ্রাচ্য আজ পদনত, লুন্ঠিত অথবা নিষ্পেষিত। মুসলিম নিধনে সময়ে সময়ে শুধু অযুহাতই তৈরী হচ্ছে। কোথাও সে দেশের জান্তা সরকার তাদের নাগরিক বলে শিকারই করছে না। দাঙ্গাবাজ বর্মিজ ও সরকারী সৈন্য একত্র হয়ে ঘর-বাড়ী, দোকান-পাট আগুনে পুড়িয়ে তাদেরকে দেশ থেকে তাড়িয়ে দিতে চেষ্টা করছে। প্রাণ বাঁচাতে বহু মানুষ পালিয়ে এসে বাংলাদেশে আশ্রয় নিতে চাইছে। কিন্তু আমাদের সরকার এই আশ্রয় প্রার্থী মজলুম মানুষদেরকে অনুপ্রবেশকারী আখ্যা দিয়ে আটক করছে এবং ফেরত পাঠাচ্ছে সেখানেই, যেখানে তাদের জন্য উদ্যাত হয়ে আছে বন্দুক, যেখানে মৃত্যু ছাড়া অন্য কিছু তাদের জন্য অপেক্ষা করছে না। অসহায় নারী শিশু ও বৃদ্ধদের নিয়ে গৃহহারা-দেশহারা-নিরাশ্রয় মানুষগুলো সমুদ্রে ভাসছে। তাদের খাবার, পানীয়, আশ্রয়, আশা কিছুই নেই। এ যেন মৃত্যুপুরীতে জীবন-যাপন। আমরা বাংলাদেশ সরকারের নিরব দর্শকীয় এ আচরণ মানবতা বিরোধী মনে করছি। এ মুহুর্তে আমাদের মাত্র একটি আহ্বান, সীমান্ত খুলে দিন। মীমাংসা পরে হবে? মানুষ আগে বাঁচান। কারণ, আমরা মুসলমান, আর আমাদের সংবিধান, পবিত্র কুরআন বলছে ‘নিশ্চয় সকল মুমীন পরস্পর ভাই ভাই’। আমরা উম্মতে মুহাম্মদী। আমাদের নবী মুহাম্মদ মুস্তফা সা. বলেছেন, ‘সমস্ত মুসলিম একটি দেহের মতো’। এর কোন অংশে আঘাত লাগলে পুরোদেহই বেদনার্ত হয়ে পড়ে। প্রতিবেশীর ঘরে আগুন লাগলে যেমন এগিয়ে আসা সবার দায়িত্ব মিয়ানমারের ‘রোহিঙ্গা’ শরণার্থী মুসলমানদের পাশে দাঁড়ানো এ মুহূর্তে নিতান্তই গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু কথা হচ্ছে কে দাঁড়াবে তাদের পাশে? তারা তো তাকিয়ে আছে বিশ্বের লক্ষ লক্ষ মানবতাবাদী অথবা গণতন্ত্রবাদী মানুষের পানে। চেয়ে আছে ধরণীর দেড়শত কোটি মুসলমানের দিকে। মায়েরা ছেলেদের, বোনেরা ভাইদের, (যারা তাদের উদ্ধার করবে) প্রতিটি মুহুর্ত দৃষ্টি নিক্ষেপ করছে বাংলাদেশের আকাশের দিকে; এই বুঝি বাংলাদেশ সরকার ঘোষণা দিবে রোহিঙ্গারা অনুপ্রবেশ কারী নয়, প্রাণ রক্ষার জন্য তাদের প্রবেশের অনুমতি দেয়া হলো। অধম জানে না কথাগুলোর উত্তর কার বিবেচনায় কেমন। তাই সংগত কারণেই বলতে হচ্ছে রোহিঙ্গাদের পাশে দাঁড়ানোর কেউ নেই কু? আসুন স্রষ্টার প্রতি আমাদের একান্ত দাবিগুলোর মতো এ দাবিও উত্তাপন করি। হে আল্লাহ! রোহিঙ্গা মজলুম ভাই বোনদের জন্য তোমার কুদরতি নুসরাত পাঠাও। মহিমাময় যেন রোহিঙ্গাদের ধৈর্য্য ধারণের তৌফিক দেন। আসুন বাস্তবধর্মী পদ্ধতিতে তাদের পাশে দাড়াই।

এই সংবাদটি 1,063 বার পড়া হয়েছে

সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরনের সঙ্গে আলাপে রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশি নাগরিক বলে দাবি করেছেন মিয়ানমারের স্টেট কাউন্সেলর অং সান সু চি। ২০১০ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত ক্ষমতায় থাকার বিভিন্ন ঘটনা ও স্মৃতি নিয়ে গত বৃহস্পতিবার একটি বই প্রকাশ করেছেন ক্যামেরন। খবর নিউজউইক।  ‘ফর দ্য রেকর্ড’ নামক বইটিতে সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী সু চির সঙ্গে তার আলাপও তুলে ধরেছেন। যেখানে রোহিঙ্গারা বার্মিজ নয় বলে দাবি করেছেন মিয়ানমারের নেত্রী।  ১৯৯১ সালে শান্তিতে নোবেল পুরস্কার জয়ী সু চির সঙ্গে প্রথম আলাপ তুলে ধরে ক্যামেরন বইতে লেখেন, ‘আমি গণতন্ত্রপন্থী নেত্রী অং সান সু চির সাথে বৈঠক করি। তিনি শিগগিরই প্রেসিডেন্ট পদে লড়াই করবেন। ১৫ বছরের গৃহবন্দীত্ব থেকে সত্যিকার গণতন্ত্রের পথে যাত্রা, তার এ দারুণ গল্প নিয়েই আমরা কথা বলেছি।’  কিন্তু মাত্র এক বছর পরেই ক্যামেরন যখন সু চির সাথে লন্ডনে সাক্ষাৎ করেন তখন দেশটির অবস্থা, বিশেষ করে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর বিষয়ে সু চির অবস্থান নিয়ে স্মৃতিকথায় বিরক্তি প্রকাশ করেছেন সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী। তিনি লেখেন, ‘কিন্তু ২০১৩ সালের অক্টোবরে সু চি যখন লন্ডন সফরে আসেন, সবার চোখ তখন রোহিঙ্গা মুসলিমদের ওপর। তাদের নিজ বাসস্থান থেকে তাড়িয়ে দিচ্ছিল বৌদ্ধ রাখাইনরা। ধর্ষণ, হত্যা, জাতিগত নিধনসহ অনেক কিছুই আমরা শুনতে পাচ্ছিলাম। আমি তাকে বললাম, বিশ্ব সব দেখছে। তিনি উত্তর দিলেন, তারা আসলে বার্মিজ নয়, তারা বাংলাদেশি।’  রোহিঙ্গাদের নিয়ে এ বক্তব্য এমন সময় এল যখন জাতিসংঘের ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশন তাদের একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। যেখানে বলা হয়েছে, রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে হওয়া সহিংসতার দিকে মিয়ানমার সরকার নজর দিচ্ছে না। প্রতিবেদনে বলা হয়, মিয়ানমার গণহত্যার তদন্ত ও এতে জড়িত অপরাধীদের শাস্তি কার্যকর করতে ব্যর্থ হয়েছে।
সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরনের সঙ্গে আলাপে রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশি নাগরিক বলে দাবি করেছেন মিয়ানমারের স্টেট কাউন্সেলর অং সান সু চি। ২০১০ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত ক্ষমতায় থাকার বিভিন্ন ঘটনা ও স্মৃতি নিয়ে গত বৃহস্পতিবার একটি বই প্রকাশ করেছেন ক্যামেরন। খবর নিউজউইক। ‘ফর দ্য রেকর্ড’ নামক বইটিতে সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী সু চির সঙ্গে তার আলাপও তুলে ধরেছেন। যেখানে রোহিঙ্গারা বার্মিজ নয় বলে দাবি করেছেন মিয়ানমারের নেত্রী। ১৯৯১ সালে শান্তিতে নোবেল পুরস্কার জয়ী সু চির সঙ্গে প্রথম আলাপ তুলে ধরে ক্যামেরন বইতে লেখেন, ‘আমি গণতন্ত্রপন্থী নেত্রী অং সান সু চির সাথে বৈঠক করি। তিনি শিগগিরই প্রেসিডেন্ট পদে লড়াই করবেন। ১৫ বছরের গৃহবন্দীত্ব থেকে সত্যিকার গণতন্ত্রের পথে যাত্রা, তার এ দারুণ গল্প নিয়েই আমরা কথা বলেছি।’ কিন্তু মাত্র এক বছর পরেই ক্যামেরন যখন সু চির সাথে লন্ডনে সাক্ষাৎ করেন তখন দেশটির অবস্থা, বিশেষ করে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর বিষয়ে সু চির অবস্থান নিয়ে স্মৃতিকথায় বিরক্তি প্রকাশ করেছেন সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী। তিনি লেখেন, ‘কিন্তু ২০১৩ সালের অক্টোবরে সু চি যখন লন্ডন সফরে আসেন, সবার চোখ তখন রোহিঙ্গা মুসলিমদের ওপর। তাদের নিজ বাসস্থান থেকে তাড়িয়ে দিচ্ছিল বৌদ্ধ রাখাইনরা। ধর্ষণ, হত্যা, জাতিগত নিধনসহ অনেক কিছুই আমরা শুনতে পাচ্ছিলাম। আমি তাকে বললাম, বিশ্ব সব দেখছে। তিনি উত্তর দিলেন, তারা আসলে বার্মিজ নয়, তারা বাংলাদেশি।’ রোহিঙ্গাদের নিয়ে এ বক্তব্য এমন সময় এল যখন জাতিসংঘের ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশন তাদের একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। যেখানে বলা হয়েছে, রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে হওয়া সহিংসতার দিকে মিয়ানমার সরকার নজর দিচ্ছে না। প্রতিবেদনে বলা হয়, মিয়ানমার গণহত্যার তদন্ত ও এতে জড়িত অপরাধীদের শাস্তি কার্যকর করতে ব্যর্থ হয়েছে।
WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com